টনি হ্যারিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
টনি হ্যারিস
ব্যক্তিগত তথ্য
পূর্ণ নামটেরেন্স অ্যান্থনি হ্যারিস
জন্ম(১৯১৬-০৮-২৭)২৭ আগস্ট ১৯১৬
কিম্বার্লি, দক্ষিণ আফ্রিকা
মৃত্যু৭ মার্চ ১৯৯৩(1993-03-07) (বয়স ৭৬)
প্লেটেনবার্গ, কেপ প্রদেশ
ব্যাটিংয়ের ধরনডানহাতি
ভূমিকাব্যাটসম্যান
আন্তর্জাতিক তথ্য
জাতীয় পার্শ্ব
টেস্ট অভিষেক
(ক্যাপ ১৫৭)
৭ জুন ১৯৪৭ বনাম ইংল্যান্ড
শেষ টেস্ট১২ ফেব্রুয়ারি ১৯৪৯ বনাম ইংল্যান্ড
খেলোয়াড়ী জীবনের পরিসংখ্যান
প্রতিযোগিতা টেস্ট এফসি
ম্যাচ সংখ্যা ৫৫
রানের সংখ্যা ১০০ ৩০২৮
ব্যাটিং গড় ২৫.০০ ৪১.৪৭
১০০/৫০ ০/১ ৬/১৬
সর্বোচ্চ রান ৬০ ১৯১*
বল করেছে ৫৪
উইকেট
বোলিং গড়
ইনিংসে ৫ উইকেট
ম্যাচে ১০ উইকেট
সেরা বোলিং
ক্যাচ/স্ট্যাম্পিং ১/- ৫২/-
উৎস: ইএসপিএনক্রিকইনফো.কম, ২ ডিসেম্বর ২০১৯

টেরেন্স অ্যান্থনি হ্যারিস (ইংরেজি: Tony Harris; জন্ম: ২৭ আগস্ট, ১৯১৬ - মৃত্যু: ৭ মার্চ, ১৯৯৩) কিম্বার্লিতে জন্মগ্রহণকারী দক্ষিণ আফ্রিকান আন্তর্জাতিক ক্রিকেটার ও রাগবি ইউনিয়ন খেলোয়াড় ছিলেন। দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট দলের অন্যতম সদস্য ছিলেন তিনি। ১৯৪৭ থেকে ১৯৪৯ সময়কালে সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্যে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে অংশগ্রহণ করেছেন।

ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর দক্ষিণ আফ্রিকান ক্রিকেটে গটেং ও গ্রিকুয়াল্যান্ড ওয়েস্ট দলের প্রতিনিধিত্ব করেন টনি হ্যারিস। দলে তিনি মূলতঃ ডানহাতি ব্যাটসম্যান হিসেবে খেলতেন।

খেলোয়াড়ী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৩৩-৩৪ মৌসুম থেকে ১৯৪৮-৪৯ মৌসুম পর্যন্ত টনি হ্যারিসের প্রথম-শ্রেণীর খেলোয়াড়ী জীবন চলমান ছিল।

সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে তিনটিমাত্র টেস্টে অংশগ্রহণ করেছেন টনি হ্যারিস। ৭ জুন, ১৯৪৭ তারিখে নটিংহামে স্বাগতিক ইংল্যান্ড দলের বিপক্ষে টেস্ট ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তার। ১২ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪৯ তারিখে জোহেন্সবার্গে একই দলের বিপক্ষে সর্বশেষ টেস্টে অংশ নেন তিনি।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

ক্রিকেট খেলার পাশাপাশি রাগবি ইউনিয়ন খেলায় দক্ষ ছিলেন। ১৯৩০-এর দশকে দক্ষিণ আফ্রিকার পক্ষে পাঁচটি রাগবি ইউনিয়ন টেস্টে অংশ নিয়েছিলেন তিনি।[১]

৭ মার্চ, ১৯৯৩ তারিখে ৭৬ বছর বয়সে কেপ প্রদেশের প্লেটেনবার্গ এলাকায় টনি হ্যারিসের দেহাবসান ঘটে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Terence Anthony Harris"ESPN scrum। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]