গুরুদাসপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

গুরুদাসপুর পাইলট মডেল সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় বাংলাদেশের নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার একটি সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়। নাটোর জেলার মধ্যে এটি একটি প্রসিদ্ধ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। প্রতি বছর মাধ্যমিক পরীক্ষায় বিদ্যালয়ের ফলাফল এবং সকল শিক্ষার্থীর উন্নত নৈতিক আচরণের জন্যে বিদ্যালয়টি খ্যাত।

অবস্থান[সম্পাদনা]

রাজশাহী বিভাগের নাটোর জেলার গুরুদাসপুর উপজেলার সদরে অবস্থিত। স্থানাঙ্ক: ২৪°২২′৫″ উত্তর ৮৯°১৪′৫১″ পূর্ব / ২৪.৩৬৮০৬° উত্তর ৮৯.২৪৭৫০° পূর্ব[সম্পাদনা]

গুরুদাসপুর উপজেলা

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

বিদ্যালয়টিতে মোট ৩ টি ভবন রয়েছে।১টি জেনারেল স্টুডেন্ট দের জন্য।১টি কারিগরি ভবন এবং একটি পুরনো ভবন।মূলত এটি এই স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রদের স্মৃতি।
  • মোট কক্ষ:৮৯ টি
  • শিক্ষক মিলনায়তন :১টি
  • প্রধান শিক্ষকের কক্ষ:১টি
  • লাইব্রেরি :১টি
  • ওয়াশ ব্লক :১২ টি
  • সততা স্টোর :১ টি
  • কমন রুম:৯ টি
  • কম্পিউটার ল্যাব:৬ টি
  • স্মার্ট বোর্ড রুম:২টি
  • ক্লাস রুম:৫৬ টি
প্রতিটি শ্রেণী কক্ষের অবকাঠামো

আয়তন :আয়াতাকার

  • দৈর্ঘ্য :১০ মিটার (গড়)
  • প্রস্থ: ৭.৮৭মিটার (গড়)
  • বেঞ্চ:২৫-২৭ টা (এটাস্ট)
  • টেবিল:১টি
  • চেয়ার:১টি
  • মাল্টিমিডিয়া প্রজেক্টর:১ টি
  • ব্লাক বোর্ড :১ টি
  • হোয়াইট বোর্ড:১টি
  • জানালা:৪ টি
  • দরজা:২-৩টি
  • স্পিকার:২ টি

ইতিহাস[সম্পাদনা]

গুরুদাসপুর পাইলট মডেল উচ্চ বিদ্যালয় ১৯১৭ সালে নির্মাণ হয়। তৎকালীন নাটোর মহাকুমার শিক্ষিত সমাজের কিছু জ্ঞ্যান পিপাসু মানুষের সাহায্যে ও উদ্যোগে গড়ে ওঠে বিদ্যালয়টি। গত ২৬ এ জানুয়ারী ২০১৮ সালে বিদ্যালয়টির ১০০ বছর পূর্তী হয়|

শিক্ষার্থী ও শিক্ষক[সম্পাদনা]

লাতিন ভাষায় লেখা অভিধানের বই।

মোট শিক্ষার্থী সংখ্যা:১৪০০ প্রায়

ছাত্র:৮৫০ জন প্রায় ছাত্রি:৫৫০ জন প্রায়

শিক্ষক: ৩৬ জন

প্রধান শিক্ষক:জাহাঙ্গীর আলম

সহকারী প্রধান শিক্ষক : মতিউর রহমান

শ্রেণী, বিভাগ ও শাখা সমূহ[সম্পাদনা]

মূলত এই বিদ্যালয় ৬ষ্ঠ থেকে ১০ শ্রেণী পর্যন্ত লেখা পরা করারা সুযোগ রয়েছে।

৬ষ্ঠ শ্রেণী : শাখা:ক,খ,গ

৭ম শ্রেণী : শাখা:ক,খ

৮ম শ্রেণী : শাখা:ক,খ

৯ম শ্রেণী : বিভাগ:বিজ্ঞান,মানবিক, কমার্স

১০ম শ্রেণী : বিভাগ:বিজ্ঞান,মানবিক, কমার্স

পোষাক ও রঙ[সম্পাদনা]

ছেলে: সাদা ও কালো মেয়ে: সবুজ ও সাদা

সংঘ[সম্পাদনা]

  • কাব স্কাউট
  • সূর্য কিশোর
  • স্বণ কিশোরী

স্কাউট ইউনিফর্ম[সম্পাদনা]


বাংলাদেশ স্কাউটসের ইউনিফর্ম

যে কেউ স্কাউট আন্দোলনের শপথ নিলেই তাকে স্কাউট ইউনিফর্ম পরিধান করতে হয়। ইউনিফর্ম গণতন্ত্ৰের চিহ্ন এবং একাত্ববোধের পরিচয় বহন করে। কাব স্কাউটস, স্কাউটস, রোভার স্কাউটস এবং প্ৰশিক্ষকদের জন্য স্বতন্ত্ৰ ইউনিফর্ম রয়েছে। ছেলেদের জন্য ছাঁই রংয়ের শার্ট এবং গাঢ় নেভি ব্লু রংয়ের ট্ৰাউজার; মেয়েদের জন্য ছাঁই রংয়ের জামা, গাঢ় নেভি ব্লু ট্ৰাউজার এবং ওড়না। মহিলা প্ৰশিক্ষক ছাঁই রংয়ের শাড়ি এবং গাঢ় নেভি ব্লু ব্লাউজ পরিধান করে থাকেন। প্ৰত্যেক স্কাউটকে কালো সু, নেভি ব্লু ক্যাপ এবং স্বতন্ত্ৰ স্কার্ফ পরিধান করতে হয়। সকল স্কাউট এর দলীয় স্কার্ফ পরিধান বাধ্যতামূলক।

সততা স্টোর[সম্পাদনা]

সততা স্টোর হল একটি মুদি খানার দোকান যেখানে শিক্ষার্থীরা তাদের প্রয়োজনীয় দ্রব্য সামগ্রী সংগ্রহ করতে পারে। তবে এই দোকানে কোন দোকানী নেই। ছেলে মেয়েরা তাদের প্রয়োজনীয় জিনিসটি ক্রয় করে এবং বাক্সে টাকা জমা রাখে। যাে শিক্ষার্থীদের অসৎ উপায় থেকে বিরত থাকার অভ্যাস গড়ে তুলতে এবং নৈতিকতা গড়তে সাহায্য করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]