ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যারো ২ অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র
এজিস ব্যালিস্টিক মিসাইল প্রতিরক্ষা সিস্টেম। একটি রিম -১৬১ স্ট্যান্ডার্ড অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র মার্কিন নৌবাহিনীর টিকনডেরোগা ক্লাস ক্রুজার থেকে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল।
আরএএফ ফাইলিংডেলসে অ্যারে ব্যালিস্টিক মিসাইল আর্লি ওয়ার্নিং সিস্টেম

ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা একটি প্রতিরক্ষা সিস্টেম, অস্ত্র বা প্রযুক্তি যা আক্রমণকারী মিসাইলগুলি সনাক্তকরণ, ট্র্যাকিং, বাধাদান এবং ধ্বংসের সাথে জড়িত। মূলত এটিকে পরমাণু শক্তিধর আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইল (আইসিবিএম) এর মতো অস্ত্রের বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা হিসেবে ভাবা হয়। তবে বর্তমানে অ-পারমাণবিক অন্তর্ভুক্ত ক্ষেপণাস্ত্রগুলোর বিরুদ্ধে ব্যবহার করা প্রসার লাভ করেছে কারণ এখন ব্যাপকহারে কৌশলী এবং থিয়েটার মিসাইলের উন্নতিকরণ চলছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, রাশিয়া, চীন, ভারত, ইস্রায়েল, ফ্রান্স এবং তাইওয়ান সকলেই এ জাতীয় প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা তৈরি করেছে। [১] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মিসাইল প্রতিরক্ষা মূলত মার্কিন সেনাবাহিনীর দায়িত্ব ছিল। মার্কিন ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা সংস্থা সামুদ্রিক সিস্টেম এবং কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণ সিস্টেম তৈরি করেছে যা শেষ পর্যন্ত অপারেশন এবং টেকসই করার জন্য নৌবাহিনী এবং বিমানবাহিনীর হাতে স্থানান্তরিত করা হবে।

ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা বিভাগ[সম্পাদনা]

ভারতের উন্নত বিমান প্রতিরক্ষা (এএডি) এন্ডো-বায়ুমণ্ডলীয় অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক মিসাইল

ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষার বিভিন্ন বৈশিষ্ট্যের উপর ভিত্তি করে বিভাগগুলিতে বিভক্ত করা যেতে পারে: ক্ষেপণাস্ত্রের প্রকার / পরিসীমা বাধা দেওয়া, ট্র্যাজেক্টরি পর্ব যেখানে বিরতি ঘটে এবং পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলের অভ্যন্তরে বা বাইরে বাধা রয়েছে কিনা:

ক্ষেপণাস্ত্রের ধরণ / পরিসীমা বাধা দেওয়া[সম্পাদনা]

এই ধরনের / ব্যাপ্তিতে থিয়েটার এবং কৌশলগত ক্ষেপণাস্ত্র অন্তর্ভুক্ত। প্রতিটিতে ইন্টারসেপ্টের জন্য অনন্য প্রয়োজনীয়তা হলো বাধা দিতে সক্ষমতা, এটি আবশ্যক, এবং একাধিক ক্ষেপণাস্ত্রের ধরনকে প্রায় সময়ই একটি ডিফেন্সিভ সিস্টেম বাধা দিতে পারে না। তবে সামর্থ্যের মাঝে অনেকসময় ওভারল্যাপ হয়।

বায়ুমণ্ডলের সাথে সম্পর্কিত বিরতি অবস্থান[সম্পাদনা]

কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণ[সম্পাদনা]

১২৭ তম কমান্ড এবং নিয়ন্ত্রণ স্কোয়াড্রনের সাধারণ গ্রাউন্ড সিস্টেম

কমান্ড ও নিয়ন্ত্রণ, যুদ্ধ পরিচালনা এবং যোগাযোগ[সম্পাদনা]

কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সিস্টেমগুলো একটি হার্ডওয়্যার এবং সফ্টওয়্যার ভিত্তিক ইন্টারফেস নিয়ে গঠিত যা ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা সিস্টেমের (বিএমডিএস) কেন্দ্রিয়ায়িত কেন্দ্রে সংবেদনশীল তথ্যের একটি বিশাল সংখ্যাকে একীভূত করে। কমান্ড কেন্দ্রে অন্তর্ভুক্ত সংবেদক তথ্য- বিএমডিএসের স্থিতি, সিস্টেমের কভারেজ এবং ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের আক্রমণ অনুসারে ব্যবস্থাটিকে মানব পরিচালনার অনুমতি দেয়। ইন্টারফেস সিস্টেম যুদ্ধের পরিস্থিতি বা পরিস্থিতির একটি চিত্র তৈরিতে সহায়তা করে যা ব্যবহারকারীকে সর্বোত্তম ফায়ারিং সমাধান নির্বাচন করতে সক্ষম করে তুলে।[২][৩][৪]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের কৌশলগত কমান্ডের সিল
ইউএসসিজি কমান্ড নিয়ন্ত্রণ এবং যোগাযোগ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের শেষ বছরটিতে এই সমস্যার সমাধান নিয়ে প্রথম অধ্যয়ন করা হয়। ওইসময় ভি -২ ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে একমাত্র পাল্টা প্রতিরোধ ছিল বিমানবিরোধী বন্দুকের বিশাল ব্যারাজ বা বন্দুকের গুলি। ক্ষেপণাস্ত্রটির ট্রাজেক্টোরি সঠিকভাবে গণনা করা হলে বন্দুকগুলির মাধ্যমে স্থলে বিস্ফোরণের আগে এটি ধ্বংস করার সামান্য সম্ভাবনা থাকে। এছাড়াও, ওই বন্দুকের ছোঁড়া গুলি গুলো যখন মাটিতে পড়ে তখন প্রকৃত ক্ষেপণাস্ত্রের চেয়ে আরও বেশি ক্ষতি হত। অপারেশনাল পরীক্ষার পরিকল্পনা যেভাবেই হোক শুরু হয়েছিল, কিন্তু নেদারল্যান্ডসে ভি -২ চালু করার সাইটগুলি যখন ধরা পড়ে তখন এই ধারণাটি বাস্তবে রূপান্তরিত হয়।[৫]

১৯৫০ এবং ১৯৬০ এর দশকে, ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা মানে কৌশলগত (সাধারণত পারমাণবিক সজ্জিত) ক্ষেপণাস্ত্রগুলির বিরুদ্ধে প্রতিরক্ষা প্রযুক্তিটি বেশিরভাগ আক্রমণাত্মক প্রবর্তন ইভেন্টগুলি সনাক্তকরণ এবং অন্তর্মুখী ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রগুলি ট্র্যাক করার আশেপাশে কেন্দ্রিক ছিল। তবে ক্ষেপণাস্ত্রের বিরুদ্ধে আসলে প্রতিরক্ষার সীমাবদ্ধ ক্ষমতা সহ সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৬১ সালের ৪ ই মার্চ স্যারি শাগান অ্যান্টি ব্যালেস্টিক ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা পরীক্ষা করে এইসময় একটি ক্ষেপণাস্ত্র দ্বারা ব্যালিস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রের প্রথম অবিচ্ছিন্ন পথ রোধ করার সফলতা অর্জন করে।

নাইকি হারকিউলিস ক্ষেপণাস্ত্র

প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা এবং উদ্যোগ[সম্পাদনা]

  • আকাশ ক্ষেপণাস্ত্র পৃষ্ঠ থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা
  • তীর মিসাইল
  • চ-সাম (中 এসএএম) জাপানের জেজিএসডিএফ মাঝারি-রেঞ্জের সারফেস থেকে এয়ার মিসাইল
  • ডেভিড স্লিং
  • এইচকিউ -৯ আঞ্চলিক বিমান প্রতিরক্ষা / অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক মিসাইল
  • আইছডিএম দ্য এসএমডিসি সেনাবাহিনীর লেজার প্রতিস্থাপন প্রচেষ্টার নেতৃত্ব দিচ্ছে এমআইএম-১০৪ প্যাট্রিয়ট।
  • ভারতীয় ব্যালিস্টিক মিসাইল প্রতিরক্ষা প্রোগ্রাম।
  • আয়রন ডোম
  • ইতালিয়ান-ফরাসি এসএএমপি/টি মিসাইল এয়ার ডিফেন্স সিস্টেম
  • কেএস-১ আঞ্চলিক বিমান প্রতিরক্ষা ক্ষেপণাস্ত্র
  • এল-স্যাম
  • মাঝারি প্রসারিত বিমান প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা (এমইএডিএস)
  • ক্য্যান্ট্রি পৃষ্ঠ থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র ব্যবস্থা
  • হক্ক মাঝারি পরিসীমা পৃষ্ঠ থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র (এসএএম) সিস্টেম
  • রিম -১৬১ স্ট্যান্ডার্ড মিসাইল ৩
  • রাশিয়ান এ-১৩৫ অ্যান্টি-ব্যালিস্টিক মিসাইল সিস্টেম
  • এস -৪০০ ট্রায়াম্ফ
  • স্কাইগার্ড রাসায়নিক লেজার-ভিত্তিক অঞ্চল প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা নর্থরোপ গ্রুমম্যান প্রস্তাবিত
  • স্কাই বো
  • কৌশলগত প্রতিরক্ষা উদ্যোগ ("স্টার ওয়ার্স")
  • টার্মিনাল উচ্চ উচ্চতা অঞ্চল প্রতিরক্ষা (থাড)
  • গল বিমানবন্দরের পৃষ্ঠ থেকে বায়ু ক্ষেপণাস্ত্র সুরক্ষা ব্যবস্থা

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Demonstration of integrated missile air defense system by June next year: Dr VK Saraswat"। domain-b.com। ১০ ডিসেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১০ 
  2. "Command and Control" 
  3. Pigeau, Ross। "RE-CONCEPTUALIZING COMMAND AND CONTROL" (PDF) 
  4. "Command and Control, Battle Management, and Communications" 
  5. Jeremy Stocker, "Britain and Ballistic Missile Defence, 1942–2002" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৭ তারিখে, pp. 20–28.