ক্রিকেট হেলমেট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
The Masuri Group Original Series MKII cricket helmet
মাসুরি গ্রুপ মূল সিরিজ এমকেআইআই ক্রিকেট হেলমেট

ক্রিকেট হেলমেট, হল এক ধরনের হেলমেট, যা ক্রিকেট খেলোয়াড়েরা আঘাত থেকে রক্ষা পেতে মাথায় পরিধান করে। ক্রিকেটে হেলমেটগুলি বিশ শতকে উন্নত হয়েছিল।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ক্রিকেট ইতিহাসের পুরো ইতিহাস জুড়ে নিজেকে রক্ষার জন্য স্কার্ফ এবং প্যাডযুক্ত ক্যাপ ব্যবহার করার ঘটনা রেকর্ড করা আছে। প্যাটসি হেনড্রেন ১৯৩০-এর দশকে প্রথম একটি স্ব-নকশাকৃত প্রতিরক্ষামূলক টুপি ব্যবহার করেছিলেন। ১৯৭০ এর দশক পর্যন্ত হেলমেটগুলির প্রচলন শুরু হয় নি। ওয়ার্ল্ড সিরিজ ক্রিকেটে প্রথম হেলমেট দেখা গেছে, প্রথম খেলোয়াড় ডেনিস অ্যামিস ধারাবাহিকভাবে হেলমেট পরতেন যা ছিল বিশেষভাবে পরিবর্তিত মোটরসাইকেল হেলমেট। [১][২]

অন্য খেলোয়াড়দের মধ্যে মাইক ব্রিয়ারলি নিজের নকশা করা হেলমেট পরতেন। টনি গ্রেগের মতে তারা বোলারদের বাউন্সার দিতে উৎসাহ দিয়ে ক্রিকেটকে আরও বিপজ্জনক করে তুলবেন। ১৭ মার্চ ১৯৭৮ -এ ব্রিজটাউনে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অনুষ্ঠিত টেস্ট ম্যাচে অস্ট্রেলীয় গ্রাহাম ইয়ালপ প্রথম একটি প্রতিরক্ষামূলক শিরস্ত্রাণ পরিধান করেছিলেন। [৩] পরে ইংল্যান্ডের ডেনিস অ্যামিস টেস্ট ক্রিকেটে এটি জনপ্রিয় করে তোলেন। এরপরে হেলমেট পরিধান করা ব্যাপকভাবে শুরু হয়।

ক্যারিয়ার জুড়ে কখনও হেলমেট না পরা সর্বোচ্চ (টেস্ট ম্যাচ) স্তরের শেষ ব্যাটসম্যান হলেন ভিভ রিচার্ডস, যিনি ১৯৯১ সালে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিয়েছিলেন।

আধুনিক দিনের ক্রিকেট হেলমেট[সম্পাদনা]

আধুনিক ক্রিকেট হেলমেটগুলি আন্তর্জাতিক ক্রিকেট কাউন্সিলের (আইসিসি) সাম্প্রতিক সুরক্ষা মান অনুযায়ী তৈরি করা হয় [৪] এবং ব্রিটিশ স্ট্যান্ডার্ড বিএস৭৯২৮:২০১৩ মেনে চলতে হয়।

ক্রিকেট হেলমেট তৈরির জন্য ব্যবহৃত পদার্থগুলি হ'ল এবিএস প্লাস্টিক, ফাইবারগ্লাস, কার্বন ফাইবার, টাইটানিয়াম, ইস্পাত এবং উচ্চ ঘনত্বের ফোম ইত্যাদির মতো প্রতিরোধের উপাদান। ক্রিকেট হেলমেটের প্রধান অংশ গ্রিল (স্টিল, টাইটানিয়াম বা কার্বন ফাইবার দিয়ে তৈরি), চিবুকের সরু ফালি, অভ্যন্তরীণ ফোম উপাদান, বহিরাগত প্রভাব প্রতিরোধী শেল ইত্যাদি।

আইন[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের হিসাবে, আইসিসি হেলমেট পরার বিষয়ে প্রয়োজনীয় আইন পাস করতে অস্বীকার করেছে, বরং প্রতিটি দেশকে তাদের সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য ছেড়ে দিয়েছে। [৫] তবে, যদিও ব্যাটসম্যানের জন্য হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক নয়, তবে যদি তিনি তা করেন, তবে হেলমেটকে অবশ্যই নির্দিষ্ট সুরক্ষা মানের হতে হবে, এই নিয়মের জন্য সমস্ত টেস্ট খেলোয়াড় দেশ সম্মত হয়েছে। [৬]

২০১৬ সালের হিসাবে প্রথম শ্রেণির ক্রিকেটে ইংল্যান্ড এবং ওয়েলস ক্রিকেট বোর্ডের উইকেট থেকে ৮ গজেরও বেশি কাছের সমস্ত ব্যাটসম্যান, উইকেটকিপার এবং ফিল্ডারকে হেলমেট পরা প্রয়োজন। [৭][৮] মাঝারি গতি এবং স্পিন বোলিংয়ের মুখোমুখি হয়েও এটি বাধ্যতামূলক। [৯] নিউজিল্যান্ড ক্রিকেট এবং ভারতের ক্রিকেট বোর্ডের নিয়ন্ত্রণে ব্যাটসম্যানদের হেলমেট পরার দরকার নেই। [১০][১১][১২]

খেলোয়াড়দের বিরোধিতা[সম্পাদনা]

অনেক খেলোয়াড় হেলমেট পরতে অস্বীকার করেছিলেন, এটা বিশ্বাস করে যে ব্যাটিংয়ের সময় এটা তাদের দৃষ্টি প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করে বা আইস হকিতে একই রকম বিতর্ক হয়েছিল, অনেক দর্শকের দৃষ্টিতে হেলমেট পরিধান অমানবিক। বিশ্ব সিরিজ ক্রিকেট ম্যাচের সময় আধুনিক খেলায় হেলমেট পরা প্রথম খেলোয়াড় ছিলেন ইংরেজ ডেনিস অ্যামিস, যার জন্য দর্শক এবং অন্যান্য খেলোয়াড় তাঁকে উপহাস করেছিলেন। [১৩] ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ১৯৭৮ সালের ম্যাচে প্রথমবারের মতো হেলমেট পরা ওয়েস্ট ইন্ডিজের অধিনায়ক ভিভ রিচার্ডসকে কাপুরুষোচিত বলা হয়েছিল, তখন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক গ্রাহাম ইয়ালাপকে উত্সাহ দেওয়া হয়েছিল। [১৪] ভারতের অধিনায়ক সুনীল গাভাস্কার বিশ্বাস করেতেন যে হেলমেট কোনও ব্যাটসম্যানকে ধীর করে দেয় এবং তিনি পরতে অস্বীকার করেছিলেন। [১৫] সাম্প্রতিক সময়ে অনেক ব্যাটসম্যান অনুভব করেছেন যে আধুনিক হেলমেট নকশা ক্রমশ প্রতিবন্ধক হয়ে উঠেছে। সবচেয়ে লক্ষণীয় বিষয়, ইংল্যান্ডের অধিনায়ক অ্যালাস্টার কুক এক সময় আইসিসির সুরক্ষা বিধি মেনে নতুন হেলমেট পরতে অস্বীকার করেছিলেন, কারণ তিনি অনুভব করেছিলেন যে এটি বিভ্রান্তিকর এবং অস্বস্তিকর। [১৬] ইংল্যান্ডের সতীর্থ জোনাথন ট্রটও অনুরূপ কারণে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন এবং সতীর্থ নিক কমপটন ( ফিলিপ হিউজের ঘনিষ্ঠ বন্ধু) মনে করেছিলেন যে নতুন বিধিগুলি অতিমাত্রায় সংবেদনশীল। [১৭]

ক্রিকেটের হেলমেট নির্মাতারা[সম্পাদনা]

ক্রিকেট হেলমেট প্রস্তুতকারক এবং ব্র্যান্ড অনেক রয়েছে। এর মধ্যে কয়েকটি হল গুন অ্যান্ড মুর, স্যানস্প্যারিল গ্রিনল্যান্ডস এবং সারিন স্পোর্টস ইন্ডাস্ট্রিজ

অনেক পেশাদার ক্রিকেট খেলোয়াড় মাসুরি ক্রিকেট হেলমেট পরতে পছন্দ করেন। ২০১৯ সালের ক্রিকেট বিশ্বকাপে প্রায় ৭০% খেলোয়াড় ব্র্যান্ডটি পরেছিলেন,[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] মাসুরি হল প্রথম ঘাড় রক্ষকের মূল উদ্ভাবক,[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] প্রতিরক্ষামূলক সরঞ্জামের একটি অতিরিক্ত টুকরা যা তারা ২০১৫ সালে স্টেমগার্ড চালু করার সময় ক্রিকেটের হেলমেটের পিছনে সংযুক্ত করেছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Briggs, Simon। "Amiss unearths helmet that changed the game"Telegraph.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জানুয়ারি ২০১৩ 
  2. "The bravery of the batsman"The Economist। ২৬ নভেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৬ নভেম্বর ২০১৪until the late 1970s helmets were unheard of; batsmen wore nothing to protect their noggins except a cloth cap. When they began to creep into the game—Dennis Amiss, an English batsman, is usually cited as the first to wear one regularly during the 1978 World Series Cricket tournament—they were essentially adapted motorcycle helmets. Batsmen who donned them were sometimes mocked as cowards. 
  3. "England opener Michael Carberry's space-age helmet turns heads"The Daily Telegraph (Sydney)News Corp Australia। ২২ নভেম্বর ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ৮ ডিসেম্বর ২০১৩ 
  4. "ICC announces new regulations for helmet safety"Cricinfo (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৪-২০ 
  5. "ICC introduces new helmet regulations"Icc-cricket.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  6. "ICC announces new regulations for helmet safety"Espncricinfo.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  7. "ECB confirms professional cricketers must wear helmets"Espncricinfo.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  8. "Helmets must be worn by professional cricketers in England next season"The Guardian। ২৭ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  9. "Helmet use to be made mandatory in first-class cricket in England"Bbc.co.uk। ২৬ নভেম্বর ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  10. "New Zealand Cricket to bring in new safety measures, but helmets set to stay optional"Stuff.co.nz। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  11. "CRICKET WELLINGTON - New Zealand Cricket's Helmet Policy"Cricketwellington.co.nz। ১৭ নভেম্বর ২০১৬। ১১ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  12. "Cricket is a game but life isn't: BCCI must learn from the past to make helmets compulsory at all levels"Firstpost.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  13. "Archived copy"। ২০১৭-১২-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১২-০৬ 
  14. Linden, Julian। "Cricket-Batsman's death turns attention on helmets"Uk.reuters.com। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  15. "Gavaskar didn't wear helmets because of reading habit"India Today। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  16. Selvey, Mike (১৫ এপ্রিল ২০১৬)। "Alastair Cook treads a fine line with his batting helmet stubbornness - Mike Selvey"The Guardian। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮ 
  17. Hoult, Nick (১৮ এপ্রিল ২০১৬)। "Jonathan Trott joins Alastair Cook in rejecting new safety approved helmet"Telegraph.co.uk। সংগ্রহের তারিখ ১৩ আগস্ট ২০১৮