কালো শকুন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
Coragyps atratus
Coragyps-atratus-001.jpg
Coragyps atratus brasiliensis পানামায়
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস e
অপরিচিত শ্রেণী (ঠিক করুন): Coragyps
প্রজাতি: C. atratus
দ্বিপদী নাম
Coragyps atratus
(Bechstein, 1793)
Subspecies
  • C. a. atratus Bechstein, ১৭৯৩
    North American black vulture
  • C. a. foetens Lichtenstein, ১৮১৭
    Andean black vulture
  • C. a. brasiliensis Bonaparte, ১৮৫০
    Southern American black vulture
AmericanBlackVultureMap.png
Approximate range/distribution map of the black vulture
প্রতিশব্দ

Cathartidarum Winge, 1888

কালো শকুন (ইংরেজী: ব্লাক ভালচার, বৈজ্ঞানিক নাম: Coragyps atratus), আমেরিকার কালো শকুন নামেও পরিচিত, যুক্তরাষ্ট্রের দক্ষিণ পুর্বাংশ থেকে দক্ষিণ আমেরিকার চিলি ও আর্জেন্টিনা পর্যন্ত দেখতে পাওয়া যায়। টার্কি ভালচারের মত এদের সচরাচর দেখা গেলেও এরা খুব সীমিত অঞ্চলে বাস করে। টার্কি শকুন কানাডা থেকে টিয়েরা দেল ফুয়েগো পর্যন্ত দেখতে পাওয়া যায়। নামে এবং চেহারায় মিল থাকা সত্বেও এরা ইউরাসিন ব্লাক ভালচার থেকে আলাদা। ইউরাসিন ব্লাক ভালচার একসিপিট্রিডি পরিবারের সদস্য, ঈগল, বাজপাখি, চিলও এই একই পরিবারের সদস্য। আর আমেরিকার কালো শকুন ক্যাথারটিডি পরিবারের সদস্য।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

কোরাজিপস আট্রাটাস ব্রাসিলিয়েনসিস

কালো শকুন বড় আকারের শিকারী পাখি। লম্বায় ৫৬–৭৪ সেমি (২২–২৯ ইঞ্চি), ডানার বিস্তৃতি ১.৩৩–১.৬৭ মি (৫২–৬৬ ইঞ্চি) পর্যন্ত হয়[২]। উত্তর আমেরিকা ও আন্দিজ রেঞ্জের কালো শকুনের ওজন ১.৬ থেকে ৩ কেজি কিন্তু ট্রপিকাল নিম্নভূমির শকুনের আকার ছোট এবং ওজন ১.১৮–১.৯৪ কেজি (২.৬–৪.৩ পা)[৩][৪] হয়। এদের পালক কালো। মাথা এবং গলা পালকহীন। চামড়া গাঢ় ধূসর এবং কোঁচকানো। চোখের আইরিশ বাদামী এবং উপরের পাতায় একটি ও নিচের পাতায় দুটি অসম্পূর্ণ ভুরুর উপস্থিতি দেখা যায়[৫]। পা ধূসর সাদা। পায়ের পাতার সামনের আঙুল দুটো বেশ বড় এবং এগুলোর গোড়ায় শাখা প্রশাখা আছে। পায়ের পাতা চওড়া কিন্তু তুলনামূলকভাবে দুর্বল।

শ্রেণীবিন্যাস[সম্পাদনা]

কালো শকুনের ইংরেজী নাম ব্লাক ভালচারের ভালচার শব্দটি এসেছে লাতিন শব্দ ভালচারাস থেকে যার অর্থ যারা ছিড়ে খায় এবং এটা দিয়ে এদের খাবার অভ্যেষকে বর্ণনা করা হয়[৬]। এদের প্রজাতি নাম আট্রাটাস অর্থ কালোয় আবৃত[৭] যা ল্যাটিন শব্দ আটার (কালো)[৮] থেকে এসেছে আর গণ নাম কোরাজিপস অর্থ দাঁড়কাক-শকুন[৯] এসেছে গ্রীক শব্দ কোরাক্স(corax/κόραξ) ও জিপস থেকে(gyps/γὺψ) থেকে। আর পরিবার নাম ক্যাথারটিডি এসেছে গ্রীক kathartēs/καθαρτης থেকে।[৯][১০]

আবাস্থল[সম্পাদনা]

কালো শকুনদের নিয়ার্টিক ও নিয়োট্রপিক অঞ্চলে দেখতে পাওয়া যায়। এদের বসবাসের সীমানা হচ্ছে মধ্য আটলান্টিক রাজ্যসমূহ, সর্বদক্ষিণে মধ্যপশ্চিম যুক্তরাষ্ট্র এবং দক্ষিণ যুক্তরাষ্ট্র, মেক্সিকো, মধ্য আমেরিকা এবং বেশিরভাগ দক্ষিণ আমেরিকা। এরা নির্দিষ্ট সীমানাতেই বাস করে।

স্বভাব[সম্পাদনা]

এরা গ্লাইডিং করার সময়ে ডানা বাতাসে সমান্তরাল ভাবে ভাসিয়ে রাখে। ওড়ার সময়ে টার্কি ভালচারের তুলনায় কালো শকুন ঘন ঘন ডানা ঝাপটায়। কালো শকুন দলবেঁধে ঘোরে। দলবেঁধে এরা খুব সহজে শত্রু টার্কি শকুনকে তাড়িয়ে দিতে পারে। কালো শকুন সাধারণত ক্যারিয়ন এর মাংস খায়। প্রাণীদেহের মৃত গলা দেহকে ক্যারিয়ন বলা হয়। ঘনজনবসতিপূর্ণ এলাকায় এরা ময়লা আবর্জনার স্তুপে খাবার খোঁজে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Coragyps atratus"বিপদগ্রস্ত প্রজাতির আইইউসিএন লাল তালিকা। সংস্করণ 2013.2প্রকৃতি সংরক্ষণের জন্য আন্তর্জাতিক ইউনিয়ন। ২০১২। সংগৃহীত ২৬ নভেম্বর ২০১৩ 
  2. "Nature Guides"। Enature.com। সংগৃহীত ২০১৪-০৬-০২ 
  3. Black Vulture, Life History, All About Birds – Cornell Lab of Ornithology. allaboutbirds.org
  4. Ferguson-Lees, James & Christie, David A. (২০০১)। Raptors of the World। Houghton Mifflin Harcourt। পৃ: ৩০৯। আইএসবিএন 978-0-618-12762-7 
  5. Fisher, Harvey L. (ফেব্রুয়ারি ১৯৪২)। "The Pterylosis of the Andean Condor"। Condor 44 (1): 30–32। জেএসটিওআর 1364195ডিওআই:10.2307/1364195 
  6. হলোওয়ে, জোয়েল এলিস (২০০৩)। Dictionary of Birds of the United States: Scientific and Common Names। টিমবার প্রেস। পৃ: ৫৯। আইএসবিএন 0-88192-600-0 
  7. Whitaker, William। "Words by William Whitaker"। সংগৃহীত নভেম্বর ৫, ২০০৭ 
  8. Simpson, D.P. (১৯৭৯)। Cassell's Latin Dictionary (5th সংস্করণ)। London: Cassell Ltd.। পৃ: ৮৮৩। আইএসবিএন 0-304-52257-0 
  9. Ietaka, Taro। "Moving Beyond Common Names"আসল থেকে ২০০৫-০৫-০৪-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত নভেম্বর ৫, ২০০৭ 
  10. Liddell, Henry George; Robert Scott (১৯৮০)। Greek-English Lexicon, Abridged Edition। Oxford: Oxford University Press। আইএসবিএন 0-19-910207-4 

বহি:সংযোগ[সম্পাদনা]