এস এম মতিউর রহমান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এস এম মতিউর রহমান
আনুগত্য বাংলাদেশ
সার্ভিস/শাখা বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
কার্যকাল১৯৮৫ - বর্তমান
পদমর্যাদাBangladesh-army-OF-8.svgBD Army Lieutenant General Star Plate.svg
লেফট্যানেন্ট জেনারেল
ইউনিটপদাতিক কোর
নেতৃত্বসমূহঅ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল - সেনা সদর দপ্তর
জিওসি - ৫৫তম পদাতিক ডিভিশন
জিওসি - ২৪তম পদাতিক ডিভিশন
জিওসি - অ্যার্টডক
• পরিচালক - সিটিআইবি,
৪৬তম স্বাধীন পদাতিক ব্রিগেড
• অতিরিক্ত ডিজি (অপারেশনস) - র‍্যাব
• সিও - ১ম প্যারাকম্যান্ডো ব্যাটালিয়ন
• বাংলাদেশী সামরিক বাহিনী কন্টিনজেন্ট - ইউএনওসিআই
যুদ্ধ/সংগ্রামইউএনওসিআই, ইউএনপিআরওচওআর

এস এম মতিউর রহমান এএফডব্লিউসি, পিএসসি, একজন থ্রি-স্টার পদমর্যাদার বাংলাদেশ সেনাবাহিনী অফিসার, একজন লেফটেন্যান্ট জেনারেল এবং বর্তমানে তিনি পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে রাষ্ট্রদূত হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। ইতিপূর্বে তিনি জিওসি, আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডক্টরিন কমান্ড (জিওসি এআরটিডিওসি), ময়মনসিংহ সেনানিবাস এর দায়িত্বে ছিলেন। তিনি ২৪ পদাতিক ডিভিশনের জিওসি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। [১] তিনি ট্রাস্ট ব্যাংক এর পরিচালনা পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যানও ছিলেন। তিনি ৫৫তম পদাতিক ডিভিশনের জেনারেল অফিসার কমান্ডিং (জিওসি) এবং যশোর এলাকার এরিয়া কমান্ডার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো (সিটিআইবি) প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর এর পরিচালক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ৪৬তম স্বাধীন পদাতিক ব্রিগেডের কমান্ডার হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়নের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন।

শিক্ষা ও প্রশিক্ষণ[সম্পাদনা]

জেনারেল মতিউর ১৩তম বিএমএ দীর্ঘ কোর্সে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি ডিসেম্বর ১৯৮৫ সালে পদাতিক বাহিনীতে কমিশন লাভ করেন। তিনি দেশে এবং বিদেশে বিভিন্ন পেশাগত প্রশিক্ষণ কোর্সে অংশগ্রহণ করেন। জেনারেল মতিউর তার প্রথম ক্যারিয়ারে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়ার ফোর্ট বেনিং এয়ার বোর্ন কোর্সে অংশ নিয়েছিলেন। তিনি ইনফ্যান্ট্রি অ্যান্ড টেকটিক্স স্কুল থেকে জাম্প মাস্টার কোর্স এবং ফ্রি ফল কোর্স সম্পন্ন করার জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অন্যতম অগ্রণী কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি মালয়েশিয়া থেকে জঙ্গল অপারেশন কোর্স সম্পন্ন করেছেন।

জেনারেল মতিউর ডিফেন্স সার্ভিসেস কমান্ড অ্যান্ড স্টাফ কলেজ এবং জাতীয় প্রতিরক্ষা কলেজ থেকে স্নাতক হন। একই সময়ে, তিনি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে যথাক্রমে ২০০০ এবং ২০০৭ সালে মাস্টার্স ইন ডিফেন্স স্টাডিজ (এমডিএস) এবং মাস্টার্স ইন ওয়ার স্টাডিজ (এমডব্লিউএস) সম্পন্ন করেন।[২]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

জেনারেল তার কর্মজীবনে ব্যাটালিয়ন, ব্রিগেড এবং ডিভিশন পর্যায়ে বিভিন্ন কমান্ড এবং কর্মী নিয়োগে ভূষিত হন। এছাড়াও, তিনি বহু বছর ধরে বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি এবং ইনফ্যান্ট্রি অ্যান্ড ট্যাকটিক্স স্কুলে প্রশিক্ষক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন এবং এইভাবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভবিষ্যৎ নেতাদের তৈরি ও সাজাতে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখেন।

জাতিসংঘ মিশন[সম্পাদনা]

যখন তিনি মেজর ছিলেন তখন ১৯৯৫-১৯৯৬ সালে সামরিক পর্যবেক্ষক হিসেবে সাবেক যুগোস্লাভিয়ায় জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশন এ অংশ নিয়েছিলেন। তিনি ২০০৮-২০০৯ সালে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা অভিযানের অংশ হিসেবে আইভরি কোস্টে একটি বাংলাদেশী সামরিক বাহিনীর নেতৃত্ব দেন।

র‍্যাব[সম্পাদনা]

কর্নেল হিসেবে তিনি র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন বাহিনীর অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশনস) নিয়োগ করেন। তার অধীনে বাংলাদেশে প্রথমবারের মতো আইনশৃঙ্খলা বাহিনী দক্ষিণ এশিয়া এর অন্যতম প্রধান সন্ত্রাসী সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদ এর সন্দেহভাজন সদস্যদের ধরে নিয়েছে।[৩]

সেনাবাহিনী[সম্পাদনা]

লেফটেন্যান্ট কর্নেল হিসেবে তিনি একটি পদাতিক ব্যাটালিয়ন এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর একমাত্র প্যারা-কমান্ডো ব্যাটালিয়নের অধিনায়ক ছিলেন। যখন তিনি ব্রিগেডিয়ার জেনারেল পদে উন্নীত হন, তখন তিনি ঢাকায় অবস্থিত বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর পদাতিক ব্রিগেড - ৪৬তম স্বাধীন পদাতিক ব্রিগেড কমান্ড করেন।[৪]

তিনি ৫৫তম পদাতিক ডিভিশনের জিওসি হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেন। তিনি অ্যাসল্ট রিভার ক্রসিং ২০১৬ আয়োজন করেছিলেন, যেখানে সেনাবাহিনী প্রথমবারের মতো ড্রোন ব্যবহার করে শত্রুর অবস্থান শনাক্ত করে।

তিনি ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ তারিখে সেনাবাহিনীর সদর দফতরে অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল হিসেবে যোগদান করেন। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যাডজুট্যান্ট জেনারেল হিসেবে তিনি আর্মি হাউজিং স্কিম, ক্যাডেট কলেজের গভর্নিং বডি, ট্রাস্ট ট্রান্সপোর্ট সার্ভিসেস এবং ট্রাস্ট টেকনিক্যাল ট্রেনিং ইনস্টিটিউটের চেয়ারম্যান। তিনি সেন কল্যাণ সংস্থার ব্যবস্থাপনা কমিটির চেয়ারম্যান এবং সেনা কল্যাণ ট্রাস্ট এবং সেনা হোটেল ডেভেলপমেন্টস লিমিটেডের ভাইস চেয়ারম্যান।[২] তিনি আর্মি গলফ ক্লাব (এজিসি), ঢাকা সেনানিবাসের বর্তমান সভাপতি।

সিটিআইবি[সম্পাদনা]

ব্রিগেডিয়ার জেনারেল হিসেবে তিনি কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ইন্টেলিজেন্স ব্যুরো (সিটিআইবি), প্রতিরক্ষা গোয়েন্দা মহাপরিদপ্তর (ডিজিএফআই) এর একটি শিশু এজেন্সির পরিচালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।


পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়

বর্তমানে তিনি রাষ্ট্রদূত হিসেবে কাজ করছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

মতিউর সৈয়দা তৌহিদা আজিজের সাথে বিবাহিত এবং দুই সন্তানের(মিনার ও রোজা)জনক।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Army top brass goes through reshuffle" 
  2. "Board of Directors"www.trustbank.com.bd। ২০১৬-১১-২০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৪ 
  3. "Jaish-e-Mohammed operative captured"The Daily Star। ২০১০-০৩-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১১-১৪ 
  4. "DSE Senior Vice‐President presenting crest to Brigadier General S M Matiur Rahman" (পিডিএফ)। ১৫ মে ২০১২ তারিখে মূল (পিডিএফ) থেকে আর্কাইভ করা।