অ্যার্টডক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ড
সক্রিয়২৫ জুলাই ২০০৭ – বর্তমান
দেশ বাংলাদেশ
শাখা বাংলাদেশ সেনাবাহিনী
গ্যারিসন/সদরদপ্তরময়মনসিংহ সেনানিবাস
কমান্ডার
বর্তমান
কমান্ডার
লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম মতিউর রহমান
উল্লেখযোগ্য
কমান্ডার
মেজর জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া-উর-রহমান (প্রথম ধারক)
মেজর জেনারেল আনোয়ার হোসেন
লেফটেন্যান্ট জেনারেল চৌধুরী হাসান সারওয়ার্দী
লেফটেন্যান্ট জেনারেল আজিজ আহমেদ
লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম শফিউদ্দিন আহমেদ
মেজর জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া-উর-রহমান, এনডিসি, পিএসসি, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অ্যার্টডক এর অগ্রদূত জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ছিলেন।

অ্যার্টডক (আর্মি ট্রেনিং অ্যান্ড ডকট্রিন কমান্ড) বাংলাদেশ সেনাবাহিনীতে থাকা একটি গবেষণা-ভিত্তিক গঠনস্তর। এর সদর দপ্তর ময়মনসিংহের ময়মনসিংহ সেনানিবাসে অবস্থিত। এটি প্রশিক্ষণ মূল্যায়ন এবং সংস্কার; অস্ত্র, সরঞ্জাম এবং বল আধুনিকীকরণ; ধারণা এবং মতবাদ সংশোধন উন্নয়ন ইত্যাদি তত্ত্বাবধানের জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত। এটির আওতায় এর সদর দপ্তর, যুদ্ধ দল এবং বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর সকল প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান রয়েছে। অ্যার্টডকের প্রথম জেনারেল অফিসার কমান্ডিং ছিলেন মেজর জেনারেল মুহাম্মদ জিয়া-উর-রহমান, এনডিসি, পিএসসি।[১]

অ্যার্টডকের বর্তমান জেনারেল অফিসার কমান্ডিং হলেন লেফটেন্যান্ট জেনারেল এস এম মতিউর রহমান, এএপডব্লিউসি, পিএসসি।

মিশন[সম্পাদনা]

অ্যার্টডকের অফিসিয়াল মিশন বিবৃতিতে বলা হয়েছে:

বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে যুদ্ধের জন্য প্রস্তুত করা এবং তার ভবিষ্যতের স্থপতি হওয়া।[১]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অতীতে, সেনা সদর দপ্তরে অবস্থিত সামরিক প্রশিক্ষণ অধিদপ্তর বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রশিক্ষণ সংক্রান্ত বিভিন্ন ধরনের গবেষণা কাজ পরিচালনার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত ছিল। তবে, সীমিত সম্পদ এবং জনবলের ঘাটতির কারণে, তারা মতবাদ ও উন্নয়নের ক্ষেত্রে কোন বিস্তৃত গবেষণা ও অধ্যয়ন পরিচালনা করতে পারেনি।

কৌশলগত, অপারেশনাল, কৌশলগত এবং প্রযুক্তিগত উন্নতির জন্য, গবেষণা এবং উন্নয়ন ক্ষমতাকে শক্তিশালী করার জন্য এবং যুদ্ধক্ষেত্রের দৃশ্যকল্পের ক্রমাগত পরিবর্তনের সাথে তাল মিলিয়ে চলার জন্য, দ্রুত প্রযুক্তিগত অগ্রগতির জন্য বাংলাদেশ সেনাবাহিনী ২৫ জুলাই ২০০৭ তারিখে অ্যার্টডক গঠন করে।[১]

প্রশিক্ষণ প্রতিষ্ঠান[সম্পাদনা]

অ্যার্টডক সকল প্রাতিষ্ঠানিক প্রশিক্ষণের নোডাল এজেন্সি হিসেবে কাজ করে। বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর কর্মকর্তা ও সেনা প্রশিক্ষণের জন্য ২০টি ভিন্ন প্রতিষ্ঠান রয়েছে।[১]

  • আর্টিলারি সেন্টার এবং স্কুল
  • আর্মার্ড কর্পস সেন্টার এবং স্কুল
  • ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টাল সেন্টার
  • ইঞ্জিনিয়ার সেন্টার এবং স্কুল অফ মিলিটারি ইঞ্জিনিয়ারিং
  • সিগন্যাল ট্রেনিং সেন্টার এবং স্কুল
  • আর্মি মেডিকেল কর্পস সেন্টার এবং স্কুল
  • ইলেকট্রিক্যাল মেকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল
  • অর্ডিন্যান্স সেন্টার এবং স্কুল
  • আর্মি সার্ভিস কর্পস সেন্টার এবং স্কুল
  • মিলিটারি ইন্টেলিজেন্স স্কুল
  • আর্মি স্কুল অফ মিউজিক
  • আর্মি স্কুল অফ ফিজিক্যাল ট্রেনিং অ্যান্ড স্পোর্টস
  • বাংলাদেশ ইনস্টিটিউট অব পিস সাপোর্ট অপারেশন ট্রেনিং
  • বাংলাদেশ পদাতিক রেজিমেন্টাল সেন্টার
  • পদাতিক ও যুদ্ধ কৌশল বিদ্যাপীঠ
  • বাংলাদেশ মিলিটারি একাডেমি
  • আর্মি স্কুল অফ এডুকেশন অ্যান্ড অ্যাডমিনিস্ট্রেশন
  • মিলিটারি পুলিশ সেন্টার এবং স্কুল
  • নন-কমিশন্ড অফিসার একাডেমি
  • ৪০৩ যুদ্ধ গ্রুপ[২]

পরিদর্শন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ARTDOC"Army Training and Doctrine Command। Archived from the original on ২৬ এপ্রিল ২০১২। 
  2. "Flag raising ceremony of 403 battle group held"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০০৯-১১-২২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-০৭-১৩