এসকিশেহির

স্থানাঙ্ক: ৩৯°৪৬′৩৬″ উত্তর ৩০°৩১′১৪″ পূর্ব / ৩৯.৭৭৬৬৭° উত্তর ৩০.৫২০৫৬° পূর্ব / 39.77667; 30.52056
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

এসকিশেহির (ইউএস: /ˌɛskɪʃəˈhɪər/ ES-kish-ə-HEER,[১][২] তুর্কি: [esˈciʃehiɾ]; অনুবাদ : eski অর্থ পুরাতন এবং şehir অর্থ শহর)[৩] হলো উত্তর-পশ্চিম তুরস্কের একটি শহর এবং এসকিশেহির প্রদেশের রাজধানী। এই শহরের মোট জনসংখ্যা ৮৯৮,৩৬৯ জন এবং মহানগর এলাকায় বসবাসকারী অধিবাসীর সংখ্যা ৭৯৭,৭০৮ জন।[৪] শহরটি পোরসুক নদীর তীরে অবস্থিত, যা সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৭৯২ মিটার উচ্চতায় এবং উর্বর ফ্রিগিয়ান উপত্যকার উর্ধ্বে। এর কাছাকাছি পাহাড়গুলোতে উষ্ণ প্রস্রবণ রয়েছে। শহরটি আঙ্কারা থেকে ২৩৩ কিমি (১৪৫ মা) পশ্চিমে, ইস্তানবুল হতে ৩৩০ কিমি (২০৫ মা) দক্ষিণ-পূর্বে এবং কুতাইয়া হতে ৭৮ কিমি (৪৮ মা) উত্তর-পূর্বে অবস্থিত। এটি প্রাচীন শহর ডোরিলিয়ামর আশেপাশে অবস্থিত।[৫] বিশ্ববিদ্যালয় শহর হিসেবে পরিচিত এই নগরে এসকিশেহির টেকনিক্যাল ইউনিভার্সিটি, এস্কিশেহির ওসমানগাজি ইউনিভার্সিটি এবং আনাদোলু ইউনিভার্সিটি অবস্থিত। প্রদেশটি ২,৬৭৮ কিমি (১,০৩৪ মা) এলাকা জুড়ে বিস্তৃত।[৬]

ব্যুত্পত্তি[সম্পাদনা]

এসকিশেহির নামটিকে তুর্কি ভাষা হতে অনুবাদ করলে আক্ষরিক ভাবে এর অর্থ দাঁড়ায় 'পুরাতন শহর'।[৩] এই নামটি ১৫দশ শতকের শেষ দিক থেকে অটোমান রেকর্ডে নথিভুক্ত করা হয়েছে।[৭]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

যদিও শহরটিকে ৪,০০০ বছরেরও বেশি পুরানো বলে অনুমান করা হয়, তবে তথ্য মতে, শহরটি কমপক্ষে ১,০০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দে ফ্রিজিয়ানদের দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বর্তমান শহরটি প্রাচীন ফ্রিজিয়ান শহর ডোরিলাইম থেকে প্রায় এক মাইল দূরে অবস্থিত।[৮] শহরের প্রত্নতাত্ত্বিক জাদুঘরে এখনও অনেক ফ্রিজিয়ান নিদর্শন এবং ভাস্কর্য দেখতে পাওয়া যায়। এখানে মেরসচাম পাথরের একটি যাদুঘরও রয়েছে, যার উত্পাদন এখনও উল্লেখযোগ্য এবং উচ্চ মানের মেরসচাম পাইপ তৈরিতে ব্যবহৃত হয়। খ্রিস্টীয় চতুর্থ শতাব্দীতে শহরটি কারাকাহিসার থেকে প্রায় দশ কিমি উত্তর-পূর্বে শেহিরহাইউকে চলে যায়। এই অঞ্চলে মূলত হিট্টাইটদের বসবাস ছিল।

ভূগোল[সম্পাদনা]

এসকিশেহির শহরটি পোরসুক নদীর তীরে অবস্থিত, যেটি সাকারিয়া নদীতে পতিত হয়েছে। এসকিশেহির-কুতাইয়া সীমান্তের কাছে অবস্থিত পোরসুক বাঁধ নদীর পানি প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করে।

জলবায়ু[সম্পাদনা]

কোপেনের জলবায়ু শ্রেণীবিভাগ অনুসারে এসকিশেহিরের জলবায়ু শীতল আর্ধ-শুষ্ক জলবায়ু (বিএসকে) শ্রেণির এবং ট্রেসওয়ার্থ জলবায়ু শ্রেণীবিভাগের অধীনে নাতিশীতোষ্ণ মহাদেশীয় জলবায়ু (ডিসি) শ্রেণির।[৯][১০] শহরটি শীতল, তুষারময় শীতকাল এবং উষ্ণ, শুষ্ক গ্রীষ্মকালের বৈশিষ্ট্য মণ্ডিত। বসন্ত ও শরৎকালে অধিকাংশ বৃষ্টিপাত সংগঠিত হয়। সমুদ্র হতে এসকিশেহির শহরের উচ্চতা এবং শুষ্ক গ্রীষ্মকালের কারণে গ্রীষ্মকালীন মাসগুলোতে রাত্রিকাল শীতল হয়। এখানে বারিপাতের মাত্রা কম, তবে তা সারা বছর ধরে সংগঠিত হয়।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

ঐতিহ্যগতভাবে আটা কল এবং ইটভাটার উপর নির্ভরশীল এই শহরটি ১৮৯৪ সালে বার্লিন-বাগদাদ রেলপথ নির্মান কাজের জন্য রেলওয়ে ওয়ার্কশপ তৈরির ফলে সম্প্রসারিত হয়।

১৯২০ সাল পর্যন্ত এসকিশেহির ছিল মেরসচাম খনির অন্যতম প্রধান স্থান। সেই সময়ে বেশিরভাগ খনি রাষ্ট্রীয় মালিকানাধীন ছিল।[১১]

সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

শহরটিতে তুর্কি ক্রিমিয়ান তাতারদের উল্লেখযোগ্য জনবসদতি রয়েছে। এটি বুলগেরিয়া, রোমানিয়া, বসনিয়া, উত্তর মেসিডোনিয়ার মতো বলকান দেশ এবং সার্বিয়ার স্যান্ডজাক অঞ্চল থেকে আগত অভিবাসী জাতিগত তুর্কিদেরও আকৃষ্ট করে এবং এরা এখাকার ধাতব শিল্পের উন্নয়নে অবদান রাখে। ২০১৩ সালে এসকিশেহির শহরে তুর্কভিশন সঙ্গীত প্রতিযোগিতার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানেরও আয়োজন করা হয়েছিল, যার লক্ষ্য ছিলো বিভিন্ন তুর্কি-ভাষী অঞ্চলের সঙ্গীত এবং শিল্পীদের আকৃষ্ট করা। এছাড়াও শহরটিতে Dünya Müzeleri Müzesi বা 'বিশ্ব জাদুঘরের জাদুঘর'-এর অবস্থান রয়েছে।

এসকিশেহির শহরের অন্যান্য জাদুঘরগুলি হল ইটি প্রত্নতত্ত্ব যাদুঘর, উড্ডয়ন যাদুঘর, মেরসচাম যাদুঘর, মিউজিয়াম অফ ইনডিপেনডেন্স, আধুনিক কাঁচ দ্রব্যের যাদুঘর, তাইফুন তালিপোগলু টাইপরাইটার যাদুঘর, ইলমাজ বুইকারসেনের মোমের যাদুঘর এবং ওদুনপাজারি আধুনিক যাদুঘর।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Eskisehir"Lexico US English DictionaryOxford University Press। ২০২০-০৩-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "Eskisehir"মেরিয়াম-ওয়েবস্টার ডিকশনারি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ মে ৩০, ২০১৯ 
  3. Lewis Thomas (এপ্রিল ১, ১৯৮৬)। Elementary Turkishসীমিত পরীক্ষা সাপেক্ষে বিনামূল্যে প্রবেশাধিকার, সাধারণত সদস্যতা প্রয়োজন। Courier Dover Publications। পৃষ্ঠা 12আইএসবিএন 978-0486250649 
  4. "Turkey: Major cities and provinces"। citypopulation.de। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০২-০৮ 
  5. E.J. Brill's First Encyclopaedia of Islam 1913-1936। BRILL। ১৯৮৭। আইএসবিএন 978-90-04-08265-6 
  6. Statoids। "Statistical information on districts and town centers in Turkey"। সংগ্রহের তারিখ ২০০৮-০৪-১২ 
  7. Nişanyan, Sevan। "Eskişehir"nisanyanmap.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২৩-০৩-০৮ 
  8. Chisholm 1911
  9. Öztürk, Mehmet Zeynel; Çetinkaya, Gülden; Aydın, Selman। "Köppen-Geiger İklim Sınıflandırmasına Göre Türkiye'nin İklim Tipleri/Climate Types of Turkey According to Köppen-Geiger Climate Classification"Coğrafya Dergisi – Journal of Geography35 (2017): 17–27। ডিওআই:10.26650/JGEOG295515। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০২০  (তুর্কি এবং ইংরেজি ভাষায়)
  10. Updated world map of the Köppen-Geiger climate classification - Hydrology and Earth System Sciences Discussions
  11. Prothero, G.W. (১৯২০)। Anatolia। London: H.M. Stationery Office। পৃষ্ঠা 105। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]


  1. "December 2013 address-based calculation of the Turkish Statistical Institute as presented by citypopulation.de"