এমিল আবদারহাল্ডেন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এমিল আবদারহাল্ডেন
Emil Abderhalden.jpg
দেশীয় নামEmil Abderhalden
জন্ম(১৮৭৭-০৩-০৯)৯ মার্চ ১৮৭৭
ওবেরুজউইল সেন্ট গ্যালেনের ক্যান্টন, সুইজারল্যান্ড
মৃত্যু৫ আগস্ট ১৯৫০(1950-08-05) (বয়স ৭৩)
জুরিখ, সুইজারল্যান্ড
নাগরিকত্বসুইস
কর্মক্ষেত্রশারীরবিদ্যা
জৈব রসায়ন
প্রতিষ্ঠানবার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়
হ্যালি বিশ্ববিদ্যালয়
জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়
শিক্ষাবাসেল বিশ্ববিদ্যালয়l (ডক্টরেট, ১৯০২)
শিক্ষায়তনিক উপদেষ্টাবৃন্দহারমান এমিল ফিশার[১]

এমিল আবদারহাল্ডেন (৯ মার্চ ১৮৭৭ – ৫ আগস্ট ১৯৫০) একজন সুইস জৈব রসায়নবিদ এবং শারীরবিদ ছিলেন। তার প্রধান গবেষনাগুলো, যদিও তা ১৯১০ এর দশকে বিতর্কিত ছিল, অবশেষে ১৯৯০ এর দশকের শেষ পর্যন্ত এগুলো প্রত্যাখ্যান করা হয়নি। তার বিভ্রান্তিকর গবেষনাগুলো জালিয়াতির উপর ভিত্তি করে ছিল অথবা কেবল বৈজ্ঞানিক কঠোরতার অভাবের কারনে গবেষনাগুলো অস্পষ্ট রয়ে গেছে। আবদারহাল্ডেনের ডাইং পিস্টল যা রসায়নে ব্যবহৃত হয়,যা তার প্রথম একজন ছাত্র, আবদারহাল্ডেন দ্বারা সম্পাদিত পাঠ্যপুস্তকে বর্ণনা করেছিলেন।[২]

জীবনী[সম্পাদনা]

এমিল আবদারহাল্ডেন সুইজারল্যান্ডের সেন্ট গ্যালেনের ক্যান্টনের ওবেরুজউইলে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। এরপর তিনি বাজেল বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনার জন্য বাজেলে চলে যান।

বাজেলে থাকার সময় তিনি রোয়িং ক্লাবে যোগদান করেন এবং সেখানে এফসি বাজেলের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ছিলেন। ফ্যাসবল ক্লাব ক্লাব বাসেলের প্রতিষ্ঠার সভায় এগারোজন পুরুষ ১৮৯৩ সালের ১৫ নভেম্বর উপস্থিত ছিলেন।[৩] আবদারহাল্ডেন ২২ সেপ্টেম্বর ১৮৯৪ তারিখে স্ট্যাডিয়ন স্কটজেনমেটে হোম খেলায় ক্লাবের হয়ে তার প্রথম খেলা খেলেছিলেন। যেখানে বাজেল, এফসি জিমনেসিয়ার বিপক্ষে ২-০ গোলে জিতেছেল।[৪] আবদারহাল্ডেন ১৮৯৫ সালের জানুয়ারিতে এ ক্লাব ত্যাগ করেন।[৫]

আবদারহাল্ডেন বাজেল বিশ্ববিদ্যালয়ে মেডিসিন অধ্যয়ন করেন এবং ১৯০২ সালে ডক্টরেট ডিগ্রি লাভ করেন। এরপর তিনি এমিল ফিশারের গবেষণাগারে অধ্যয়ন করেন এবং বার্লিন বিশ্ববিদ্যালয়ে কাজ করেন। ১৯১১ সালে তিনি হ্যালি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলে যান এবং মেডিকেল স্কুলে ফিজিওলজি পড়ান।[৬] ১৯৩১ থেকে ১৯৫০ পর্যন্ত, তিনি জার্মান একাডেমি অফ ন্যাচারাল সায়েন্টিস্টস লিওপোলডিনার সভাপতি ছিলেন। ১৯৩৬ সালে তিনি পন্টিফিকাল একাডেমি অব সায়েন্সেস-এর সদস্য নিযুক্ত হন।[৭]

প্রথম বিশ্বযুদ্ধের সময়, তিনি একটি শিশু হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন এবং সুইজারল্যান্ডে অপুষ্টির শিকার শিশুদের অপসারণের আয়োজন করেন। পরবর্তীকালে, তিনি শারীরবৃত্তীয় রসায়নে তার গবেষণা পুনরায় শুরু করেন এবং বিপাক এবং খাদ্য রসায়ন নিয়ে অধ্যয়ন শুরু করেন।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আবদারহাল্ডেন সুইজারল্যান্ডে ফিরে আসেন এবং জুরিখ বিশ্ববিদ্যালয়ে একটি পদ পান। তিনি ৭৩ বছর বয়সে সেখানে মারা যান। '১৫২৬২ আবদারহাল্ডেন' এ নামটি তার সম্মানে নামকরণ করা হয়েছিল।[৮]

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • অ্যালকোহল এবং মদ্যপানের উপর সমস্ত বৈজ্ঞানিক সাহিত্যের গ্রন্থপঞ্জি। সহকর্মীদের সাথে ... এবং কেজিএল এর সমর্থনে। বার্লিনে বিজ্ঞান একাডেমি। বার্লিন এবং ভিয়েনা, আরবান অ্যান্ড শোয়ার্জেনবার্গ, ১৯১৪।
  • প্রাণীজগতে প্রোটিন দেহের ভাঙ্গন এবং গঠন। হোপ-সাইলারের জেইটসক্রিফ্ট ফিজিওলজিস্কি কেমি, স্ট্রাসবুর্গ, ১৯০৫,৪৪: ১৭-৫২।
  • এমিল আবদারহালদেনের 30 টি বক্তৃতায় শারীরবৃত্তীয় রসায়নের পাঠ্যপুস্তক। বার্লিন এবং ভিয়েনা, আরবান অ্যান্ড শোয়ার্জেনবার্গ, ১৯০৬. ৭৮৬. পৃষ্ঠা।
  • বিশেষ প্রোটিন রসায়নের ক্ষেত্রে সাম্প্রতিক ফলাফল। জেনা ১৯৯০।
  • শারীরবৃত্তীয় ইন্টার্নশিপ। বার্লিন ১৯১২; তৃতীয় সংস্করণ, ১৯২২; স্প্যানিশ এবং রাশিয়ান ভাষায় অনূদিত।
  • প্রাণীর জীবের প্রতিরক্ষামূলক গাঁজন। বার্লিন, ১৯১২; ৫ম সংস্করণ, ১৯২২ শিরোনাম: দ্য আবদারহাল্ডেন প্রতিক্রিয়া। ইংরেজি, ফরাসি, রাশিয়ান এবং স্প্যানিশ ভাষায় অনূদিত।
  • গাছপালা এবং প্রাণীদের মধ্যে বিল্ডিং ব্লকের সংশ্লেষণ। বার্লিন, ১৯১২; দ্বিতীয় সংস্করণ, ১৯২৪।
  • আমাদের খাদ্য এবং আমাদের বিপাকের মূল বিষয়গুলি। বার্লিন, ১৯১৭; তৃতীয় সংস্করণ, ১৯১৯।
  • এমিল আবদারহাল্ডেন বক্তৃতায় শারীরবৃত্তীয় রসায়নের পাঠ্যপুস্তক। তৃতীয় সংস্করণ, সম্প্রসারিত এবং সংশোধিত। বার্লিন এবং ভিয়েনা, শহুরে ও শোয়ার্জেনবার্গ, ১৯১৪-১৯১৫। চতুর্থ সংস্করণ, সংশোধিত: বার্লিন এবং ভিয়েনা, আরবান অ্যান্ড শোয়ার্জেনবার্গ, ১৯২০-১৯২১।
  • কোষ ও টিস্যুর ভৌত রসায়ন এবং প্রাণীজগতে পদার্থ ও শক্তির বিনিময় সহ শারীরবৃত্তীয় রসায়নের পাঠ্যপুস্তক, এমিল আবদারহাল্ডেন দ্বারা। ৪র্থ সংস্করণ, সংশোধিত: বার্লিন ও ভিয়েনা, আরবান অ্যান্ড শোয়ার্জেনবার্গ, ১৯২৩। ৬ষ্ঠ সংস্করণ, ১৯৩১; ইংরেজি এবং রাশিয়ান ভাষায় অনূদিত। সংস্করণ ২৩ থেকে ২৫, বাসেল, সোয়াবে, ১৯৪৬. ৪১৭ পৃষ্ঠা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Charpa, Ulrich; Deichmann, Ute (২০০৭)। Jews and Sciences in German Contexts: Case Studies from the 19th and 20th Centuriesআইএসবিএন 9783161491214। সংগ্রহের তারিখ ৩ অক্টোবর ২০১৭ 
  2. Andrea Sella (ফেব্রুয়ারি ২০০৯)। "Classic Kit: Abderhalden's drying pistol"Chemistry WorldRoyal Society of Chemistry 
  3. "Die Gründer | FC Basel Archiv"www.fcb-archiv.ch। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১০ 
  4. "Spiele | FC Basel Archiv"www.fcb-archiv.ch। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১০ 
  5. "Vor 120 Jahren: Die Geburtsstunde des FCB"TagesWoche (জার্মান ভাষায়)। ২০১৩-১১-১৫। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১০ 
  6. Chambers; Bakewell, Joan (২০১১)। Chambers Biographical Dictionaryআইএসবিএন 0-550-18022-2 
  7. "Emil Abderhalden"www.academiascientiarium.va। সংগ্রহের তারিখ ২০২১-০৯-১০ 
  8. Schmadel, Lutz D. (২০০৭)। "(15262) Abderhalden"। Dictionary of Minor Planet Names। স্প্রিঙ্গার বার্লিন হাইডেলবার্গ। পৃষ্ঠা ৮২২। আইএসবিএন 978-3-540-00238-3ডিওআই:10.1007/978-3-540-29925-7_9115 

সূত্র[সম্পাদনা]

ফিরকিন, বি জি এবং হুইটওয়ার্থ, জে এ (১৯৮৭): ডিকশনারি অব মেডিক্যাল এপোনিমস্। পার্থেনন পাবলিশিং। আইএসবিএন ১-৮৫০৭০-৩৩৩-৭

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]