এইচ. এল. ডেভিস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এইচ. এল. ডেভিস
এইচ. এল. ডেভিস.gif
স্থানীয় নাম
H. L. Davis
জন্মহ্যারল্ড লেনোয়ার ডেভিস
(১৮৯৪-১০-১৮)১৮ অক্টোবর ১৮৯৪
ডগলাস কাউন্টি, অরেগন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যু৩১ অক্টোবর ১৯৬০(1960-10-31) (বয়স ৬৬)
স্যান অ্যান্টোনিও, টেক্সাস, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
পেশালেখক
জাতীয়তামার্কিন
ধরনউপন্যাস, কবিতা
বিষয়পশ্চিমা বাস্তবতা
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিহানি ইন দ্য হর্ন
উল্লেখযোগ্য পুরস্কারপুলিৎজার পুরস্কার (১৯৩৬)
গুগেনহাইম ফেলোশিপ (১৯৩২)

হ্যারল্ড লেনোয়ার ডেভিস (ইংরেজি: Harold Lenoir Davis; ১৮ অক্টোবর ১৮৯৪ - ৩১ অক্টোবর ১৯৬০), এইচ. এল. ডেভিস নামে অধিক পরিচিত, ছিলেন একজন মার্কিন ঔপনাসিক ও কবি। অরেগনে জন্মগ্রহণকারী ডেভিস ১৯৩২ সালে গুগেনহাইম ফেলোশিপ লাভ করেন। হানি ইন দ্য হর্ন উপন্যাসের জন্য ১৯৩৬ সালে কথাসাহিত্যে পুলিৎজার পুরস্কার অর্জন করেন।[১] তিনি পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী একমাত্র অরেগনের অধিবাসী। পরবর্তী কালে তিনি ক্যালিফোর্নিয়াটেক্সাসে বসবাস করেন। উপন্যাসের পাশাপাশি তিনি দ্য স্যাটারডে ইভনিং পোস্ট-সহ একাধিক পত্রিকায় ছোটগল্প লিখতেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

ডেভিস ১৮৯৪ সালের ১৮ই অক্টোবর অরেগন অঙ্গরাজ্যের ডগলাস কাউন্টির ননপারেইলে জন্মগ্রহণ করেন।[২] তিনি শৈশবে রোজবার্গে বসবাস করতেন। তার পিতা শিক্ষক ছিলেন এবং তার শিক্ষকতার পদায়নের জন্য তাদেরকে প্রায়ই বিভিন্ন স্থানে থাকতে হত। তার ১৯০৬ সালে অরেগনের অ্যান্টিলোপে যেতে হয় এবং দুই বছর পর তারা দ্য ড্যালেসে যান, সেখানে তার পিতা অধ্যক্ষ ছিলেন।[২] ১৯১২ সালে ডেভিস দ্য ড্যালেস থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাস করেন। তিনি স্বল্পকালীন বিভিন্ন চাকরি করতেন, তন্মধ্যে ছিল প্যাসিফিক পাওয়ার অ্যান্ড লাইট এবং একটি স্থানীয় ব্যাংকের চাকরি। এছাড়া তিনি রেলরোডের সময়রক্ষক ও মাউন্ট অ্যাডামসের নিকটবর্তী একটি জরিপ দলের সাথে কাজ করেন।

সাহিত্য জীবন[সম্পাদনা]

তার প্রথম কবিতা প্রকাশিত হয় ১৯১৯ সালের এপ্রিলে পোয়েট্রি পত্রিকায়, এটি সম্পাদনা করেন হ্যারিয়েট মনরো। এগারটি কবিতা সম্বলিত বইটি প্রিমাপারা নামে প্রকাশিত হয়। এই বছরে তারা এই পত্রিকার লেভিনসন পুরস্কার লাভ করেন, যার অর্থমূল্য ছিল $২০০। ডেভিস কবি কার্ল স্যান্ডবার্গের নিকট থেকে একটি প্রশংসা পত্র লাভ করেন। ১৯২০-এর দশক জুড়ে তিনি এই পত্রিকায় কবিতা প্রকাশ করতে থাকেন এবং কিছু কবিতা এইচ. এল. মেনকেনের দি আমেরিকান মার্কারি-তেও বিক্রি করেন। মেনকেন তাকে গদ্য লেখতে অনুপ্রাণিত করেন।

১৯৩২ সালে ডেভিস গুগেনহাইম ফেলোশিপ লাভ করেন। এই সম্মাননার ফলে তিনি মেক্সিকোর জালিস্কোতে যাওয়ার সুযোগ পান এবং সেখানে দুই বছর অবস্থান করেন ও লেখনীতে মনযোগ দেন। সেখানে তিনি তার উপন্যাস হানি ইন দ্য হর্ন লেখা শেষ করেন। উপন্যাসটি একজন দক্ষিণ অরেগনের অগ্রদূতের জীবন নিয়ে রচিত, যা বিংশ শতাব্দীর প্রথমার্ধ্বের পটভূমির গল্প। উপন্যাসটি ১৯৩৫ সালে শ্রেষ্ঠ প্রথম উপন্যাস হিসেবে হারপার পুরস্কার অর্জন করেন, যার অর্থমূল্য ছিল নগদ $৭,৫০০। রবার্ট পেন ওয়ারেন-সহ অনেক লেখক বইটির প্রশংসা করেন, কিন্তু নিউ ইয়র্কার-এর সমালোচক ক্লিফটন ফ্যাডিম্যান বইটি পছন্দ করেননি। পরের বসন্তে বইটি পুলিৎজার পুরস্কার লাভ করে, এবং এটি অরেগনে জন্মগ্রহণকারী লেখকের পুলিৎজার পুরস্কার বিজয়ী একমাত্র বই। ডেভিস এই পুরস্কার গ্রহণ করতে নিউ ইয়র্ক যাননি, তিনি জানান যে তিনি নিজেকে সকলের সামনে প্রকাশ করতে চান না।[২]

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

  • হানি ইন দ্য হর্ন (উপন্যাস)। নিউ ইয়র্ক: হারপার অ্যান্ড ব্রাদার্স, ১৯৩৫, আইএসবিএন ০-৮৯৩০১-১৫৫-X, আর্মড সার্ভিসেস সংস্করণ হিসেবেও প্রকাশিত হয়েছিল
  • প্রাউড রাইডার্স অ্যান্ড আদার পোয়েমস। নিউ ইয়র্ক: হারপার অ্যান্ড ব্রাদার্স, 19৪২
  • হার্প অব আ থাউজেন্ট স্ট্রিংস (উপন্যাস)। নিউ ইয়র্ক: উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৪১
  • বোলাহ ল্যান্ড (উপন্যাস)। নিউ ইয়র্ক: উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৪৯
  • উইন্ডস অব মর্নিং (উপন্যাস)। নিউ ইয়র্ক: উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৫২, আইএসবিএন ০-৮৩৭১-৫৭৮৫-৪
  • টিম বেলস ওক মি অ্যান্ড আদার স্টোরিজ। উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৫৩, আইএসবিএন ০-৮৩৭১-৭১২৫-৩
  • দ্য ডিসট্যান্ট মিউজিক (উপন্যাস)। নিউ ইয়র্ক: উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৫৭, আইএসবিএন ০-৮৯১৭৪-০৪৫-৭
  • কেটল অব ফায়ার। নিউ ইয়র্ক: উইলিয়াম মরো অ্যান্ড কোম্পানি, ১৯৫৭, আইএসবিএন ১-২৯৯-০৭৩৬২-X
  • দ্য সিলেক্টেড পোয়েমস অব এইচ. এল. ডেভিস। ভূমিকা - টমাস হর্নসবি ফেরিল, বোয়েস, আইডাহো, আহসাটা প্রেস, ১৯৭৮, আইএসবিএন ০-৯১৬২৭২-০৭-৯

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "H.L. Davis | American author"এনসাইক্লোপিডিয়া ব্রিটানিকা (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১৯ 
  2. বেকার, জেফ (২ ডিসেম্বর ২০০৯)। "Rediscovering H.L. Davis"দি অরেগনিয়ান (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ৩১ অক্টোবর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]