উপকথা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মনুষ্য ক্ষমতাসম্পন্ন বিড়াল রাজহাঁসের পালকে পাহারা দিচ্ছে, মিশর, আনু. ১১২০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ।

উপকথা হলে সাহিত্যের একটি ধরন, যাতে বিভিন্ন প্রাণী, কিংবদন্তিতুল্য সৃষ্টি, উদ্ভিদ, জড় বস্তু এবং প্রাকৃতিক উপাদানকে মনুষ্য ক্ষমতা প্রদান করা হয় (যেমন মনুষ্য ভাষায় কথা বলা) এবং তাদের জবানিতে গদ্য বা পদ্য ছন্দে ছোট কাল্পনিক গল্প বিবৃত হয়। এই গল্পগুলোর পরিণতিতে একটি বিশেষ নৈতিক শিক্ষা প্রদান করা হয়।

উপকথা নীতিকথা থেকে ভিন্ন কারণ নীতিকথায় প্রাণী, উদ্ভিদ, জড় বস্তু ও প্রাকৃতিক উপাদানকে কথা বলা বা অন্যান্য মনুষ্য ক্ষমতা প্রদান মূল চরিত্র হিসেবে দেখানো হয় না। তবে এই দুয়ের ব্যবহারের স্পষ্ট পার্থক্য লক্ষণীয় নয়। নিউ টেস্টামেন্টের কিং জেমসের সংস্করণে টিমোথির নিকট প্রথম চিঠি, টিমোথির নিকট দ্বিতীয় চিঠি, টাইটাসের নিকট চিঠি এবং পিটারের নিকট প্রথম চিঠিতে[১] "μῦθος" (পুরাণ) কে উপকথা হিসেবে অনুবাদ করা হয়েছে।[২]

রচয়িতা[সম্পাদনা]

ধ্রুপদী[সম্পাদনা]

আধুনিক[সম্পাদনা]

উপকথা সংকলন[সম্পাদনা]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Strong's 3454. μύθος muthos moo’-thos; perhaps from the same as 3453 (through the idea of tuition); a tale, i.e. fiction ("myth"):—fable.
    "For we have not followed cunningly devised fables, when we made known unto you the power and coming of our Lord Jesus Christ, but were eyewitnesses of his majesty." (2nd Peter 1:16)
  2. For example, in First Timothy, "neither give heed to fables...", and "refuse profane and old wives' fables..." (1 Tim 1:4 and 4:4, respectively).

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]