অপরাধ কাহিনী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অপরাধ কাহিনীর সবচেয়ে জনপ্রিয় নায়ক, শার্লক হোমস, বামে তার সঙ্গী ড. ওয়াটসন

অপরাধ কাহিনী একটি সাহিত্যবর্গ যেটাতে অপরাধ, তদন্ত, অপরাধী ও তার মোটিভ প্রভৃতি উঠে আসে। মূলধারার সাহিত্য থেকে এটি আলাদা তবে ঐতিহাসিক কাহিনী বা কল্পবিজ্ঞানের থেকে এর পার্থক্য সবসময় স্পষ্ট নয়। অপরাধ কাহিনীর বহু উপবর্গ আছে, যেমন - গোয়েন্দা কাহিনী (হুডানইট ও অন্যান্য), আদালত-নাটক, হার্ড-বয়েলড এবং আইনী থ্রিলার। সাসপেন্স ও রহস্য অপরাধ কাহিনীর মূল উপাদান।

অপরাধ কাহিনীর শ্রেণীবিভাগ[সম্পাদনা]

অপরাধ কাহিনীকে নিম্নোক্ত শাখাগুলোতে ভাগ করা যায়:

গোয়েন্দা কাহিনী[সম্পাদনা]

  • কোজি মিস্ট্রি: গোয়েন্দা কাহিনীর এই উপবর্গে পাপ, যৌনতা, খুন-জখম এসবকে হালকাভাবে দেখা হয়। প্রায়শই একজন শৌখিন গোয়েন্দা অতি-পরিচিত কাছাকাছি বসবাসকারীদের মধ্যেই দোষীকে খুঁজে বের করে।
  • লকড-রুম মিস্ট্রি: এরকম হুডানইটে হত্যাকাণ্ড (বা অপরাধ) ঘটে প্রায় অসম্ভব পরিবেশে, যেমন দরজা-জানলা বন্ধ এমন একটি ঘর বা বাড়িতে, যেখানে কোনো বাইরের ব্যক্তি ঢোকেনি বা বেরোয়নি।
  • হুডানইট (কে করেছে?): গোয়েন্দা কাহিনীর সবচেয়ে পরিচিত রূপ। জটিল কাহিনীপ্রধান এই গল্পে পাঠককে বিভিন্ন ক্লু বা সূত্র দেয়া থাকে যা থেকে আসল অপরাধীকে চিহ্নিত করা সম্ভব। বইয়ের শেষে অপরাধের রহস্য উন্মোচন করা হয়।

অন্যান্য[সম্পাদনা]

  • ঐতিহাসিক হুডানইট: এটি ঐতিহাসিক কাহিনীর একটি উপবর্গ। এর গল্প এবং অপরাধ সংঘটিত হয় কোনো ঐতিহাসিক পটভূমিতে।
  • আমেরিকান হার্ড-বয়েলড গোষ্ঠী: বলিষ্ঠ গোয়েন্দা সবরকম বিপদাপদ মোকাবিলা করে এবং প্রয়োজনে বলপ্রয়োগ করে শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে ঘায়েল করে। রক্তারক্তি ও যৌনতার নিরাবেগ বর্ণনা এই ধারার বৈশিষ্ট্য।
  • পুলিশী তদন্ত বা পুলিশী পদ্ধতি: গোয়েন্দা একজন পুলিশ সদস্য এবং এতে পুলিশের বিভিন্ন অনুসন্ধান পদ্ধতিকে তুলে ধরে রহস্যের কিনারা করা হয়।
  • ফরেনসিক অপরাধ কাহিনী: পুলিশী তদন্তের মতোই এখানে গোয়েন্দা হয় ডাক্তার। সে নিহত ব্যক্তির দেহ বা অকুস্থল হতে পাওয়া ফরেনসিক উপাত্ত ও ক্লু ব্যবহার করে অপরাধীকে ধরে। এধরনের উপন্যাস প্রথম লেখেন প্যাট্রিসিয়া কর্নওয়েল।
  • আইনী থ্রিলার আদালতে মামলা প্রমাণ করতে গিয়ে আইনজীবী, তার কর্মচারী এবং মক্কেলরা বাইরে বিপদে পড়ে, কখনোবা মরণপণ লড়াই করতে হয় বিপক্ষদলের সাথে।
  • গুপ্তচর উপন্যাস: প্রধান চরিত্র গুপ্তচর যে কোনো গোয়েন্দা সংস্থার হয়ে কাজ করে।
  • ক্যাপার স্টোরিক্রিমিনাল উপন্যাস: গল্পটি বলা হয় একজন অপরাধীর দৃষ্টিকোণ থেকে।
  • মনস্তাত্বিক থ্রিলার: এটি থ্রিলারের একটি উপবর্গ, তবে গোয়েন্দা উপন্যাসের উপাদানও এতে পাওয়া যায়। কাহিনীর নায়ক মূলত মনস্তাত্বিক সংকটের রহস্য সমাধান করে।

অপরাধ কাহিনীর সহজলভ্যতা[সম্পাদনা]

সাধারণত উন্নতমানের ও ক্লাসিক বইগুলোর অনেক সংস্করণ মুদ্রিত হয়, ফলে তা সুলভ। কিন্তু অপরাধ কাহিনীর মান এবং সহজলভ্যতার অনুপাত এরকম নয়। সর্বকালের সেরা অপরাধ উপন্যাসের অনেকগুলো ১৯২০ বা ৩০ দশকের। অথচ সেগুলো প্রথম সংস্করণের পর আর মুদ্রিত হয়নি, ব্যতিক্রম কেবল শার্লক হোমস ও এরকুল পোয়ারোর মতো কিছু চরিত্র। সাধারণত গত কয়েক বছরে লেখা কাহিনীগুলোই পাওয়া যায়। মূলধারার সাহিত্যের সাথে জনপ্রিয় সাহিত্যের এই পার্থক্য লক্ষণীয়।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

গ্রন্থপঞ্জী[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]