ইসমে আজম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইসমে আজম (আরবি: الاسم الأعظم) নামসমূহ দিয়ে আল্লাহর বড়ত্বকে বোঝানো হয়ে থাকে।[১] ইসমে আজমকে আল্লাহর মহান নাম (আরবি: اسم الله الأکبر)-ও বলা হয়ে থাকে। তবে ইসমে আজম আল্লাহর কোন নাম এটা সুনিদিষ্টভাবে জানা যায়না।[২] শিয়াসুন্নি মুসলমানদের নিকট ইসমে আজম হচ্ছে আল্লাহর এক বিশেষ নাম এবং এক বিশেষ দোয়া। ইসলামী আলেমদের মতে, ইসমে আজম সহকারে আল্লাহর নিকট দোয়া করলে অবশ্যই আল্লাহ্‌ এই দোয়া কবুল করে থাকেন।[৩][৪]

হাদিসে উল্লেখিত[সম্পাদনা]

  • ইসমে আজম সম্পর্কে বিভিন্ন হাদিস উল্লেখ রয়েছে:

আনাস ইবনে মালেক থেকে বর্ণিত, একদিন মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) নামাজের পর দোয়ারত জায়েদ ইবনে সাবিতের পাশ দিয়ে যাচ্ছিলেন। দোয়াতে তিনি বলছিলেন:

اللَّهُمَّ إِنِّي أَسْأَلُكَ بِأَنَّ لَكَ الْحَمْدَ، لاَ إِلَهَ إِلاَّ أَنْتَ وَحْدَكَ لاَ شَرِيكَ لك الْمَنَّانُ بَدِيعَ السَّمَوَاتِ وَالأَرْضِ يَا ذَا الْجَلالِ وَالإِكْرَامِ، يَا حَيُّ يَا قَيُّومُ

অর্থ: হে আল্লাহ! আপনার নিকট এই অসীলায় চাই যে, (আমি বলি) কেবল আপনারই প্ৰশংসা, আপনি ব্যতীত প্রকৃত কোন উপাস্য নেই, আপনি এক, আপনার কোন শরীক নেই, অনুগ্রহ প্রদর্শনকারী হে আসমানসমূহ ও জমিনের সৃষ্টিকর্তা, হে মর্যাদা ও সম্মান দানের অধিকারী। হে চিরঞ্জীব ও সর্বনিয়ন্তা। তখন মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) বললেন, 'তুমি জানো, তুমি কি দিয়ে দোয়া করেছ? তুমি দোয়া করেছ 'ইসমে আজম' দিয়ে, যা দ্বারা দোয়া করলে আল্লাহ কবুল করেন এবং তা দ্বারা কিছু চাইলে আল্লাহ তা প্রদান করেন।'' (সুনানে তিরমিজি : ৩৫৪৪)

  • এছাড়াও মহানবী হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) বলেছেন, যে ব্যক্তি ইসমে আজম দিয়ে দোয়া করে তার দোয়া আল্লাহ্‌ কবুল করেন। (মুসনাদে আহমদ : ১২২০৫)


রহস্যময় অব্যর্থ দোয়া[সম্পাদনা]

ইসমে আজম হলো খুব শক্তিশালী একটি দোয়া, বিভিন্ন আলেমগণ বিভিন্নভাবে এটিকে দোয়া অথবা নাম হিসেবে চিহ্নিত করেছেন, কিন্তু কেউই সুনিদিষ্ট করে কিছু বলতে পারেননি। অনেকের মতে, আল্লাহ্‌ ইচ্ছা করেই এই নাম ও দোয়াকে লুকায়িত করে রেখেছেন, কেননা স্থানভেদে কিছু মানুষ এই দোয়াকে খারাপ উদ্দেশ্যে ব্যবহার করতে পারে।[৬] যেমন ঘটনা ঘটেছিল বালয়াম ইবনে বাউরার ক্ষেত্রে।[৭]

ইসমে আজম চিহ্নিতকরণ[সম্পাদনা]

আল্লাহর কোন নাম বা কোন নামগুলো ইসমে আজম এটা নিশ্চিত করে বলা অসম্ভব। ইসমে আজমের ব্যাপারে বিজ্ঞ আলেমদের থেকে প্রায় ৪০টি মতামত বর্ণিত হয়েছে। যার মধ্যে আল্লামা সুয়ূতি তাঁর রচিত 'আদ দুররুল মুনাজ্জাম ফিল ইসমিল আজম' নামক গ্রন্থে ২০টি মতামত উল্লেখ করেছেন।

  • আবদুল কাদের জিলানি বলেন, "ইসমুল আজম হলো 'আল্লাহ ( الله )' শব্দ। তবে শর্ত হলো তা পূর্ণ একাগ্রতা ও এখলাসের সঙ্গে বলতে হবে'।"[৮]
  • বুরাইদাহ ইবনে হুসাইব থেকে বর্ণিত, মুহাম্মাদ বলেছেন, ইসমে আজম হচ্ছে দান-সদকা করা, আল্লাহ্‌ এর মাধ্যমে দোয়া কবুল করে থাকেন।
  • কোনো কোনো সাহাবী থেকে থেকে বর্ণিত আছে, الْحَيُّ এবং الْقَيُّومُ আল্লাহর ইসমে আজম। ইমাম রাযী ও আল্লামা নববী এ মতকেই গ্রহণ করেছেন।[৯]
  • আল্লামা জাযারী বলেছেন, আমার মতে ইসমে আজম হল: ا إِلَهَ إِلَّا هُوَ الْحَيُّ الْقَيُّومُ
  • ইমাম মুহাম্মাদ বলেন, আমি ইমাম আবু হানিফা থেকে শুনেছি, আল্লাহ তাআলার ইসমে আ’যম হল, اللَّه (আল্লাহ)।[১০] কেননা, এটি তাঁর সত্তাগত নাম। তাছাড়া কোরআন মজিদে এই নামটিই ২,৬৯৭ বার এসেছে। এত বেশি তাঁর অন্য নাম আসে নি।
  • কারো কারো মতে رب শব্দটিই হলো ইসমে আজম।
  • আল্লামা মুহাম্মাদ ইবনে সালেহ আল-উসায়মিন বলেন, “ইসমে আ’যম হচ্ছে আল-হা’ইয়্যু (চিরঞ্জীব) এবং আল-ক্বাইয়্যুম (চিরস্থায়ী)।[১১]
  • তবে অনেক আলেমগণ বলেছেন, ইসমে আজম হলো এক আল্লাহর রহস্য, আল্লাহ্‌ এটা কাওকে জানান নাই, এটা জানা সম্ভবও না।[১২]

দেশে দেশে বিভ্রান্তি[সম্পাদনা]

বিভিন্ন সময়ে স্থানীয় ভণ্ড ব্যক্তি ইসমে আজম নাম দিয়ে সাধারণ মানুষকে প্রতারিত করে থাকে। কিন্তু অধিকাংশ সময়ে দেখা যায় সেগুলো ইসমে আজম নয়।[১৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

  • আয়াতুল কুরসী,
  • সহজ কথায় ইসলাম ধর্মের অনুসারীদের বিশ্বাস অনুযায়ী আল্লাহর (স্রষ্টার) কাছে নিশ্চিত ভাবে কিছু পাওয়ার জন্য যে বিশেষ উপায় গ্রহণ করলে অর্থাৎ সঠিক যে উপায় অবলম্বন করলে তা অবশ্যই পাওয়া যায় ( দোয়া এবং কর্মযোগে বা প্রেম ও ভক্তি সহযোগে তাই হলো ইসমে আজম)★
  • বেশির ভাগ ইসলামি চিন্তাবিদদের মতে ইসমে আজম মূলত আত্মিক ও আধ্যাত্মিক বিষয় এটি কোন বস্তুগত বিষয় নয়।*

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "ইসমে আজম কী ও কেন"Kalerkantho। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  2. ": اسم اعظم"daneshnameh.roshd.ir (আরবি ভাষায়)। ২০২০-০৯-২৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  3. "اسم اعظم چیست؟"hawzah.net (আরবি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  4. কোব্বাদী, উমায়ের (২০১৮-১০-১৩)। "ইসমে আ'যম কী?"কোরআনের জ্যোতি (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  5. সুনান আদ-দারেমী, ৩৪২৮ (সহীহ)
  6. Rony, Asad (২০১৬-১০-২৮)। "ইসমে আযম কি? ইসমে আ'যম-এর ফযীলত কি?"। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  7. ayham (২০১৫-০৪-০৭)। "বাল'আম ইবনে বাউরা"Amar Kotha। ২০২১-১১-১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  8. (মিরকাতুল মাফাতিহ, ১/৬) 
  9. (ফাতাওয়া উসমানী ১/২৬৪) 
  10. (আত-তাকরীর ওয়াত-তাহবীর ১/৫) 
  11. Rony, Asad (২০১৬-১০-২৮)। "ইসমে আযম কি? ইসমে আ'যম-এর ফযীলত কি?"Asad Rony (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩ 
  12. (ফাতহুল বারী ১১/২২৪) 
  13. "ইসমে আজম কী ও কেন"কালের কন্ঠ। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৫-০৩