আ্যলেক্স পেটিফার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যালেক্স পেটিফার
BEAST alex.jpg
বিস্ট চলচ্চিত্রে পেটিফার
জন্ম আলেকজান্ডার রিচার্ড পেটিফার
(১৯৯০-০৪-১০) ১০ এপ্রিল ১৯৯০ (বয়স ২৫)
স্টিভেনেজ, হার্টফোর্ডশায়ার, ইংল্যান্ড
পেশা অভিনেতা, মডেল
কার্যকাল ২০০৫–বর্তমান
ওয়েবসাইট
Official site

আলেকজান্ডার রিচার্ড "অ্যালেক্স" পেটিফার (ইংরেজি: Alexander Richard "Alex" Pettyfer) (জন্ম ১০ এপ্রিল, ১৯৯০) হলেন একজন ইংরেজ অভিনেতা ও মডেল[১] ২০০৬ সালে স্টর্মব্রেকার চলচ্চিত্রে অ্যালেক্স রাইডারের চরিত্রে অভিনয়ের আগে তিনি স্কুলের নাটক ও টেলিভিশনে অভিনয় করতেন। এই চরিত্রে অভিনয় করে তিনি একটি ইয়াং আর্টিস্ট অ্যাওয়ার্ড ও একটি এম্পায়ার অ্যাওয়ার্ড পেয়েছিলেন।[২] তিনি বারবেরির একাধিক বিজ্ঞাপনেও মডেলিং করেছেন।[৩] ২০১১ সালের একটি কল্পবিজ্ঞান অ্যাকশন অ্যাডভেঞ্চার চলচ্চিত্র আই অ্যাম নাম্বার ফোর এবং "বিউটি অ্যান্ড দ্য বিস্ট" গল্পের আধুনিক রূপে পুনর্কথন বিস্টলি তাঁর অভিনীত পরবর্তী চলচ্চিত্র।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

পেটিফার হার্টফোর্ডশায়ারের স্টিভেনেজে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ইন্টিরিয়ার ডেকরেটর লি আয়ারল্যান্ড (রিচার্ডসন) ও অভিনেতা রিচার্ড পেটিফারের পুত্র।[৪][৫] পিতামাতার বিবাহবিচ্ছেদের পর তাঁর মা প্রপার্টি ডেভেলপার মাইকেল আয়ারল্যান্ডকে বিবাহ করেন। তাঁর সৎ ভাই জেমস আয়ারল্যান্ড একজন জুনিয়র টেনিস খেলোয়াড়।[৪][৬]

পেটিফারের ছেলেবেলা কেটেছে বার্কশায়ারের উইন্ডসরে। নিউ ইয়র্ক সিটিতে একটি খেলনার দোকানে রালফ লরেনের সঙ্গে সাক্ষাতের পর মাত্র সাত বছর বয়সে তিনি গ্যাপের জন্য শিশু ফ্যাশন মডেল হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।[৪] কয়েকটি ইয়োগার্ট ব্র্যান্ডের জন্যও তিনি বিজ্ঞাপন করেছেন।

স্কুলে তিনি নিয়মিত নাটকে অভিনয় করতেন। স্কুলের প্রযোজনায় চার্লি অ্যান্ড দ্য চকোলেট ফ্যাক্টরি নাটকে তিনি উইলি ওয়াঙ্কা চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন। পেটিফার দুটি জুনিয়র ইন্ডিপেনডেন্ট স্কুলে লেখাপড়া করেন। পরে তিনি অন্য দুটি ইন্ডিপেনডেন্ট বোর্ডিং স্কুলে পড়াশোনা করেছিলেন।[৪] জিসিএসইএস করার পর তিনি সিলভিয়া ইয়াং থিয়েটার স্কুলে যোগদান করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

২০০৫ সালে মডেলিং কেরিয়ার শুরু করার পর,[৪] পেটিফার প্রথম বাণিজ্যিকভাবে অভিনয় করেন ব্রিটিশ টেলিভিশন প্রযোজনার টম ব্রাউন'স স্কুলডেজ চলচ্চিত্রে। এখানে তিনি প্রধান চরিত্র টম ব্রাউনের ভূমিকায় অভিনয় করেন। এই ছবিতে অভিনয় করে তিনি প্রশংসা অর্জন করেছিলেন।[৭] ২০০৫ সালের জুন মাসে তিনি তাঁর কর্মজীবনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ চরিত্রে অভিনয় করেন। এটি ছিল অ্যান্টনি হরোউইটজ রচিত উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত স্টর্মব্রেকার চলচ্চিত্রের কিশোর এমআই৬ স্পাই অ্যালেক্স রাইডারের চরিত্র। ৫০০ জনের অডিশন নিয়ে তাঁকে এই চরিত্রের জন্য বাছা হয়।[৬] এই সময় পেটিফারকে এরাগন ছবিতে একটি ভূমিকায় অভিনয় করার প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। পেটিফার স্টর্মব্রেকার ছবিটি বেছে নেন মূলত তিনটি কারণে। প্রথমত, স্টর্মব্রেকার ব্রিটেনে শ্যুট করা হয়, কিন্তু এরাগন শ্যুট করা হয়েছিল চেক প্রজাতন্ত্রে। দ্বিতীয়ত, উড়ানে পেটিফারের ভয় ছিল। এবং তৃতীয়ত, স্টর্মব্রেকার ছবির চরিত্রটির চেহারা তাঁর বেশি ভাল লেগেছিল।[৪] স্টর্মব্রেকার ২০০৬ সালের ২১ জুলাই যুক্তরাজ্যে, ২০০৬ সালের ৬ অক্টোবর যুক্তরাষ্ট্রে ও ২০০৬ সালের ২১ সেপ্টেম্বর অস্ট্রেলিয়ায় মুক্তি পায়।

এরপর তিনি ওয়াইল্ড চাইল্ড চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। ছবিটির শ্যুটিং হয়েছিল ক্যালিফোর্নিয়া, কেন্ট ও ইয়র্কশায়ার। একটি অংশের শ্যুটিং হয় কেন্টের কোবহ্যাম হল গার্লস স্কুলে। তিনি ফ্রেডি কিংসলে নামে এক স্কুলছাত্রের ভূমিকায় অভিনয় করেন। তাঁর বিপরীতে অভিনয় করেন এমা রবার্টস। ২০০৯ সালে তিনি হরর-কমেডি টরমেন্টেড ছবিতে অভিনয় করেন।

তিনি অ্যালেক্স ফ্লিন রচিত উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত বিস্টলি চলচ্চিত্রে মেরি-কেট ওলসেন, ভেনেসা হাডজেনসনেইল প্যাট্রিক হ্যারিসের সঙ্গে অভিনয় করেন। ছবিটি ২০১১ সালের ৪ মার্চ মুক্তি পায়।[৮] পেটিফার আই অ্যাম নাম্বার ফোর চলচ্চিত্রের মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেন। ছবিটি ২০১১ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মুক্তি পায়। এই ছবিতে তিনি টিমথি অলিফ্যান্ট, ডায়ানা অ্যাগরনটেরেসা পামারের সঙ্গে অভিনয় করেছেন।[৯] ছবিটি পরিচালক ডি জে ক্যারুসো, প্রযোজক মাইকেল বে ও কার্যনির্বাহী প্রযোজক স্টিভেন স্পিলবার্গ[১০]

ফিল্মোগ্রাফি[সম্পাদনা]

বছর চলচ্চিত্র চরিত্র
২০০৫ টম ব্রাউন'স স্কুলডেজ টম ব্রাউন
২০০৬ স্টর্মব্রেকার অ্যালেক্স রাইডার
২০০৮ ওয়াইল্ড চাইল্ড ফ্রেডি কিংসলে
২০০৯ টরমেন্টেড ব্র্যাডলি হোয়াইট
২০১১ আই অ্যাম নাম্বার ফোর জন স্মিথ/নাম্বার ফোর
২০১১ বিস্টলি কেইল কিংসন/হান্টার
২০১১ নাউ ফোরটিস

মডেলিং[সম্পাদনা]

  • ২০০৮: বারবেরি – স্প্রিং/সামার
  • ২০০৮: বারবেরি - দ্য বেস্ট ফর মেন
  • ২০০৯: বারবেরি - স্প্রিং/সামার

পুরস্কার ও মনোনয়ন[সম্পাদনা]

বছর পুরস্কার বিভাগ চরিত্র ফলাফল
2007 ইয়াং আর্টিস্ট অ্যাওয়ার্ড বেস্ট পারফরম্যান্স ইন অ্যান ইন্টারন্যাশনাল ফিচার ফিল্ম
লিডিং ইয়াং অ্যাকটর অর অ্যাকট্রেস[১১]
অ্যালেক্স রাইডার, স্টর্মব্রেকার মনোনীত
এম্পায়ার অ্যাওয়ার্ড বেস্ট মেল নিউকামার[১২] মনোনীত
২০১০ শোওয়েস্ট অ্যাওয়ার্ড মেল স্টার অফ টুমরো[১৩] বিজয়ী

পাদটীকা[সম্পাদনা]

  1. England & Wales, Birth Index: 1984-2005
  2. "Alex Pettyfer awards"IMDb.com। সংগৃহীত ১৩ জুলাই ২০১০ 
  3. "Burberry.com"Burberry। সংগৃহীত ১৩ জুলাই ২০১০ 
  4. ৪.০ ৪.১ ৪.২ ৪.৩ ৪.৪ ৪.৫ Lyall, Sarah (১৮ জুলাই ২০০৬)। "He Was a Teenage Spy, Surrounded by Treacherous Adults"। The New York Times। সংগৃহীত ১ নভেম্বর ২০১০ 
  5. http://movies.about.com/od/iamnumberfour/a/alex-pettyfer-interview-number-four.htm
  6. ৬.০ ৬.১ "Scotsman.com"Calm amid the storm। সংগৃহীত ২০ জুলাই ২০০৬ 
  7. "ICWales.co.uk"Going down a storm। সংগৃহীত ২০ জুলাই ২০০৬ 
  8. "E! Online"Vanessa Hudgens' New British Import। সংগৃহীত ২১ এপ্রিল ২০০৯ 
  9. "Timothy Olyphant Joins I Am Number Four"। reelzchannel.com। ১৩ মে ২০১০। সংগৃহীত ৫ জুন ২০১০ 
  10. "Alex Pettyfer comfirmed for I am Number Four"Coming Soon। ১ জুলাই ২০১০। সংগৃহীত ১৩ জুলাই ২০১০ 
  11. "28th Annual Young Artist Awards"। সংগৃহীত ১৫ জুন ২০১০ 
  12. "Empire Awards, UK - Awards for 2007"Internet Movie Database। সংগৃহীত ১৪ জুন ২০১০ 
  13. "ShoWest Awards - Past Award Winners"। সংগৃহীত ১৪ জুন ২০১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]