আর্কটিক দোলন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আর্কটিক দোলনের ইতিবাচক এবং নেতিবাচক পর্যায়

আর্কটিক দোলন ( এও ) বা উত্তর অ্যানুলার মোড /উত্তর গোলার্ধের অ্যানুলার মোড ( এনএএম ) হল ২০ ডিগ্রি অক্ষাংশের উত্তরদিকের আর্কটিক মেরুতে ঘটে যাওয়া আবহাওয়াজনিত ঘটনা। এটি উত্তর গোলার্ধের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ জলবায়ু পরিবর্তনের মোড। দক্ষিণ গোলার্ধের ক্ষেত্রে এমন অনুরূপ বিষয়কে অ্যান্টার্কটিক দোলন বা দক্ষিণ অ্যানুলার মোড (এসএএম) বলা হয়। কোনও নির্দিষ্ট সময়সীমার সাথে মিল না রেখে ইনডেক্স সময়ের সাথে সাথে পরিবর্তিত হয়। আর্কটিকের এই ধরনের ব্যতিক্রমতা অ-মৌসুমী সমুদ্র-স্তরীয় চাপ এর এক দিকের নিদর্শন দ্বারা চিহ্নিত করা হয়, যা প্রায় ৩৭-৪৫° & এন বি এস পি; এন কেন্দ্র করে বিপরীতমুখী নিদর্শনের অসঙ্গতি দ্বারা ভারসাম্যপূর্ণ হয়ে থাকে।[১]

উত্তর আটলান্টিক দোলন (এনএও) আর্কটিক দোলনের নিকটে বিদ্যমান। বায়ুমণ্ডলের গতিশীলতার প্রধান প্রতিনিধি হিসেবে কোনটি আরও ভালো তা নিয়ে বিতর্ক রয়েছে। এনএও আরও শারীরিকভাবে অর্থবহ উপায়ে শনাক্ত করা যেতে পারে,যা বায়ুমণ্ডলের পরিবর্তনের পরিমাপযোগ্য প্রভাবগুলিতে আরও বেশি প্রভাব ফেলতে পারে।[২]

বর্ণনা[সম্পাদনা]

আর্কটিক দোলনের লোডিং প্যাটার্ন।[৩]

আর্কটিক দোলনটি মেরুগুলিকে কেন্দ্র করে, সমুদ্রস্তরের চাপের অসঙ্গতিসমূহ এর মত রিং (বা "অ্যানুলার") প্যাটার্ন হিসাবে গঠিত হয়। মহাদেশ এবং বৃহত্তর ল্যান্ডম্যাসের উপস্থিতি আর্কটিক মেরুতে রিংয়ের মতো কাঠামো গঠনে বাধা প্রদান করে, কিন্তু ঐ সময় অ্যান্টার্কটিক মেরুর চারপাশে ব্যতিক্রমগুলি প্রায় গোলাকার হয়। জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা বিশ্বাস করেন যে, আর্কটিক দোলন উদ্দেশ্যহীনভাবে (এবং আংশিকভাবে ভবিষ্যদ্বাণীমূলক বলা যায়) বৈশ্বিক আবহাওয়া নিদর্শন এর সাথে সম্পর্কিত। নাসার জলবায়ু বিশেষজ্ঞ জেমস ই। হ্যানসেন প্রক্রিয়াটি এমনভাবে ব্যাখ্যা করেছিলেন যার সাহায্যে আর্কটিক দোলনটি আর্কটিক থেকে এত দূরের পয়েন্টগুলিতে বিদ্যমান আবহাওয়াকে যেভাবে প্রভাবিত করে সেটা ব্যাখ্যা করা যায়:

মধ্য অক্ষাংশে আর্কটিক বায়ু যে ডিগ্রিতে প্রবেশ করে তা এও সূচকের সাথে সম্পর্কিত, এবং সেটা পৃষ্ঠ বায়ুমণ্ডলীয় চাপের প্যাটার্ন দ্বারা সংজ্ঞায়িত করা হয়। যখন এও সূচকটি ইতিবাচক হয় তখন মেরু অঞ্চলে পৃষ্ঠের চাপ বেশি থাকে। এটি মধ্য অক্ষাংশে বিদ্যমান জেট স্ট্রিমটিকে পশ্চিম থেকে পূর্ব পর্যন্ত দৃঢ় এবং ধারাবাহিকভাবে প্রবাহিত হতে সহায়তা করে, তাই মেরু অঞ্চলে ঠান্ডা আর্কটিক বায়ু তালাবন্ধ অবস্থার মত হয়ে যায়। যখন এও সূচকটি নেতিবাচক হয়, তখন মেরু অঞ্চলে নিম্নচাপ,মধ্য অক্ষাংশে দুর্বল আঞ্চলিক বাতাস এবং হিমশীতল বাতাসের বৃহত্তর চলাচল এর প্রবণতা থাকে। [৪]

আর্কটিক দোলন সূচকটি দৈনিক বা মাসিক ১০০০ এইচপিএ ভূ-সম্ভাব্য উচ্চতায় ২০° এন থেকে ৯০° এন অক্ষাংশ ব্যবহার করে সংজ্ঞায়িত করা হয়। অসঙ্গতিগুলি আর্কটিক দোলন লোডিং প্যাটার্নে অনুমান করা হয়,[৩] যা ১৯৭৯-২০০০ এর সময়কালে প্রথম সংজ্ঞায়িত করা হয় মাসিক গড় ১০০০  এইচপিএ ভৌগোলিক উচ্চতায় ইমপিরিকাল অরথোগোনাল ফাংশন বা ইওএফ হিসাবে। সময় সিরিজটি তখন মাসিক গড় সূচক এর মানক বিচ্যুতির সাথে স্বাভাবিক করা হয়।

আর্কটিক দোলন এর বর্ধিত সময় সিরিজ, ডিসেম্বর থেকে মার্চ (ডিজেএফএম), শীতের মৌসুম ১৮৯৯-২০১১।

পর্যায়ক্রম[সম্পাদনা]

গত শতাব্দীর বেশিরভাগ সময় ধরে, আর্কটিক দোলন ইতিবাচক এবং নেতিবাচক পর্যায়ের মধ্যে পরিবর্তিত হয়ে এসেছে। ৬০ দিনের চলমান গড় ডেটা ব্যবহার করে জানা যায় যে দোলনাটি ১৯৭০ এর দশক থেকে আরও ইতিবাচক পর্যায়ে কম্পিত হওয়ার প্রবণতা বয়ে চলেছে,[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] যদিও এটি গত দশকে আরও নিরপেক্ষ অবস্থায় কম্পিত হওয়ার প্রবণতা অর্জন করেছে। দোলন এখনও দৈনিক, মাসিক, মৌসুমী এবং বার্ষিক সময়ের স্কেলগুলিতে নেতিবাচক এবং ইতিবাচক মানগুলির মধ্যে সম্ভাব্যতার সূত্রাবলি দ্বারা নিয়ন্ত্রিত ভাবে ওঠানামা করে, যদিও আবহাওয়াবিদরা তাদের ভবিষ্যদ্বাণীতে সংক্ষিপ্ত মেয়াদী পূর্বাভাসের জন্য উচ্চ মাত্রার নির্ভুলতা অর্জন করেছেন। বাস্তব পর্যবেক্ষণ এবং ৭ দিনের গড় গ্লোবাল পূর্বাভাস সিস্টেম বা পূর্বাভাসের পূর্বে পূর্বাভাস বা এও পূর্বাভাস মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্কের পরিমান প্রায় ০.৯।[৫]

মেরু ও নাতিশীতোষ্ণ অক্ষাংশে সমুদ্র স্তরের চাপগুলির মধ্যে এই আঞ্চলিক প্রতিসাম্য দৃশ্যটি প্রথম এডওয়ার্ড লরেঞ্জ দ্বারা চিহ্নিত করা হয়েছিল [৬] এবং ১৯৯৮ সালে ডেভিড ডব্লিউ জে। থম্পসন এবং জন মাইকেল ম্যাগেসি ওয়ালেস এর নাম দিয়েছিলেন।[৭]

প্রভাব[সম্পাদনা]

AO December to March temperature pattern.
AO December to March precipitation pattern.

জাতীয় স্নো এবং আইস ডেটা সেন্টার আর্কটিক দোলনের প্রভাবগুলি ভালোভাবে বর্ণনা করেন। ইতিবাচক পর্যায়ে, মধ্য অক্ষাংশ তে তৈরী অধিক চাপ সমুদ্রের ঝড়কে আরও উত্তর দিকে চালিত করে, এবং প্রচলনের ধরনে পরিবর্তনগুলি আলাস্কা, স্কটল্যান্ড এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়া এর মত অঞ্চলে আরও শীতল আবহাওয়া নিয়ে আসতে পারে। পাশাপাশি পশ্চিম মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং ভূমধ্যসাগর এ শুষ্ক পরিস্থিতি নিয়ে আসে। ইতিবাচক পর্যায়ে বলা যায় যে, শীতের শীতল বাতাস উত্তর আমেরিকা এর মাঝামাঝি পর্যন্ত প্রসারিত হয় না কারণ এটি দোলনের নেতিবাচক পর্বের সময় হবে। এটি আমেরিকার অনেক পূর্বদিকে রকি পর্বতমালা এর তাপমাত্রা স্বাভাবিকের চেয়ে উষ্ণ রাখে, তবে এর কারণে গ্রিনল্যান্ড এবং নিউফাউন্ডল্যান্ড এর আবহাওয়া স্বাভাবিকের চেয়ে শীতল হয়ে যায়। নেতিবাচক পর্বে আবহাওয়ার ধরনগুলি ইতিবাচক ধাপের তুলনায় সাধারণত "বিপরীত" থাকে।

জলবায়ু বিশেষজ্ঞরা এখন আর্কটিক দোলনকে আবহাওয়ার চরম অবস্থার জন্য দায়ী হিসেবে মনে করছেন এবং সরকারী পাবলিক ব্যাখ্যায় নিয়মিতভাবে তা প্রকাশ করছেন। জাতীয় মহাসাগর ও বায়ুমণ্ডলীয় প্রশাসন এর জাতীয় জলবায়ু ডেটা সেন্টার থেকে নিম্নলিখিত বিবৃতি: স্টেট অফ দি ক্লাইমেট ডিসেম্বর ২০১০ যা "নেতিবাচক আর্কটিক দোলন" শব্দটি চারবার ব্যবহার করে, সেটা এই বর্ধমান প্রবণতার জন্য প্রতিনিধির মত কাজ করে:
"শীতল আর্কটিক বায়ু ডিসেম্বরের প্রথম তিন সপ্তাহের মধ্যে পশ্চিম ইউরোপকে আঁকড়ে ধরেছিল। দুটি প্রধান তুষার ঝড়, বরফের পরিস্থিতি এবং হিমশীতল তাপমাত্রা এই অঞ্চলটির বেশিরভাগ জায়গায় সর্বনাশ করেছে। শীতের খারাপ আবহাওয়াকে একটি নেতিবাচক আর্কটিক দোলন এর জন্য দায়ী করা হয়েছিল, এবং এটি একটি জলবায়ু নিদর্শন যা উত্তর গোলার্ধের আবহাওয়ার উপর প্রভাব ফেলে। গ্রীনল্যান্ডের কাছে উচ্চ চাপ, বা 'ব্লকিং সিস্টেম' এর একটি শক্তিশালী স্থির সেতুবন্ধ রয়েছে, যা ঠান্ডা আর্কটিক বায়ু দক্ষিণে ইউরোপে প্রবাহিত করার অনুমতি দেয়। আর্কটিক দোলন দ্বারা প্রভাবিত উত্তর গোলার্ধে ইউরোপ-ই একমাত্র অঞ্চল ছিল না। একটি বিশাল তুষার ঝড় এবং হিমশীতল তাপমাত্রা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে ১০-১৩ ডিসেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য-পশ্চিমাঞ্চলকে প্রভাবিত করে"।[৮]

২০১০ এর ঘটনাগুলো[সম্পাদনা]

দোলনের নেতিবাচক পর্বের প্রভাবগুলির আরও একটি গ্রাফিক চিত্র, ২০১০ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঘটেছিল। সেই মাসে,আর্টিক দোলনটি তার সর্বাধিক নেতিবাচক মাসিক গড় মান, প্রায় -৪.২৬৬ এ পৌঁছেছে যা ১৯৫০-এর পুরো যুগে (সঠিক রেকর্ড রাখার সময়কাল) ঘটেছিল।[৯] এই মাসটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্য-আটলান্টিক অঞ্চল এ ঘটে যাওয়া তিনটি পৃথক ঐতিহাসিক তুষার ঝড়ের বৈশিষ্ট্যের এর সাথে তুলনা করা হয়। প্রথম ঝড় অধক্ষিপ্ত হয় ফেব্রুয়ারি ৫-৬ এ,২৫ ইঞ্চি (৬৪০ মিমি) বাল্টিমোর, মেরিল্যান্ড নামক জায়গায় এবং একটি দ্বিতীয় ঝড় অধক্ষিপ্ত হয় ১৯.৫ ইঞ্চি (৫০০ মিমি)। নিউ ইয়র্ক সিটিতে, পৃথক ঝড় ১৫-২৬ ফেব্রুয়ারি ইঞ্চি ২০.৯ ইঞ্চি (৫৩০ মিমি) অধক্ষেপ জমা করেছে।

আরও একটি তুষার ঝড় ৮ই মার্চ কাতালোনিয়া এবং প্রতিবেশী ফরাসি বিভাগসমূহ্তে (ল্যাঙ্গুয়েডোক-রুসিলন, মিডি-পাইরেনেস) প্রবাহিত হয়েছে এবং ৬০  সেমি বরফ জমা করেছে গিরোনা তে।[১০] এই ধরনের তুষার ঝড়ের ক্রিয়াকলাপটি অত্যন্ত ব্যতিক্রমী হিসাবে বিবেচিত হয়,এবং চরম মানের নেতিবাচক আর্কটিক দোলন হিসাবে পরিচিত। ২০১০ এর সময় এও'র এই নেতিবাচক মানগুলি এবং পরবর্তী শীতে প্রবেশের ফলে শীতল বায়ু, উপ-ক্রান্তীয় দক্ষিণ ফ্লোরিডায় স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক বেশি দক্ষিণে প্রবেশ করে যা রেকর্ড ব্রেকিং কম তাপমাত্রা নিয়ে এসেছিল এবং মাসগুলি অনেক জায়গায় নিবন্ধিত হয়েছে [১১] এবং ফেব্রুয়ারি, মার্চ এবং ডিসেম্বরে সবচেয়ে শীতল গড় মাসিক সর্বনিম্ন তাপমাত্রা নিবন্ধিত হয়েছে যা সে বছর ক্যানকান এর গ্রীষ্মমণ্ডলীয় সৈকত যাত্রার পথে জলবায়ু গড় ৪C এরও বেশি।[১২]

১৯৫০ সাল থেকে ১৯৭৭ সাল এর মধ্যে জানুয়ারিতে আর্টিকের দোলনের জন্য বৃহত্তম নেতিবাচক মান −৩.৭৬৭ পাওয়া গিয়েছিল, যা নিউইয়র্ক সিটি, ওয়াশিংটন, ডিসি, বাল্টিমোর এবং অন্যান্য মধ্য-আটলান্টিক জায়গাগুলোতে সেই সময়ের মধ্যে জানুয়ারির সবচেয়ে শীতলতম তাপমাত্রার সাথে মিলেছে। যদিও 'জানুয়ারী আর্কটিক দোলনের' নেতিবাচক মান ১৯৫০ থেকে ২০১০ সালের মধ্যে ৬০.৬% সময় এ দেখা গিয়েছে। ১৯৫০ সাল থেকে নিউইয়র্ক সিটির দশটি শীতলতম জানুয়ারীর মধ্যে নয়টিতেই নেতিবাচক আর্টিক দোলনের পাওয়া গিয়েছে।[১৩]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Arctic Oscillation (AO) time series, 1899 – June 2002"। ১৮ মে ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০২১ 
  2. Ambaum et al. "Arctic Oscillation or North Atlantic Oscillation?"
  3. "CPC - Teleconnections: Arctic Oscillation Loading Pattern" 
  4. Hansen, James; Reto Ruedy; Makiko Sato; Ken Lo (২০০৯)। "If It's That Warm, How Come It's So Damned Cold?" (PDF)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৭-১৭ 
  5. "CPC – Monitoring & Data: Daily Arctic Oscillation Index"। ২০১০-১২-৩০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-২৯ 
  6. Lorenz, Edward N. (১৯৫১)। "Seasonal and Irregular Variations of the Northern Hemisphere Sea-Level Pressure Profile"। Journal of Meteorology8 (1): 52–59। আইএসএসএন 1520-0469ডিওআই:10.1175/1520-0469(1951)008<0052:SAIVOT>2.0.CO;2অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1951JAtS....8...52L 
  7. Thompson, David W. J.; John Michael Wallace (১৯৯৮)। "The Arctic oscillation signature in the wintertime geopotential height and temperature fields"Geophysical Research Letters25 (9): 1297–1300। ডিওআই:10.1029/98GL00950অবাধে প্রবেশযোগ্যবিবকোড:1998GeoRL..25.1297T। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৮-২৮ 
  8. "State of the Climate | December 2010"। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০১-২৯ 
  9. Ripesi, Patrizio; ও অন্যান্য (২০১২)। "The February 2010 Arctic oscillation Index and its stratospheric connection" (PDF)Quarterly Journal of the Royal Meteorological Society138 (669): 1961–1969। ডিওআই:10.1002/qj.1935বিবকোড:2012QJRMS.138.1961R 
  10. Llasat, M.C.; ও অন্যান্য (২০১৪)। "The snow storm of 8 March 2010 in Catalonia (Spain): a paradigmatic wet-snow event with a high societal impact" (PDF)Natural Hazards and Earth System Sciences14 (2): 427–441। ডিওআই:10.5194/nhess-14-427-2014বিবকোড:2014NHESS..14..427L 
  11. 2010 South Florida Weather in Review (PDF) 
  12. SERVICIO METEOROLÓGICO NACIONAL NORMALES CLIMATOLÓGICAS, ২০১৫-০৭-০৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা 
  13. National Weather Service Climate Prediction Center and NWS Forecast Office, as of 2010

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:আর্কটিক বিষয়

টেমপ্লেট:জলবায়ু দোলন