আবু বারকাত আতাউর গণী খান চৌধুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আবু বারকাত আতাউর গণী খান চৌধুরী.jpg

আবু বারকাত আতাউর গণি খান চৌধুরী (১ নভেম্বর ১৯২৭ - ১৪ এপ্রিল ২০০৬) ছিলেন একজন ভারতীয় রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব যিনি মালদা লোকসভা কেন্দ্র থেকে ভারতের জাতীয় কংগ্রেসের প্রার্থী হিসাবে ১৯৮০ খ্রিষ্টাব্দ থেকে ২০০৬ খ্রিষ্টাব্দ পর্য্যন্ত ভারতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। তার আগে তিনি পশ্চিমবঙ্গ রাজ্য সরকারের সেচ ও শক্তি দপ্তরের মন্ত্রী ছিলেন।[১]

বংশ পরিচয়[সম্পাদনা]

গণি খান চৌধুরী পশ্চিমবঙ্গের মালদহ জেলার একটি সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহন করেন। তার বাবা খান বাহাদুর আবু হায়াত বি. খান চৌধুরী ব্রিটিশ ভারতের মালদহ জেলার একজন জমিদার ছিলেন।

গণি খান চৌধুরীর পরিবারের অন্যান্য অনেক সদস্যই রাজনীতির সাথে জড়িত। তার ভাই আবু হাসেম খান চৌধুরী ভারতের জাতীয় কংগ্রেস দলের একজন নেতা এবং মালদহ দক্ষিণ লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ।

তার আরেক ভাই আবু নাসের খান চৌধুরী সুজাপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন এবং তিনি পশ্চিমবঙ্গ সরকারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি দপ্তরের মন্ত্রীত্বও সামলেছেন। ২০১৫ সালে তিনি কংগ্রেস ছেড়ে সর্বভারতীয় তৃণমূল কংগ্রেস দলে যোগ দেন।

গণি খান চৌধুরীর ছোট বোন রুবি নুর সুজাপুর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েছিলেন।

তার ভাইপো ইশা খান চৌধুরীও (আবু নাসের খানের পুত্র) ২০১৬ থেকে ২০২১ পর্যন্ত সুজাপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক ছিলেন এবং ২০১১ থেকে ২০১৬ পর্যন্ত তিনি বৈষ্ণবনগর বিধানসভা কেন্দ্র থেকে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার সদস্য ছিলেন।

গণি খানের ভাগ্নি মৌসম নুর (রুবী নূরের কন্যা) ২০০৯ থেকে ২০১৯ সাল পর্যন্ত মালদহ উত্তর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ ছিলেন। তিনি বর্তমানে রাজ্যসভার সাংসদ।

বিতর্ক[সম্পাদনা]

লোকসভায় সদস্য হিসাবে তথ্য দেবার সময় গণি খান চৌধুরী দাবি করেছিলেন যে তিনি একজন ব্যারিস্টার। পরবর্তীকালে তার এই দাবি মিথ্যে প্রমানিত হয় এবং বিরোধীদের দ্বারা তিনি সমালোচিত হন।[২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "https://web.archive.org/web/20060615194145/http://164.100.24.208/ls/lsmember/biodata.asp?mpsno=93"। সংগ্রহের তারিখ 18 m ay  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য); |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  2. "https://www.proquest.com/docview/609787296/B633BF3D894D60PQ/1"  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)