আবদুল্লাহ হারুন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
আবদুল্লাহ হারুন
عبداللہ ہارون
জন্ম
মৃত্যু২৭ এপ্রিল ১৯৪২(1942-04-27) (বয়স ৬৯–৭০)[১]
করাচি, ব্রিটিশ ভারত
জাতীয়তাব্রিটিশ ভারত
পরিচিতির কারণরাজনীতি (পাকিস্তান আন্দোলন নেতা), মানবতাবাদী
উপাধিনাইট
রাজনৈতিক দল
আন্দোলন

স্যার আব্দুল্লাহ হারুন (১৮৭২–১৯৪২) (উর্দু: عبداللہ ہارون‎‎) (হাজী স্যার আবদুলা হারুন বানানও ব্যবহৃত হয়) একজন ব্রিটিশ ভারতীয় রাজনীতিবিদ, যিনি ভারতীয় উপমহাদেশের অর্থনৈতিক, শিক্ষামূলক, সামাজিক এবং রাজনৈতিক ক্ষেত্রে মুসলমানদের ভূমিকা বিকাশ ও উল্লেখ করতে অনেক অবদান রেখেছেন।[২]

প্রাথমিক জীবন এবং রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

আবদুল্লাহ হারুনের জন্ম মেমন পরিবারে।[৩] তিনি খুব অল্প বয়সেই তার পিতাকে হারিয়েছিলেন এবং তার দাদির সঙ্গে বেড়ে ওঠেন যিনি একজন গভীর ধর্মীয় মহিলা ছিলেন।[৪] জীবনের প্রথম দিকে, তিনি 'সহকারী সাইকেল মেরামতের লোক' হিসাবে চার আনা (এক ভারতীয় রুপির এক চতুর্থাংশ) মজুরীতে কাজ করেছিলেন। শ্রমের মর্যাদায় তিনি গভীর বিশ্বাসী। তারপরে ১৮৯৬-এ ২৪ বছর বয়সে তিনি একজন ছোট ব্যবসায়ী হিসাবে নিজের ব্যবসা শুরু করেছিলেন। তিনি শীঘ্রই খুব সফল হয়ে ওঠেন এবং চিনির ব্যবসায়ের কারণে তাঁর সমসাময়িকরা তাকে 'সুগার কিং' নামে ডাকতো। ১৯০১ সালে তিনি রাজনীতির প্রতি আগ্রহী হয়ে উঠেন। তিনি সর্বপ্রথম ১৯১৩ সালের মে থেকে ১৯১৬ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করাচি পৌরসভার সদস্য হন। আবার ১লা মে ১৯২১ থেকে ২১ আগস্ট ১৯৩৪ পর্যন্ত তিনি এই সংস্থার সদস্য ছিলেন।

আবদুল্লাহ হারুন ১৯১৭ সালে প্রথম ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস দলে যোগ দিয়েছিলেন এবং ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনে অংশ নিতে শুরু করেছিলেন। শীঘ্রই তিনি ভারতের কংগ্রেস দলের নীতি থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েন এবং সর্বভারতীয় মুসলিম লীগ দলে যোগ দেন এবং মৃত্যুর আগ পর্যন্ত এর দৃঢ় সমর্থক ছিলেন। ১৯১৯ সালে তিনি মুহাম্মদ আলী জোহরের নেতৃত্বে ভারতের বৃহত্তর খেলাফত আন্দোলনের একটি শাখা সিন্ধুর খেলাফত কমিটির সভাপতি হন।[৪] তিনি ১৯২০ থেকে ১৯৩০ সাল পর্যন্ত সিন্ধু প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেন।[২]

১৯৩০ সালে তিনি সর্বভারতীয় মুসলিম সম্মেলনে যোগ দিয়েছিলেন এবং একই বছর তিনি ইউনিয়নবাদী দল (পাঞ্জাব)-এর আদলে সিন্ধ ইউনাইটেড পার্টি গঠন করেন, যা ১৯৩৬ সালের এপ্রিলে অনুষ্ঠিত বোম্বাই প্রেসিডেন্সি থেকে সিন্ধকে পৃথক করার আহ্বান জানিয়েছিল। যদিও ১৯৩৭ সালের প্রাদেশিক নির্বাচনে তাঁর দল বহুসংখ্যক আসন জিতেছে তবে হারুন ও স্যার শাহ নওয়াজ ভুট্টোর মতো নেতারা নির্বাচিত হতে ব্যর্থ হওয়ায় সরকার গঠন করতে পারেনি। ১৯৩৭ সালের করোনেশন অনার্স তালিকায় তিনি রাজা ষষ্ঠ জর্জ কর্তৃক নাইট হয়েছিলেন এবং স্যার আবদুল্লাহ হারুন নামে পরিচিতি লাভ করেছিলেন। সিন্ধু ইউনাইটেড পার্টির পতন তাকে ১৯৩৮ সালে সিন্ধুতে মুসলিম লীগকে সংগঠিত করে।[২]

আব্দুল্লাহ হারুন পরীক্ষামূলক স্বাধীনতাপাকিস্তান কায়েদ-ই-আজম মোহাম্মদ আলী জিন্নাহ প্রেসিডেন্সির অধীনে অক্টোবর ১৯৩৮ সালে সিন্ধু প্রাদেশিক মুসলিম লীগের সম্মেলনে রেজল্যুশন। তিনি ১৯৩০ সালের ২৩শে মার্চ লাহোরে মুসলিম লীগের ২য় অধিবেশনে সিন্ধুর সকল মুসলমানের পক্ষে "পাকিস্তান বিভাজন" সমর্থন করেছিলেন।[৫]

মৃত্যু এবং উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

আবদুল্লাহ হারুন ১৯৪২ সালের ২৭ এপ্রিল করাচিতে মারা যান।[১] তিনি ১৯৪২ সালে এলাহাবাদে মুসলিম লীগকে দশ হাজার টাকা অনুদান দিয়েছিলেন। তিনি একজন সমাজসেবী ছিলেন এবং সারা জীবন সমাজকল্যাণ প্রকল্পে সক্রিয় ছিলেন এবং অনেক দাতব্য প্রতিষ্ঠানে অবদান রেখেছিলেন।[২] পাকিস্তান পোস্ট অফিস তার 'পাইওনিয়ার্স অফ ফ্রিডম' সিরিজে তার সম্মানে একটি ডাকটিকিটও জারি করেছিল।[৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.dawn.com/news/1178378, 'Abdullah Haroon, leader with vision' on Dawn newspaper, Published 27 April 2015, Retrieved 1 Oct 2016
  2. http://www.in.com/abdullah-haroon/biography-4231.html, Abdullah Haroon's profile on in.com website, Retrieved 30 Sep 2016
  3. "History of Memons - GONDAL MEMON ASSOCIATION"gma.org.pk 
  4. http://www.findpk.com/cybercity/pof/sir_abdullah_haroon.html, Profile of Abdullah Haroon on findpk.com website, Retrieved 1 Oct 2016
  5. http://www.pakistan.web.pk/threads/sir-haji-abdullah-haroon.2244/ Profile of Abdullah Haroon on pakistan.web.pk website, Retrieved 30 Sep 2016