অরপ্যাড মিকলোস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অরপ্যাড মিকলোস
Árpad Miklós
Arpad Miklos.jpg
জন্ম
পিটার কোজমস
Péter Kozma

(১৯৬৭-০৯-১১)১১ সেপ্টেম্বর ১৯৬৭
মৃত্যু৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩(2013-02-03) (বয়স ৪৫)
নিউ ইয়র্ক সিটি, নিউ ইয়র্ক, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
মৃত্যুর কারণঅতিরিক্ত ড্রাগ সেবনের মাধ্যমে আত্মহত্যা
অন্য নামফ্র্যাঙ্কোইস ক্যাগিলো
Francois Kagylo
পিটার কোজমা
Peter Kozma[১]
অরপ্যাড মিকলোস
Árpád Miklós[২][৩]
জাতিসত্তাহাঙ্গেরিয়ান
উচ্চতা৬ ফুট ২ ইঞ্চি (১.৮৮ মিটার)
ওজন২৩৫ পা (১০৭ কেজি)

অরপ্যাড মিকলোস (জন্ম পিটার কোজমা, ১১ সেপ্টেম্বর ১৯৬৭ – ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৩) ছিলেন বিভিন্ন ছদ্মনামে পুরুষ-সমকামীবিষমকামী পর্নোগ্রাফিক চলচ্চিত্রে অভিনয়কারী হাঙ্গেরিয়ান পর্নোগ্রাফি অভিনেতা

জীবন[সম্পাদনা]

মিকলোস হাঙ্গেরির বুদাপেস্টে জন্মগ্রহণ করেন। পর্ন অভিনেতা হওয়ার আগে তিনি ছিলেন একজন কেমিক্যাল ইঞ্জিনিয়ার। [৪] তিনি শেষদিকে নিউ ইয়র্ক সিটিতে থাকতেন।[৫] সেখানে তিনি এসকর্ট হিসেবে কাজ করতেন।[৬]

কেরিয়ার[সম্পাদনা]

মিকলোস জন রুথারফোর্ড, জেরি ডগলাস, ক্রিস্টেন জোর্নচি চি লারুইয়ের পরিচালিত চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। পরিচালক হার্ভে হ্যান্ডসামের পরিচালনায় একটি ইউরোপীয় চলচ্চিত্রে তিনি ফ্র্যাঙ্কোইস ক্যাগিলো নামে অভিনয় করেন। বালকরুজ পার্ট ওয়ান চলচ্চিত্রে অভিনয় করে মিকলোস একটি "গ্র্যাবি" পুরস্কার ও একটি গেভিএন পুরস্কার পান।[৭] মিকলোস তার ভিডিওগুলিতে শুধুমাত্র টপভূমিকাই পালন করতেন। তবে কখনও কখনও বটম হিসেবে মুখরতিও করেছেন। ২০০৯ সালের অগস্ট মাসে স্ট্রেট গাইজ ফর গে আইজ সাইটের জন্য তার প্রথম বিষমকামী চলচ্চিত্রটি মুক্তি পায়। ২০১০ সালের জুন মাসে মিকলোসকে আমেরিকান অ্যাপারেলে বাট পত্রিকার বিচ টাওয়েল বিক্রির অনুষ্ঠানে অংশীদার হওয়ার জন্য বেছে নেওয়া হয়। প্রত্যেকটি তোয়ালে বিক্রির অর্থের কিছু অংশ এলজিবিটিকিউ যুবক-যুবতীদের গৃহ ও পরিষেবা দানের জন্য নির্মিত নিউ ইয়র্ক সিটি-ভিত্তিক সংস্থা আলি ফর্নি সেন্টারকে দান করা হয়।

আনজিপড্‌ পত্রিকায় সেপ্টেম্বর ২০০৭ সংখ্যায় তাকে নিয়ে ফিচার প্রকাশিত হয়।[৮] ২০১২ সালের জানুয়ারি মাসে মিকলোস "হুড" গানটির মিউজিক ভিডিওতে শিল্পী পারফিউম জিনিয়াসের সঙ্গে অভিনয় করেন।

পুরস্কার[সম্পাদনা]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০১৩ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি মিকলোসের লোয়ার ইস্ট সাইড, নিউ ইয়র্ক সিটি অ্যাপার্টমেন্টে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৪৫। জানা যায়, ইচ্ছাকৃতভাবে অতিরিক্ত মাত্রায় ড্রাগ সেবনের জন্য এই মৃত্যু ঘটেছে।[৯] সেখানে একটি সুইসাইড নোট পাওয়া যায়। সেই নোটে তাকে স্মরণ করার জন্য তিনি তার বন্ধুদের শুভেচ্ছা জানান।[১]

দীর্ঘকালীন অবসাদকেই এই আত্মহত্যার কারণ বলে মনে করা হয়। মিকলোসের বন্ধু তথা নিউ ইয়র্কের লেখক র‍্যান্ডেল লিঞ্চ লিখেছেন, “পুরুষ-সমকামী সমাজে তিনি খুব কর্মঠ ব্যক্তি ছিলেন। আমি বলব তিনি সুখী ছিলেন না। কিন্তু তিনি সেটা প্রকাশও করতেন না। তিনি সহজে ভেঙে পড়তেন না। আমি জানতাম, তিনি অবসাদগ্রস্থ ছিলেন। কিন্তু সেটা কতটা মারাত্মক ছিল, তা বুঝতে পারিনি। কারণ নিজের আবেগ নিয়ে তিনি বিশেষ কথা বলতেন না।”[১০]

ফিল্মোগ্রাফি[সম্পাদনা]

প্রাপ্তবয়স্ক[সম্পাদনা]

  1. ক্রচ রকেট (২০১০) (ভি)
  2. লোডিং জোন (২০০৯) (ভি)
  3. অ্যানাল ককপিট (২০০৯) (ভি)
  4. ফুল অফ কাম (২০০৯) (ভি)
  5. প্রাইভেট পার্টি থ্রি: দ্য মিস্ট্রি রিভিলড্‌ (২০০৯) (ভি)
  6. রেস্ট স্টপ গ্লোরি হোল (২০০৯) (ভি)
  7. মেন’স রুম থ্রি: ওজার্ক এমটিএন. এক্সিট এইট (২০০৮) (ভি)
  8. ব্রেকার্স (২০০৭) (ভি)
  9. অ্যাস পাউন্ডিং (২০০৭) (ভি)
  10. জিগোলো (২০০৭) (ভি)
  11. ফোলসোম লেদার (২০০৭) (ভি)
  12. বইলার (২০৭) (ভি)
  13. হাঙ্গার (২০০৭) (ভি)
  14. শ্যাকড আপ (২০০৭) (ভি)
  15. টাফ স্টাফ (২০০৭) (ভি)
  16. প্রাইভেট লোলাইফ (২০০৬) (ভি)
  17. ব্ল্যাক ‘এন’ ব্লু (২০০৬) (ভি)
  18. ব্লু (২০০৬/এক) (ভি)
  19. হাম্পিং আয়রন (২০০৬) (ভি)
  20. অ্যাট ইয়োর সার্ভিস (২০০৬) (ভি)
  21. বিফকেক (২০০৬) (ভি)
  22. ফাকিং উইথ দ্য স্টারস (২০০৬) (ভি)
  23. জারহেড টু (২০০৬) (ভি)
  24. কিক-অ্যাস পর্ন (২০০৬) (ভি)
  25. নিক কাপরা ডার্টি টক (২০০৬) (ভি)
  26. বোনসাকার (২০০৫) (ভি)
  27. প্রল ফাইভ: অ্যাজ রাফ অ্যাজ ইট গেটস (২০০৫) (ভি)
  28. টাফ গাইজ: গেটিন’ অফ (২০০৫) (ভি)
  29. হেল রুম (২০০৫) (ভি)
  30. বুটস্ট্র্যাপ (২০০৫) (ভি)
  31. স্কাফ থ্রি: ডাউনরাইট রং (২০০৫) (ভি)
  32. প্রল ৪: ব্যাক উইথ আ ভেঞ্জেনেন্স (২০০৫) (ভি)
  33. দ্য হার্ড ওয়ে (২০০৫) (ভি)
  34. বেড হেডস (২০০৫) (ভি)
  35. বিগ ব্লু ইন দ্য বয়লার রুম (২০০৫) (ভি)
  36. সিএসআই: কক সিন ইনভেস্টিগেশন (২০০৫) (ভি)
  37. এনটুরেজ: এপিসোড ওয়ান (২০০৫) (ভি)
  38. এনটুরেজ: এপিসোড টু (২০০৫) (ভি)
  39. লেদারবাউন্ড (২০০৫) (ভি)
  40. ম্যান মেড (২০০৫) (ভি)
  41. র্যা ম রাফ (২০০৫) (ভি)
  42. ওয়ার্ল্ড স্প্ল্যাশ অর্গি ২০০৫ (২০০৫) (ভি)
  43. বাকলরুজ: পার্ট ওয়ান (২০০৪) (ভি)
  44. টেকিং ফ্লাইট (২০০৪) (ভি)
  45. সিক্সটিনাইন: ডিসকভার দ্য সিক্রেট (২০০৪) (ভি)
  46. ফায়ার আইল্যান্ড ক্রুসিং সিক্স (২০০৪) (ভি)
  47. হোল প্যাট্রল (২০০৪) (ভি)
  48. ম্যানহান্ট: দ্য মুভি (২০০৪) (ভি)
  49. স্টকড্‌, পার্ট টু (২০০৪) (ভি)
  50. দ্য রোড টু টেম্পটেশন (২০০৪) (ভি)
  51. ট্রাকস্টপ ড্যাডি টু (২০০৪) (ভি)
  52. স্কাফ টু: ডাউনরাইট ফিলথি (২০০৩) (ভি)
  53. বোন আইল্যান্ড (২০০৩) (ভি)
  54. ডিফাইনড (২০০২) (ভি)
  55. দ্য আইল অফ মেন (২০০২) (ভি)
  56. থিক অ্যাজ থিভস (১৯৯৯) (ভি)
  57. হাঙ্গেরি ফর মেন (১৯৯৬) (ভি)
  58. কমরেডস ইন আর্মস (১৯৯৫) (ভি)
  59. দ্য ভ্যাম্পায়ার অফ বুদাপেস্ট (১৯৯৫) (ভি)

মিউজিক ভিডিও[সম্পাদনা]

হুড (২০১২) (শিল্পী পারফিউম জিনিয়াস, উইনস্টন এইচ. কেস পরিচালিত)

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Arpad Miklos Dead: Gay Porn Star Reportedly Commits Suicide In New York Apartment"। Huffingtonpost.com। 2013-02-05। সংগ্রহের তারিখ 'February 11, 2013  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  2. ""Gay porn star: Arpad Miklos""। ২১ মার্চ ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৬ 
  3. ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজে Arpad Miklos (ইংরেজি)
  4. "JD Ferguson Presents: Arpad Miklos", NY Daily News, 7 February 2013. Retrieved 8 February 2013.
  5. "JD Ferguson Presents: Arpad Miklos" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১১ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে, JD Ferguson, Papermag, 22 June 2007. Retrieved 13 September 2007.
  6. "The First International Escort Awards 2006", Presented by [১] and HX Magazine. Retrieved 2007-09-13.
  7. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১৭ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৯ অক্টোবর ২০১৬ 
  8. "Unzipped - September 2007"
  9. "Gay Adult Film Star Arpad Miklos Dead at 45" Andy Towle, Towleroad, 5 February 2013.
  10. Moran, Lee (৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৩)। "Gay porn star Arpad Miklos found dead in New York apartment from apparent suicide"Daily News। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

পুরস্কার
পূর্বসূরী
ফ্রেডরিক একলান্ড
দ্য হোল চলচ্চিত্রের জন্য
গেভিএন অ্যাওয়ার্ডস ফর বেস্ট সোলো পারফরম্যান্স—রিকি মার্টিনজের সঙ্গে
বাকলরুজ ওয়ান চলচ্চিত্রের জন্য
উত্তরসূরী
জনি হ্যাজার্ড, রং সাইড অফ দ্য ট্র্যাকস পার্ট ওয়ান চলচ্চিত্রের জন্য