অঞ্জনা ওম কাশ্যপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অঞ্জনা ওম কাশ্যপ
Anjana Om Kashyap.jpg
অঞ্জনা ওম কাশ্যপ
জন্ম
জাতীয়তাভারতীয়
পেশাসাংবাদিক, সংবাদ উপস্থাপক
কর্মজীবন২০০৩ - বর্তমান
নিয়োগকারীইন্ডিয়া টুডে গ্রুপ
দাম্পত্য সঙ্গীমঙ্গেশ কাশ্যপ
সন্তান

অঞ্জনা ওম কাশ্যপ তিনি একজন ভারতীয় সাংবাদিক এবং উপস্থাপক। তিনি হিন্দি নিউজ চ্যানেল আজ তকের নির্বাহী সম্পাদক। [১]

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা[সম্পাদনা]

অঞ্জনা রাঁচির (তদানীন্তন বিহারের অংশ) এক ভূমিহার গোত্রে জন্মেছিলেন। তাঁর বাবার নাম ওমপ্রকাশ তিওয়ারী।[১] ওমপ্রকাশ ভারতীয় সেনাবাহিনীতে স্বল্প সময়ের জন্য একজন ডাক্তার ছিলেন এবং বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় সেবা দিয়েছিলেন।[১]


স্থানীয় ক্যাথলিক স্কুল লরেটো কনভেন্টে এবং তারপরে, দিল্লি পাবলিক স্কুল, রাঁচি থেকে তাঁর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পড়াশোনা হয়েছিল।[১] বিজ্ঞানের দিকে স্বাভাবিক ঝোঁক থাকা সত্ত্বেও তিনি দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে উদ্ভিদবিদ্যায় ডিগ্রী অর্জনের জন্য পড়তে গিয়েছিলেন। অঞ্জনা অল ইন্ডিয়া প্রি মেডিকেল টেস্ট -এ অংশ নিয়েছিলেন কিন্তু পাস করতে পারেননি।[১] তিনি ভাল তার্কিক ছিলেন এবং শৈশব থেকেই দৃঢ় নেতৃত্বের গুণাবলী প্রদর্শন করেছিলেন। তিনি তাঁর দুই বিদ্যালয়েই দল নেত্রী ছিলেন এবং তাঁর কলেজ ছাত্রাবাসের সভাপতি হয়েছিলেন।[১]

কয়েক বছর পরে, স্নাতকোত্তর করার জন্য তিনি দিল্লি স্কুল অব সোশাল ওয়ার্ক এ ভর্তি হন। অঞ্জনা পাঠ্যক্রম এবং ক্ষেত্র পরিদর্শনে উল্লেখ করেছিলেন যা তাঁর মধ্যে সক্রিয়তার মনোভাব জাগ্রত করেছিল। [১]

কর্ম জীবন[সম্পাদনা]

অঞ্জনার প্রথম কাজটি ছিল দেবু মোটরস -এ পরামর্শদাতা হিসাবে; তবে, তিনি চাকরিটি পছন্দ করেন নি এবং প্রায় এক বছর পরে পদত্যাগ করেছিলেন।[১] তারপরে তিনি বস্তিবাসীদের আইন পরামর্শদাতা হিসাবে একটা এনজিওতে যোগদান করেছিলেন।[১]

সাংবাদিকতা[সম্পাদনা]

২০০০ সালের গোড়ার দিকে, মূলত তাঁর স্বামীর জেদেই, অঞ্জনা জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সাংবাদিকতায় ডিপ্লোমা নিতে পড়া শুরু করেছিলেন। [১] স্নাতক শেষ হওয়ার পরে, পরিচিতদের কাছ থেকে কিছু সহায়তার পর তিনি দূরদর্শনে অন্তর্ভুক্ত হয়েছিলেন; তাকে আঁখোঁ দেখি নামে একটি অনুসন্ধানী অনুষ্ঠানের সংবাদ-ডেস্কে নিয়োগ দেওয়া হয়েছিল। এছাড়াও তাঁকে মাঝে মাঝে প্রতিবেদনের দায়িত্বও দেওয়া হয়েছিল।[১]


এক বছরের মধ্যেই তিনি জি নিউজ এ চলে যান।[১] যদিও তিনি সর্বত্রই উপস্থাপক হতে চেয়েছিলেন; চ্যানেলটি মনে করেছিল সূক্ষ্ম কথা বলার ক্ষেত্রে তাঁর কমতি আছে এবং তাঁকে ভূমিকা তৈরিতে নিযুক্ত করেছিল।[১] জি-তে তাঁর পরবর্তী বছরগুলিতে, তিনি সফলভাবে অডিশনগুলি পাস করেছিলেন এবং মাঝে মাঝে বিশেষ অনুষ্ঠানগুলিতে তাঁকে উপস্থাপক হিসাবে ব্যবহার করা হত।[১]

২০০৭ সালে, তিনি নিউজ ২৪ -এ যোগদান করেছিলেন, যেখানে তিনি প্রথমবার উপস্থাপকের মূল ভূমিকা পেয়েছিলেন, তাঁকে সান্ধ্যকালীন বিতর্ক অনুষ্ঠান নিয়ন্ত্রণ করতে হত।[১] ২০১২ সালের প্রথম দিকে তিনি এই উদ্যোগ ছেড়ে স্টার নিউজে চলে এসেছিলেন; তবে কয়েক মাস পরে এটি বন্ধ হয়ে যায়। [১] ২০১২ সালের শেষদিকে, অঞ্জনা আরও কিছু সাংবাদিকদের সাথে নিউজ ২৪-এর তাৎক্ষণিক প্রাক্তন অধিকর্তা - সুপ্রিয়া প্রসাদকে অনুসরণ করে, নিউজ ২৪ থেকে 'আজ তক' এ যোগ দেন।[১]


ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

অঞ্জনার বিবাহ হয়েছে মঙ্গেশ কাশ্যপের সাথে, তিনি ১৯৯৫ সাথে দিল্লি, আন্দামান ও নিকোবর দ্বীপপুঞ্জ পুলিশ পরিষেবা ক্যাডারের একজন কর্মাধ্যক্ষ।[১] দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াকালীন মঙ্গেশের সাথে তাঁর পরিচয় হয়েছিল।[২] মঙ্গেশ আগে ছিলেন দিল্লি পুলিশের অতিরিক্ত কমিশনার এবং ২০১৬ সালে, দক্ষিণ দিল্লি পৌর কর্পোরেশন এর প্রধান ভিজিল্যান্স অফিসার হয়েছেন।[১] তাদের একটি ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছে। [১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. OM Kashyap, Anjana। "Guest Column: Lynching on Social Media: Anjana Om Kashyap"www.exchange4media.com (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ১৯ এপ্রিল ২০১৬ 
  2. Saxena, Nikita (১ ডিসেম্বর ২০১৯)। "How Anjana Om Kashyap, a star of Hindi news television, sells the new normal"অর্থের বিনিময়ে সদস্যতা প্রয়োজনThe Caravan (ইংরেজি ভাষায়)। Delhi Press। সংগ্রহের তারিখ ৬ ডিসেম্বর ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]