শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়
জন্ম শাশ্বত চট্টোপাধ্যায়
১৯শে ডিসেম্বর, ১৯৭০[১]
কলকাতা, পশ্চিম বাংলা, ভারত
পেশা অভিনেতা
কার্যকাল ১৯৯৫-বর্তমান
দম্পতি ড. মহুয়া চট্টোপাধ্যায়
পিতা-মাতা সুব্যেন্দু চট্টোপাধ্যায়

শাশ্বত চট্টোপাধ্যায় (অপু নামে সমধিক পরিচিত) ভারতীয় বাংলা চলচ্চিত্র এবং টেলিভিশনের একজন উজ্জ্বল তারকা। তার পিতা বিখ্যাত অভিনেতা সুব্যেন্দু চট্টোপাধ্যায়। তিনি সমরেশ মজুমদারের কালপুরুষ উপন্যাসের ওপর ভিত্তি করে শৈবাল মিত্র কর্তৃক নির্মিত ধারাবাহিকে অভিনয়ের মাধ্যমে এ জগতে প্রবেশ করেন।[২] সন্দীপ রায়ের পরিচালনায় ফেলুদা ধারাবাহিকে তিনি তপেশ চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে বিখ্যাত হন। ২০১২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সুজয় ঘোষের বিখ্যাত চলচ্চিত্র কাহানির মাধ্যমে তিনি খ্যাতির শিখরে আরোহণ করেন। এতে তিনি খুনী 'বব বিশ্বাস'-এর চরিত্রে অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রে তার অভিনয় মোগাম্বো এবং গব্বর সিং-এর সাথে তুলনা করা হয়। এতে অভিনয়ের ফলে তিনি আন্তর্জাতিক ভারতীয় চলচ্চিত্র আকাদেমি পুরষ্কার (আইআইএফএ)-এর জন্য মনোনিত হন (খলনায়ক হিসেবে)। মেঘে ঢাকা তারা চলচ্চিত্রে তার অভিনয় সর্বত্র প্রশংসিত হয়। এখানে তিনি ঋত্বিক ঘটকের চরিত্রে অভিনয় করেন। এটি বর্তমান সময়ের অন্যতম প্রশংসিত ছবি।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

শাশ্বত ১৯শে ডিসেম্বর, ১৯৭০ সালে সুব্যেন্দু চট্টোপাধ্যায়ের ঘরে জন্মগ্রহন করেন।[৩] শৈশব থেকেই তিনি থিয়েটার এবং অন্যান্য অভিনয় দেখতে পছন্দ করতেন। তিনি আয়নার সামনে অভিনয়ও করতেন। তার পিতা তাকে কখনোই কোন বিষয়ে চাপ দেননি। শাশ্বত নিজেই অভিনয়কে পেশা হিসেবে পছন্দ করেন।

ব্যক্তিজীবন[সম্পাদনা]

শাশ্বত কলকাতায় বাস করেন। তিনি স্কুলশিক্ষিকা মহুয়াকে বিয়ে করেন। এই দম্পতির এক কণ্যা রয়েছে।[৪]

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

তিনি শৈবাল মিত্রের ধারাবাহিকে অভিনয়ের মাধ্যমে এই ভুবনে প্রবেশ করেন।[২] সন্দীপ রায়ের ফেলুদায় তোপসের চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে তিনি জনপ্রিয়তা লাভ করেন। ধীরে ধীরে তিনি আরো জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকেন।[৫] ২০১২ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত তুমুল জনপ্রিয় চলচ্চিত্র কাহানিতে অভিনয় করে তিনি সারা ভারত জুড়ে বিখ্যাত হন। এখানে তার বিপরীতে অভিনয় করেন বিদ্যা বালান। এই চলচ্চিত্রে তিনি ঠান্ডা মাথার খুনীর চরিত্রে অভিনয় করেন। বব বিশ্বাস নামক এই চরিত্র সম্পর্কে তিনি বলেনঃ

বব বিশ্বাস অবশ্যই কাহানির জনপ্রিয়তা বাড়িয়ে দিয়েছে। বেচারা শাশ্বত তার পরিচয় হারিয়ে ফেলেছে। যেখানেই সে যায়, বব বিশ্বাস হিসেবেই পরিচিত হয়।[৪]

এই চরিত্রটি ফেসবুক এবং টুইটারেও জনপ্রিয় হয়। ববের চরিত্রকে মাথায় রেখে একটি উপন্যাসও তৈরি হচ্ছে।[৬]

১৪ই জুন, ২০১৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত চলচ্চিত্র মেঘে ঢাকা তারা অত্যন্ত বিখ্যাত হয়। কমলেশ্বর বন্দ্যোপাধ্যায়-এর পরিচালনায় এই চলচ্চিত্রে তিনি বিখ্যাত পরিচালক ঋত্বিক ঘটকের চরিত্রে অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রে তৎকালীন সমাজের সামাজিক-রাজনৈতিক বিভিন্ন ব্যাপার অত্যন্ত নিপুণভাবে তুলে ধরা হয়েছে। এতে তিনি নীলকন্ঠ বাগচীর চরিত্রে (মুখ্য চরিত্র) অভিনয় করেন। তিনি এই চরিত্রে নিজেকে সাবলীলভাবে উপস্থাপনের উদ্দেশ্যে তাঁর অনেক চলচ্চিত্র এবং প্রামাণ্যচিত্র দেখেছেন।[৭] একটি ইন্টারভিউয়ে তিনি বলেন যে এই চরিত্রে অভিনয়ের জন্য তিনি এত পরিশ্রম করেছিলেন যে নিজের স্ত্রীর সাথেও কথা বলতে অসুবিধায় পড়তেন।[৮]

অভিনয়[সম্পাদনা]

সাল চলচ্চিত্র পরিচালক সহশিল্পী চরিত্রের নাম প্রযোজনা
২০১৩ আবর্ত
২০১৩ তিয়াশা
২০১৩ সিইও স্যার
২০১৩ প্রলয় রাজ চক্রবর্তী পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, মিমি চক্রবর্তী শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসরাজ চক্রবর্তীস প্রোডাকশনস
২০১৩ আশ্চর্য দ্বীপ অনীক দত্ত
২০১৩ গয়নার বাক্স অপর্ণা সেন কঙ্কনা সেনশর্মা, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায় শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস
২০১৩ নামতে নামতে রজতাভ দত্ত রানা দত্ত
২০১৩ ডামাডোল
২০১৩ মেঘে ঢাকা তারা কমলেশ্বর মুখোপাধ্যায় অনন্যা চট্টোপাধ্যায় নীলকণ্ঠ বাগচী শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মস
২০১২ যেখানে ভূতের ভয় সন্দীপ রায় পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায় প্রদীপ সরকার শ্রী ভেঙ্কটেশ ফিল্মসসুরিন্দার ফিল্মস
২০১২ ভূতের ভবিষ্যৎ অনীক দত্ত স্বস্তিকা মুখোপাধ্যায়, পরাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়, সব্যসাচী চক্রবর্তী হাতকাটা কার্তিক
২০১২ আবার ব্যোমকেশ অঞ্জন দত্ত আবীর চট্টোপাধ্যায় অজিত বন্দ্যোপাধ্যায়
২০১২ কাহানি সুজয় ঘোষ বিদ্যা বালান বব বিশ্বাস
২০১২ নোবেল চোর মিঠুন চক্রবর্তী হরি
২০১২ ভালবাসা অফ রুটে
২০১২ গোড়ায় গন্ডগোল
২০১১ দ্য ফরলোর্ন (স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র) ড. সম্বিত চ্যাটার্জি
২০১১ রঙ মিলান্তি দ্বীপজয় মিত্র/অনুপম ঘটক
২০১১ গোঁসাইবাগানের ভূত ভেলু ডাক্তার
২০১১ উড়ো চিঠি মনীশ
২০১১ গেট টু গেদার
২০১০ ব্যোমকেশ বক্সী অঞ্জন দত্ত আবীর চট্টোপাধ্যায় অজিত বন্দ্যোপাধ্যায়
২০০৯ চৌরাস্তা ক্রসরোড অফ লাভ
২০০৯ ক্রস কানেকশান স্বপ্নীল বসু
২০০৮ চলো লেটস গো অসীম
২০০৭ দ্য বং কানেকশান ভাই-দা
২০০৭ শুধু তোমার জন্য
২০০৬ দোসর
২০০৬ তিন ইয়ারি কথা
২০০৫ কর্কট রাশি (টিভি) প্রফেসর
২০০৪ আবার আসিব ফিরে
২০০৪ তিন এক্কে তিন তিনকড়ি
২০০৩ আবার অরণ্য শাশ্বত বন্দ্যোপাধ্যায়
২০০২ আমার ভুবন নূর
২০০০ শেষ ঠিকানা
১৯৯৯ খেলাঘর
১৯৯৯ তুমি এলে তাই
১৯৯৯ জাহাঙ্গীরের স্বর্নমুদ্রা সন্দীপ রায় সব্যসাচী চক্রবর্তী, বিভূ ভট্টাচার্য, রঞ্জিত মল্লিক তোপসে
১৯৯৮ আত্মজা
১৯৯৬ নয়নতারা
১৯৯৬ বাক্স রহস্য সন্দীপ রায় সব্যসাচী চক্রবর্তী, রবি ঘোষ তোপসে

পুরষ্কার ও মনোনয়ন[সম্পাদনা]

পুরষ্কার[সম্পাদনা]

  • দ্য ফোরলোর্ন চলচ্চিত্রের জন্য 'ইমফ্যাল আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র উৎসব (২০১২)-শ্রেষ্ঠ সহযোগী অভিনেতা
  • ব্যোমকেশ বক্সী চলচ্চিত্রের জন্য জি বাংলার গৌরব (২০১১)-শ্রেষ্ঠ সহযোগী অভিনেতা (চলচ্চিত্র)
  • বিএফজেএ (২০০৩)-শ্রেষ্ঠ সহযোগী অভিনেতা পুরষ্কার
  • আনন্দলোক অ্যাওয়ার্ড (১৯৯৮)-বিশেষ জুরি পুরষ্কার

মনোনয়ন[সম্পাদনা]

  • কাহানি চলচ্চিত্রের জন্য জি সিনে অ্যাওয়ার্ড (২০১২)-শ্রেষ্ঠ খলনায়ক
  • কাহানি চলচ্চিত্রের জন্য স্টারডাস্ট অ্যাওয়ার্ড (২০১২)-শ্রেষ্ঠ খলনায়ক
  • কাহানি চলচ্চিত্রের জন্য আইআইএফএ অ্যাওয়ার্ড (২০১২)-খারাপ চরিত্রে অভিনয়ের জন্য

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Firstpost.Bollywood (27 March 2012)। "Bob Biswas : I even scared my wife"। সংগৃহীত 5 April 2012 
  2. ২.০ ২.১ The Telegraph (9 June 2011)। "A Director's Actor"। সংগৃহীত 27 September 2011 
  3. IANS (5 July 2007)। "Bengali actor Subhendu Chatterjee dead"। সংগৃহীত 12 March 2009 
  4. ৪.০ ৪.১ "Bob Biswas gets even bigger"। সংগৃহীত 15 June 2013 
  5. Trans World Features (22 January 2008)। "The legend of Feluda"। সংগৃহীত 12 March 2009 
  6. "Kahaani's Bob Biswas a rage on FB, Twitter"। সংগৃহীত 15 June 2013 
  7. "Ritwik Ghatak Meghe Dhaka Tara"Telegraph, Calcutta। 16 June 2012। সংগৃহীত 15 June 2013 
  8. "A few scenes of Meghe Dhaka Tara gave me jitters: Saswata Chatterjee"The Times of India। 4 June 2013। সংগৃহীত 15 June 2013 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]