মুহাম্মাদের বংশধারা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মুহাম্মাদ
উপরে উল্লেখিত বিষয়ের উপর ধারেবাহিকের একটি অংশ
Muhammad

জন্ম[সম্পাদনা]

হযরত মোহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম বর্তমান সৌদি আরবে অবস্থিত মক্কা নগরীর কুরাইশ গোত্রের বনি হাশিম বংশে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর জন্মের তারিখ ছিল ১২ ই রবিউল আউয়াল, ইংরেজি সন মোতাবেক ৫৭০ খৃস্টাব্দে। প্রখ্যাত ইতিহাসবেত্তা উইলিয়াম মন্টগোমারি ওয়াট তার পুস্তকে ৫৭০ সনই ব্যবহার করেছেন।[১] তবে নবীর প্রকৃত জন্মতারিখ বের করা বেশ কষ্টসাধ্য। এজন্যই এ নিয়ে মতবিরোধ রয়েছে। যেমন এক বর্ণনা মতে তাঁর জন্ম ৫৭১ সালের ২০ বা ২২ শে এপ্রিল। সাইয়েদ সোলাইমান নদভী, সালমান মনসুরপুরী এবং মোহাম্মদ পাশা ফালাকির গবেষণায় এই তথ্য বেরিয়ে এসেছে। তবে শেষোক্ত মতই ঐতিহাসিক দৃষ্টিকোণ থেকে বেশী নির্ভরযোগ্য। যাই হোক, নবীর জন্মের বছরেই হস্তী যুদ্ধের ঘটনা ঘটে এবং সে সময় সম্রাট নরশেরওয়ার সিংহাসনে আরোহনের ৪০ বছর পূর্তি ছিল এ নিয়ে কারো মাঝে দ্বিমত নেই।

ইসলামের হাদিস অনুসারে মোহাম্মদের জন্মের পূর্বে তার মাতা আমিনা স্বপ্নযোগে আশ্চর্যজনক বেশ কয়েকটি ঘটনা দেখেন। এছাড়া তাঁর জন্মের সময়ও কিছু অলৌকিক ঘটনার উল্লেখ বিভিন্ন হাদিস সূত্রে পাওয়া যায়। জন্মের পর নবীর দাদা আবদুল মোত্তালেবকে সংবাদ দেয়া হয় এবং তিনি নবজাতককে দেখে যারপরনাই খুশি হন। উল্লেখ্য নবীর জন্মের আগেই তার পিতা আবদুল্লাহ মারা যান। আবদুল মোত্তালেব নবজাতকের নাম রাখেন মোহাম্মদ যে নাম তত্কালীন আরবে খুব একটা প্রচলিত ছিলনা। আরবীতে এই শব্দের অর্থ প্রশংসিত। পরবর্তীকালে নবীর আরেকটি নামের উল্লেখ পাওয়া যায় যা তাঁর মাতা রাখেন আর তা হল আহমাদ - এই শব্দের অর্থ প্রশংসাকারী। আরবের নিয়ম অনুযায়ী জন্মের সপ্তম দিনে মোহাম্মদের (সাঃ) খৎনা করানো হয়।

প্রথম কয়েকদিন তিনি তাঁর মায়ের বুকের দুধ পান করেন। এরপর কয়েকদিন তাঁকে দুধ পান করান আবু লাহাবের দাসী সাওবিয়া। উল্লেখ্য আবু লাহাব সম্পর্কে নবীর চাচা হতেন। সে সময় ছাওবিয়ার কোলেও একটি শিশুসন্তান ছিল যার নাম ছিল মাছরুহ। এই সাওবিয়াই এর আগে হামযা ইবনে আবদুল মোত্তালেব এবং পরে আবু সালমা সামা ইবনে আবদুল আছাদ মাখজুমিকে দুধ পান করিয়েছিলেন।

বংশধারা[সম্পাদনা]

 
 
 
ওয়াহাব ইবন আবদুল মানাফ
 
 
 
হাশিম ইবন আবদুল মানাফ
বনু হাশিম বংশের জনক
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
ফাতিমা বিনতে আমর
 
 
 
আব্দ-আল-মুত্তালিব, পিতামহ
 
 
 
 
 
 
 
হালাহ বিনতে ওয়াহাব
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আমিনা, মাতা
 
আব্দ-আল্লাহ, পিতা
 
আবু তালিব, চাচা
 
 
আল-জুবাইর, চাচা
 
হারিস, চাচা
 
হামজা, চাচা
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
তুয়াইবাহ,প্রথম ধাত্রী
 
 
হালিমা,দ্বিতীয় ধাত্রী
 
 
 
 
আব্বাস, চাচা
 
আবু লাহাব, চাচা
 
আরয়া বিনতে আব্দ আল মুত্তালিব, চাচা
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
মুহাম্মাদ, নিজ
 
খাদিজা, প্রথম স্ত্রী
 
 
ইবনে আব্বাস, চাচাতো ভাই
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
ফাতিমা, একমাত্র সন্তান যার সন্তানাদি শেষপর্যন্ত জীবিত ছিল
 
আলী, চাচাতো ভাই
 
 
 
 
 
কাশিম (৬০৫), খাদিজার প্রথম পুত্র
 
আবদুল্লাহ (৬১৫), খাদিজার দ্বিতীয় পুত্র
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
জয়নব (৬২৯), দত্তক বা নিজ
 
রুকাইয়া (৬২৪), দত্তক বা নিজ
 
উসমান (৬৫৬), ভাগ্নে
 
উম্মে কুলসুম (৬৩০), দত্তক বা নিজ
 
যায়েদ (৬২৭), পালক পুত্র
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
আলী (৬৩০), grandson
 
উমারাহ (৬৮৫), নাতনী যিনি আলীকে বিয়ে করেছিলেন
 
আবদুল্লাহ ইবনে উসমান (?)
 
 
 
 
 
 
উসামা ইবনে যায়িদ (?)
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
মুহসিন (?), disputed
 
হাসান ইবনে আলী
 
হুসাইন ইবনে আলী
 
উম্মে কুলসুম বিনতে আলী
 
[যয়নব বিনতে আলী]]
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
?
 
 
আবু বকর (পরিবার, ৬৩৪), শ্বশুর
 
 
উমর
 
 
?
 
 
?
 
 
?
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
সওদা (?)
 
 
আয়েশা (পরিবার, ?)
 
 
হাফসা (?)
 
 
যয়নব বিনতে খুজায়মা (?)
 
 
উম্মে সালামা (?)
 
 
যয়নব বিনতে জাহাশ (?)
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
?
 
 
?
 
 
?
 
 
?
 
 
?
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
জুয়াইরিয়া (?)
 
 
উম্মে হাবিবা (?)
 
 
সাফিয়া (?)
 
 
মায়মুনা (?)
 
 
মরিয়ম কপ্টিক খ্রিস্টান
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
 
ইব্রাহিম
 
 

মুহাম্মদ থেকে আদনান[সম্পাদনা]

ইসলামী ভবিষ্যদ্বাণীপূর্ণ ঐতিহ্য অনুযায়ী; আদনান থেকে শুরু করে মুহাম্মদ পর্যন্ত অবতীর্ণ হয়েছিলেন। যা নিম্নে ২১ প্রজন্ম পর্যন্ত উপস্থাপন করা হল।[২]

মুরাহ থেকে নবী মুহাম্মদ এর পূর্বপুরুষ

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Muhammad At Mecca: William Montgomery Watt; reprinted 1979; page, 33
  2. Hughes, Thomas Patrick (1995) [First published 1885]। A Dictionary of Islam: Being a Cyclopaedia of the Doctrines, Rites, Ceremonies, and Customs, Together With the Technical and Theological Terms, of the Muhammadan Religion। New Delhi: Asian Educational Services। পৃ: 19। আইএসবিএন 978-81-206-0672-2। সংগৃহীত July 24, 2010