হোদা এলসাদ্দা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

হোদা এলসাদ্দা ম্যানচেস্টার বিশ্ববিদ্যালয়ে the Study of the Contemporary Arab World বা “সমসাময়িক আরব বিশ্বের শিক্ষা “ বিভাগের সভাপতি। তিনি যুক্তরাজ্যের সেন্টার ফর দ্য অ্যাডভান্সড স্টাডি অফ দ্য আরব ওয়ার্ল্ড (CASAW) -এর সহ-পরিচালক, এনসাইক্লোপিডিয়া অফ উইমেন অ্যান্ড ইসলামিক কালচারের অনলাইন সংস্করণের সহযোগী সম্পাদক, গ্লোবাল ফান্ড ফর ওম্যান এর পরিচালনা পর্ষদের সদস্য, Durham Modern Languages Series বা ডারহাম আধুনিক ভাষা সিরিজের উপদেষ্টা বোর্ডের সদস্য এবং Arab Families Working Group বা আরব পরিবার ওয়ার্কিং গ্রুপের কোর গ্রুপের সদস্য। এলসাদ্দা নারী ও স্মৃতি ফোরামের ট্রাস্টি বোর্ডের সহ-প্রতিষ্ঠাতা এবং বর্তমান চেয়ারপারসন।

তিনি এর আগে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদে ইংরেজি ও তুলনামূলক সাহিত্যের অধ্যাপকের পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তিনি ইন্টারন্যাশনাল জার্নাল অফ মিডল ইস্ট স্টাডিজ (আইজেএমইএস) -এর সম্পাদকীয় বোর্ডের সাবেক সদস্য, আন্না লিন্ড ইউরো-মেডিটেরিয়ান ফাউন্ডেশন ফর দ্য ডায়ালগ বিটউইন কালচারের উপদেষ্টা, মিশরের ন্যাশনাল কাউন্সিল ফর হিউম্যান রাইটসের সাবেক সদস্য , মিশরীয় সংস্থা ফর হিউম্যান রাইটসের সাবেক বোর্ড সদস্য এবং আরব হিউম্যান ডেভেলপমেন্ট রিপোর্টের কোর টিমের সাবেক সদস্য। ১৯৯২ সালেহাজেরা, আরবি ভাষায় প্রকাশিত নারীদের গবেষণাযমূলক একটি আন্তঃবিষক জার্নালে তিনি সহ প্রতিষ্ঠিতা এবং সহ-সম্পাদিকা । তিনি আধুনিক আরব ইতিহাসে বিশেষ করে উনিশ শতকের শেষের দিকে এবং বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে লিঙ্গ বিষয়ক আলোচনা নিয়ে প্রবন্ধ এবং বই সম্পাদনা করেছেন। তার গবেষণায় মধ্যপ্রাচ্যের লিঙ্গ ও সংস্কৃতি, আরব নারীদের লেখা, মৌখিক ইতিহাস, নারীর সৃজনশীল লেখা, তুলনামূলক সাহিত্য এবং আরবি সাহিত্য এবং জনপ্রিয় সংস্কৃতির উপর আলোকপাত করা হয়েছে। [১]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

  • বিএ ইংলিশ, কায়রো ইউনিভার্সিটি
  • এমএ ইংরেজি এবং তুলনামূলক সাহিত্য, কায়রোর আমেরিকান বিশ্ববিদ্যালয়
  • পিএইচডি ইংরেজি সাহিত্য, কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়

নারী ও স্মৃতি ফোরাম[সম্পাদনা]

এলসাদ্দা ১৯৯৬ সালে উইমেন অ্যান্ড মেমোরি ফোরাম (ডব্লিউএমএফ) সহ-প্রতিষ্ঠা ছিলেন। WMF নারী বিশেষজ্ঞ, গবেষক এবং কর্মীদের একটি দল নিয়ে গঠিত যারা ইতিহাসে এবং সমসাময়িক সমাজে আরব সংস্কৃতিতে নারীদের বিকল্প সাংস্কৃতিক জ্ঞান সৃজন ও প্রচারের জন্য সংগ্রাম করে। গোষ্ঠী সাংস্কৃতিক ক্ষেত্রে আরব নারীদের নেতিবাচক স্টেরিওটাইপস মোকাবেলায় সহায়তা করার জন্য একটি বিশ্লেষণাত্মক কাঠামো হিসাবে লিঙ্গকে উন্নীত করার পক্ষে সমর্থন করে। তাদের ওয়েবসাইট অনুসারে, "WMF- এর বিশেষ গবেষণার দীর্ঘমেয়াদী উদ্দেশ্য হল আরব নারীদের সম্পর্কে বিকল্প সাংস্কৃতিক তথ্য তৈরি করা এবং উপলব্ধ করা যা সচেতনতা বাড়াতে এবং মহিলাদের ক্ষমতায়নের জন্য ব্যবহার করা যেতে পারে।" [২]

নির্বাচিত প্রকাশনা[সম্পাদনা]

গ্রন্থ[সম্পাদনা]

সাদ্দা, হোদা (২০১২), লিঙ্গ, জাতি এবং আরবি উপন্যাস: মিশর, ১৮৯২-২০০৮। সিরাকিউজ ইউনিভার্সিটি প্রেস। আইএসবিএন 9780815632962।

সাদ্দা, হোদা (২০০২), মাদখাল ইলা কাদায়া আল-মারআ ফাই সুতুর ওয়া সুওয়ার (আরবি ভাষায়)। নারী ও স্মৃতি ফোরাম।

সম্পাদিত বই[সম্পাদনা]

সাদ্দা, হোদা (১৯৯৮), জামান আল-নিসা ওয়া আল-কাকিরা আল-বাদিলা (আরবি ভাষায়)। নারী ও স্মৃতি ফোরাম।

সাদ্দা, হোদা (২০০১), মিন রাইদাত আল-কারন আল-ইশরিন: শাখসিয়াত ওয়া কাদায়া (আরবি ভাষায়)। নারী ও স্মৃতি ফোরাম।

সাদ্দা, হোদা (২০০৪), 'আয়িশা তাইমুর: তাহাদিয়াত আল-থাবিত ওয়াল মুতাগায়ির ফিল কারন আল তাসি' আশার (আরবি ভাষায়)। নারী ও স্মৃতি ফোরাম।

সাদ্দা, হোদা (২০০৭), আল-ফাতাহ লি সাহিবাতিহা হিন্দ নওফল ১৮৯২-১৮৯২ (আরবি ভাষায়)। নারী ও স্মৃতি ফোরাম।

সাদ্দা, হোদা (২০১০), 'ইন্তাজ আল-মারিফা' আল-আলাম আল-আরবি (আরবি ভাষায়)। সংস্কৃতির সর্বোচ্চ পরিষদ।

প্রবন্ধ[সম্পাদনা]

এলসাদ্দা, হোদা (২০০৬)। "লিঙ্গভিত্তিক নাগরিকত্ব: উনিশ শতকের দ্বিতীয়ার্ধে গার্হস্থ্যতা নিয়ে আলোচনা"

"" নতুন মানুষ ": বিশ শতকের গোড়ার দিকে আরব সাহিত্যিক বর্ণনায় লিঙ্গ এবং জাতি চিত্রিত করা"

এলসাদ্দা, হোদা; মগিসি, হায়দেহ (আগস্ট ২০১০)। "সংলাপ বিভাগ: আরব নারীবাদী গবেষণা এবং সক্রিয়তা: তাত্ত্বিক এবং ব্যবহারিকের মধ্যে ব্যবধান দূর করা"

এলসাদ্দা, হোদা (২০১০)। "আরব মহিলা ব্লগার: সাহিত্যিক প্রজাতন্ত্রের উত্থান"

এলসাদ্দা, হোদা (জুন ২০১১)। "একটি 'ফ্যান্টম আধুনিকতায় একটি ফ্যান্টম স্বাধীনতা'? প্রোটেস্ট্যান্ট মিশনারি, গার্হস্থ্য আদর্শ এবং একটি আরব প্রেক্ষাপটে আধুনিকতার বিবরণ"

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "School of Arts, Languages and Cultures - the University of Manchester" 
  2. "الرئيسية"