হিমানী শিবপুরী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হিমানী শিবপুরী
জন্ম (1960-10-24) ২৪ অক্টোবর ১৯৬০ (বয়স ৬৩)
পেশাঅভিনেত্রী
কর্মজীবন১৯৮৫–বর্তমান

হিমানী ভাট শিবপুরী (জন্ম: ২৪শে অক্টোবর ১৯৬০)[১] হলেন একজন ভারতীয় অভিনেত্রী, যিনি বলিউডের চলচ্চিত্র এবং হিন্দি টেলিভিশন ধারাবাহিকের পার্শ্ব চরিত্রে অভিনয়ের জন্য পরিচিত। তিনি হাম আপকে হ্যাঁয় কৌন..! (১৯৯৪), রাজা (১৯৯৯৫), দিলওয়ালে দুলহনিয়া লে যায়েঙ্গে (১৯৯৫), খামোশি (১৯৯৬), নায়ক নং ১ (১৯৯৭), দিওয়ানা মস্তানা (১৯৯৭), বাঁধন (১৯৯৮), কুছ কুছ হোতা হ্যায় (১৯৯৮), বিবি নং ১ (১৯৯৯), হাম সাথ সাথ হ্যাঁয় (১৯৯৯), কাভি খুশি কাভি গাম... (২০০১) এবং ম্যায় প্রেম কি দিওয়ানি হুঁ (২০৩৩)-এর মতো চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

হিমানী শিবপুরী ভারতের উত্তরাখণ্ডের দেরাদুনের একটি মধ্যবিত্ত গড়ওয়ালী পরিবারে জন্মগ্রহণ করেছইলেন। তাঁর বাবা হরিদত্ত ভাট, দ্য ডুন স্কুলের হিন্দি শিক্ষক ছিলেন।[২] দেরাদুনের স্কুলে থাকাকালীন তিনি নাটকের সাথে সক্রিয়ভাবে জড়িত ছিলেন। জৈব রসায়নে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জনের সময় তিনি মঞ্চ নাটকে তাঁর অভিনয় জীবন শুরু করেছিলেন। তিনি একজন পার্শ্ব অভিনেত্রী হিসাবে ফির ওহি তালাশ নামক চলচ্চিত্রে কাজ করেছিলেন। তিনি কাশ্মীরি পণ্ডিত অভিনেতা জ্ঞান শিবপুরীকে বিয়ে করেছিলেন, যিনি ১৯৯৫ সালে মারা গিয়েছেন।[৩] তাঁদের কাত্যায়নী নামে একটি পুত্র রয়েছে।

পেশা[সম্পাদনা]

১৯৮৪ সালে ন্যাশনাল স্কুল অফ ড্রামা থেকে স্নাতক সম্পন্ন করার পরে,[৪] শিবপুরী এনএসডি রেপারেটরি কোম্পানিতে বেশ কিছু কাজ করেছিলেন এবং তারপরে মুম্বই চলে যান। শিবপুরী ১৯৮৪ সালে আব আয়েগা মজা-এ অভিনয়ের মধ্য দিয়ে চলচ্চিত্র জগতে পদার্পণ করেছিলেন, এরপরে ১৯৮৯ সালে তিনি ইন হুইচ অ্যানি গিভস ইট দোজ ওয়ানস নামক একটি টেলিভিশন চলচ্চিত্র শাহরুখ খানের সাথে অভিনয় করেছিলেন। এরপরে তিনি শ্যাম বেনেগলের সুরজ কা সাতবাঁ ঘোড়া (১৯৯৩) এবং মাম্মো (১৯৯৪)-এর মতো বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছিলেন, যদিও ১৯৯৪ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সুরোজ বরজাতিয়ার হাম আপকে হ্যাঁয় কৌন..! এ তাঁর অভিনয় সকলের নজর কেড়েছিল।

তিনি কুনওয়ার সিনহা দ্বারা পরিচালিত ডিডি ন্যাশনালে প্রচারিত টেলিভিশন ধারাবাহিক হমরাহী-তে অভিনয়ের মধ্য দিয়ে টেলিভিশন জগতে আত্মপ্রকাশ করেছিলেন, যেখানে তিনি দেবকী ভোজাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেছেন। তাঁর এই চরিত্রটি সকলের দ্বারা প্রশংসিত হওয়ার কারণে তিনি যথেষ্ট জনপ্রিয়তা অর্জন করেছিলেন।

তিনি মূলত পার্শ্ব অভিনয়শিল্পীর চরিত্রে বেশি অভিনয় করেছেন এবং তিনি কয়লা (১৯৯৭), পারদেস (১৯৯৭), দিলওয়ালে দুলহনিয়া লে যায়েঙ্গে (১৯৯৫), আঞ্জাম (১৯৯৪), কুছ কুছ হোতা হ্যায় (১৯৯৯) এবং কাভি খুশি কাভি গাম...-এর (২০০১) মতো বেশ কিছু স্মরণীয় চরিত্রে অভিনয় করেছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Himani Shivpuri Biography - bollywoodlife.com"। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ মার্চ ২০২০ 
  2. Tankha, Madhur (২০১২-০২-১৪)। "Himani Shivpuri returns to the small screen"The Hindu। Chennai, India। 
  3. Himan Shivpuri Interview
  4. "Himani Shivpuri at indiatimes"। Chatinterviews.indiatimes.com। ২০০৬-০১-১৬। ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০১-৩১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]