স্পেস রেস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সোভিয়েত ইউনিয়ন সর্বপ্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ স্পুটনিক ১ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে প্রাথমিকভাবে মহাকাশ প্রতিযোগিতায় এগিয়ে ছিল(স্পুটনিক ১ এর অনুলিপি)
যুক্তরাষ্ট্র নিল আর্মস্ট্রং এবং বাজ অলড্রিন কে চাদে অবতরণের মাধ্যমে "চন্দ্র প্রতিযোগিতায়" মুখ্য ভূমিকা পালন করে।
অ্যাপোলো- সোয়ুজ পরীক্ষামূলক কর্মসূচির সময় মহাকাশচারী থমাস পি. স্টাফোর্ড এবং কসমোনট আলেক্সেই লেওনোভ হাত মিলিয়েছেন।

স্পেস রেস হলো বিংশ শতাব্দীতে সংগঠিত দুটি স্নায়ু যুদ্ধে সোভিয়েত ইউনিয়ন (ইউএসএসআর) ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এই দুটি প্রতিদ্বন্দ্বীর মধ্যকার সর্বপ্রথম মহাকাশ উড্ডয়ন অর্জনের প্রতিযোগিতা। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে দুটি রাষ্ট্রের মধ্যকার নিক্ষেপণ মিসাইল নির্ভর নিউক্লীয় শক্তির লড়াইয়ের মাধ্যমে এটির উৎপত্তি হয়। দ্রুত মহাকাশ উড্ডয়নের মাইল ফলক অর্জন রাষ্ট্রের নিরাপত্তার জন্য গুরুতর মনে করা হতো, যা সে সময়ের প্রতিকীকা এবং চিন্তাধারার সাথে মিশ্রিত হয়েছিল। এই স্পেস রেস কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ, চাঁদ, শুক্র ও মঙ্গল গ্রহে মানবহীন মহাকাশযান এবং পৃথিবীর নিম্ন কক্ষে বা চাঁদে মানুষবাহী উদ্দয়নের পথপ্রদর্শক প্রচেষ্টা চালিত করেছে। এই প্রতিযোগিতাটি প্রকৃপক্ষে শুরু হয় ১৯৫৫ সালের আগস্টের ২ তারিখে, সোভিয়েত ইউনিয়ন স্পুটনিক - ১ কে প্রদক্ষিণের মাধ্যম ১৯৫৭ সালের ৪ঠা অক্টোবর সফলভাবে উৎক্ষেপণ করতে সক্ষম হয় এবং ১৯৬১ সালের ১২ই এপ্রিল ইউরি গ্যাগারিন কক্ষীয় উড্ডয়ন অর্জনের মাধ্যমে মহাকাশের সর্বপ্রথম মানুষ হন। ইউএসএসআর ১৯৬৩ সালের ১২ই এপ্রিল সর্বপ্রথম নারী, ভেলানেটিনা তেরেস্কভাকে মহাকাশে পাঠায় এবং এর পাশাপাশি পরবর্তী বছরগুলোতে উড্ডয়নের সময়, মহাকাশে পদচারণা এবং সঙ্গত কার্যক্রমে সর্বপ্রথম অংশগ্রহণ করেছে। রাশিয়ার উৎস অনুসারে, এই অর্জনগুলো থেকে এই ফলাফল নিষ্পত্তি করা হয়েছিল যে ইউএসএসআর মহাকাশ প্রযুক্তিগতভাবে অনেক উন্নত ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের উৎস অনুসারে, ১৯৬৯ সালের ২০ জুলাই অ্যাপোলো ১১এর মাধ্যমে চাঁদে মানুষ পাঠানো হলে "প্রতিযোগিতাটি" চুড়ান্ত পর্যায় অর্জন করে। যুক্তরাষ্ট্রের বেশিরভাগ উৎস অনুসারে, অ্যাপোলো ১১ এর চাঁদে পদার্পণ সোভিয়েত ইউনয়নের সম্মিলিত সকল অর্জনের তুলনায় অনেক বেশি গুরুতবপূর্ণ ছিল। যেকোনো ক্ষেত্রেও সোভিয়েত ইউনিয়ন মানুষবাহী মিশন চাদে পাঠানোর প্রচেষ্টা চালিয়েছিল, কিন্তু পরবর্তীতে তা বাতিল করা হয় এবং পৃথিবীর কক্ষপথে স্পেস স্টেশনের প্রতি মনোযোগ দেওয়া হয়। কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র আরো কিছু বার চাদে পদার্পণ করে।

১৯৭২ সালের এপ্রিলে অ্যাপোলো- সয়ুজ পরীক্ষামূলক কর্মসূচিতে চুক্তির মাধ্যমে জন্য রাষ্ট্রীয় বৈরতা অবসান ঘটে, পরিণাম হিসেবে যুক্তরাষ্ট্রের নভোচারীর দল সোভিয়েতের নভোচারীর দলের সাথে পৃথিবীর কক্ষপথে আশ্রয় গ্রহণ করে এবং একত্রে এপিএএস- ৭৫ ডকিং ব্যবস্থা উন্নয়ন করে। মহাকাশ যুগের উম্মধন সহযোগিতার মাধ্যমে হয় এবং এটিএসপি পরবর্তীতে সহযোগিতার সুযোগ করে দিতে প্রতিযোগিতা লাঘব করে দেয়। অ্যাপোলো ১১এর চাঁদে অবতরণকে এটিএসপি সমাপ্তি মনে করা হলেও, স্পেস রেস এবং প্রতিযোগিতার সমাপ্তি স্পষ্ট না। কিন্তু ১৯৯১ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের অবসানের পর থেকে এপিএএস- এর সাথে সমৃদ্ধিশালী সহযোগিতার মাধ্যমে যুক্তরাষ্ট্র এবং সদ্য তৈরি রাশিয়ান ফেডারেশনের মধ্যে শাটল- মির কার্যক্রম এবং আইএসএস সক্রিয় হয়।

স্পেস রেস মহাকাশ সম্পর্কিত বর্ধিত উন্নয়ন এবং অগ্রগতির ঐতিহ্য তৈরি করে। এটি শিক্ষা এবং গবেষণা ও উন্নয়নে ব্যয়ের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়, যা আরো অন্যান্য প্রভাব ফেলে।

পরিচ্ছেদসমূহ

প্রাথমিক রকেট উন্নয়ন[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বুদ্ধকালীন জার্মানী[সম্পাদনা]

ওয়েরহনের ভন ব্রাউন(১৯১২-১৯৭৭), নাৎসি জার্মানির মিসাইল কর্মসূচির কৌশলগত পরিচালক, ১৯৫০ ও ১৯৬০ এর দশকে যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান রকেট প্রকৌশলী ছিলেন।

স্পেস রেসের প্রারম্ভ হয়েছিল জার্মানিতে, যা ১৯৩০ সালে প্রথমার্ধে বিশ্বযুদ্ধের সময় শুরু হয়েছিল যখন নাৎসি উপ- কক্ষীয় উড্ডয়নের ক্ষমতাসম্পন্ন কার্যকরী নিক্ষেপণ মিসাইল গবেষণা এবং তৈরি করেছিল। ১৯৩০ প্রথমাংশ থেকে শুরু করে, ভাইমার প্রজাতন্ত্রের শেষ পর্যায়ে জার্মান মহাকাশ প্রকৌশল তরল জ্বালানী নির্ভর রকেটের সাথে পরীক্ষণ করেন। তাদের উদ্দেশ্য ছিল একদিন তারা অতি উচ্চতায় পৌঁছাতে পারবে এবং বিশাল দূরত্ব পারাপার হতে সক্ষম হবে। জার্মান সামরিক নিক্ষেপণ এবং যুদ্ধোপকরণ শাখার প্রধান, লেফট্যানেন্ট কর্ণেল ভার্সায় চুক্তি অনুসারে দীর্ঘ গামী কাননের গবেষণা এবং উন্নয়নের নিষেধাজ্ঞা এড়াতে রকেটকে দীর্ঘ পরিসরের কামান হিসেবে ব্যবহারের জন্য প্রকৌশলীর এক ক্ষুদ্র দল গঠন করে, যার মধ্যে ওয়াল্টার ডনবের্গের এবং লিও জানসেন অন্তর্ভুক্ত ছিলেন। বেকার ও ডনবের্গের একজন সল্পবয়সী বিস্ময়কর প্রকৌশলী ভের্নার ফন ব্রাউনকে ১৯৩২ সালে কুমের্সডর্ফ-ওয়েস্টের একটি গোপনীয় সামরিক কার্যক্রমে নিয়োগ দেন। ফন ব্রাউন রকেটের মাধ্যমে মহাকাশ অর্জনের সপ্ন দেখেন এবং প্রাথমিকভাবে মিসাইল প্রযুক্তিতে রকেটের সামরিক গুরুত্ব বুঝতে পারেনি।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ চলকালীন, জেনারেল ডনবের্গের সামরিক রকেট কার্যক্রমের প্রধান ছিলেন, জানসেন সামরিক রকেট সেন্টারের সেনানায়ক এবং ফন ব্রাউন নিক্ষেপণ মিসাইল কার্যক্রমের প্রযুক্তিগত পরিচালক ছিলেন। তারা দলকে এ-ফোর রকেট তৈরিতে পরিচালিত করে, যা ১৯৪২ এবং ১৯৪৩ সালে উড্ডয়নের পরীক্ষামূলক কার্যক্রমের সফলভাবে মহাকাশের প্রথম যান হিসেবে পরিচিত। ১৯৪৩ সাল পর্যন্ত, জার্মানি এ-ফোরকে 2 ভের্গেল্টুংসভাফে টু হিসেবে ("প্রতিহিংসা অস্ত্র" ২, বা সাধারণত ভি- ২ ), একটি নিক্ষেপণ যন্ত্র যা ৩২০ কিলোমিটার (২০০ মাইল) পরিসরে ঘণ্টায় ৪০০০ কিলোমিটার বেগে ১,১৩০ কিলোগ্রাম(২৪৯০ পাউন্ড) ক্ষেপণাস্ত্র বহন করে। এটির বেগ শব্দের তুলনায় বেশি হাওয়ায় এর বিরুদ্ধে কোনো প্রতিরক্ষা ছিল না, এবং রাডারে সল্প পূর্বাভাস পাওয়া যেত। জার্মান এই অস্ত্র ব্যবহার করে ১৯৪৪ সাল থেকে ১৯৪৫ সাল পর্যন্ত ইংল্যান্ডের দক্ষিণাঞ্চল এবং মিত্রবাহিনী শাসিত পশ্চিমা ইউরোপে বোমা নিক্ষেপ করা হয়েছিল। যুদ্ধের পরে, ভি-২ মার্কিন ও সোভিয়েতের রকেটের প্রাথমিক নকশার ভিত্তি হয়ে উঠে।

যুদ্ধের শেষে, মার্কিন, ব্রিটিশ, এবং সোভিয়েত বৈজ্ঞানিক বুদ্ধিমত্তা বিভাগ জার্মানির রকেট প্রকৌশলীদের এবং রকেটগুলো ও তার নকশা অর্জনের জন্য প্রতিযোগিতা করতো। মিত্রবাহিনীর প্রত্যেকেই জার্মান রকেট গবেষণা দলের লভ্য সদস্যদের একটি অংশ আধৃত করে, কিন্তু যুক্তরাষ্ট্র অপারেশন পাপেরক্লিপ থেকে সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়েছে, কেননা তারা ভন ব্রাউন ও তার প্রকৌশল দলকে নিয়োগ করতে পেরেছিল, যারা পরবর্তীতে মার্কিন মিসাইল এবং মহাকাশ অভিযানের কার্যক্রম উন্নয়ন করেন। যুক্তরাষ্ট বিশাল পরিমাণে সম্পন্ন ভি-২ রকেট অর্জন করে।

সোভিয়েত রকেট উন্নয়ন[সম্পাদনা]

পিনেমুন্ডেতে জার্মান রকেট সেন্টার জার্মানির পূর্বদিকে অবস্থিত ছিল, যা সভিয়েতে পেসার স্থান হয়ে উঠে। স্টালিনের আদেশে, এই স্থানে সোভিয়েতের সকল সেরা রকেট প্রকৌশলীদের পাঠানো হয় এটি দেখার জন্য যে তারা ভবিষ্যতের অস্ত্র ব্যাবস্থায় কি করতে পারে। এই প্রকৌশল দলের প্রধান ছিলেন সের্গেই করলেভ। তিনি বিভিন্ন মহাকাশ ক্লাব এবং ১৯৩০ দশকে সোভিয়েতের রকেটের প্রাথমিক নকশায় অন্তর্ভুক্ত ছিলেন, কিন্তু ১৯৩৮ সালে জোসেফ স্টালিনের মহান বিশোধনের সময় গ্রেফতার করা হয় এবং গুলাগে ছয় বছর যাবত কারাগারে বন্দী থাকে। যুদ্ধের পরে, তিনি ইউএসএসআর এর প্রধান রকেট ও মহাকাশযান প্রকৌশলী হন, তিনি ভন ব্রাউনের সোভিয়েত প্রতিরূপ। স্নায়ুযুদ্ধের সময় তার পরিচয় রাষ্ট্রীয়ভাবে গোপন করা হয়, এবং তিনি প্রকাশ্যে কেবলমাত্র "প্রধান নকশাকারী" হিসেবে পরিচিত ছিলেন। ১৯৬৬ সালে তার মৃত্যুর পরেই পশ্চিম বিশ্বে তার পরিচিত আনুষ্ঠানিকভাবে প্রকাশ করা হয়।

প্রায় এক বছর পরে পিনেমুন্ডেতে, সোভিয়েত কর্মকর্তারা অপারেশন অশিয়াভিয়াখিম পরিচালনা করে এবং পরবর্তীতে ১৭০ জনের অধিক সেরা জার্মান রকেট বিশেষজ্ঞদের লেক সেলিজেরের গরদমল্যা আইল্যান্ডে স্থানান্তরিত করা হয়। চূড়ান্ত সোভিয়েত মিসাইল নকশায় তাদের অনুমোদিত ছিল না কিন্তু তাদেরকে সোভিয়েত প্রকৌশলীদের সমস্যা সমাধানে পরামর্শদাতা হিসেবে ব্যবহার করা হতো। তারা উল্লেখিত ক্ষেত্রে অবদান রেখেছেন: এ-৪ এর সোভিয়েত সংস্করণ তৈরি; "সংস্থার পরিকল্পিত" কাজে অংশগ্রহণ; এ-৪ এর মূল ইঞ্জিন উন্নয়নে গবেষণা; কেন্দ্রে উৎপাদনের কক্ষ "বিন্যাসে" সহায়তা; এবং জার্মান সরঞ্জাম ব্যবহার করে রকেট গঠনের প্রস্তুতি। তাদের সহায়তায়, বিশেষ করে হেলমুট গ্রুট্রুপের দলের সাহায্যে করোলোভ এ-৪ কে বিপরীত প্রকৌশল করেন এবং ১৯৪৮ সালে এটির নিজেশি সংস্করণ, আর-১ তৈরি করেন। পরবর্তীতে, তিনি নিজের আলাদা ভিন্ন নকশা তৈরি করেন, যদিও বেশিরভাগ নকশা ১৯৪৯ সালের গ্রুট্রুপ দলের জি৪-আর৮০ এর নকশা দ্বারা প্রভাবিত ছিল। জার্মানদের ১৯৫১-৫৩ সালে স্বদেশে ফেরত পাঠানো হয়।

মার্কিন রকেট উন্নয়ন[সম্পাদনা]

আমেরিকান অধ্যাপক রবার্ট এইচ গডার্ড কঠিন জ্বালানির রকেট উন্নয়নে ১৯১৪ সাল থেকে কাজ করছেন এবং প্রথম বিশ্বযুদ্ধ সমাপ্তির কেবল পাঁচ দিন পূর্বে তিনি যুদ্ধ ক্ষেত্রে হালকা রকেট ইউএস আর্মি সিগন্যাল কর্পস কে প্রদর্শন করেছিল। তিনি ১৯২১ সালে তরল জ্বালানির রকেট উন্নয়ন করেন, তবুও তিনি জনসাধারণের সম্মতি পাননি।

ভন ব্রাউন এবং তার দলকে ১৯৪৫ যুক্তরাষ্ট্রের হোয়াইট স্যান্ডস প্রভিং গ্রাউন্ডে পাঠানো হয়। তারা আদৃত ভি২ একত্রিত এবং সেগুলো উৎক্ষেপণের কর্মসূচি করা হয় এবং মার্কিন প্রকৌশলীদের তাদের কার্যক্রম সম্পর্কে অধ্যাপনা করেন। এই পরীক্ষণ গুলোর মাধ্যমে রকেট দ্বারা মহাকাশের প্রথম ছবি এবং ১৯৪৯ সালে ডব্লিউএসি কর্পোরাল ভি২ সংগঠন, প্রথম দুই স্তরবিশিষ্ট রকেট ইত্যাদি অর্জিত হয়। জার্মান রকেট দলকে ১৯৫০ সালে ফর্ট ব্লিস থেমে সৈন্যবাহিনীর নতুন রেডস্টন আর্সেনালে স্থানান্তরিত করে, যা আলাবামার হান্টসভিলে অবস্থিত। সেখান থেকে, ভন ব্রাউন এবং তার দল সৈন্যের প্রথম কার্যকর মাঝারি নিক্ষেপণ যন্ত্র উন্নয়ন করেছিল, যা রেডস্টন রকেট নামে পরিচিত। এটি সল্প পরিবর্তিত সংস্করণ যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ, এবং প্রথম পরিচালিত মার্কারি মহাকাশ অভিযান সম্পন্ন হয়েছিল। এটি জুপিটার এবং স্যাটার্ন রকেটের পরিবারের ভিত্তি হোয়ে ওঠে।

স্নায়ুযুদ্ধে মিসাইল প্রতিযোগিতা[সম্পাদনা]

"স্নায়ু যুদ্ধ প্রকট চালক যন্ত্র ও বিশাল অনুঘটক ছিল, যা রকেট ও তার পণ্যকে পৃথিবী ও বিশ্ব থেকে অনেক দূরে পাঠাতো। যদি Tosiokovsky, Oberth, Goddard এবং অন্যরা রকেটবিদ্যার পিতা ছিলেন, তবে ধনতন্ত্র ও সমজতন্ত্রের মধ্যকার প্রতিযোগিতা ছিল তাদের ধাত্রী।"

William E. Burrows, This New Ocean, "The Other World Series", p. 147

স্নায়ুযুদ্ধ (১৯৪৭-১৯৯১) দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে দুটি প্রাক্তন মিত্রর মধ্যে উন্নীত হয়। এটিতে সোভিয়েত ইউনিয়ন ও পারিপার্শ্বিক রাষ্ট্র(যাকে প্রায়শই পূর্বাঞ্চল গোষ্ঠী) এবং পশ্চিমা বিশ্বের ক্ষমতা, বিশেষ করে যুক্তরাষ্টের মধ্যে অবিরত রাজনৈতিক বিরোধ, সামরিক প্রতান, প্রতিনিধিত্বের যুদ্ধ এবং অর্থনৈতিক প্রতিযোগিতা অন্তর্গত। প্রাথমিক অংশগ্রহণকারীদের সামরিক শক্তি সরাসরি দন্দে জড়িত না হলেও তাদের দ্বন্দ্ব সামরিক সম্মেলন, কৌশলগত শক্তির অবস্থান, দুর্বল রাষ্ট্রগুলোতে বিস্তর সহযোগিতা প্রদান, প্রতিনিধিত্বের যুদ্ধ, গুপ্তচরবৃত্তি, প্রচারণা, নিউক্লীয় শক্তির প্রতিযোগিতা, এবং অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত প্রতিযোগিতা বা স্পেস রেস।

সহজ ভাষায়, স্নায়ুযুদ্ধ দ্বারা সমাজতান্ত্রিক ও ধনতান্ত্রিক ভাবধারার সংগ্রামের প্রকাশ। যুক্তরাষ্ট্র ১৯৪৯ সালের সেপ্টেম্বরে একটি নতুন অনিশ্চিত আরম্ভ অনুভব করে, যখন তারা পারমাণবিক শক্তির একচেটিয়া অধিকার হারিয়ে ফেলে। মার্কিন বুদ্ধিমত্তা বিভাগ জানতে পারে যে সোভিয়েত ইউনিয়ন তাদের প্রথম পারমাণবিক বোমা বিস্ফোরণ করে, যার ফলে যুক্তরাষ্ট্র একটি পারমাণবিক যুদ্ধের সম্মুখীন হতে পারে, যা প্রথমবারের মত শহরতলী ধ্বংস করে দিতে পারে। এই নতুন বিপদের কারণে যুক্তরাষ্ট্র সোভিয়েতের সাথে একটি অস্ত্রের প্রতিযোগিতায় জড়িয়ে পড়ে, যার মধ্যে হাইড্রোজেন বোমার উন্নয়ন অন্তর্ভুক্ত। এর পাশাপাশি পারমাণবিক বোমা প্রদানের ক্ষমতাসম্পন্ন আন্তমহাদেশীয় কৌশলগত বোমা এবং নিক্ষেপণ মিসাইল (আইসিবিএম) অস্ত্র রয়েছে। ১৯৫০ দশকে সমাজতন্ত্র এবং এর সম্মতিকারী দের প্রতি এক নতুন ভয় যুক্তরাষ্ট্রকে প্রভাবিত করে, যা ভীতিকর ম্যাকার্থিবাদে পরিণত হয়। চীন, করিয়া এবং ইউরোপের পূর্বাঞ্চলে সমাজতন্ত্র ছড়িয়ে পড়ায় মার্কিনরা এতই আতঙ্কিত হয়েছিল যে জনপ্রিয় ও রাজনৈতিক সংস্কৃিতে সমাজতান্ত্রিক গোয়েন্দাদের সরাতে বিস্তর "জাদুকর - খোজন" ছড়িয়ে পড়েছিল। মার্কিনদের এই প্রতিক্রিয়ায় একটি কারণ হলো সোভিয়েত পারমাণবিক এবং হাইড্রোজেন বোমা পরীক্ষণের জন্য স্ট্রাতিজিক এয়ার কমান্ডের(SAC) তত্ত্বাবধানে বিশাল বিমান বাহিনী নিয়ন্ত্রন অন্তর্ভুক্ত ছিল। এসএসি আন্তমহাদেশীয় কৌশলী এবং মাঝারি বোমা নিক্ষেপক বিমানের ভিত্তি সোভিয়েত আকাশসীমায় (পশ্চিমা ইউরোপ ও তুর্কির মাঝে) ছিল যারা পারমাণবিক অস্ত্র প্রদানে সক্ষম ছিল।

এর অংশ হিসেবে সোভিয়েতের আক্রমণের আশঙ্কা রোপণ হয়েছিল। ১৯৪১ সালে দ্বিতীয় বিশবযুদ্ধকালীন নাৎসি বাহিনী কৃত আক্রমণ করায় কমপক্ষে ২৭ মিলিয়ন ব্যাক্তি আহত হওয়ায়, সোভিয়েত ইউনিয়ন নিজের প্রাক্তন মিত্র যুক্তরাষ্ট্রের প্রতি সতর্ক হয়ে উঠেছিল, ১৯৪৯ সালে পর্যন্ত একমাত্র পারমাণবিক অস্ত্রধারী রাষ্ট্র ছিল। দ্বিতীয় বিশ্বুদ্ধকালীন যুক্তরাষ্ট্র এই অস্ত্র কার্যকরীভাবে ব্যবহার করেছিল এবং তারা এটি সোভিয়েত ইউনিয়নের বিরুদ্ধে আবার ব্যাবহার করলে শহর এবং সামরিক ব্যবস্থা আবর্জনায় পরিণত হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিমান বাহিনী সোভিয়েতের তুলনায় অনেক বিশাল হাওয়ায়, তারা জটিল বিমান ভিত্তি সোভিয়েত এলাকার কাছে উপস্থিত থাকে। ১৯৪৭ সালে মার্কিন থেকে আশঙ্কা গমনে স্ট্যালিন আন্তমহাদেশীয় নিক্ষেপণ যন্ত্রের উন্নয়ন আদেশ করেন।

সোভিয়েত আর৭ আইসিবিএম, এবং এর অনুলিপিত উৎক্ষেপণ বাহন।

১৯৫৩ সালে, করোলোভ আর-৭ সেম্যর্কা রকেট উন্নয়নে সম্মতি প্রদান করা হয়, যা জার্মান নকশায় বিশাল উন্নতি ছিল। যদিও এটি কিছু অংশ জার্মান জি-৪ এর সাথে মিল হলেও নতুন রকেটের মধ্যে স্তর ব্যবস্থা, সম্পূর্ণ নতুন নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা এবং নতুন জ্বালানি বিদ্যমান রয়েছে। ১৯৫৭ সালের ২১ শে আগস্ট এটি সফলভাবে পরীক্ষণ করা হয় এবং পরবর্তী মাসে এটি পৃথিবীর প্রথম সম্পূর্ণ কার্যকরী আইসিবিএম হিসেবে পরিচিতি পেয়েছে। এটি পরবর্তীতে সর্বপ্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণে ব্যবহার করা হয় এবং সকল পরিচালত সোভিয়েত মহাকাশযান উক্ষেপণ করেছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের একাধিক রকেট কার্যক্রম ছিল যা মার্কিন সামরিক সংস্থার বিভিন্ন শাখায় বিভক্ত ছিল, যার মানে প্রত্যেক শক্তিই নিজেদের আইসিবিএম কার্যক্রম ছিল। এমএক্স-৭৭৪ এর মাধ্যমে ১৯৪৫ সালে আইসিবিএম গবেষণার সূচনা করে। যদিও এটি পরবর্তীতে বাতিল করা হয় এবং ১৯৪৭ সালে কেবল তিনটি আংশিক সফল উৎক্ষেপণ করা হয়। ১৯৫০ সালে ভন ব্রাউন কেপ ক্যানাভেরালে বিমান বাহিনীর পিজিএম-১১ রেডস্টন রকেট পরিবারের পরীক্ষণ শুরু হয়। ১৯৫১ সালে বিমান বাহিনী এমএক্স-১৫৯৩ নামক নতুন কার্যক্রম শুরু হয় এবং ১৯৫৫ সালে এটি সবচেয়ে গুরুতবপূর্ণ পুঁজি পেতে থাকে। এমএক্স-১৫৯৩ কার্যক্রম বিবর্তিত হয়ে অ্যাটলাস-এ তে পরিণত হয়, এটির প্রথম উড্ডয়ন ১৯৫৭ সালের ১১ ই জুনে সংগঠিত হয়, এটি প্রথম সফল মার্কিন আইসিবিএম ছিল। এটির উন্নত সংস্করণ, অ্যাটলাস-ডি রকেট, পরবর্তীতে পারমাণবিক আইসিবিএম এবং প্রজেক্ট মার্কারি র জন্য উৎক্ষেপণ বাহন এবং প্রজেক্ট জেমিনি তে ব্যাবহৃত রিমোট চালিত অ্যাজেন্ডা টার্গেট ভেহিকল হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

সোভিয়েত ইউনিয়ন ও যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যকার স্নায়ুযুদ্ধ কে ভাবগত পরিবর্তনে চালক যন্ত্র হিসেবে বিবেচনা করা হয় এবং একটি সুসংগত মহাকাশ নীতি ১৯৫০ দশকের শেষ দিকে যুক্তরাষ্ট্রে আকার ধারণ করতে থাকে।

প্রতিযোগিতার সূচনা[সম্পাদনা]

প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ[সম্পাদনা]

১৯৫৫ সালে যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত এউনিয়ন উভয়েই নিক্ষেপন মিসাইল তৈরি করছিল যা বস্তু মহাকাশে উৎক্ষেপণে ব্যবহার করা যায়, জাতীয়তাবাদী প্রতিযোগিতার জন্য মঞ্চ তৈরি হয়ে গিয়েছিল.৪ দিনের পার্থক্যেই উভয় দেশ প্রকাশ্যে ঘোষণা করে যে, ১৯৫৭ বা ১৯৫৮ এর মধ্যে তারা কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণ করবে। ১৯৫৫ সালের জুলাই এর ২৯ তারিখে রাষ্ট্রপতি ডুয়াইট ডি.আইযেনহাওয়ারের প্রচারণা মন্ত্রী জেমস সি.হ্যাগার্টি ঘষণা করেন যে, যুক্তরাষ্ট্র "পৃথিবীকে আবর্তনশীল ছোট কৃত্রিম উপগ্রহ" উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা করছে। আন্তর্জাতিক জিও ফিসিক্যাল বছরে অবদান হিসেবে ১৯৫৭ সালের জুলাই থেকে ১৯৫৮ সালের ৩১শে ডিসেম্বর এর মধ্যে উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা করা হয়েছিল। ৪ দিন পর কোপেন হেইগেন এ আন্তর্জাতিক অ্যাস্ট্রনটিক্যাল ফেডারেশনের ৬ষ্ঠ কংগ্রেসে বিজ্ঞানী লিওনিড আই.সেদভ সোভিয়েত দূতাবাসে আন্তর্জাতিক সাংবাদিকদের সাথে কথা বলেন এবং "নিকট ভবিষ্যতে" তার দেশেরও কৃত্রিম উপগ্রহ উৎক্ষেপণের পরিকল্পনা আছে বলে ঘোষণা করেন। ১৯৫৫ সালের ৩০ই আগস্ট করলেভ সোভিয়েতের একাডেমিক অব সায়েন্সেস্‌ দ্বারা এমন একটি বিনিয়োগ তৈরি করে যাএ উদ্দেশ্য হলো পৃথিবীর কক্ষে পৌঁছাতে মার্কিনদের হারানো: এটি স্পেস রেসের দ্য ফ্যাক্ত সূচনার দিবস। সোভিয়েত ইউনিয়নে মন্তীদের সম্মেলন এমন একটি নীতি শুরু করা হয়, যা আনুযায়ী মহাকাশ কার্যক্রম গোপনীয় তথ্য হয়ে থাকবে।

প্রাথমিকভাবে, রাষ্ট্রপতি আইসেনহাওয়ার এটি নিয়ে চিন্তিত ছিলেন যে, একটি কৃত্রিম উপগ্রহ একটি রাষ্ট্রের ১০০ কিলোমিটার(৬২ মেইল) উপর দিয়ে অতিক্রম করলে রাষ্ট্রের স্বতন্ত্র আকাশসীমা লঙ্ঘন করতে পারে। তিনি এতি নিয়ে চিন্তিত ছিলেন যে, সোভিয়েত ইউনিয়ন মার্কিনদের বেআইনি উচ্চ উড্ডয়নে অভিযুক্ত করতে পারে। এভাবে তার মূল্যে প্রচারণা পেতে পারে। আইসেনহাওয়ার এবং তার পরামর্শদ্বাতারা অভিমত তৈরি করেছিলেন যে, রেষ্ট্রের স্বতন্ত্র আকাশসীমানা কার্মান রেখার উপরে নেই এবং তারা ১৯৫৭-১৯৫৮ আন্তর্জাতিক জিও ফিসিক্যাল বছরে উৎক্ষেপণের মাধ্যমে এই অভিমতটিকে আন্তর্জাতিক নীতির অংশ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করে। আইসেনহাওয়ার এতি নিয়ে আতঙ্কিত ছিলেন যে, যদি তিনি সামরিক মিসাইলকে উৎক্ষেপক হিসেবে ব্যবহার করেন, তাহলে তিনি কোনো আন্তর্জাতিক দুর্ঘটনার মূল কারণ হতে পারেন এবং "যুদ্ধাগ্রোহী" হিসেবে পরিচিত হতে পারে। এজন্য তিনি নেভাল রিসার্চ ল্যাবরেটরির অপরীক্ষিত ভ্যানগার্ড রকেটকে নির্বাচন করেন, যেটি মূলত গবেষণার উদ্দেশ্যে ছিল। এর অর্থ হলো ভন ব্রাউনের দল তাদের জুপিটার-সি এর রকেটকে উপকক্ষে পাঠানোর অনুমুতি পায়নি। কারণ এটি ভবিষ্যতে সামরিক বাহন হিসেবে ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল। ১৯৫৬ সালের ২০ই ডিসেম্বর ভন ব্রাউন ও তার দল ক্পৃত্গ্ররিম হকে কক্ষপথে পৌঁছানর ক্ষমতাসম্পন্ন একটি জুপিটার-সি রকেট উৎক্ষেপণ করেন।যদিও উৎক্ষেপণটি, পুনঃপ্রবেশ বাহন প্রযুক্তির উপ-অক্ষীয় পরীক্ষণ হিসেবে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। ভন ১৯৫৬ সালে ভন ব্রাউনের জুপিটার-সি পরীক্ষণ সম্পর্কে করলভ জানতে পারলে তিনি ভুলবশত মনে করেন যে, এতি একটি ব্যর্থ মহাকাশযান মিশন ছিল। এতে তিনি দ্রুত নিজস্ব মহাকাশযান কক্ষপথে পাঠানোর পরিকল্পনা নকশা করেন। যুক্তরাষ্ট্রের যেকোনো বুস্টাররের তলনায় আর-৭ যথেষ্ঠ শক্তিশালী হওয়ায়, তিনি অব্জেক্ট ডি তার প্রাথমিক মহাকাশযান হিসেবে নকশার মাধ্যমে এই ক্ষমতার সম্পূর্ণ অংশ ব্যবহার নিশ্চিত করেন। এটিকে "ডি" অবস্থান দেওয়া হয়েছিল আর-৭ এর অন্যান্য পণ্যবাহী "এ","বি", "ভি" এবং "জি", যেগুলো পারমানবিক অস্ত্র ছিল সেগুলো থেক পার্থক্য করার জন্য অব্জেক্ট ডি যুক্তরাষ্ট্রের তুলনায় স্বল্প ছিল। যার ওজন মাত্র ১৪০০ কিলোগ্রাম(৩১০০ পাউন্ড) যার মধ্যে ৩০০ কিলোগ্রাম(৬৬০ পাউন্ড) বৈজ্ঞানিক যান্ত্রপাতি দ্বারা গঠিত। যেগুলো পৃথিবীর ছবি তুলবে বিকিরণের মাত্রা অধ্যয়ন করবে। যদিও মহাকাশযানের নির্মাণ ও নকশার সাথে এগুলোর সাদৃশ্য কম ছিল।এজন্য ১৯৫৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে করোলভ মন্ত্রীদের সম্মেলন থেকে প্রস্তেইশি স্পুটনিক(পিএস-১) বা একটি সরল মহাকাশযান। সম্মেলন এটীও আদেশ দেয় যে অব্জেক্ট ডি ১৯৫৮ সালে এপ্রিল পর্যন্ত মূলতবী করা হলো। এই নতুন স্পুটনিক হলো একটি ধাতব গোলক যা অনেক হালকা ছিল। মাত্র ৮৩.৮ কিলোগ্রাম(১৮৫ পাউন্ড) ওজনের ৫৮ সেন্টিমিটার(২৩ ইঞ্চি) ব্যাস সম্পন্ন ছিল। এই মহাকাশযানে অব্জেক্ট ডি এর অনুরূপ কোনো জটিল যন্ত্র থাকবে না। কিন্তু এটির দুটি রেডিও ট্রান্সমিটার ছিল যা বিভিন্ন ক্ষুদ্র রেডিও কম্পাঙ্কে পরিচালিত হতো, যা তাকে শনাক্ত করার ক্ষমতা দিয়ে দেয় যে কোনো উল্কা এটীর চাপযুক্ত কাঠামো ভেদ করেছে কিনা এবং এটির পৃথিবীর তাপমন্ডলের ঘনত্ব শনাক্ত করার ক্ষমতা ছিল। [১]

আগস্ট এবং সেপ্টেম্বরে আর-৭ রকেটের সফল উৎক্ষেপণ দ্বারা করোলেভ আত্মহারা ছিল। যেটা স্পুটনিক উৎক্ষেপণের পথ দেখিয়ে দেয়। ওয়াশিংটন ডিসির ন্যাশনাল একাদেমিক অফ সায়েন্সেস-এর আন্তর্জাতিক ন্যাশনাল জিও ফিসিক্যাল বছরে সম্মেলনে ১৯৫৭ সালের ৬ই অক্টোবর "গ্রহের উপর মহাকশযান নথিপত্রের সাহায্যে" গুজব ছড়ায় যে , যুক্তরাষ্ট্র একটি বিশাল অর্জনের পরিকল্পনা করছে। নথির উপর ভিত্তি করে করোলেভ মনে করেছিলেন যে, ভন ব্রাউন অক্টোবরের ৫ বা ৬ তারিখে মহাকাশযান বহন করে একটি জুপিটার সি বহন করতে পারেন। তিনি উৎক্ষেপণের জন্য তরান্বিত হয়ে যান। তরান্বিত হয়ে তিনি উৎক্ষেপ্ণকে অক্টোবরের ৪ তারিখ স্থানান্তরিত করেন। পিএস ১ এর উৎক্ষেপণ বাহন হলো একটি পরিবর্তিত আর-৭ - বাহন ৮কে৭১পিএস নম্বর এম১-পিএস - পুর্ববর্তী উৎক্কেপণের তুলনায় স্বল্প পরীক্ষণ যন্ত্র এবং রেডিও সরঞ্জাম ছিল।এটী সেপ্টেম্বরে সোভিয়েত মিসাইল ঘাঁটি ট্যুরা-ট্যাম এ পৌঁছায় এবং এক নং উৎক্ষেপণ স্থানে নিজের মিশনের জন্য তৈরি হয়। ১৯৫৭ সালের ৪ঠা অক্টোবর শুক্রবারে আর-৭ বাহনে স্পুটনিক ১ মস্কো-এর সময় অনুসারে ঠিক ১০ঃ২৮ঃ৩৪ অপরাহ্নে প্যাড থেকে উৎক্ষেপণ করে কয়েক মিনিট পর কক্ষপথে কৃত্রিম "চাঁদ" বসিয়ে দেয়। এই ভ্রমণকারী বাংলানুবাদ অনুসারে এই "ভ্রমণকারী" এক্টী ছোট গুঙ্গুন শব্দ করা ছোট্ট গোলক যার ব্যাস ২ ফিটের চেয়েও কম এবং ২০০ পাউন্ডের চেয়েও কম ওজনের। কিন্তু একদম পূর্বে কামচাটকায় ট্রাকিং স্টেশনে স্পুটনিক ১ এর রেডিও ট্রান্সমিটারের স্পষ্ঠ বিপ... বিপ...বিপ... শোনা না পর্যন্ত উৎক্ষেপণ নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্রে উৎযাপন বন্ধ ছিল। রেডিও ট্রান্সমিটারের শব্দের সাহায্যে স্পুটনিক ১ নিজের প্রথম আবর্তন উড়নের পথকে নির্দেশ করে। উৎক্ষেপণের প্রায় ৯৫ মিনিট পর মহাকাশযানটি নিজের উৎক্ষেপণের স্থানের উপর দিয়ে যায় এবং এর রেডিও সিগ্ন্যাল্‌ প্রকৌশলীরা ও সামরিক ব্যক্তিত্ব ট্যুরা-ট্যাম গ্রহণ করেঃ এই সময়ে করোলেভ এবং তার দল পৃথিবীর কক্ষপথে সফল্ভাবে অবস্থিত মহাকাশযান উৎযাপন করেন।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিক্রিয়া[সম্পাদনা]

সোভিয়েতের সফলতা যুক্তরাষ্ট্রে বিশাল চিন্তার কারণ হয়ে দাড়ায়। উদাহরণস্বরূপ, একজন অর্থনীতিবিদ বার্নার্ড বারুচ একটি "পরাজয়ের শিক্ষা" নামক একটি চিঠিতে নিউ ইয়র্ক হেরাল্ড ট্রিবিউন - কে লেখেন, "যখন আমরা নিজেদের শৈল্পিক এবং প্রযুক্তিগত ক্ষমতা ব্যবহার করে গাড়ির নতুন সংস্করণ ও অন্যান্য নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবন করছি, তখন সোভিয়েত ইউনিয়ন মহাকাশ জয় করছে। ... এটি যুক্তরাষ্ট্র নয়, রাশিয়া, যারা কল্পনাশক্তি দ্বারা তারার উপর ভর করেছে এবং দক্ষতা দ্বারা কেবল চাদেই পৌঁছায়নি; বরং তা দখল করেছে। যুক্তরাষ্ট্র এখন চিন্তিত। এর হওয়া উচিত।"[২]

আইসেনহোয়ার আদেশ দিলেন যাতে প্রজেক্ট ভাঙ্গুয়ার্ড- কে সময়সূচিতে আরো সামনে নিয়ে আসা হয় এবং প্রকৃত পরিকল্পনার পূর্বেই উৎক্ষেপণ করা হয় যা মার্কিন টেলিভিশন দর্শকের সামনে সরাসরি সম্প্রচারিত হয়েছিল। এটি একটি স্মারক ব্যর্থতায় পরিণত হয় কেননা উৎক্ষেপণের কয়েক মুহূর্ত পরেই বিস্ফোরিত হয়ে এটি আন্তর্জাতিক রসনার বিষয়ে পরিণত হয়। এই মহাকাশযান টিকে পত্রিকায় ফ্লোপনিক, স্টায়পুটনিক, কাপুটনিক, দুডনিক নামে প্রচারণা করা হয়। জাতিসংঘে সোভিয়েত প্রতিনিধি যুক্তরাষ্ট্রের দূতদের "পিছিয়ে পড়া দেশগুলোকে কৌশলগত কর্মসূচির আওতায়" সাহায্য প্রদানের প্রস্তাব করেন। এই প্রকাশ্য ব্যর্থতার ফলস্বরূপ জাগরণে ভন ব্রাউনের রেডস্টন দল তাদের জুপিটার - সি রকেট যথাসম্ভব দ্রুত উৎক্ষেপণের অনুমতি পায়। পশ্চিমা স্নায়ুযুদ্ধের আমেরিকার সঙ্গী ব্রিটেনে, প্রতিক্রিয়া মিশ্রিত প্রকৃতির ছিল: কিছু জনগন উৎযাপন করেছিল যে সোভিয়েত প্রথম মহাকাশে পৌঁছাতে পেরেছিল আর অন্যরা এই নতুন মহাকাশযানের বিধ্বংসী ক্ষমতা থেকে আতঙ্কিত হয়েছিল।

উইলিয়াম হায়ের্ড, জেমস্ ভ্যান অ্যালেন এবং ওয়েরনহের ভন ব্রাউন এক্সপ্লোরার ১ এর একটি মডেল প্রদর্শন করছেন।

স্পুটনিক ১ উৎক্ষেপণের ৪ মাস পর, ১৯৫৮ সালের ৩১শে জানু়ারিতে ভন ব্রাউন এবং ইউএস সৈন্যবাহিনীর রেডস্টন মিসাইল থেকে সংগ্রহীত চার স্তরবিশিষ্ট জুনো ১ রকেটের মাধ্যমে কেপ ক্যানাভারেল থেকে যুক্তরাষ্ট্র তাদের প্রথম মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করে। এক্সপ্লোরার ১ নামক মহাকাশযানটির ভর ছিল ৩০.৬৬ পাউন্ড(১৩.৯১ কেজি) এবং এক্সপ্লোরার ১ এর পণ্যটির ভর ছিল ১৮.৩৫পাউন্ড(৮.৩২ কেজি)। এটি একটি ক্ষুদ্র ধূমকেতু পরিমাপক যন্ত্র এবং একটি গেইগের - মুলার টিউব বিহীন করেছিল। এই নিজস্ব ১৯৪- বাই - ১,৩৬৪ নটিক্যাল মাইল কো কক্ষপথে পরিচালনার সময় পৃথিবীকে পরিবেষ্টিত বিকিরণ বেল্টের মধ্যে দিয়ে যাতায়াত করে, যা টিউবের ধারণ ক্ষমতাকে সম্পৃত্ত করে এবং ইউনিভার্সিটি অফ আইওয়া- র মহাকাশ বিজ্ঞানী ড.জেমস্ ভ্যান অ্যালেন দ্বারা প্রদত্ত ধারণাকে প্রমাণিত করে। এই ভ্যান অ্যালেন বিকিরণ স্থানটি পৃথিবীর চৌম্বকীয় বিষুব রেখার উপর অবস্থিত একটি ডোনাট আকৃতির উচ্চ ঘনত্বের বিকিরণ সম্পন্ন স্থান। ভ্যান অ্যালেন এক্সপ্লোরার ১ মহাকাশযানের সহযোগী যন্ত্রপাতি নকশা ও তৈরি করেছিলেন। এই মহাকাশযানটি তিনটি ঘটনা পর্যবেক্ষণ করে: মহাজাগতিক রশ্মি ও বিকিরণের মাত্রা, মহাকাশযানের তাপমাত্রা এবং ক্ষুদ্র ধূমকেতুর সাথে সংঘর্ষের কম্পাঙ্ক। এই মহাকাশযানে তথ্য সংগ্রহের জন্য কোনো ব্যবস্থা ছিল না, এজন্য এটিকে ক্রমাগতভাবে তথ্য প্রেরণ করতে হতো।

১৯৫৮ সালে এপ্রিলের ২ তারিখে রাষ্ট্রপতি আইসেনহোয়ার মহাকাশে সোভিয়েতের মুখ্য ভূমিকার প্রতিক্রিয়া হিসেবে ইউএস কংগ্রেসকে এমন একটি অসামরিক সংস্থা তৈরি করতে বলেন যা অসামরিক মহাকাশ কার্যক্রম পরিচালনা করবে। সেনেট মেজরিটি লিডার লিন্ডন বি. জনসন দ্বারা পরিচালিত কংগ্রেস জাতীয় মহাকাশ কার্যক্রম পাসের মাধ্যমে প্রতিক্রিয়া করে। এই আইন অনুসারে বিমান চালনা বিদ্যার উপদেষ্টা পরিষদকে পরিবর্তন করে ন্যাশনাল অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন(নাসা) তৈরি করা হয়। একটি আরো সিভিলিয়ান- মিলিটারি লিয়াসন কমিটি গঠন কর, যা রাষ্ট্রপতি দ্বারা পরিচালিত এবং রাষ্ট্রের সামরিক ও অসামরিক মহাকাশ কার্যক্রমের মধ্যে সহযোগিতার জন্য দায়ী।

১৯৫৯ সালের ২১শে অক্টোবর, সামরিক বাহিনীর অবশিষ্ট মহাকাশ সংবলিত কার্যকলাপ নাসার উপর অর্পিত করা হয়। ২৯৬৩ সালের ১লা জুলাই রেডস্টন আর্সেনালকে নাসার জর্জ সি. মার্শাল স্পেস ফ্লাইট সেন্টারে পরিণত করা হয় এবং প্রথম পরিচালক হিসেবে ভন ব্রাউনকে নিয়োজিত করা হয়। স্যাটার্ন রকেট পরিবারের উন্নয়ন, যা সম্পন্ন হওয়ার ফলে উড্ডয়ন ক্ষমতার ক্ষেত্রে ইউএস সোভিয়েতের সমতায় আস্তে পারবে, নাসাকে অর্পিত করা হয়েছিল।

মানুষবিহীন চন্দ্র মহাকাশযান[সম্পাদনা]

১৯৫৮ সালে করোলোভ আর-৭ এর পরিবর্তন করে এটিকে চাঁদে ৪০০ কিলোগ্রাম (৮৮০ পাউন্ড) ভর চাঁদে পাঠাতে পারবে। ১৯৫৮ সালে লুনা ই-১ শ্রেণীর বিধ্বংসী মহাকাশযান উৎক্ষেপণের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়। ১৯৫৯ সালের ২রা জনুয়ারি চতুর্থ প্রচেষ্টায় উৎক্ষেপণ সফল হলেও চাঁদে পৌঁছাতে পারেনি। ১৯৫৯ সালের ৬ ই অক্টোবর ২৭৮.৫ কিলোগ্রামের(৬১৪ পাউন্ড) লুনা ৩ সফলভাবে চাঁদের পাশ দিয়ে যায় এবং চাঁদের ওপর পাশের ছবি পৃথিবীতে পাঠায়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

যুক্তরাষ্ট্র লুনা কর্মসূচির প্রতিক্রিয়া হিসেবে ১৯৫৯ সালে নাসা রেঞ্জার কর্মসূচি তৈরি করে। ১৯৬১ সালের আগস্ট এবং নভেম্বেরে ব্লক । রেঞ্জার ১ ও রেঞ্জার ২ অ্যাটলাস-আগেনা উৎক্ষেপণ ব্যার্থতার শিকার হয়। ১৯৬২ সালে ৭২৭ পাউন্ডের(৩৩০ কেজি) ব্লক ।। রেঞ্জার ৩ সফলভাবে উৎক্ষেপণ করলেও, চাঁদে যেতে ব্যর্থ হয়। ৭৩০ পাউন্ডের(৩৩০ কেজি) রেঞ্জার ৪ চাঁদে পাঠান যুক্তরাষ্ট্রের সর্বপ্রথম মহাকাশযান, কিন্তু এটির সৌরকোষ এবং নেভিগেশনের ব্যবস্থা চাঁদের কাছে ব্যর্থ হয় এবং কোনো বৈজ্ঞানিক তথ্য প্রেরণের পূর্বেই চাঁদের অপর পাশের সাথে সংঘর্ষ হয়। ১৯৬১ সালের অক্টবরের ২১ তারিখে রেঞ্জার ৫ এর শক্তি ফুরিয়ে যাওয়ায় চাঁদকে ৭২৫ কিলোমিটারের জন্য চাঁদে পৌঁছায় নাই। প্রথম সফল রেঞ্জার মিশন হলো ১৯৬৪ সালের ৩১ শে জুলাই ৮০৬ পাউন্ডের(৩৬৬ কেজি) ব্লক ।।। রেঙ্গার ৭।

মহাকাশে প্রথম মানুষ[সম্পাদনা]

ইউরি গাগারিন, মহাকাশে পাঠানো সর্বপ্রথম মানুষ, ১৯৬১

১৯৫৯ পর্যন্ত, কিছু মার্কিন পর্যবেক্ষক বুঝতে পেরেছিল যে সোভিয়েত ইউনিয়ন সর্বপ্রথম সফলভাবে মহাকাশে মানুষ পাঠাতে সক্ষম হবে, কেননা মার্কারি- এর প্রথম উৎক্ষেপণের প্রস্তুতির জন্য অনেক সময় প্রয়োজন ছিল।[৩] ১৯৬১ সালের ১২ ই এপ্রিল, ইউএসএসআর ভস্টক ১ নামক মহাকাশযানের মাধ্যমে ইউরি গাগারিনকে পৃথিবীর চারদিকে একটি কক্ষপথে পাঠিয়ে আবারও পুরো পৃথিবীকে বিস্মিত করে দেয়। তারা গাগারিনকে প্রথম কসমোনট হিসেবে পরিচিতি দেন, যা রাশিয়ান বা গ্রীক থেকে রুক্ষভাবে অনুবাদ করলে হয় "মহাকাশের নাবিক"। সতর্কতার জন্য ক্যাপসুলটি সয়ংক্রিয় ভাবে চালানো হয়েছিল, তবুও কোনো জরুরি অবস্থায় গাগারিনের ক্যাবিনের মধ্যে একটি খাম খুলে মধ্যে লেখা কোডটি কম্পিউটারে টাইপ করার মাধ্যমে ক্যাপসুলেকে চালনা করার ক্ষমতা ছিল। ঐ সময়কার চিকিৎসা বিজ্ঞান মহাকাশে শূন্য অভিকর্ষে মানুষের দেহের উপর কোনো প্রভাবের ধারণা ছিল না।[৪] ভস্টক -১ ১০৮ মিনিট ধরে পৃথিবীকে প্রদক্ষিণ করে এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের উপর এটি পুনঃপ্রবেশ করে, গাগারিনকে ৭০০ মিটার(২৩,০০০ ফিট) উচ্চতা থেকে মহাকাশযান থেকে বিচ্যুত করা হয় ও তিনি প্যারাসুটের মাধ্যমে পৃথিবীতে অবতরণ করেন।[৪] Fédération Aéronautique Internationale(আন্তর্জাতিক বিমানচলনাবিদ্যা সংঘ) গাগারিনকে পৃথিবীর সর্বপ্রথম মানব মহাকাশ উড্ডয়ন লাভের পরিচিতি দেন, যদিও সে সময়ে তাদের বিমানচলনাবিদ্যার রেকর্ড অনুসারে চালককে বাহনের মধ্য থেকে উদিত ও অবতরণ করতে হতো। এই জন্য সোভিয়েত ইউনিয়ন এফ. এ. আই - কে উপস্থাপন করার সময় এই তথ্য অপসৃত করেন যে গাগারিন ক্যাপসুলে অবতরণ করেননি। কিন্তু ঘেরমান টিতভের দ্বিতীয় ভস্টক উড্ডয়ন জমা দেওয়ার সময় এফ. এ. আই অবতরণের কৌশলের গোপনীয়তা সম্পর্কে জানতে পারেন এবং তদন্ত করে এটি সিদ্ধান্ত নেন যে, মনুষ্য উড্ডয়ন অর্জনের জন্য অবতরণের কৌশলের তুলনায় সুরক্ষিত উৎক্ষেপণ, আবর্তন এবং প্রত্যাবর্তন প্রয়োজন এবং তাদের নিয়মাবলির পরিবর্তন করে গাগারিন ও টিতভের রেকর্ড যথাস্থানে রাখেন।.[৫]


গাগারিন সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং পূর্বাঞ্চলের নায়কে পরিণত হন এবং বিশ্বব্যাপী খ্যাতি অর্জন করেন।[৬] ইউএসএসআর- এ এপ্রিলের ১২ তারিখকে কসমনটিকস দিবস হিসেবে ঘোষণা করা হয় এবং বর্তমানে এটিকে একটি সরকারী "রাশিয়ার স্মরণীয় দিবস" হিসেবে উদযাপন করা হয়। ২০১১ সালে, জাতিসংঘ কর্তৃক এই দিনকে আন্তর্জাতিক মানবীয় মহাকাশ উড্ডয়ন দিবস ঘোষণা করা হয়। [৭] ২০১১ সালে, জাতিসংঘ কর্তৃক এই দিনকে আন্তর্জাতিক মানবীয় মহাকাশ উড্ডয়ন দিবস ঘোষণা করা হয়।[৮]

রকেট উৎক্ষেপনের সময় উৎক্ষেপণ নিয়ন্ত্রণ কক্ষ এবং গাগারিনের মধ্যকার রেডিও যোগাযোগে বার্তালাপ:

করোলোভ: "প্রাথমিক স্তর..... মধ্যস্ততা..... প্রধান..... উড্ডয়ন! আমরা আপনাকে শুভ উড্ডয়ন কামনা করছি। সবকিছু ঠিক আছে।"

গাগারিন: "Поехали!" (পয়েখালি! - চল যাই!).[৯]


গাগারিনের অনানুষ্ঠানিক পয়েখালি! পূর্বাঞ্চলে একটি ঐতিহাসিক বাকাংশে পরিণত হয় এবং মনুষ্য মহাকাশ উড্ডয়নের সূচনা বোঝাতে ব্যবহার করা হয়।


মহাকাশে প্রথম আমেরিকান[সম্পাদনা]

অ্যালান শেফার্ড, মহাকাশের প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক, ১৯৬১

মার্কিন বিমান বাহিনী মহাকাশে প্রথম মানুষ উৎক্ষেপণের জন্য শীঘ্রই মহাশূন্যে মানুষ নামক কর্মসূচির উন্নয়ন করে। এই কর্মসূচিতে অনুলীপিত অ্যাটলাস মিসাইলে উৎক্ষেপিত ক্ষেপক পুনঃপ্রবেশ ক্যাপসুলে অবস্থানের জন্য বিভিন্ন প্রকার এক মানুষবাহী মহাকাশযান গবেষণা করা হয় এবং নয়টি পাইলটকে প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করা হয়। নাসার উৎপত্তির পরে, ১৯৫৮ সালের ২৬ শে নভেম্বর এই কার্যক্রমটি অসামরিক সংস্থায় হস্তান্তর করা হয় এবং নাম পরিবর্তন করে প্রজেক্ট মার্কারি রাখা হয়। নাসা নৌবাহিনী, বিমান বাহিনী ও সামুদ্রিক বাহিনীর টেস্ট পাইলট থেকে এক দল অস্ট্রোনট ("তারার নাবিক"- এর গ্রীক শব্দ) নির্বাচন করে এবং এই কার্যক্রমের জন্য সাত জনকে চূড়ান্তভাবে নির্বাচন করে। রেডস্টোন মিসাইলের প্রারম্ভিক উপ - কক্ষীয় উড্ডয়ন এবং পরবর্তীতে অ্যাটলাসের কক্ষীয় উড্ডয়নের কার্যে ক্যাপসুলের নকশা এবং মহাকাশচারীর প্রশিক্ষণ তৎক্ষণাৎ শুরু করা হয়। প্রত্যেক উড্ডয়ন পর্যায়ে প্রথমে মনুষ্যবিহীন, পরে মানুষ ব্যতীত অন্য প্রানী এবং অবশেষে মানুষ উড্ডয়ন হয়।

কেনেডি চন্দ্রাঅভিযানকে উদ্দেশ্য করেন[সম্পাদনা]

এটি অসাধারণ সময় এবং আমরা অনন্য সাধারণ প্রতিদ্বন্দ্বীতার সম্মুখীন হয়েছি। আমাদের ক্ষমতা ও প্রত্যয় স্বাধীনতার উদ্দেশ্যে এই জাতিকে নেতার ভূমিকা পালন করতে হবে।

...যদি পৃথিবীতে চলমান এই স্বাধীনতা ও নিপীড়নের মধ্যকার যুদ্ধে বিজয়ী হই, ১৯৫৭ সালে স্পুটনিক মত গত কয়েক সপ্তাহে মহাকাশে নাটকীয় অর্জন, সকল স্থানের মানুষের এই ভ্রমণের প্রভাব, যারা উপলব্ধি করার প্রচেষ্টায় আছে কোন পথ নেওয়া উচিত। ... এখন সময় হয়েছে আরো দীর্ঘ অর্জনের - আমেরিকার নতুন স্থাপত্য গঠনের সময় - সময় হয়েছে মহাকাশ অর্জনের ক্ষেত্রে এই রাষ্ট্রের মুখ্য ভূমিকা পালন করে, যা বিভিন্ন দিক থেকে এই পৃথিবীর ভবিষ্যতের চাবি ধারণ করে।

...সোভিয়েতের তাদের বিরাট রকেট ইঞ্জিনের সাথে মুখ্য আরম্ভকে শনাক্ত করে, যা তাদেরকে কয়েক মাসের মুখ্য সময় দিয়েছে, এবং এটি শনাক্ত করে যে তারা এই মুখ্য ভূমিকার শোষণ করে আরো কয়েকটি গুরুতর সফলতা অর্জন করবে, তা সত্ত্বেও আমাদের নিজস্ব নতুন প্রচেষ্টার প্রয়োজন আছে।

...আমি বিশ্বাস করি যে এই রাষ্ট্রের লক্ষ্য অর্জনের জন্য নিজেকে সংকল্পবদ্ধ করতে হবে, এই দশকের সমাপ্তির পূর্বেই মানুষকে চাঁদে পাঠানো ও নিরাপদভাবে প্রত্যাবর্তন করা। এই যুগে কোনো মহাকাশ প্রকল্প মানবজাতির জন্য এত বিস্ময়কর কিংবা মহাকাশ অভিযানটি এত দীর্ঘকালীন গুরুতর হবে না, এবং কেউই এতো জটিল বা ব্যয়সাধ্য হবে না।

জন এফ. কেনেডি,
জরুরি প্রয়োজনে কংগ্রেসকে বিশেষ বার্তা, মে ২৫, ১৯৬১[১০]

গাগারিনের উড্ডয়নের পূর্বে আমেরিকার মনুষ্য বাহী মহাকাশ কর্মসূচির জন্য মার্কিন রাষ্ট্রপতি জন এফ. কেনেডির সমর্থন ছিল ঈষদুষ্ণ। এম.আই.টি - এর জেরোমে ওয়াইসেনার, যিনি এইসেনহওয়ার এবং কেনেডির বিজ্ঞানের উপদেষ্টা হিসেবে দায়িত্ব পালন করতেন, নিজেই মনুষ্য মহাকাশ অভিযানের বিরুদ্ধে অবস্থান করে উক্তি দেন, "যদি দেশবাসীর সিদ্ধান্তকে ক্ষতি না করে কেনেডি বিশাল মহাকাশ কর্মসূচি বাতিল করতে পারতেন, তিনি সেটাই করতেন।"[১১] ১৯৬১ সালের মার্চে যখন নাসার পরিচালক জেমস ই. ওয়েব ১৯৭০ সনের পূর্বে চাঁদে অবতরণের জন্য বাজেটের আবেদন উপস্থাপন করেন, অতি উচ্চমূল্যের হওয়ার জন্য কেনেডি এটি বাতিল করে দেন।[১২] অনেকেই নাসা এবং মহাকাশ কার্যক্রমের উপর কেনেডির চূড়ান্ত সমর্থনকে দেখে বিস্মিত হয়েছিলেন, কেননা তিনি নির্বাচনের সময় এইসেনহোয়ার-এর পরিচালনার অদক্ষতাকে আক্রমণ করেছিলেন।[১৩]

গাগারিনের উড্ডয়ন এটি বদলে ফেলে; এখন কেনেডি সোভিয়েতের মুখ্য ভূমিকার জন্য মার্কিন জনগণের পক্ষ থেকে অপমান এবং আতঙ্ক উপলব্ধি করতে পারে। এছাড়াও, পিগস উপসাগর আক্রমণ, তার শাসনকাল শুরু হওয়ার পূর্বে পরিকল্পিত হলেও শাসন চলাকালীন জারি করা হয়, ইউএস শক্তির বিপুল ব্যার্থতার জন্য তার প্রশাসনের উপরে বিমূরতা বয়ে আনে। নিজের রাজনৈতিক ব্যাক্তিত্ব রক্ষার্থে তিনি ১৯৬১ সালের ২০ ই এপ্রিলে ভাইস প্রেসিডেন্ট কে একটি মেমো লেখেন যেন তিনি যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশ কর্মসূচি পর্যবেক্ষণ করতে বলেন এবং এমন কার্যক্রম খুঁটিয়ে দেখতে যা নাসাকে এগিয়ে যাওয়ার সুযোগ করে দিবে।

কেনেডি চূড়ান্তভাবে সিদ্ধান্ত নিলেন অ্যাপোলো কর্মসূচি অবলম্বন করবেন এবং ২৫শে মে স্নায়ু যুদ্ধের উপর "দেশের জরুরি প্রয়োজনে বিশেষ বার্তা"টেমপ্লেট:Cws নামক ভাষণে কংগ্রেসের সমর্থন চাওয়ার সুযোগ নিয়েছিলেন। তিনি এই কর্মসূচির গুরুত্ব জাতীয় নিরাপত্তা, এবং এর কেন্দ্রবিন্দু বৈজ্ঞানিক ও সামাজিক ক্ষেত্রে জাতীয় শক্তির প্রেক্ষাপটে ব্যাখ্যা করেন।[১৪] ১৯৬২ সালের ১২ ই সেপ্টম্বরে "আমরা চাঁদে যাওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছি।"[১৪] টেমপ্লেট:Cws ভাষণে এই কর্মসূচির জন্য সমর্থন অর্জন করেন। ক্রুশ্চেভ কেনেডির এই অন্তর্গত প্রতিন্দন্দিতাকে নীরবতার সাথে গ্রহণ করে, কিন্তু তিনি প্রকাশ্যে "চন্দ্র প্রতিযোগিতা" অংশগ্রহণ, এটি নিশ্চিত বা অস্বীকার করতে নিষেধ করেন। কিন্তু পরবর্তীতে প্রকাশিত হয় যে, সোভিয়েত ইউনিয়ন ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত গোপনীয়ভাবে মনুষ্য চন্দ্র কর্মসূচি চালিয়েছিল।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

ভস্টক এবং মার্কারি কর্মসূচি সম্পাদন[সম্পাদনা]

মার্কারি[সম্পাদনা]

জন গ্লেন, কক্ষপথে পাঠানো প্রথম যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক, ১৯৬২

১৯৬১ সালের ২১শে জুলাই লিবার্টি বেল ৭ এ শেফা র্ডের উপ- কক্ষীয় উড্ডয়ন ভার্জিল "গুশ" গ্রিমসন পুনকৃত করেন। কক্ষপথে মানুষ পাঠানোর প্রায় এক বছর পরে, ফ্রেন্ডশিপ ৭ মহাকাশযানে ১৯৬২ সালের ২০ ই ফব্রুয়ারি তে মহাকাশচারী জন গ্লেন প্রথম আমেরিকান হিসেবে পৃথিবীর কক্ষপথে আবর্তন করেন। তার মার্কারি- অ্যাটলাস ৬ মিশনে ফ্রেন্ডশিপ ৭ মহাকাশযানে তিনি আবর্তন সম্পাদন করেন এবং একটি জটিল পুনঃপ্রবেশের পর তিনি আটলান্টিক মহাসাগরে অবতরণ করেন কেননা দূরমাপন তথ্যে ভুলক্রমে শিথিল হিট- শিল্ডের ত্রুটি দেখা গিয়েছিল। গ্লেন প্রথম আমেরিকান হিসেবে মহাকাশে পৌঁছলে তিনি জাতীয় নায়কে পরিণত হন এবং তাকে প্যারেড দ্বারা সমাদৃত করা হয়। ১৯৬২ সালের ২৩শে ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রপতি কেনেডি কেপ ক্যানাভেরাল এয়ার ফোর্স স্টেশনের একটি প্যারে ডে সহচর হিসেবে অংশগ্রহণ করেন এবং তিনি গ্লেনকে নাসা কর্তসাধন মেডেল প্রদান করেন।

গ্লেনের পরবর্তীতে যুক্তরাষ্ট্র আরো তিনটি মার্কারি উড্ডয়ন উৎক্ষেপণ করে: ১৯৬২ সালের ২৪ শে মে, অরোরা ৭ যা গ্লেনের তিনটি অবর্তনকে অনুলিপন করে, সিগমা ৭ ১৯৬২ সালে ৩রা অক্টোবর ছয়টি আবর্তন এবং ১৯৬৩ সালের ১৫ ই মে ফেইথ ৭ দ্বারা ২২টি আবর্তন(৩২.৪ ঘণ্টা) যা মহাকাশযানটির সর্বোচ্চ ক্ষমতা ছিল। নাসা প্রথমে মহাকাশযানটি সহ্য ক্ষমতা তিন দিন পর্যন্ত বাড়িয়ে আরেকটি মিশন উৎক্ষেপণের মনস্থ করেছিল, কিন্তু এটি সোভিয়েতের রেকর্ড ভঙ্গ না করায় পরিকল্পনাটি বাতিল করে প্রজেক্ট জেমিনি উন্নয়নে মনঃসংযোগ দেওয়া হয়।

ভস্টক[সম্পাদনা]

ভস্টক ক্যাপসুলের রেপ্লিকা

১৯৬১ সালের ৬ ই আগস্ট ঘেরমান টিতভ প্রথম সোভিয়েত কসমোনট হন তিনি মানুয়াল ভাবে নিজের ভস্টক ২ মহাকাশযান নিয়ন্ত্রণ করেছেন। ১৯৬২ সালের আগস্ট ১১ ও ১২ তারিখে সোভিয়েত ইউনিয়ন ২৪ ঘণ্টায় লঞ্চ প্যাডের ব্যবস্থা এবং দুটি চালকসমৃদ্ধ মহাকাশযান , ভস্টক ৩ ও ভস্টক ৪ মূলত সাদৃশ্যপূর্ণ কক্ষপথে উৎক্ষেপণের ক্ষমতা প্রদর্শন করেছে। দুটি মহাকাশযান পরস্পরের প্রায় ৬.৫ কিলোমিটার কাছে আসে, যা রেডিও যোগাযোগের জন্য পর্যাপ্ত। ভস্টক ৪ প্রায় ৪ দিন মহাকাশে থেকে রেকর্ড তৈরি করেছিল। উৎক্ষেপ ত রকেটের নির্দেশিকা ব্যবস্থার যথার্থতার উপর নির্ভর করে দুটি বাহনের কক্ষপথ সম্ভাব্য রূপে অতি সাদৃশ্যপর্ণ হলেও, কিছু ভিন্নতা বিদ্যমান থাকায় বাহন দুটি প্রথমে প্রায় ৬.৫ কিলোমিটার (৩.৫ নটিক্যাল মাইল) নিকটে, ও পরবর্তীতে ২,৮৫০ কিলোমিটার (১,৫৪০ নটিক্যাল মাইল) দূরে অবস্থান করেছে। মহাকাশ আশ্রয়ের জন্য ভস্টকে কোনো চালনার রকেট ছিল না, ফলে মহাকাশযান দুটিকে নিয়ন্ত্রিত দূরত্বে রাখতে হয়েছিল।

ভালেন্টিনা তেরেস্কভা

সোভিয়েত ভস্টক ৫ ও ভস্টক ৬ দ্বারা এই দি -উৎক্ষেপণ কীর্তি পুনরায় অনুলিপন করে (১৬ জুন, ১৯৬৩)। এই সময়ে তারা ভস্টক ৬ দ্বারা সর্বপ্রথম নারী(এবং সর্বপ্রথম সাধারণ নাগরিক),ভালেন টিনা তেরেস্কভা উৎক্ষেপণ হন। তেরেস্কভা নারী কসমোন টের একটি দলের অংশ ছিলেন যারা অপেশাদার হিসেবে প্যারাসুট পরিচালনা করতেন, কিন্তু কেবল তিনিই উড্ডয়ন করেন। ১৯৮০ সালের পূর্বে ইউএসএসআর পুনরায় নারীদের জন্য কসমোনট নিয়োগদল উন্মুক্ত করেনি, যা যুক্তরাষ্ট্রের মহাকাশচারী নিয়োগদল নারীদের জন্য উন্মুক্ত করার দুই বছর পরে সংঘটিত হয়।

১৯৬৫ সালের এপ্রিলে মস্কো অর্থনৈতিক প্রদর্শনীর পূর্বে সোভিয়েত ভস্টক ক্যাপসুলের আসল প্রকৃতি গোপন রেখেছিল, যা বায়ুগতি নিয়ন্ত্রক কোন ব্যাতিত গোলক ক্যাপুসুলেকে প্রথমবার প্রদর্শন করা হয়। ১৯৬১ সালের জুলাইতে তুসিনো বায়ু অনুষ্ঠানে এই "ভস্টক মহাকাশযান" প্রদর্শিত হয়েছিল যা যথাস্থানে কোনের সাথে উৎক্ষেপণ বাহনের তৃতীয় স্তরে রাখা ছিল। পশ্চিমা পরিদর্শকদের মধ্যে বিভ্রান্তি সৃষ্টি করতে আট পাখাবিশিষ্ট একটি লেজুড় অংশ যোগ করা হয়। এই কৃত্রিম লেজুড় অংশটি একটি তথ্যচিত্র এবং রাষ্ট্রীয় স্মরণীয় স্ট্যাম্পে দেখা যায়।

কেনেডি যুক্ত ইউএস-ইউএসএসআর কর্মসূচির প্রস্তাব দেন[সম্পাদনা]

১৯৬২ সালে ইকো II বেলুন কৃত্রিম উপগ্রহে সহায়তা এবং প্রথম ইউএস- ইউএসএসআর সন্ধির পরে, ১৯৬৩ সালের ২০ ই সেপ্টেম্বর রাষ্ট্রপতি কেনেডি জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের সামনে প্রস্তাব করেন যে যুক্তরাষ্ট্র ও সোভিয়েত ইউনিয়ন একত্রিত ক্ষমতায় চন্দ্র অভিযানের প্রচেষ্টা চালানো উচিৎ। কেনেডি এভাবেই মহাকাশ প্রতিযোগিতার কাম্য তা সম্পর্কে নিজের মানসিকতার পরিবর্তন করেন এবং সংঘর্ষ কমিয়ে যুক্ত চন্দ্রা ভিজনের মত সম্মিলিত প্রকল্পে অংশগ্রহণের মত উপস্থাপিত করে। সোভিয়েত প্রধানমন্ত্রী নিকিতা ক্রুশ্চেভ প্রাথমিকভাবে কেনেডির প্রস্তাবনা কে প্রত্যাখ্যান করে দেন। যদিও ১৯৯৭ সালের অক্টবরের ২ তারিখে এটি জানা যায় যে ক্রুশ্চেভের পুত্র সার্গেই দাবি করেছেন যে ১৯৬৩ সালে ২রা নভেম্বর কেনেডির হত্যার সময়কালীন ক্রুশ্চেভ কেনেডির প্রস্তাবনা গ্রহণের জন্যে সুস্থির হয়েছিল। পরবর্তী কয়েক সপ্তাহে সার্গেই চূড়ান্তভাবে বলেন যে উভয় রাষ্ট্রকেই যুক্ত প্রকল্পের অর্থনৈতিক সুবিধা এবং প্রযুক্তিগত লাভ উপলদ্ধি করতে হবে এবং তাঁদের পৃথিবীর দুটি বৃহৎ শক্তির নেতা হিসেবে দায়িত্ব পালনের সময়কালীন সম্পর্ককে ভিত্তি করে কেনেডির প্রস্তাব গ্রহণ করেন, কিন্তু পরবর্তীতে কেনেডির উত্তরাধিকারী লিন্ডন জনসনের উপর একইরূপ বিশ্বাস না থাকায় মনের পরিবর্তন করেন এবং এটি বাতিল করেন।

রাষ্ট্রপতি হিসেবে জনসন অবিচলিতভাবে জেমিনি এবং অ্যাপোলো অবলম্বন করেন, যা কেনেডির ঐতিহ্য হিসেবে প্রচার করেন। কেনেডির কেনেডির মৃত্যুর এক সপ্তাহ পরে, তিনি বিশেষ আদেশে কেপ ক্যানাভেরাল ও অ্যাপোলো উৎক্ষেপণ ব্যাবস্থাকে কেনেডির নামে নামকরণ করেন।

জেমিনি এবং ভস্খড[সম্পাদনা]

চাঁদে অবতরণ সংকল্পে দৃঢ় হয়ে, ১৯৬২ সালের জানুয়ারিতে ইউএস জেমিনি প্রকল্পের ঘোষণা দেয়, একটি দুই ব্যাক্তি বিশিষ্ট মহাকাশযান যা মহাকাশে আশ্রয় ও দুটি মহাকাশযান সংযোগ প্রয়োজনীয় , চাঁদে গমন এবং প্রত্যাবর্তনের সাথে সাদৃশ্যপূর্ণ উপযুক্ত সময় অনুকরণ, এবং মহাকাশযানের বাহিরে দরকারি কার্য সম্পাদন ইত্যাদি সংশ্লিষ্ট মহাকাশ উড্ডয়ন প্রযুক্তির উন্নয়ন করে পরবর্তীতে ৩ ব্যাক্তি বিশিষ্ট অ্যাপোলো গঠনে সহায়তা করবে।

এই সময়ে, করোলেভের পরিকল্পনা ছিল আরো দূরদর্শী, ভস্টক মহাকাশযানের দীর্ঘকালীন মিশন এবং তার ও কে বি-১ কেন্দ্রে ১৯৬৩ সালের শেষ অংশে চারটি ভস্টকের বিভিন্ন স্তর উদ্ভাবন করেছিলেন। সে সময়ে, জেমিনি প্রকল্পের উড্ডয়ন সময়সূচির উচ্চাকাঙ্ক্ষী পরিকল্পনা ঘোষণা করে। এই পরিকল্পনার মধ্যে মহাকাশযানের ক্ষমতা, যার মধ্যে দুই ব্যক্তি বিশিষ্ট মহাকাশযান রয়েছে, কক্ষপথ পরিবর্তনের ক্ষমতা, মহাকাশ পদচারণার সক্ষমতা এবং অন্য মহাকাশযানের সাথে সংযোগের উদ্দেশ্য অন্তর্ভুক্ত। এটির মধ্যে পূর্ববর্তী মার্কারি এবং ভস্টক ক্যাপসুলের তুলনায় প্রকট উন্নতি প্রদর্শন করে এবং করোলোভ এ সকল উদ্ভাবনে যুক্তরাষ্ট্রকে হারানোর প্রয়োজন অনুভব করেছিলেন। করোলোভ আগে থেকেই ভস্টকের প্রতিস্থাপন নকশা করা শুরু করেছিলেন, সোয়ুজ মহাকাশযানের পরবর্তী প্রজন্ম, একটি একাধিক মহাকাশচারী সম্পন্ন মহাকাশযান যার জেমিনি মহাকাশযানের অনুরূপ সক্ষমতা থাকবে। সোয়ুজ কমপক্ষে আরো তিন বছর ধরে প্রাপ্য হবে না, এবং ________________________ । ১৯৬৪ সালের রাজনৈতিক চাপে - কিছু উৎস দাবি করে যে ক্রুশ্চেভ কিন্তু অন্য উৎস দাবি করে এটি কমিউনিস্ট পার্টির কর্মকর্তারা দ্বারা তৈরীকৃত- তিনি বাধ্য হতে অবশিষ্ট চারটি ভস্টক পরিবর্তন করে যুক্তরাষ্ট্রের সাথে উড্ডয়নে ব্যাক্তির সংখ্যা এবং মিশনের ব্যাপ্তি নিয়ে প্রথম হতে প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণ করে।

ভস্খড কর্মসূচি[সম্পাদনা]

ভস্খড ১ ও ২ মহাকাশ ক্যাপসুল

সে সময়ে সোভিয়েত মহাকাশ কর্মসূচির উচ্চ উন্নয়ন তাদেরকে কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ে প্রথম হতে সাহায্য করেছে। তার মধ্যে সর্বপ্রথম ই ভি এ বা " মহাকাশ পদচারণা" অন্তর্ভুক্ত। জেমিনি নিজস্ব প্রথম উড্ডয়ন অর্জন করতে পরিকল্পিত সময়ের তুলনায় এক বছর বেশি প্রয়োজন হয়, এতে সোভিয়েত আবার আরেকটি প্রথম অর্জনের সুযোগ পায়। সোভিয়েত ১৯৬৪ সালের ১২ ই অক্টোবর ৩ জন নভোচারীর দল বিশিষ্ট প্রথম মহাকাশযান, ভস্খড ১, উৎক্ষেপণ করে। ইউএসএসআর এ সময়ে আরেকটি প্রযুক্তিগত ক্ষমতা অর্জন করে: এটি প্রথম উদ্দয়ন যা মহাকাশচারী সাধারণ পোশাকে সম্পন্ন করে। কিন্তু মহাকাশযানের উন্নত সুরক্ষিত পরিবেশ তৈরির কারণে এটি হয়নি, বরং মহাকাশযানের কেবিনে পর্যাপ্ত স্থান না থাকায় এই উদ্ভাবন টি করা হয়েছিল। মহাকাশের বিশেষ পোশাক ব্যাতিত উড্ডয়নে মহাকাশচারীরা মারাত্বক কেবিন চাপ নির্গত হওয়ার গুরুতর ঝুঁকির সম্মুখীন হয়েছিল। এই কাজটি ১৯৬৮ সালে অ্যাপোলো কমান্ড মডিউলের উড্ডয়নের পূর্বে অনুলিপন করা হয়নি; এই পরবর্তী মিশনটিতে নভোচারীদের মহাকাশে সাধারণ পোশাক পরে থাকা অবস্থার জন্য সুরক্ষিত ভাবে নকশা করা হয়েছিল।

১৯৬৪ সালের ১৬ ই অক্টোবর পর্যন্ত, লেওনিড ব্রেজহেভ এবং এক ক্ষুদ্র দল কমিউনিস্ট পার্টির কর্মকর্তারা মিলে ভস্খড ১ অবতরণের পরে ক্রুশ্চেভ কে সোভিয়েতের প্রধান হিসেবে প্রত্যায়ন করে, যা "বুধবার চক্রান্ত" নামে পরিচিত। করোলেভ সহ অন্যান্য নতুন রাজনৈতিক নেতারা প্রযুক্তিগতভাবে ত্রুটিপূর্ণ ভস্খড ১কে সমাপ্ত করে এবং পরিকল্পনার স্তরে থাকা ভস্খড ৩ ও ৪ কে বাতিল করেন। ১৯৬৬ সালে ১৪ ই জানয়ারি তে করোলোভের মৃত্যুর পূর্বে ভস্খড ২ তার অন্তিম অর্জন হয়ে ওঠে; যা ১৯৬০ দশকের প্রথম দিকে মহাকাশ প্রযুক্তির উপর ইউএসএসআর - এর আধিপত্য প্রদর্শনের মধ্যে সর্বশেষ ছিল। ইতিহাসবিদ আসিফ সিদ্দকির মতে, করোলেভের অর্জন "তখন কারো দ্বারা অর্জন করা হয়নি এমন সোভিয়েত কর্মসূচির উচ্চতা" চিহ্নিত করে। ভস্টকের প্রতিস্থাপন সোয়ুজ নকশা এবং উন্নয়নের সময় সোভিয়েত পাইলট সমৃদ্ধ মহাকাশ উড্ডয়ন দুই বছর স্থগিত থাকে।

জেমিনি প্রজেক্টের সর্বর্প্রথম পাইলট সমৃদ্ধ উড্ডয়নের এম সপ্তাহ পূর্বে, ১৯৬৫ সালে অক্টোবরের ১৮ তারিখে ইউএসএসআর দুই জন অস্ট্রনাউট পাভেল বেল্যায়েভ এবং আলেক্সেই লেওনোভ বিশিষ্ট ভস্খড ২ মিশন উৎক্ষেপণ করেছিল। ভস্খড ২ এর নকশার পরিবর্তনের মধ্যে একটি নতুন ফুলোন্ত এয়ার্লক তৈরি করা অন্তর্ভুক্ত, যাতে কেবিনের চাপীয় অবস্থা ঠিক রেখে মহাকাশে পদচারণা করা সম্ভব হয়। লেওনোভ এই মিশনের অংশ হিসেবে সর্বপ্রথম মহাকাশে পদচারণা করেন। তিনি একটুর জন্য দুর্ঘটনা এড়িয়ে যান কেননা তিনি মহাশূন্যে মহাকাশের বিশেষ পোশাকটি প্রসারিত হয়, ফলে কেবিনে প্রবেশের সময় এয়ার্লকে আটকে যায়। এটি পরাস্ত করতে, তাকে তার পোশাকটিকে মারাত্বক ক্ষতিকর মাত্রা পর্যন্ত চাপ নির্গত করা হয়। তিনি মহাকাশযানটি কে পুনঃপ্রবেশ সুরক্ষিত ভাবে করা সম্ভব হলেও তিনি ও বেল্যায়েভ আরো সমস্যার সম্মুখীন হন যখন মহাকাশযানের বায়ুমণ্ডল নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা কেবিনে ৪৫ শতাংশ বিশুদ্ধ অক্সিজেন দ্বারা পূর্ণ করে দেয়, যা প্রকৃতপক্ষে পুনঃপ্রবেশের পূর্বে উপনিত পরিমাণ পর্যন্ত নিম্ন করতে হতো। পুনঃপ্রবেশের সাথে সংশ্লিষ্ট আরো দুইটি প্রতিবন্ধকতা হলো: পের শহরে, লক্ষ্য স্থান হতে ৩৮৬ কিমি(২৪০ মাইল) দূরত্বে অবতরণ করে; এবং অবতরণের যান্ত্রিক অংশের ত্রুটির কারণে মহাকাশযানটি পুনঃপ্রবেশের সময় অস্থির হয়ে পড়ে।

প্রজেক্ট জেমিনি[সম্পাদনা]

জেমিনি ৬ ও ৭ এর আশ্রয়, ডিসেম্বর ১৯৬৫

প্রথম উড্ডয়নে এক বছর দেরী হলেও, ইউএসএসআর- এর ভস্খডের দুই বছরের বিচ্ছেদের সুবিধা জেমিনি গ্রহণ করতে পেরেছিল, যার ফলে ইউএস- কে চালক সমৃদ্ধ মহাকাশ উড্ডয়নে সোভিয়েতের মুখ্য ভূমিকা র সাথে সাম্য এবং পরবর্তীতে পেরিয়ে যায়। জেমিনি ১০টি পাইলট সমৃদ্ধ মিশনে বেশ কিছু প্রয়োজনীয় প্রথম অর্জন করে।

  • জেমিনি ৩ (মার্চ ১৯৬৫), মহাকাশচারী ভার্জিল "গুস" গ্রিমসন এবং জন ডাব্লিউ. ইয়ং সর্বপ্রথম তাদের মহাকাশযানের কক্ষপথ পরিবর্তনের ক্ষমতা বর্ণনা করে।
  • জেমিনি ৫ (আগস্ট ১৯৬৫), মহাকাশচারী এল. গর্ডন কুপার এবং চার্লস "পিট" কনরাড ৮ দিন যাবৎ মহাকাশে থেকে রেকর্ড তৈরি করেন, যা চালক সমৃদ্ধ চন্দ্র মিশনের জন্য পর্যাপ্ত।
  • জেমিনি ৬এ (ডিসেম্বর ১৯৬৫), কমান্ড পাইলট ওয়ালি শ্চিরা জেমিনি ৭ দ্বারা প্রথম মহাকাশ আশ্রয় গ্রহণ করেন, যেথায় তিনি অন্য মহাকাশযানের সাথে সঠিকভাবে নিজের কক্ষপথ মিলাতে পেরেছিলেন, এবং ১ ফুট(০.৩০ মিটার) দূরত্ব পর্যন্ত নিকটে রেখে কক্ষপথ সংরক্ষণ করেছিলেন।
  • আবার, জেমিনি ৭ মনুষ্য মহাকাশ উড্ডয়ন ক্ষমতার ফ্রাঙ্ক বর্মান এবং জেমস এ. লভেল দ্বারা ১৪ দিন দীর্ঘ রেকর্ড অর্জন করে, যা ১৯৭০ দশকের প্রথম দিকে মহাকাশ গবেষণাগার উৎক্ষেপনের পূর্ব পর্যন্ত দণ্ডায়মান ছিল।
  • জেমিনি ৮ (মার্চ ১৯৬৬), কমান্ড পাইলট নিল আর্মস্ট্রং দুটি মহাকাশযানের মধ্যে সফলভাবে সংযোগ স্থাপন করতে পেরেছিলেন, যা নিজস্ব জেমিনি বাহন এবং এজেনা লক্ষ্য বাহনের মধ্যে ছিল।
  • জেমিনি ১১ (সেপ্টেম্বর ১৯৬৬), কনরাড দ্বারা পরিচালত, প্রথম কক্ষপথে এজেনা লক্ষ্যের সাথে সর্বপ্রথম প্রত্যক্ষ-আহরণ আশ্রয় অর্জন করে এবং এজেনার রকেট ব্যবহার করে ৭৪২ নটিক্যাল মাইলের(১,৩৭৪ কি.মি) অপভূ অর্জন করে, এই মনুষ্য পৃথিবীর কক্ষপথ রেকর্ডটি বর্তমানে ২০১৫ সাল পর্যন্ত বহমান ছিল।
  • জেমিনি ১২ (নভেম্বর ১৯৬৬), এডউইন "বাজ" আলড্রিন ৫ ঘন্টার উর্ধ্বে ৩ দফায় আয়েশে কাজ করেন, চড়ান্তে প্রমাণ করেন যে মানুষেরা মহাকাশযানের বাইরে ফলদায়ক কার্য সম্পাদন করতে পারে।

সোভিয়েত মনুষ্য চন্দ্র কর্মসূচি[সম্পাদনা]

সোয়ুজ ৭কে-এল৩ (লুন্নিয় অর্বিটালনি করাবল) এবং পাশে অ্যাপোলো কমান্ড/সার্ভিস মডিউল
এল কে লুনার লান্ডার (লুন্নিয় করাবল) এবং পাশে অ্যাপোলো লুনার লান্ডার

করোলোভের নকশা দপ্তর চন্দ্র আবর্তন মহাকাশ উড্ডয়নের জন্য দুটি নির্দেশনাবলী তৈরি করে, যার __________। ____________________ , ১৯৬৪ সালের আগস্টের ৩ তারিখে আনুষ্ঠানিক ভাবে দুটি গোপনীয় তা তৈরি করে, __________ উড্ডয়ন এবং চাঁদে অবতরণের জন্য মনুষ্য কর্মসূচির প্রতিযোগিতা করে। চন্দ্র আবর্তন উড্ডয়ন গুলো ১৯৬৭ সালে এবং অবতরণ ১৯৬৮ সালে সংঘটিত হওয়ায় পরিকল্পনা করা হয়েছিল।

ভ্লাদিমির ছিলোমের নকশা দপ্তর ও কে বি-৫২ দ্বারা তৈরীকৃত এই চন্দ্র আবর্তন কর্মসূচি র(জন্ড) পরিকল্পনা ছিল সোয়ুজ ৭কে- এল১ এর মাধ্যমে দুজন মহাকাশচারীদের ছিলোমের প্রোটন ইউ আর-৫০০ রকেট দ্বারা উৎক্ষেপণ করা হবে।

করোলেভের চন্দ্রে অবতরণ কর্মসূচিতে দুজন ব্যাক্তি দ্বারা এর এন ১ সুপার রকেট এবং আরও উন্নত একটি সোয়ুজ ৭কে- এল৩ রকেটের জন্য এন ১/এল ৩ মনোনীত করা হয়েছে, যা চন্দ্র কক্ষীয় মডিউল("লুন্নিয় অর্বিতালনি করাবল", এলওকে) নামে পরিচিত। একটি আলাদা চন্দ্র অবতরক("লুন্নিয় করাবল, এল কে) চাঁদের পৃষ্টে একজন কসমোনটকে নিয়ে যাবে।

এন ১/এল ৩ উৎক্ষেপণ বাহনের পৃথিবীর কক্ষপথ পর্যন্ত তিনটি স্তর ছিল, চতুর্থ স্তরে পৃথিবী থেকে গমন এবং চন্দ্রে অবতরণের জন্য পঞ্চম স্তর বহন করবে। এই সম্মিলিত মহাকাশ বাহনের যুক্তরাষ্ট্রের তিন স্তরবিশিষ্ট অ্যাপোলো/স্যাটার্ন ভি রকেটের সাথে প্রায় একই উচ্চতা এবং উড্ডয়নের ভর ছিল এবং ২৮ শতাংশ দ্বারা এর উৎক্ষেপণ ধাক্কা ছাড়িয়ে গিয়েছিল, কিন্তু প্রায় অর্ধেক চন্দ্রের বাইরে পাঠানো পণ্যভার ক্ষমতা ছিল।

ক্রুশ্চেভ ক্ষমতা থেকে পতন হলে, ছেলোমি জন্ডের কর্মসূচিটি এন ১/এল ৩ কর্মসূচির সাথে মিলিত করা হয়।

মহাকাশ চুক্তি[সম্পাদনা]

১৯৫৮ সাল থেকেই ইউএস এবং ইউএসএসআর মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের সম্পর্কে জাতিসংঘে বিতর্কের জন্য সমস্যাবলী উপস্থাপন করা হয়েছিল যা ১৯৫৯ সালে মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের জন্য সংস্থা তৈরি করে।

১৯৬২ সালের ১০ ই মে উপ- রাষ্ট্রপতি জনসন মহাকাশের শান্তিপূর্ণ ব্যবহারের দ্বিতীয় জাতীয় সম্মেলনে উপস্থাপন করেন যে যুক্তরাষ্ট্র এবং ইউএসএসআর দুটো রাষ্ট্রই ১৯৬২ সালের ডিসেম্বর মাসে জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ দ্বারা পাস করা সংকল্পটি সমর্থন করে, যা সদস্য রাষ্ট্রগুলোকে "মহাকাশের আন্তর্জাতিক নিয়মাবলির বিস্তার বৃদ্ধি করা" এবং অনুসন্ধানে পারস্পরিক সহায়তা উৎসাহিত করেন। এই সংকল্প পাস করার পরে, কেনেডি নিজস্ব যোগাযোগ বৃদ্ধি করে একটি সহায়তা পূর্ণ মার্কিন/সোভিয়েত মহাকাশ কর্মসূচির প্রস্তাব করেন।

জাতিসংঘ চুরান্তরূপে মহাকাশ ব্যবহার এবং অনুসন্ধানে, যার মধ্যে চাঁদ ও অন্যান্য মহাজাগতিক গঠন অন্তর্ভুক্ত, রাষ্ট্রীয় কার্যক্রমের নিয়মাবলি নিয়ন্ত্রণের উপর চুক্তি তৈরি করা হয়, যা ১৯৬৭ সালে যুক্তরাষ্ট্র, ইউএসএসআর এবং যুক্তরাজ্য দ্বারা স্বাক্ষরিত হয় এবং অক্টোবরের ১০ তারিখ থেকে ক্ষমতায় আনা হয়।

এই চুক্তি:

  • পৃথিবী, চাঁদ বা অন্য কোনো মহাজাগতিক বস্তুর কক্ষপথে কোনো বিধ্বংসী অস্ত্র পাঠাতে বাঁধা প্রদান করে।
  • চাঁদ এবং অন্যান্য মহাজাগতিক বস্তুর ব্যবহার শান্তির উদ্দেশ্যে বিশেষভাবে সীমাবদ্ধ করে ফেলে, এবং প্রকটভাবে যেকোনো ধরনের অস্ত্রর পরীক্ষণ, সামরিক প্রচেষ্টা পরিচালনা, সামরিক ভিত্তি প্রতিষ্ঠান, স্থাপন এবং সুরক্ষিতকরণ নিষিদ্ধ করা হয়।
  • ঘোষণা করে যে মহাকাশ অনুসন্ধান সকল রাষ্ট্রের উন্নয়নের জন্য পরিচালনা করা হবে এবং সকল রাষ্ট্রই তা অনুসন্ধান বা ব্যবহার করার জন্য স্বাধীন।
  • স্পষ্টভাবে কোনো রাষ্ট্রকে কোনো মহাজাগতিক উৎস যেমন চাদ কিংবা গ্রহ দাবি করতে নিষিদ্ধ আছে, কেননা সেগুলো সকল মানবজাতির সাধারণ ঐতিহ্য, " এটি সার্বভৌম ক্ষমতা, কোনো ব্যবহার বা কার্যের উদ্দেশ্যে, বা অন্য কোনো উপায় দ্বারা রাষ্ট্রীয়ভাবে দখলের কোনো বিষয় নয়।" তারপরেও, কোনো রাষ্ট্র একটি মহাকাশীয় বস্তু উৎক্ষেপণ করলে সেটির অধিকার এবং নিয়ন্ত্রণ রাষ্ট্রটির কাছে থাকে;
  • কেনো রাষ্ট্রের মহাকর্ষীয় বস্তু দ্বারা ক্ষতি হলে রাষ্ট্রকে দায়ী করা হয়।
  • ঘোষণা করে যে, " কোনো বেসরকারী সত্তা দ্বারা মহাকাশে কার্য সম্পাদন করা হলে, যার মধ্যে চন্দ্র এবং অন্যান্য মহাকর্ষীয় গঠন অন্তর্ভুক্ত, তবে উপযুক্ত রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা বা চুক্তি দ্বারা অনুমোদন বা অবিরত নিয়ন্ত্রণ প্রয়োজন হবে।" এবং " রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা রাষ্ট্রের সকল সরকারী এবং বেসরকারী সত্ত্বা দ্বারা পরিচালিত সকল মহাকাশ কার্যক্রমের জন্য আন্তর্জাতিকভাবে দায়ী হবে।"; এবং
  • " চুক্তির সাথে সংশ্লিষ্ট কোনো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা যদি কোনো ভিত্তিতে মনে করে যে অন্য কোনো রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা মহাকাশে, যার মধ্যে চাঁদ ও অন্যান্য মহাজাগতিক গঠন অন্তর্ভুক্ত, এমন কোনো কার্য বা পরীক্ষণ পরিকল্পনা করছে যা মহাকাশের শান্তিপূর্ণ অনুসন্ধানের কার্যাবলীর সাথে ক্ষতিকর সংঘর্ষে অবস্থান করছে, তাহলে এই কার্যক্রম বা পরীক্ষণের সাথে সংবলিত পরামর্শের আবেদন করতে পারে।"

এই চুক্তি ক্ষমতায় অবস্থান করছে, এবং ২০১৭ সালের জুলাই অনুসারে ১০৭ টি সদস্য রাষ্ট্র দ্বারা স্বাক্ষরিত।

বিপর্যয় উভয় পক্ষে আঘাত হানে[সম্পাদনা]

১৯৬৭ সালে উভয় রাষ্ট্রই কিছু জটিল প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হলে তাদের কর্মসূচি অস্থায়ীভাবে বন্ধ হয়ে যায়। দুটো রাষ্ট্র সম্পূর্ণ বেগে প্রথম পাইলট সমৃদ্ধ অ্যাপোলো ও সোয়ুজের দিকে ধাবিত হতে থাকে, এতে বৃদ্ধি শীল নকশা এবং গাঠনিক সমস্যার প্রতি গুরুত্ব দেওয়া হয় নি। উভয় পথপ্রদর্শক দলের জন্যই এটি মারাত্মক হিসেবে প্রমাণিত হয়।

অ্যাপোলো ১ এর অগ্নিকাণ্ডের পরে বিধ্বস্ত অভ্যন্তর

১৯৬৭ সালের ২৭শে জনুয়ারিতে, মহাকাশ চুক্তি স্বাক্ষরের দিনে, প্রথম মনুষ্য অ্যাপোলো কর্মসূচিতে একটি অগ্নিকাণ্ড যা ভূমিতে পরীক্ষণের অবস্থায় মহাকাশযানের কেবিনে ছড়িয়ে যায় দল, প্রধান পাইলট ভার্জিল "গুস" গ্রিষ্মম, সেনিয়র পাইলট এড হোয়াইট, এবং পাইলট রোজার চাফে মৃত্যুবরণ করেন, ২১শে ফেব্রুয়ারিতে মহাকাশযানটির পরিকল্পিত উৎক্ষেপণের একমাসেরও সল্প সময় আগে এই ঘটনাটি হয়। একটি তদন্ত দল চূড়ান্তে সিদ্ধান্তে পৌঁছায় যে এই আগুন টি সম্ভবত একটি তড়িৎ স্পার্ক দ্বারা তৈরী হয় এবং বিশুদ্ধ অক্সিজেনের পরিবেশে প্রকাণ্ড আকার ধারণ করে। পরিবেশের তুলনায় অভ্যন্তরীণ চাপ বেশি হাওয়ার ফলে দরজা খোলার অক্ষমতা দলের পলানোকে অসম্ভব করে তুলে। তদন্তে মহাকাশযানের গাঠনিক ত্রুটি, পদ্ধতিগত ব্যর্থতা, যার মধ্যে বিশুদ্ধ অক্সিজেন সমৃদ্ধ পরিবেশের ক্ষতিকর প্রভাব না বোঝা অন্তর্ভুক্ত, এবং অপর্যাপ্ত সুরক্ষার পরিমাপ ইত্যাদি পাওয়া যায়। প্রথম পাইলট সমৃদ্ধ উড্ডয়নের পূর্বে ২২ মাসের মধ্যেই সকল ত্রুটি সংশোধন করতে হতো। মার্কারি ও জেমিনি দ্বারা অভিজ্ঞ গৃষ্মম চেয়েছিলেন যেন ডেকে স্লয়টন, নাসায় উড্ডয়ন দল কার্যক্রমের পরিচালক, পাইলট সমৃদ্ধ প্রথম অবতরণ করুক।

১৯৭১ সালে চাঁদে রক্ষিত স্মরণীয় ফলক এবং ফলেন আস্ট্রোনট ভাস্কর্য

১৯৬৭ সালে এপ্রিলের ২৪ তারিখে সোয়ুজ ১ এর একমাত্র পাইলট, ভ্লাদিমির কমারভ সর্বপ্রথম উড্ডয়ন কালীন দুর্ঘটনার শিকার হন। এই মিশনটি তিন দিন দীর্ঘ হাওয়ার কথা ছিল, যার মধ্যে পাইলটবিহীন সোয়ুজ ২ এর সাথে সংযোগ তৈরি অন্তর্ভুক্ত, কিন্তু মিশনটি সমস্যা দ্বারা জর্জরিত হয়ে পরে। প্রাথমিকভাবে, কমারভের মহাকাশযানের পর্যাপ্ত তড়িৎ শক্তির ঘাটতি ছিল, কেননা মাত্র দুটি সৌরকোষ স্থাপন করা হয়েছিল। পরবর্তীতে যান্ত্রিক আচরণ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থায় ত্রুটি দেখা যায় এবং ধীরে ধীরে সম্পূর্ণ অক্ষম হয়ে পরে, ফলে মহাকাশযানটি দুর্দান্তভাবে ঘূর্ণন শিল হয়েছিল। উড্ডয়ন নিয়ন্ত্রক রা একদিন পরেই এই মিশন বন্ধ করে দেন। জরুরি অবস্থায় পূর্ণপ্রবেশের সময়, অবতরণের প্যারাসুট ব্যাবস্থায় একটি ত্রুটি হওয়ায় প্যারাসুট টি প্রাথমিকভাবে ব্যর্থ হয়, এবং সংরক্ষিত প্যারাসুট টি অন্য প্যারাসুটের সাথে পেঁচিয়ে যায়, ফলস্বরূপ তিনি ৪০মি/সে(১৪০কিমি/ঘন্টা; ৮৯ মাইল প্রতি ঘন্টা) বেগে অবতরণ করেন। একটু পরেই করাবুতুক নামক স্থানের ৩ কিমি পশ্চিমে সোয়ুজ ১ ভূমিতে সংঘর্ষ করে। আনুষ্ঠানিক তদন্ত থেকে জানা যায়, কমারভ সংঘর্ষের বলে মৃত্যুবরণ করেন এবং পরবর্তী তাপের পরিবর্তন হলে তার মৃত দেহ বিস্ফোরকের শিকার হয়। এই মহাকাশযানের ত্রুটি সংশোধন ফলে পাইলট সমৃদ্ধ সোয়ুজ উড্ডয়ন পুনরায় আরম্ভ হওয়াতে ১৮ মাস বিলম্ব হয়।

চাঁদের উদ্দেশ্যে[সম্পাদনা]

অ্যাপোলো ১ অগ্নিকাণ্ড থেকে যুক্তরাষ্ট্র সেরে উঠে এবং ব্লক ।। আদেশ মডিউলের উন্নত সংস্করণে মারাত্মক ত্রুটিগুলো সংশোধন করা হয়। ১৯৬৭ সালের শেষ অর্ধাংশে ও ১৯৬৮ সালের প্রথম দিকে স্যাটার্ন ফাইভ উৎক্ষেপণ বাহন এবং চন্দ্র মডিউলের চালকবিহীন পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ করা হয়। অ্যাপোলো সার্ভিস মডিউল পৃথিবীর কক্ষপথে পরীক্ষণ করার কাজটি অ্যাপোলো ৭- এ গ্রিমসনের ব্যাকআপ দল দ্বারা ওয়ালটার শ্চিররের পরিচালনায় সম্পন্ন হয়, যাদের ১৯৬৮ সালের ১১ ই অক্টোবর উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। ১১ দিন স্থায়ী এই মিশনটি সফল হয়েছিল, কেননা মহাকাশযানটি সম্ভাব্য ত্রুটিহীন মিশন সম্পন্ন করে এবং এটি যুক্তরাষ্ট্রকে চাঁদের মিশনের সময়সূচী অবিরত রাখার পথ খুলে দেয়।

সংযোগের পরে সোয়ুজ ৪ এবং সোয়ুজ ৫, চিত্রশিল্পীর দৃষ্টি

সোভিয়েত ইউনয়নও সোয়ুজের প্যারাসুট ও নিয়ন্ত্রণের ত্রুটিগুলো তে সংশোধন করে ফেলে, এবং ১৯৬৮ সালের ২৬শে অক্টোবর পরবর্তী চালক সমৃদ্ধ মিশন সোয়ুজ ৩ উৎক্ষেপণ করা হয়। এটির উদ্দেশ্য ছিল চালকবিহীন সোয়ুজ ২ সাথে সংশ্লিষ্ট কামারভের আশ্রয় এবং ডকিং (সংযোগ) মিশন সম্পন্ন করা। ভূমিতে নিয়ন্ত্রকেরা মহাকাশযান দুটিকে পরস্পর ২০০মিটার দূরত্বের মধ্যে নিয়ে এসেছিল, তারপর নিয়ন্ত্রণ মহাকাশচারী জর্জি বেরেগভয়ের হতে চলে আসে। কিন্তু তিনি সংযোগ সম্পন্ন করতে ৯০ শতাংশ কার্যকরী জ্বালানি খরচ করেন কেননা। নিয়ন্ত্রণে একটি ত্রটির ফলে তার বাহনটি ভুল অবস্থানে চলে আসে এবং সোয়ুজ ২ সয়ংক্রীয়ভবে বিপরীত দিকে ধাবিত হয়। সোভিয়েত মহাকাশযানের প্রথম সংযোগ সম্পন্ন হয় ১৯৬৯ সালের জানুয়ারিতে সোয়ুজ ৪ ও সোয়ুজ ৫ মিশনে বাস্তবায়িত করা হয়। এটি দুটি মানুষ বাহী মহাকাশযানের সর্বপ্রথম সংযোগ স্থাপন এবং এক মহাকাশযান থেকে অন্য মহাকাশযানে মানুষ স্থানান্তর করে।

সোয়ুজ ৭ কে - এল ১ জন্ড মহাকাশযান, চিত্রশিল্পীর দৃষ্টি

১৯৬৮ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের জন্ড মহাকাশযানটি পাইলট সমৃদ্ধ চন্দ্র আবর্তন মিশনের জন্য প্রস্তুত হয় নি, পাঁচটি ব্যর্থ এবং আংশিকভাবে সফল সয়ংক্রীয় পরীক্ষামূলক উৎক্ষেপণ: ১০ ই মার্চ ১৯৬৭ সালে কসমস ১৪৬; ৪ এপ্রিল ১৯৬৭ সালে কসমস ১৫৪; ২২শে নভেম্বর ১৯৬৭ সালে জন্ড ১৯৬৭বি। ১৯২৮ সালের ২রা মার্চ জন্ড ৪ উৎক্ষেপণ হয় এবং সফলভাবে চন্দ্র আবর্তনের উড্ডয়ন করে। চাঁদের চারিদিকে সফল উড্ডয়ন পরে ৯ ই মার্চ পৃথিবীতে পুনঃপ্রবেশ সময় সমস্যার সম্মুখীন হয় এবং গুলফ অফ গুইনিয়া নামক স্থানে ১৫,০০০ মিটার উপরে বিস্ফোরক চার্জ দ্বারা নিয়ন্ত্রিতভাবে ধ্বংস করা হয়। সোভিয়েতের আনুষ্ঠানিক ঘোষণায় বলা হয়েছিল যে, জন্ড ৪ একটি সয়ংক্রীয় পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন ছিল যা ইচ্ছাকৃতভাবে ধ্বংস করা হয়েছিল, কারণ এটির উদ্ধার পথ সোভিয়েতের বদলে আটলান্টিক মহাসাগরের উপর অবস্থান করছিল।

পৃথিবী উদয়, অ্যাপোলো ৮ থেকে দেখা যাচ্ছে, ১৯৬৮ ( ছবিটি মহাকাশচারী উইলিয়াম অ্যান্ডারস তুলেছিলেন)

১৯৬৮ সালের গ্রীষ্মকালে, অ্যাপোলো কর্মসূচি আরেকটি বাঁধার সম্মুখীন হয়: সর্বপ্রথম পাইলট সমৃদ্ধ লুনার মডিউল(এল এম) ১৯৬৮ সালে ডিসেম্বর মাসের উৎক্ষেপণের কক্ষীয় পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হয়নি। নাসার পরিকল্পকরা এই প্রতিবন্ধকতা পরাস্ত করতে উড্ডয়নের ক্রম পরিবর্তন করে, ২৯৬৯ সালের মার্চ মাস পর্যন্ত এল এম- এর প্রথম উড্ডয়ন বিলম্ব করা হয় এবং ডিসেম্বর মাসে অ্যাপোলো ৮ কে চন্দ্রের কক্ষপথে পাঠানো হয়। সোভিয়েত ইউনিয়ন পাইলট সমৃদ্ধ জন্ড উড্ডয়নের জন্য প্রস্তুত হতে পারে এমন গুজবে নাসার এই মিশনটি অনুপ্রেরণা পেয়েছি ল। ১৯৬৮ সালের সেপ্টম্বরে জন্ড ৫ কচ্ছপ বহন করে চন্দ্র আবর্তন উড্ডয়ন সম্পন্ন করে এবং ভারতীয় মহাসাগরে অবতরণের মাধ্যমে সর্বপ্রথম সফল সমুদ্র অবতরণ সম্পন্ন করে। এটি নাসার পরিকল্পক আতঙ্কিত করে দিয়েছিল, কেননা চন্দ্রের দিকের পথে শব্দ রেকর্ডিং আদান - প্রদানের কারণে বুঝতে বেশ কয়েকদিন লেগেছিল যে, এটি একটি পাইলট সমৃদ্ধ উৎক্ষেপণ ছিল না; বরং সয়ংক্রীয় ছিল। ১৯৬৮ সালের ১০ ই নভেম্বর আরেকটি সয়ংক্রীয় পরীক্ষামূলক উড্ডয়ন, জন্ড ৬, উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। এই পৃথিবীতে পুনঃপ্রবেশের সময় জটিলতার সম্মুখীন হয় এবং সুষ্ঠ সময়ের পূর্বেই চাপ নিঃসরণ ও স্থাপন হয়, ফলে মাত্র ছয় দিন পূর্বেই এটির উৎক্ষেপণের স্থান থেকে মাত্র ১৬ কিমি দূরে সংঘর্ষের মাধ্যমে অবতরণ করেন।

অ্যাপোলো ১০ এ চাঁদের কক্ষপথে লুনার মডিউল, মে ২২-২৩, ১৯৬৯

১৯৬৮ সালের ২১শে ডিসেম্বর, অ্যাপোলো ৮ মিশনে ফ্রাঙ্ক বর্মান, জেমস লোভাল এবং উইলিয়ান অন্ডেস প্রথমবার স্যাটার্ন ফাইভ রকেট দ্বারা মহাকাশে যান। তারা মানুষ হিসেবে প্রথমবার পৃথিবীর কক্ষপথ পেরিয়ে অন্য মহাকর্ষীয় বস্তুতে ভ্রমণ করেছেন, এবং ২৪শে ডিসেম্বর চন্দ্রের কক্ষপথে প্রবেশ করেন। তারা ২০ ঘণ্টায় চাঁদকে ১০ বার আবর্তন করে এবং ইতিহাসে সর্বোচ্চ প্রদর্শিত প্রচারণা প্রেরণ করে, যা বড়দিনে বাইবেলের বুক অফ জেনেসিস পাঠের মাধ্যমে সমাপ্ত হয়। প্রচারণার আরাই ঘণ্টা পরে, তারা চাঁদের কক্ষপথ থেকে পৃথিবীতে ফেরার জন্য ইঞ্জিনকে প্রজ্বলিত করে। ডিসেম্বরের ২৭ তারিখে অ্যাপোলো ৮ সুরক্ষিতভাবে প্রশান্তি মহাসাগরে অবতরণ করে, এটি নাসার প্রথম সমুদ্র অবতরণ ও উদ্ধার ছিল।

যুক্তরাষ্ট্রের অজান্তেই সোভিয়েতের চন্দ্র কর্মসূচি গভীর সংকটের সম্মুখীন হয়। ১৯৬৯ সালে এন ১ রকেটের পরবর্তী দুইটি উৎক্ষেপণের ব্যর্থতার পরে পাইলট সমৃদ্ধ অবতরণে সোভিয়েতের পরিকল্পনা বিলম্বের সম্মুখীন হয়। ১৯৬৯ সালে এন ১ উৎক্ষেপণ প্যাডের বিস্ফোরণ একটি গুরুতর বিপত্তি ছিল। ইঞ্জিন বন্ধ হওয়ার ফলে এই রকেটটি প্যাডের সাথে সংঘর্ষে লিপ্ত হয় এবং উৎক্ষেপণ ব্যাবস্থা ও রকেট উভয়ই ধ্বংস হয়ে যায়। এন ১ রকেট ব্যতীত ইউএসএসআর চন্দ্রে মানুষ অবতরণ ফিরিয়ে প্রয়োজনীয় পণ্যভার পাঠানোর সক্ষমতা ছিল না।

অ্যাপোলো ১১[সম্পাদনা]

১৯৬৯ সালে প্রথম চাঁদে পদচারণার সময় যুক্তরাষ্টের বাজ আলড্রিন

অ্যাপোলো ১১ জুলাই মাসে সি অফ ট্রান কুই টি নামক স্থানে অবতরণের উদ্দেশ্যে প্রস্তুত ছিল। ১৯৬৯ সালের জানুয়ারিতে অধিনায়ক (সি ডি আর) নিল আর্মস্ট্রং, কমান্ড মডিউল পাইলট (সি এম পি) মাইকেল কলিন্স, এবং লুনার মডিউল পাইলট (এল এম পি) এডউইন "বাজ" আল্ড্রিন কে নির্বাচন করা হয়। তারা উৎক্ষেপণের দিবসের আগ পর্যন্ত প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছিল। ১৯৬৯ সালের ১৬ ই জুলাই একদম সকাল ৯:৩২ স্থানীয় সময়ে, স্যাটার্ন ভি রকেট, এ এস-৫০৬, ফ্লোরিডায় অবস্থিত কেনেডি স্পেস লঞ্চ কমপ্লেক্স থেকে ৩৯ থেকে উৎক্ষেপণ করে।

চাঁদ পর্যন্ত ভ্রমণে ৩ দিনের একটু বেশি সময় লাগে। কক্ষপথ অর্জন করার পর, আল্ড্রিন ও আর্মস্ট্রং এ্যাগল নামক লুনার মডিউলে স্থানান্তরিত হয় এবং কলিন্স কলম্বিয়া নামক নিয়ন্ত্রণ/সেবা মডিউলে অবস্থান করে অবতরণের যন্ত্রপাতির উপর তদন্ত চালায়। অন্টেনা সুইচ ভুল অবস্থানে রাখার ফলে কম্পিউটারের বেশ কয়েকটি মাত্রাতিরিক্ত বিপদ সংকেত পরাস্ত করে, ১৮০ মিটার দূরত্বে থাকা অবস্থায় আর্মস্ট্রং উড্ডয়নের নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ করেন এবং লুনার মডিউল কে ১৯৬৯ সালের ২০ই জুলাই ২০:১৮:০৪ ইউ টি সি সময়ে নিরাপদভাবে অবতরণ করেন। মানুষেরা চাঁদে গিয়ে প্রথমে মহাকাশযানে ৬ ঘণ্টা অপেক্ষা করে। তারপর ২১ শে জুলাই, ০২:৫৬ ইউ টি সি সময়ে, আর্মস্ট্রং মানুষ হিসেবে প্রথম চাঁদে পদচারণা করলেন।

এই প্রথম পদচারণা পৃথিবীর সব জনসংখ্যার প্রায় এক পঞ্চমাংশ বা ৭২৩ মিলিয়ন মানুষ সাক্ষী হয়েছিল। তিনি এলএম- এর অবতরণের ফুট প্যাড থেকে নামার পর, তার প্রথম শব্দ ছিল, "একটি মানুষের জন্য ছোট্ট পদক্ষেপ, মানবজাতির জন্য একটি বিশাল পদক্ষেপ।" আল্ড্রিন ২০ মিনিট পর তার সাথে যোগদান করেন। একত্রে, তারা ২ ঘণ্টা এবং ১৫ মিনিট মহাকাশযানের বাইরে কাটায়। পরবর্তী দিনে, তারা প্রথমবার অন্য মহাজাগতিক গঠন থেকে উৎক্ষেপণ করেন এবং কলম্বিয়ার সাথে পরে আশ্রয় গ্রহণ করে।

অ্যাপোলো ১১ চন্দ্রের কক্ষ ছেড়ে পৃথিবীতে ফিরে আসে, ১৯৬৯ সালের ২৪ শে জুলাই সুরক্ষিত ভাবে প্রশান্ত মহাসাগরে অবতরণ করে। জলে মহাকাশযান পরে যাওয়ার পর, এই দশকের শেষের আগে একটি মানুষকে চাদে অবতরণ এবং ফিরিয়ে আনার কেনেডির সংকল্পের ২,৯৪২ দিন পার হলে; ১৬১ দিন আগেই মিশনটি সম্পন্ন হয়ে যায়। অ্যাপোলো ১১ মিশন সুরক্ষিত ভাবে সম্পন্ন হলে, যুক্তরাষ্ট্র চন্দ্র অভিযানের প্রতিযোগিতায় বিজয়ী হয়।

প্রতিযোগিতা হ্রাস পায়[সম্পাদনা]

১৯৭২ সালে অ্যাপোলো ১৭ এর স্যাটার্ন ফাইভ
চন্দ্রে পদচারণা, ডিসেম্বর ১৩, ১৯৭২

নাসার চন্দ্র লক্ষ্যে পৌঁছানোর সময় পরবর্তী আরো মনুষ্য মহাকাশ উড্ডয়নের পরিকল্পনা ছিল, কিন্তু পরে জানা যায় এটি করার জন্য রাজনৈতিক মূলধন প্রচুর প্রসারিত করা হয়েছে।

প্রথম অবতরণের পরেই আরেকটি অবতরণ হয়, ১৯৬৯ সালের নভেম্বরে অ্যাপোলো ১২ এর সুষ্ঠ অবতরণ সম্পন্ন হয়। নাসা চাঁদে প্রথম অবতরণের সময় পরবর্তী অ্যাপোলো ২০ পর্যন্ত আরো আটটি মিশনের জন্য পর্যাপ্ত অ্যাপোলো মহাকাশযান এবং স্যাটার্ন ভি উৎক্ষেপক অবশিষ্ট ছিল, ফলে প্রসারিত সহ্য - ক্ষমতা সম্পন্ন মিশন এবং শেষ পাচটিতে দলকে লুনার রভিং ভেহিকেলে স্থানান্তর করা হয়। তারা অ্যাপোলো অ্যাপ্লিকেশনস প্রোগামে স্যাটার্ন আই.বি কয়েকটি উৎক্ষেপণের মাধ্যমে দীর্ঘস্থায়ী পৃথিবীর কক্ষপথে কার্যস্থান (পরবর্তীতে স্কাই ল্যাব নামকরণ করা হয়) উন্নয়নের পরিকল্পনা করে। কিন্তু পরিকল্পক রা বুঝতে পারেন যে এস-আইভিবি(যা স্যাটার্ন ভি এর তৃতীয় স্তর) থেকে পূর্বে তৈরীকৃত কার্যস্থান স্যাটার্ন ভি এর দুটি বাস্তব স্তর দ্বারা আরো দক্ষতার সাথে উৎক্ষেপণ করা যাবে, যা সরাসরিভাবে অ্যাপোলো ২০ এর অপসারণ ঘটায়। বাজেট ক মে যাওয়ায় নাসাকে অ্যাপোলো ১৮ ও ১৯ অপসারণ করতে হয়, কিন্তু তিনটি প্রসারিত লুনার রোভার মিশন রাখতে পেরেছিল। ১৯৭০ সালের এপ্রিল মাসে অ্যাপোলো ১৩ মিশনে উড্ডয়ন কালীন জটিলতার সম্মুখীন হওয়ার চন্দ্রে অবতরণ বাতিল করতে হয়, দলকে সুরক্ষিতভাবে ফিরিয়ে আনা হলেও সাময়িকভাবে কর্মসূচিটি স্থগিত থাকে। এটি পরবর্তী অ্যাপোলো ১৪(ফেব্রুয়ারি ১৯৭১), অ্যাপোলো ১৫(জুলাই ১৯৭১), অ্যাপোলো ১৬(এপ্রিল ১৯৭২) এবং অ্যাপোলো ১৭(ডিসেম্বর ১৯৭২) ৪টি মিশনে সফলভাবে অবতরণ করে।

১৯৬৯ সালে ফেব্রুয়ারি মাসে, রাষ্ট্রপতি রিচার্ড এম. নিক্সন ভবিষৎ ইউএস মহাকাশ কর্মসূচি নির্ধারণের জন্য একটি মহাকাশ কার্য দল তৈরি করেন, যা উপ- রাষ্ট্রপতি স্পিরও টি. অগ্নেও দ্বারা পরিচালত ছিল। অগ্নেও নাসার পরবর্তী কর্মসূচির উৎসাহী প্রবক্তা ছিলেন, এবং এস টি জি একটি পুনঃ ব্যবহারযোগ্য মহাকাশ যাতায়াত ব্যবস্থা উন্নয়নের প্রস্তাব দেন যার মধ্যে স্পেস শাটল অন্তর্ভুক্ত ছিল, যা পৃথিবী ও চাঁদের কক্ষপথে স্থায়ী মহাকাশ স্টেশন তৈরির সুযোগ করে দিবে, সম্ভাব্য চন্দ্রের পৃষ্ঠে বেস তৈরি, এবং কম সময়ে ১৯৮৬ ও বেশি সময় হলে ২০০০ সালের মধ্যে মঙ্গল গ্রহে সর্বপ্রথম মনুষ্য উড্ডয়ন। নিক্সন কংগ্রেসে নতুন অ্যাপোলোর ন্যায় কর্মসূচির জন্য ক্রমান্বয়ে রাজনৈতিক সমর্থনের হ্রাস উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন, এবং তিনি ইউএসএসআর ও চীনের সাথে বৈরতার অবসান ঘটানোর সিদ্ধান্ত নিলেন, তার মতে এটি স্নায়ু যুদ্ধের প্রবণতাকে কমিয়ে আন তো। তিনি কংগ্রেসে পাঠানো ব্যয়ের প্রস্তাবনা বাতিল করে কেবল স্পেস শাটলের জন্য বিনিয়োগ অন্তর্ভুক্ত করেন, যাতে দূরদর্শী ভবিষ্যতে পৃথিবীর কক্ষে মহাকাশ স্টেশনের উপায় থাকে।

ইউএসএসআর তাদের এন ১ রকেট সংরক্ষণের চেষ্টা করে, কিন্তু ১৯৭১ ও ১৯৭২ সালে উক্ষেপণ ব্যার্থতার পরে ১৯৭৬ সালে বাতিল করা হয়।

স্যালুট এবং স্কাইল্যাব[সম্পাদনা]

সোয়ুজ ১১ এর দল এবং স্যালুট স্টেশনটি পিছে রয়েছে, একটি সোভিয়েত স্মারক স্ট্যাম্পের মধ্যে

চন্দ্র অভিযানের প্রতিযোগিতায় পরাজয়ের পরে, সোভিয়েত পৃথিবীর কক্ষপথে মহাকাশ স্টেশন গঠনের প্রতি নজর দেন। ১৯৬৯ ও ১৯৭০ চলাকালীন, তারা সোয়ুজ ৩ মিশনের পরে আরো ছয়টি সোয়ুজ উড্ডয়ন উৎক্ষেপণ করে, তারপর ১৯৭১ সালের ১৯শে এপ্রিল কেরমিন কমিরভ দ্বারা নকশা কৃত স্যাল্যুট ১ ল্যাবরেটরি প্রথম মহাকাশ স্টেশন হিসেবে উৎক্ষেপণ করা হয়েছিল। তিন দিন পরেই, সোয়ুজ ১০ এর দল এটির সাথে সংযোগ স্থাপনের চেষ্টা করছিল, কিন্তু স্টেশনে প্রবেশের জন্য সংযোগটি পর্যাপ্ত সুরক্ষিত ছিল না। জুনের ৭ তারিখে ব্লাদিসাব ভলকোভ, জর্জি ডব্রভোলসকি, ও ভিক্টর পাটসায়েব সারা গঠিত সোয়ুজ ১১ দল সফলভাবে সংযোগ স্থাপন করে ও ২২ দিন দীর্ঘ অবস্থান করে রেকর্ড তৈরি করে। জুনের ৩০ তারিখে পুনঃপ্রবেশের সময় দলটি দ্বিতীয় উড্ডয়ন কালীন দুর্ঘটনার শিকার হয়। সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার একটু পরেই মহাকাশযানের সকল চাপ হারিয়ে ফেলে ও তারা শ্বাসরুদ্ধ হয়ে যায়। এই দুর্ঘটনার কারণ ছিল একটি ত্রুটিপূর্ণ কেবিনের চাপীয় ভালভ, যার ফলে সকল বায় মহাশূন্যে চলে যায় এবং ফুটো হাওয়ার পরে তাদের কোনো বেচে থাকার সম্ভাবনাই ছিল না।

সময়ের পূর্বে পুনঃপ্রবেশ পরিহার করতে স্যাল্যুট ১ এর কক্ষপথ বৃদ্ধি করা হয়, কিন্তু নতুন নিরাপত্তা ত্রুটি সংশোধন করতে সোয়ুজের নকশা পরিবর্তন করার ফলে পরবর্তী পাইলট সমৃদ্ধ উড্ডয়ন বিলম্ব করা হয়। ১৭৫ দিন কক্ষে থাকার ফলে ১১ ই অক্টোবর স্টেশনটি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশ করে। ১৯৭২ সালের ২৯শে জুলাই ইউএসএসআর ডিউরাবল অরবিটাল স্টেশন(ডিওএস- ২) নামক দ্বিতীয় সোয়ুজের মত আরেকটি স্টেশন উৎক্ষেপণ করার প্রচেষ্টা করে, কিন্তু রকেটের ব্যর্থতার কারণে কক্ষপথে পৌঁছাতে পারে নি। ডিওএস- ২ ব্যর্থ হওয়ার পরে, ইউএসএসআর ১৯৭৫ সাল পর্যন্ত আরো চারটি স্যাল্যুট শ্রেণীর রকেট উৎক্ষেপনের চেষ্টা করে, যেটাতে আরেকটি ব্যার্থতার ফলে সর্বশেষ রকেট স্তর বিস্ফোরণ হয় যা একটি স্রাপ্নেল্ দ্বারা স্টেশনের মধ্যে ছিদ্র করে দেয় এবং ফলে এটি চাপ ধরে রাখতে পারে না। সকল সাল্যুটকে জনগণের কাছে অসামরিক বৈজ্ঞানিক ল্যাবরেটি হিসেবে প্রচার করা হলেও কিছু সামরিক কার্যক্রম চালানো হয়েছে।

১৯৭৩ সালের ১৪ ই মে ইউএস কক্ষপথে কার্যস্থান স্কাইলাব ১ উৎক্ষেপণ করে। এটি ওজন ছিল ১৬৯,৯৫০ পাউন্ড (৭৭,০৯০ কেজি), ৫৮ ফিট দৈর্ঘ্য ও ব্যাস ২১.৭ ফিট(৬.৬ মিটার) এবং বসবাসযোগ্য আয়তন ছিল ১০,০০০ কিউবিক ফিট (২৮০ ঘন মিটার)। স্কাইলাব কক্ষপথে আহরণের সময় একটি সৌর কোষ ও ধূমকেতু তাপীয় হাল ক্ষতিগ্রস্ত হয়। পরবর্তী মনুষ্য মিশনগুলো স্টেশনটিকে মেরামত করে এবং সর্বশেষ মিশনের দল, স্কাইলাব ৪, যখন মিশনটি ১৯৭৪ সালের ৮ ই ফেব্রয়ারি তে সমাপ্ত হয় কক্ষপথে নতুন ৮৪ দিনের মনুষ্য সহ্য ক্ষমতার রেকর্ড তৈরি করে। স্কাইলাব ভারতীয় মহাসাগর এবং পশ্চিমা অস্ট্রেলিয়ায় উপর দিয়ে পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে প্রবেশের পূর্বে কক্ষপথে ৫ বছর অবস্থান করেছিল।

অ্যাপোলো- সোয়ুজ পরীক্ষণ প্রকল্প[সম্পাদনা]

the five crew members of ASTP sitting around a miniature model of their spacecraft
অ্যাপোলো-সোয়ুজের দল

১৯৭২ সালের মে মাসে, রাষ্ট্রপতি রিচার্ড এম. নিক্সন এবং সোভিয়েত প্রধান লিওনি ড ব্রেশনেভ সম্পর্কের শান্তি পরিচালনা করেন যা বৈরতার সমাপ্তি নামে পরিচিত, যা স্নায়ু যুদ্ধ সাময়িকভাবে স্থগিত করে। সময়টি প্রতিযোগিতার তুলনায় সহযোগিতার জন্য উপযোগী ছিল এবং "প্রতিযোগিতা" ধারণাটি প্রশমিত হতে থাকে।

দুটো রাষ্ট্র অ্যাপোলো মহাকাশযান কে একটা সোয়ুজ মহাকাশযানের সাথে যুক্ত করার পরিকল্পনা করে, যা অ্যাপোলো সোয়ুজ পরীক্ষামূলক প্রকল্প নামে পরিচিত (এএসটিপি)। প্রস্তুতির জন্য, ইউএস অ্যাপোলো তে একটি ডকিং মডিউল তৈরি করে যা সোয়ুজ ডকিং ব্যবস্থার সাথে সামঞ্জ্যপূর্ণ। এই মডিউলটির মাধ্যমে অসামঞ্জ্যপূর্ণ পরিবেশের দুইটি মহাকাশযানের একটির ব্যাক্তি অন্যটিতে যেতে পারবে, যা অন্য যেকোনো মহাকাশযানের সাথে সংযোগ স্থাপনের ব্যাবস্থা করে দিয়েছিল। ১৯৭৪ সালের ডিসম্বরে ইউএসএসআর এএসটিপির প্রস্তুতির জন্য সোয়ুজ ১৬ মিশন ব্যবহার করে।

১৯৭৫ সালের জুলাই মাসে ১২:২০ ইউটিসি সময়ে সোয়ুজ ১৯ উৎক্ষেপণের মাধ্যমে যুক্ত মিশনটির সূচনা হয় এবং ডকিং মডিউল যুক্তি অ্যাপোলো মহাকাশযানটি সাড়ে ছয় ঘণ্টা পর উৎক্ষেপণ হয়। দুই টি মহাকাশযান জুলাই ১৭ তারিখে ১৬:১৯ ইউটিসি সময়ে সংযোগ সম্পন্ন করে। তিন জন নভোচর দুই জন কসমো নটের সাথে যুক্ত পরীক্ষণ করে এবং দলগুলো হাত মিলন, উপহার আদান - প্রদান এবং পরস্পরের মহাকাশযান পরিদর্শন করে।

ঐতিহ্য[সম্পাদনা]

অ্যাপোলোর পরবর্তীতে মনুষ্য মহাকাশ উড্ডয়ন[সম্পাদনা]

২০১০ সালে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন

১৯৭০ এর দশকে, যুক্তরাষ্ট্র পুনঃ ব্যবহারযোগ্য কক্ষীয় স্পেস শাটল মহাকাশ বিমান উন্নয়ন করে এবং বেশ কিছু মনুষ্যবিহীন মহাকাশযান উৎক্ষেপণ করেন। ইউএসএসআর সাল্যুট কর্মসূচি এবং মির(প্রসঙ্গের উপর ভিত্তি করে "শান্তি" বা "বিশ্বাস") মহাকাশ স্টেশনের মাধ্যমে, যা সোয়ুজ মহাকাশযান দ্বারা পরিচালিত ছিল, মহাকাশ স্টেশন প্রযুক্তি উন্নয়ন অবিরত রাখে। তারা বুরান কর্মসূচির উপর ভিত্তি করে নিজেদের বিশাল মহাকাশ বিমান উন্নয়ন করে। ১৯৯১ সালে ইউএসএসআর এর পতন হলে মহাকাশ কার্যক্রমের অবশিষ্ট অংশ রাশিয়ার দায়িত্বে চলে যায়। যুক্তরাষ্ট্র এবং রাশিয়া একত্রে শাটল- মির কর্মসূচি এবং পরবর্তীতে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন দ্বারা কাজ করেন।

রাশিয়ার আর-৭ রকেট পরিবার, যা মহাকাশ প্রতিযোগিতার শুরুতে প্রথম স্পুটনিক উৎক্ষেপণ করেছিল, এখনও ব্যবহৃত হচ্ছে। সোয়ুজ এবং প্রগ্রেস মহাকাশযানের উৎক্ষেপ ক হিসেবে এটি আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনের সেবায় নিয়োজিত। এটি রাশিয়ান এবং আমেরিকান উভয় রাষ্ট্রের মানুষদের স্টেশনে যাতায়াতের কাজ করে।

বর্তমানে, বাণিজ্যিক ক্রিউ উন্নয়ন এবং আর্টেমিস কর্মসূচি বিভিন্ন প্রকার মনুষ্য মহাকাশযান উন্নয়নের পরিকল্পনা করে। রাশিয়া সোয়ুজের প্রতিস্থাপন উন্নয়ন করছে এবং চীন মনুষ্য মহাকাশযান সেনযৌ কক্ষপথে পাঠিয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Garber, Steve (১০ অক্টোবর ২০০৭)। "Sputnik and The Dawn of the Space Age"Sputnik 50th Anniversary। Washington: NASA History Website 
  2. Crompton, Samuel (জুলাই ১, ২০০৭)। Sputnik/Explorer I: The Race to Conquer Space। New York City: Chelsea House Publications। পৃষ্ঠা 4। আইএসবিএন 0791093573 
  3. Bello, Francis (১৯৫৯)। "The Early Space Age"Fortune। ৩ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১২ 
  4. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; HallGagarin নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  5. "Why Yuri Gagarin Remains the First Man in Space, Even Though He Did Not Land Inside His Spacecraft"। এপ্রিল ১২, ২০১০। 
  6. Pervushin (2011), 7.1 Гражданин мира
  7. Государственная Дума. Федеральный закон №32-ФЗ от 13 марта 1995 г. «О днях воинской славы и памятных датах России», в ред. Федерального закона №59-ФЗ от 10 апреля 2009 г «О внесении изменения в статью 1.1 федерального закона "О днях воинской славы и памятных датах России"». Вступил в силу со дня официального опубликования. Опубликован: "Российская Газета", №52, 15 марта 1995 г. (State Duma. Federal Law #32-FZ of March 13, 1995 On the Days of Military Glory and the Commemorative Dates in Russia, as amended by the Federal Law #59-FZ of April 10, 2009 On Amending Article 1.1 of the Federal Law "On the Days of Military Glory and the Commemorative Dates in Russia". Effective as of the day of the official publication.).
  8. "UN Resolution A/RES/65/271, The International Day of Human Space Flight (12 April)"। ২০১১-০৪-০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০১-১৯ 
  9. Hall and Shayler, p.150
  10. Kennedy, John F. (মে ২৫, ১৯৬১)। Special Message to Congress on Urgent National Needs (Motion picture (excerpt))। Boston, MA: John F. Kennedy Presidential Library and Museum। Accession Number: TNC:200; Digital Identifier: TNC-200-2। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১, ২০১৩ 
  11. Quoted in John M. Logsdon, The Decision to Go to the Moon: Project Apollo and the National Interest (Cambridge, MA: MIT Press, 1970) p. 111.
  12. David E. Bell, Memorandum for the President, "National Aeronautics and Space Administration Budget Problem," 22 March 1961, NASA Historical Reference Collection; U.S. Congress, House, Committee of Science and Astronautics, NASA Fiscal 1962 Authorization, Hearings, 87th Cong., 1st. sess., 1962, pp. 203, 620; Logsdon, Decision to go to the Moon, pp. 94–100.
  13. Wolfe, Tom. The Right Stuff. New York: Picador, 1979.(179)
  14. Kennedy, John F. (১২ সেপ্টেম্বর ১৯৬২)। "Address at Rice University on the Nation's Space Effort"Historical Resources। John F. Kennedy Presidential Library and Museum। সংগ্রহের তারিখ ১৬ আগস্ট ২০১০