সমারন বাদউই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সমারন বাদউই

সমারন বিনতে মোহাম্মদ বাদউই (আরবি: سمر بدوي‎‎; জন্ম ২৮ জুন ১৯৮১) একজন সৌদি আরবের মানবাধিকার কর্মী। তিনি এবং তার বাবা একে অপরের বিরুদ্ধে আদালতে মামলা দায়ের করেন। সমারন বাদউইয়ের বাবা তার বিরুদ্ধে সৌদি আরবের পুরুষ অভিভাবকত্ব ব্যবস্থার অধীনে অবাধ্যতার অভিযোগ এনেছিলেন এবং তিনি তার পিতার প্রতি এডিএইচএল -এর অভিযোগ এনেছিলেন - তাকে বিয়ে করার অনুমতি দিতে অস্বীকার করার জন্য। সমারন অভিযোগের সাথে সম্পর্কিত অনেকগুলি বিচারের তারিখে উপস্থিত না থাকার পর, তার জন্য একটি গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল এবং সমারনকে ২০১০ সালের এপ্রিল মাসে কারারূদ্ধ করা হয়েছিল। ২০১০ সালের জুলাই মাসে, জেদ্দা জেনারেল কোর্ট সমারনের পক্ষে রায় দেয় এবং তাকে ২০১০ সালের ২৫ অক্টোবর মাসে মুক্তি দেওয়া হয়, এবং তার অভিভাবকত্ব কাকার কাছে হস্তান্তর করা হয়। তার মুক্তির জন্য স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক সমর্থন প্রচারণা ছিল। সৌদি এনজিও হিউম্যান রাইটস ফার্স্ট সোসাইটি সমারনের কারাবাসকে "ভয়ঙ্কর অবৈধ আটক" হিসেবে বর্ণনা করেছে।

২০১১ সালের পৌরসভা নির্বাচনের জন্য তার নিবন্ধন প্রত্যাখ্যান করার জন্য সমারনের পৌর ও গ্রামীণ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের বিরুদ্ধে একটি অভিযোগ বোর্ডে মামলা দায়ের করেন। তিনি ২০১১-২০১২ মহিলাদের গাড়ি চালানোর প্রচারাভিযানে অংশগ্রহণ করেন এবং ২০১১ সালের জুন মাস থেকে নিয়মিত গাড়ি চালান ও নারী চালকদের পুলিশ ও আদালতের কার্যক্রমে সাহায্য করেন। ২০১১ সালের নভেম্বরে, তিনি এবং মানাল আল-শরীফ ড্রাইভারের লাইসেন্সের জন্য তাদের আবেদন প্রত্যাখ্যান করার জন্য সৌদি আরবের জেনারেল ডিরেক্টরেট অব ট্রাফিকের বিরুদ্ধে অভিযোগ বোর্ডে অভিযোগ দায়ের করেন। ২০১২ সালের মার্চ মাসে নারীদের অধিকারে অবদানের জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দফতর কর্তৃক সমারনকে একটি পুরস্কার দেওয়া হয়।

২০১৮ সালে, তাকে আবার সৌদি কর্তৃপক্ষ গ্রেফতার করে। [১] তার অবিলম্বে মুক্তির জন্য কানাডার অনুরোধ কানাডা এবং সৌদি আরবের মধ্যে একটি বড় কূটনৈতিক বিরোধের জন্ম দেয়।

২০১৮ সালের জুলাই মাসের গ্রেফতার[সম্পাদনা]

হিউম্যান রাইটস ওয়াচ (এইচআরডব্লিউ) অনুসারে, নাসিমা আল-সাদাহ সহ সমারনকে ৩০ জুলাই সৌদি কর্তৃপক্ষ গ্রেফতার করে। [২] তাকে ধহবান কেন্দ্রীয় কারাগারে রাখা হয়েছিল। [৩]

কানাডার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ক্রিস্টিয়া ফ্রিল্যান্ডের তরফ থেকে সমালোচনা ও সমারন বাদউইর মুক্তির আহ্বানের কারণে সৌদি আরব কানাডার রাষ্ট্রদূতকে বহিষ্কার করে এবং কানাডার সঙ্গে বাণিজ্য বন্ধ করে দেয়।[১]

মুক্তি[সম্পাদনা]

সমারন বাদউই ২০২১ সালের ২১শে জুন সাজাপ্রাপ্ত হওয়ার পর কারাগার থেকে মুক্তি পান। [৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Saudi Arabia expels Canada’s ambassador, freezes trade with Ottawa, 5 August 2018
  2. Saudi Arabia arrests two more women's rights activists: rights group
  3. "Saudi Arabia: Reports of torture and sexual harassment of detained activists"amnesty.org (ইংরেজি ভাষায়)। Amnesty International। সংগ্রহের তারিখ ২১ নভেম্বর ২০১৮ 
  4. "Saudi Arabia releases two women activists, says rights group"। Reuters। ২৭ জুন ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ২৭ জুন ২০২১