শেখ বাহার উল্লাহ জামে মসজিদ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ

শেখ বাহার উল্লাহ জামে মসজিদ

শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ বাংলাদেশ-এ অবস্থিত
শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ
শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ
বাংলাদেশে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ২২°২১′৪৬″ উত্তর ৯১°৫০′২০″ পূর্ব / ২২.৩৬২৬৯৫° উত্তর ৯১.৮৩৮৭৭৮° পূর্ব / 22.362695; 91.838778স্থানাঙ্ক: ২২°২১′৪৬″ উত্তর ৯১°৫০′২০″ পূর্ব / ২২.৩৬২৬৯৫° উত্তর ৯১.৮৩৮৭৭৮° পূর্ব / 22.362695; 91.838778
অবস্থান শুলকবহর, চট্টগ্রাম, বাংলাদেশ
প্রতিষ্ঠিত ১৭৩৭
শাখা/ঐতিহ্য ইসলাম সুন্নি
প্রশাসন সামাজিক ভাবে পরিচালিত
পরিচালনা






স্থাপত্য তথ্য
ধরণ মুঘল স্থাপত্য
ধারণক্ষমতা প্রায় ৬.০০০
দৈর্ঘ্য ১০২ ফুট
প্রস্থ ৭৮ ফুট
আবৃত স্থান ০,২১ একর
গম্বুজ ৩টি (একটি বড় দুইটি ছোট)
গম্বুজের উচ্চতা (বাহ্যিক) ১৮ ফুট
গম্বুজের উচ্চতা (অভ্যন্তরীণ) ১০ ফুট
মিনার ৮টি (চারটি বড় চারটি ছোট)
মিনারের উচ্চতা ৩০ ফুট
ভবনের উপকরণ চুন সুরকি (পুরাতন) কংক্রিট (বর্তমান)

শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ বাংলাদেশের বন্দরনগরী চট্টগ্রাম শহরের শুলকবহরে অবস্থিত একটি অতি প্রাচীন মসজিদ।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মোঘল আমলে এই অঞ্চল অর্থাৎ চট্টগ্রাম যখন ইসলামাবাদ নাম নিয়ে সুবা বাংলার রাজধানী ছিল[১]তখনই এই মসজিদ প্রতিষ্ঠিত হয়। ধারনা করা হয় মোঘল সুবাদার শায়েস্তা খাঁর পৌত্র শেখ বাহার উল্লাহ ১৭৩৭ খ্রিস্টাব্দে এই মসজিদ প্রতিষ্ঠা করেন। [২] তার মৃত্যুর পর এই মসজিদ শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদ নামে পরিচিতি লাভ করে। মসজিদে প্রাপ্ত শিলালিপি থেকে এই ধারণা করা হয়

অবস্থান[সম্পাদনা]

চট্টগ্রাম মহনগরীর পাঁচলাইশ থানাস্থ শুলক বহরের আবদুল্লাহ খাঁন সড়কে এই ঐতিহাসিক মসজিদের অবস্থান।[৩] এই মসজিদ হতে মাত্র ৫০ গজ দূরেই শায়েস্তা খাঁর রাজমহল যা বর্তমান কোর্ট হিলে আদালত ভবন প্রতিষ্ঠা না হওয়া পর্যন্ত এখানেই সকল ধরনের বিচার কার্য্য সমাধা হতো। এখানেও শেখ বাহার উল্লাহ শাহী জামে মসজিদের একই অবয়বে আরো একটি মসজিদ বিদ্যমান রয়েছে।

স্থাপত্য[সম্পাদনা]

মসজিদটির আদি গড়নে প্রাধান্য পেয়েছে তিনটি গম্বুজ ও আটটি মিনার। অবশ্য বিভিন্ন সময়ে সংস্কারকার্য ও নির্মাণ সম্পাদনের ফলে আজও এই গম্বুজ ও মিনারগুলি বিদ্যমান। বর্তমানে এর আদি রূপটি শুধু মাত্র মসজিদের পশ্চিম দিক হতে দৃষ্টিগোচর হয়। [৪] একটি বে'র উপরেই তিনটি গম্বুজ দিয়ে মসজিদটি আচ্ছাদিত, মাঝখানের গম্বুজটি তুলনামূলক বড় আকৃতির এবং দুপাশের গম্বুজগুলি অপেক্ষাকৃত ছোট। কেন্দ্রীয় মেহরাবটি অর্ধগোলাকৃতির, যা সংস্কারের পরে (২০০৩) আজও সেরকমটাই রয়েছে।

বর্তমান অবস্থা[সম্পাদনা]

মোগল স্থাপত্যে গড়া মূল আদি মসজিদটি কয়েকশত বছরের স্মৃতি বহন করে। তবে কালের বিবর্তনে মূল মসজিদ অক্ষত রেখে এই মসজিদ তিনতলা বিশিষ্ট মসজিদে রূপান্তরিত করা হয়েছে। মসজিদের বর্তমান খতিব মাহবুবুল আলম ।

সম্মানিত খতিব, ইমাম ও মুয়াজ্জিনগণের তালিকা 
-
পদবী খতিব, ইমাম ও মুয়াজ্জিনের নাম সময়কাল
খতিব আলহাজ্ব মৌলানা নুরুল ইসলাম ১৯৬৪-১৯৯৯
খতিব মৌলানা আবুল কালাম ১৯৯৯-২০০২
খতিব মৌলানা ফরিদ আহমদ ২০০১-২০০৯
খতিব মৌলানা মোহাম্মদ আনোয়ারুল হক ২০০৯-২০১১
খতিব আলহাজ্ব মৌলানা মাহবুবুল আলম সিদ্দিকী ২০১২-বর্তমান
ইমাম মৌলানা ফজলুর রহমান ১৯৮৫-১৯৯৯
ইমাম মৌলানা মোহাম্মদ নাজিম উদ্দীন ২০০৯-২০১১
ইমাম মৌলানা আবু জাফর ২০১৬-বর্তমান
মুয়াজ্জিন মৌলানা আবু তাহের ১৯৬২-১৯৯০
মুয়াজ্জিন মৌলানা মোহাম্মদ শফি ১৯৯০-১৯৯৯
মুয়াজ্জিন মৌলানা মুজিবুর রহমান ১৯৯৮-বর্তমান
মুয়াজ্জিন মৌলানা মোহাম্মদ রুহুল আমিন ২০১২-বর্তমান

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "চট্টগ্রাম বিভাগের মসজিদের তালিকা" 
  2. "শেখ বাহার উল্লাহ জামে মসজিদ ও বাংলাদেশের বিখ্যাত মসজিদ সমূহ" 
  3. "মসজিদের অবস্থান" 
  4. "শেখ বাহার উল্লাহ জামে মসজিদ ও বাংলাদেশের বিখ্যাত মসজিদের অবস্থান"