শাহিদ কাপুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(শাহিদ কপুর থেকে পুনর্নির্দেশিত)
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
শাহিদ কাপুর
Shahid, Alia, and Katrina at IIFA 2017 (cropped).jpg
২০১৭ সালে শহিদ কাপুর
জন্ম (1981-02-25) ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৮১ (বয়স ৩৮)
অন্য নামশাহিদ কাপুর
সাশা[১]
পেশাঅভিনেতা
কার্যকাল২০০৩-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গীমীরা রাজপুত (বি. ২০১৫)
সন্তান
পিতা-মাতাপঙ্কজ কাপুর
নীলিমা আজিম

শাহিদ কাপুর (উচ্চারিত [ʃaːɦɪd̪ kəˈpuːr]; জন্ম ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮১) হলেন একজন ভারতীয় অভিনেতা। তিনি হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। শাহিদ কপুর অভিনেতা পঙ্কজ কপুর ও অভিনেত্রী নীলিমা আজিমের ছেলে। শাহিদের বয়স যখন তিন বছর, তখন তাঁর বাবা-মায়ের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর শাহিদ তাঁর মায়ের সঙ্গে থাকতেন। ১০ বছর বয়সে শাহিদ মায়ের সঙ্গে মুম্বই চলে আসেন। সেখানে তিনি শিয়ামক দাবারের ড্যান্স অ্যাকাডেমিতে যোগ দেন। ১৯৯০-এর দশকে কয়েকটি চলচ্চিত্রে শাহিদ সহ-নৃত্যশিল্পী হিসেবে কাজ করেন। পরবর্তীকালে তিনি কয়েকটি মিউজিক ভিডিও ও টেলিভিশন বিজ্ঞাপনেও অভিনয় করেন।

২০০৩ সালে ইশক্‌ ভিশক্‌ নামে একটি রোম্যান্টিক কমেডি ছবিতে শাহিদ প্রথম প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেন। ছবিটি ‘স্লিপার হিট’ হয়েছিল। এই ছবিতে অভিনয় করে তিনি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ট পুরুষ নবাগত পুরস্কার পান। এরপর তাঁর অভিনীত কয়েকটি চলচ্চিত্র বাণিজ্যিক সফলতা অর্জনে ব্যর্থ হয়। শেষে অমৃতা রাওয়ের বিপরীতে সুরজ বরজাত্যের পারিবারিক ড্রামা চলচ্চিত্র বিবাহ (২০০৬) বাণিজ্যিকভাবে সাফল্য অর্জন করে। ইমতিয়াজ আলির রোম্যান্টিক কমেডি ছবি জব উই মেট-এ (২০০৭) এক দুশ্চিন্তাগ্রস্থ ব্যবসায়ীর চরিত্রে অভিনয় করে তিনি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার বিভাগে মনোনয়ন পান। বিশাল ভরদ্বাজের ক্যাপার থ্রিলার কামিনে (২০০৯) ছবিতে যমজ ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেও তিনি উক্ত বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। এরপর আবার তাঁর অভিনীত কয়েকটি ছবি বাণিজ্যিক সাফল্য অর্জনে ব্যর্থ হয়। এরপর তিনি অ্যাকশন চলচ্চিত্র আর...রাজকুমার (২০১৩) ছবিতে অভিনয় করেন। এটিই তাঁর সর্বাধিক বাণিজ্যসফল চলচ্চিত্র। ২০১৪ সালে শাহিদ কপূর বিশাল ভরদ্বাজের বহুল প্রশংসিত ড্রামা চলচ্চিত্র হায়দার-এ হ্যামলেটের ভূমিকায় অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রে অভিনয় করার জন্য তিনি ফিল্মফেয়ারে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার অর্জন করেন।

শাহিদকে গণমাধ্যমে অন্যতম আকর্ষণীয় ভারতীয় সেলিব্রিটি হিসেবে গণ্য করা হয়। নিজের কর্মজীবনে একাধিক চড়াই-উতরাই পার হয়েও তিনি নিজের জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। প্রথম দিকে তিনি রোম্যান্টিক চরিত্রেই অভিনয় করতেন। পরে তিনি অ্যাকশন চলচ্চিত্র ও থ্রিলারে অভিনয় করতে শুরু করেন। তিনি একাধিক পুরস্কার পেয়েছেন। এর মধ্যে দুটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কারও রয়েছে। অভিনয়ের পাশাপাশি শাহিদ দাতব্য প্রতিষ্ঠানগুলিকে সাহায্য করেন, পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন এবং ড্যান্স রিয়্যালিটি শো ঝলক দিখলা জা রিলোডেড-এ প্রতিভা বিচারকের ভূমিকায়ও অংশ নিয়েছেন। অভিনেত্রী করিনা কপুরের সঙ্গে তাঁর একসময় প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সেই সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর ২০১৫ সালে তিনি নতুন দিল্লির এক ছাত্রী মীরা রাজপুতকে বিয়ে করেন। এ দম্পতির কন্যার নাম রাখা হয় মিশা, মীরা ও শাহিদের নামের আদ্যাক্ষর অনুসারে।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

১৯৮১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ভারতের নতুন দিল্লিতে শাহিদ কপুরের জন্ম। তাঁর বাবা হলেন অভিনেতা পঙ্কজ কপুর ও মা হলেন অভিনেত্রী-নৃত্যশিল্পী নীলিমা আজিম[২][৩] শাহিদের যখন তিন বছর বয়স, তখন তাঁর বাবা-মায়ের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তাঁর বাবা মুম্বই চলে যান এবং অভিনেত্রী সুপ্রিয়া পাঠককে বিয়ে করেন। শাহিদ দিল্লিতে তাঁর মা, দাদামশাই ও দিদিমার সঙ্গে বাস করতে থাকেন।[৪][৫] তাঁর দাদামশাই ও দিদিমা ছিলেন রাশিয়ান পত্রিকা স্পুটনিক-এর সাংবাদিক। শাহিদ তাঁর দাদামশাইকে বিশেষ ভালোবাসতেন: “তিনি প্রতিদিন আমার সঙ্গে স্কুল পর্যন্ত হেঁটে যেতেন। তিনি আমাকে বাবার কথা বলতেন। বাবার সঙ্গে তাঁর খুব ভালো সম্পর্ক ছিল। তিনি আমাকে বাবার চিঠিগুলি পড়ে শোনাতেন।”[৪] শাহিদের বাবা সেই সময় মুম্বইয়ের এক পরিশ্রমী অভিনেতা ছিলেন। বছরে একবার মাত্র শাহিদের জন্মদিনে তিনি শাহিদের কাছে আসতেন।[৪] শাহিদের যখন ১০ বছর বয়স, সেই সময় তাঁর মা তাঁকে নিয়ে মুম্বই চলে আসেন। তাঁর মা ছিলেন নৃত্যশিল্পী। তিনি মুম্বই এসেছিলেন অভিনেত্রী হিসেবে কাজ করার জন্য।[৪]

মুম্বইতে নীলিমা আজিম বিয়ে করেন অভিনেতা রাজেশ খট্টরকে[৫] ২০০১ সালে নীলিমা ও রাজেশের বিবাহ বিচ্ছেদ পর্যন্ত শাহিদ তাঁদের সঙ্গেই থাকতেন।[৫] তার পরেও শাহিদ নিজের পাসপোর্টে খট্টর পদবিই ব্যবহার করেছেন।[৬] মায়ের দিক থেকে তাঁর একটি সৎ ভাইও আছে। তিনি নীলিমা ও রাজেশের সন্তান।[৫] শাহিদের বাবা পঙ্কজ ও সুপ্রিয়া পাঠকের দিক থেকে শাহিদের দুটি সৎ ভাইবোন আছে।[৭] শাহিদের বিদ্যালয় শিক্ষা দিল্লির জ্ঞান ভারতী স্কুল ও মুম্বইয়ের রাজহংস বিদ্যালয়ে[৮] পরে তিনি মুম্বইয়ের মিঠিবাই কলেজে তিন বছর পড়াশোনা করেন।[৯]

শাহিদ অল্প বয়স থেকেই নাচে আগ্রহী ছিলেন। ১৫ বছর বয়সে তিনি শিয়ামক দাবারের ড্যান্স ইনস্টিটিউটে যোগ দেন।[১০] সেখানকার ছাত্র হিসেবে তিনি দিল তো পাগল হ্যায় (১৯৯৭) ও তাল (১৯৯৯) চলচ্চিত্রে সহ-নৃত্যশিল্পী হিসেবে কাজ করেন। এই দুই ছবিতে দাবার নৃত্য পরিচালক ছিলেন।[১০] ইনস্টিটিউটের অনুষ্ঠানে শাহিদ গগগোল্ডেনআই গানদুটির সঙ্গে নাচেন। এই অনুষ্ঠানে তিনি ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া পান। পরবর্তীকালে এই অভিজ্ঞতা সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন যেম তাঁর “নিজেকে তারকা মনে হচ্ছিল।”[১০] পরে তিনি ইনস্টিটিউটের একজন প্রশিক্ষক হয়েছিলেন।[১০] এই সময় শাহিদ তাঁর বন্ধুকে নিয়ে পেপসির একটি বিজ্ঞাপনের আডিশনে যান। এই বিজ্ঞাপনে শাহরুখ খান, কাজলরানি মুখোপাধ্যায় অভিনয় করছিলেন। এই বিজ্ঞাপনে অভিনয়ের সুযোগ তিনিই পেয়ে যান।[৪] শাহিদ কিট ক্যাট, ক্লোজ-আপ ও অন্যান্য ব্যান্ডের টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেন। কয়েকটি মিউজিক ভিডিওতেও অভিনয় করেন। এর মধ্যে ছিল আর্যন ব্যান্ড ও কুমার শানুর মিউজিক ভিডিও।[১১] ১৯৯৮ সালে তিনি তাঁর বাবার সঙ্গে টেলিভিশন ধারাবাহিক মোহনদাস বি.এ.এল.এল.বি-এ সহকারী পরিচালকের কাজও করেন।[১১][১২]

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

প্রথম দিকের কাজ (২০০৩-০৫)[সম্পাদনা]

Shahid Kapoor, wearing sunglasses, looks away from the camera
২০০৪ সালে শাহিদ কপুর

চলচ্চিত্রের তালিকা[সম্পাদনা]

শাহিদ কপূরের চলচ্চিত্র (সম্পুর্ন)[সম্পাদনা]

প্রধান এবং বিশেষ চলচ্চিত্র[সম্পাদনা]

বছর ছবির নাম চরিত্র টুকিটাকি
১৯৯৯ তাল নিজের নামে ব্যাকগ্রাউন্ড ডান্সার "কাহিন আগ লাগে" গানে
২০০৩ ইশক ভিসক রাজীব মাথুর ফিল্মফেয়ার পুরস্কার সেরা নতুন অভিনেতা
২০০৪ ফিদা জয় মালহোতরা
২০০৪ দিল মাঙ্গে মোর নিখিল মাথুর / নিক্স
২০০৫ দিবানা হুয়ে পাগল করণ
২০০৫ ভা! লাইফ হ ত এইসা! আদিত্য (আদি) বর্মা
২০০৫ শিকার জয়দেভ বর্দান (জয়)
২০০৫ ৩৬ চায়না টাউন রাজ মালহোতরা
২০০৬ চুপ চুপ কে জীতু প্রসাদ
২০০৬ বিবাহ Prem
২০০৭ ফুল এন ফাইনাল রাজা / রাহুল
২০০৭ জাব ওয়ে মেট আদিত্য কশ্যপ নোমিনেশন — ফিল্মফেয়ার পুরস্কার সেরা অভিনেতা
২০০৮ কিস্মত কানেকশন রাজ মালহোতরা
২০০৯ কামিনে চার্লি / গুড্ডু নোমিনেশন — ফিল্মফেয়ার পুরস্কার সেরা অভিনেতা
২০০৯ দিল বলে হাডিপ্পা! রোহান সিং
২০১০ চ্যান্স পে ড্যান্স সামির ভেল
২০১০ পাঠশালা রাহুল প্রকাশ উদয়ভার অতিথি বিশেষ চরিত্রে
২০১০ বদমাশ কোম্পানি করণ
২০১০ মিলেঙ্গে মিলেঙ্গে অমিত সিং (ইম্মি)
২০১১ মৌসুম হরিন্দর সিং (হ্যারি)
২০১২ তেরী মেরী কাহানী জাবেদ / গোবিন্দ / কৃষ
২০১৩ বোম্বে টককিস নিজের নামে অতিথি চরিত্রে গানের জন্য। গানটি হল "আপনা বম্বে টকিজ"
২০১৩ ফাটা পোষ্টার নিকলা হিরো বিশ্বাস রাও
২০১৩ আর...রাজকুমার রোমিও রাজকুমার চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে সুপার-হিট হয়েছিল
২০১৪ হায়দার হায়দার চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে ব্লকবাস্টার হয়েছিল
২০১৯ কবির সিং কবির সিং চলচ্চিত্রটি বক্স অফিসে ব্লকবাস্টার হয়েছে

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. http://www.cosmopolitan.in/celebrity/a9883/we-bet-you-didnt-know-these-20-bollywood-pet-names/
  2. "Happy Birthday Shahid Kapoor: Simply Shaandaar@35"NDTV। 25 February 2016। সংগ্রহের তারিখ 7 March 201ইটালিক লেখা6  এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  3. Masand, Rajeev (১৯ নভেম্বর ২০০৬)। "Kareena says I oversleep: Shahid"CNN-IBN। সংগ্রহের তারিখ ৭ মার্চ ২০১৬ 
  4. Gupta, Priya (৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "I am tired of dating heroines: Shahid Kapoor"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১৫ 
  5. Olivera, Roshni K (৩০ নভেম্বর ২০০৭)। "Ishaan's not a Kapur: Rajesh Khattar"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৩ 
  6. "Dual identities"The Times of India। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জুলাই ২০১৩ 
  7. Lalwani, Vickey (১৬ আগস্ট ২০১৪)। "Shahid Kapoor to face tough competition from siblings"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুলাই ২০১৫ 
  8. "Shahid Kapoor gets nostalgic about his school days"Mid Day। ৩১ মার্চ ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জুন ২০১৩ 
  9. "Just how educated are Bollywood stars"Rediff.com। ১২ জানুয়ারি ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১৭ জুলাই ২০১৫ 
  10. Bhattacharya, Roshmila (১৪ জানুয়ারি ২০১০)। "Come dance with me: Shahid Kapoor"Hindustan Times। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৫ 
  11. "All smiles and success..."The Hindu। ২৬ মে ২০০৩। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৫ 
  12. "Cloak 'n' dagger"India Today। ১২ জানুয়ারি ১৯৯৮। সংগ্রহের তারিখ ৪ জুলাই ২০১৫