শাহিদ কপুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(শহীদ কাপুর থেকে পুনর্নির্দেশিত)
শাহিদ কপুর
An upper body shot of Shahid Kapoor, as he poses for the camera
২০১৪ সালে বিগ স্টার এন্টারটেইনমেন্ট অ্যাওয়ার্ডস অনুষ্ঠানে শাহিদ কপুর
জন্ম (১৯৮১-০২-২৫) ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৯৮১ (বয়স ৩৫)
নতুন দিল্লি, ভারত
অন্য নাম শাহিদ কাপুর
শাহিদ খট্টর
পেশা অভিনেতা
কার্যকাল ২০০৩-বর্তমান
দাম্পত্য সঙ্গী মীরা রাজপুত (বি. ২০১৫)
পিতা-মাতা(গণ) পঙ্কজ কপুর
নীলিমা আজিম

শাহিদ কপুর (উচ্চারিত [ʃaːɦɪd̪ kəˈpuːr]; জন্ম ২৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৮১) হলেন একজন ভারতীয় অভিনেতা। তিনি হিন্দি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন। তিনি শাহিদ খট্টর নামেও পরিচিত। শাহিদ কপুর অভিনেতা পঙ্কজ কপুর ও অভিনেত্রী নীলিমা আজিমের ছেলে। শাহিদের বয়স যখন তিন বছর, তখন তাঁর বাবা-মায়ের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। এরপর শাহিদ তাঁর মায়ের সঙ্গে থাকতেন। ১০ বছর বয়সে শাহিদ মায়ের সঙ্গে মুম্বই চলে আসেন। সেখানে তিনি শিয়ামক দাবারের ড্যান্স অ্যাকাডেমিতে যোগ দেন। ১৯৯০-এর দশকে কয়েকটি চলচ্চিত্রে শাহিদ সহ-নৃত্যশিল্পী হিসেবে কাজ করেন। পরবর্তীকালে তিনি কয়েকটি মিউজিক ভিডিও ও টেলিভিশন বিজ্ঞাপনেও অভিনয় করেন।

২০০৩ সালে ইশক্‌ ভিশক্‌ নামে একটি রোম্যান্টিক কমেডি ছবিতে শাহিদ প্রথম প্রধান ভূমিকায় অভিনয় করেন। ছবিটি ‘স্লিপার হিট’ হয়েছিল। এই ছবিতে অভিনয় করে তিনি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ট পুরুষ নবাগত পুরস্কার পান। এরপর তাঁর অভিনীত কয়েকটি চলচ্চিত্র বাণিজ্যিক সফলতা অর্জনে ব্যর্থ হয়। শেষে অমৃতা রাওয়ের বিপরীতে সুরজ বরজাত্যের পারিবারিক ড্রামা চলচ্চিত্র বিবাহ (২০০৬) বাণিজ্যিকভাবে সাফল্য অর্জন করে। ইমতিয়াজ আলির রোম্যান্টিক কমেডি ছবি জব উই মেট-এ (২০০৭) এক দুশ্চিন্তাগ্রস্থ ব্যবসায়ীর চরিত্রে অভিনয় করে তিনি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা পুরস্কার বিভাগে মনোনয়ন পান। বিশাল ভরদ্বাজের ক্যাপার থ্রিলার কামিনে (২০০৯) ছবিতে যমজ ভাইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেও তিনি উক্ত বিভাগে মনোনয়ন পেয়েছিলেন। এরপর আবার তাঁর অভিনীত কয়েকটি ছবি বাণিজ্যিক সাফল্য অর্জনে ব্যর্থ হয়। এরপর তিনি অ্যাকশন চলচ্চিত্র আর...রাজকুমার (২০০৩) ছবিতে অভিনয় করেন। এটিই তাঁর সর্বাধিক বাণিজ্যসফল চলচ্চিত্র। ২০১৪ সালে কপুর ভরদ্বাজের বহুপ্রশংসিত ড্রামা চলচ্চিত্র হায়দার-এ হ্যামলেটের ভূমিকায় অভিনয় করেন। এই চলচ্চিত্রে অভিনয় করার জন্য তিনি ফিল্মফেয়ারে শ্রেষ্ঠ অভিনেতার পুরস্কার অর্জন করেন।

শাহিদকে গণমাধ্যমে অন্যতম আকর্ষণীয় ভারতীয় সেলিব্রিটি হিসেবে গণ্য করা হয়। নিজের কর্মজীবনে একাধিক চড়াই-উতরাই পার হয়েও তিনি নিজের জনপ্রিয়তা ধরে রাখতে সক্ষম হয়েছে। প্রথম দিকে তিনি রোম্যান্টিক চরিত্রেই অভিনয় করতেন। পরে তিনি অ্যাকশন চলচ্চিত্র ও থ্রিলারে অভিনয় করতে শুরু করেন। তিনি একাধিক পুরস্কার পেয়েছেন। এর মধ্যে দুটি ফিল্মফেয়ার পুরস্কারও রয়েছে। অভিনয়ের পাশাপাশি শাহিদ দাতব্য প্রতিষ্ঠানগুলিকে সাহায্য করেন, পুরস্কার বিতরণী অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেন এবং ড্যান্স রিয়্যালিটি শো ঝলক দিখলা জা রিলোডেড-এ প্রতিভা বিচারকের ভূমিকায়ও অংশ নিয়েছেন। অভিনেত্রী করিনা কপুরের সঙ্গে তাঁর একসময় প্রণয়ের সম্পর্ক ছিল। কিন্তু সেই সম্পর্ক ভেঙে যাওয়ার পর ২০১৫ সালে তিনি নতুন দিল্লির এক ছাত্রী মীরা রাজপুতকে বিয়ে করেন।

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

১৯৮১ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি ভারতের নতুন দিল্লিতে শাহিদ কপুরের জন্ম। তাঁর বাবা হলেন অভিনেতা পঙ্কজ কপুর ও মা হলেন অভিনেত্রী-নৃত্যশিল্পী নীলিমা আজিম[১][২] শাহিদের যখন তিন বছর বয়স, তখন তাঁর বাবা-মায়ের মধ্যে বিবাহ বিচ্ছেদ ঘটে। তাঁর বাবা মুম্বই চলে যান এবং অভিনেত্রী সুপ্রিয়া পাঠককে বিয়ে করেন। শাহিদ দিল্লিতে তাঁর মা, দাদামশাই ও দিদিমার সঙ্গে বাস করতে থাকেন।[৩][৪] তাঁর দাদামশাই ও দিদিমা ছিলেন রাশিয়ান পত্রিকা স্পুটনিক-এর সাংবাদিক। শাহিদ তাঁর দাদামশাইকে বিশেষ ভালোবাসতেন: “তিনি প্রতিদিন আমার সঙ্গে স্কুল পর্যন্ত হেঁটে যেতেন। তিনি আমাকে বাবার কথা বলতেন। বাবার সঙ্গে তাঁর খুব ভালো সম্পর্ক ছিল। তিনি আমাকে বাবার চিঠিগুলি পড়ে শোনাতেন।”[৩] শাহিদের বাবা সেই সময় মুম্বইয়ের এক পরিশ্রমী অভিনেতা ছিলেন। বছরে একবার মাত্র শাহিদের জন্মদিনে তিনি শাহিদের কাছে আসতেন।[৩] শাহিদের যখন ১০ বছর বয়স, সেই সময় তাঁর মা তাঁকে নিয়ে মুম্বই চলে আসেন। তাঁর মা ছিলেন নৃত্যশিল্পী। তিনি মুম্বই এসেছিলেন অভিনেত্রী হিসেবে কাজ করার জন্য।[৩]

মুম্বইতে নীলিমা আজিম বিয়ে করেন অভিনেতা রাজেশ খট্টরকে[৪] ২০০১ সালে নীলিমা ও রাজেশের বিবাহ বিচ্ছেদ পর্যন্ত শাহিদ তাঁদের সঙ্গেই থাকতেন।[৪] তার পরেও শাহিদ নিজের পাসপোর্টে খট্টর পদবিই ব্যবহার করেছেন।[৫] মায়ের দিক থেকে তাঁর একটি সৎ ভাইও আছে। তিনি নীলিমা ও রাজেশের সন্তান।[৪] শাহিদের বাবা পঙ্কজ ও সুপ্রিয়া পাঠকের দিক থেকে শাহিদের দুটি সৎ ভাইবোন আছে।[৬] শাহিদের বিদ্যালয় শিক্ষা দিল্লির জ্ঞান ভারতী স্কুল ও মুম্বইয়ের রাজহংস বিদ্যালয়ে[৭] পরে তিনি মুম্বইয়ের মিঠিবাই কলেজে তিন বছর পড়াশোনা করেন।[৮]

শাহিদ অল্প বয়স থেকেই নাচে আগ্রহী ছিলেন। ১৫ বছর বয়সে তিনি শিয়ামক দাবারের ড্যান্স ইনস্টিটিউটে যোগ দেন।[৯] সেখানকার ছাত্র হিসেবে তিনি দিল তো পাগল হ্যায় (১৯৯৭) ও তাল (১৯৯৯) চলচ্চিত্রে সহ-নৃত্যশিল্পী হিসেবে কাজ করেন। এই দুই ছবিতে দাবার নৃত্য পরিচালক ছিলেন।[৯] ইনস্টিটিউটের অনুষ্ঠানে শাহিদ গগগোল্ডেনআই গানদুটির সঙ্গে নাচেন। এই অনুষ্ঠানে তিনি ইতিবাচক প্রতিক্রিয়া পান। পরবর্তীকালে এই অভিজ্ঞতা সম্পর্কে তিনি বলেছিলেন যেম তাঁর “নিজেকে তারকা মনে হচ্ছিল।”[৯] পরে তিনি ইনস্টিটিউটের একজন প্রশিক্ষক হয়েছিলেন।[৯] এই সময় শাহিদ তাঁর বন্ধুকে নিয়ে পেপসির একটি বিজ্ঞাপনের আডিশনে যান। এই বিজ্ঞাপনে শাহরুখ খান, কাজলরানি মুখোপাধ্যায় অভিনয় করছিলেন। এই বিজ্ঞাপনে অভিনয়ের সুযোগ তিনিই পেয়ে যান।[৩] শাহিদ কিট ক্যাট, ক্লোজ-আপ ও অন্যান্য ব্যান্ডের টেলিভিশন বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেন। কয়েকটি মিউজিক ভিডিওতেও অভিনয় করেন। এর মধ্যে ছিল আর্যন ব্যান্ড ও কুমার শানুর মিউজিক ভিডিও।[১০] ১৯৯৮ সালে তিনি তাঁর বাবার সঙ্গে টেলিভিশন ধারাবাহিক মোহনদাস বি.এ.এল.এল.বি-এ সহকারী পরিচালকের কাজও করেন।[১০][১১]

অভিনয় জীবন[সম্পাদনা]

প্রথম দিকের কাজ (২০০৩-০৫)[সম্পাদনা]

Shahid Kapoor, wearing sunglasses, looks away from the camera
২০০৪ সালে শাহিদ কপুর

ছবির তালিকা[সম্পাদনা]

বছর ছবির নাম চরিত্র টুকিটাকি
১৯৯৯ তাল Background dancer in song "Kahin Aag Lage"
২০০৩ ইশক ভিসক Rajiv Mathur Filmfare Award for Best Male Debut
২০০৪ ফিদা Jai Malhotra
২০০৪ দিল মাঙ্গে মোর Nikhil Mathur
২০০৫ দিবানা হুয়ে পাগল Karan
২০০৫ ভা! লাইফ হ ত এইসা! Aditya (Adi) Verma
২০০৫ শিকার Jaidev Vardhan (Jai)
২০০৫ ৩৬ চায়না টাউন Raj Malhotra
২০০৬ চুপ চুপ কে Jeetu Prasad
২০০৬ বিবাহ Prem
২০০৭ ফুল এন ফাইনাল Raja/Rahul
২০০৭ জাব ওয়ে মেট Aditya Kashyap Nominated—Filmfare Award for Best Actor
২০০৮ কিস্মত কানেকশন Raj Malhotra
২০০৯ কামিনে Charlie/Guddu Nominated—Filmfare Award for Best Actor
২০০৯ দিল বলে হাডিপ্পা! Rohan Singh
২০১০ চ্যান্স পে ড্যান্স Sameer Behl
২০১০ পাঠশালা Rahul Prakash Udyavar Extended cameo
২০১০ বদমাশ কোম্পানি Karan
২০১০ মিলেঙ্গে মিলেঙ্গে Amit Singh (Immy)
২০১১ মৌসুম (২০১১) Harinder Singh (Harry)
২০১২ তেরী মেরী কাহানী Jawed/Govind/Krish
২০১৩ বোম্বে টককিস Himself Special appearance in song "Apna Bombay Talkies"
২০১৩ ফাটা পোষ্টার নিকলা হিরো Vishwas Rao

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  1. "Happy Birthday Shahid Kapoor: Simply Shaandaar@35"NDTV। ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৬। সংগৃহীত ৭ মার্চ ২০১ইটালিক লেখা 
  2. Masand, Rajeev (১৯ নভেম্বর ২০০৬)। "Kareena says I oversleep: Shahid"CNN-IBN। সংগৃহীত ৭ মার্চ ২০১৬ 
  3. ৩.০ ৩.১ ৩.২ ৩.৩ ৩.৪ Gupta, Priya (৫ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "I am tired of dating heroines: Shahid Kapoor"The Times of India। সংগৃহীত ৫ জুলাই ২০১৫ 
  4. ৪.০ ৪.১ ৪.২ ৪.৩ Olivera, Roshni K (৩০ নভেম্বর ২০০৭)। "Ishaan’s not a Kapur: Rajesh Khattar"The Times of India। সংগৃহীত ২৩ জুন ২০১৩ 
  5. "Dual identities"The Times of India। ১৪ ডিসেম্বর ২০১৪। সংগৃহীত ৩১ জুলাই ২০১৩ 
  6. Lalwani, Vickey (১৬ আগস্ট ২০১৪)। "Shahid Kapoor to face tough competition from siblings"The Times of India। সংগৃহীত ৫ জুলাই ২০১৫ 
  7. "Shahid Kapoor gets nostalgic about his school days"Mid Day। ৩১ মার্চ ২০১০। সংগৃহীত ২৩ জুন ২০১৩ 
  8. "Just how educated are Bollywood stars"Rediff.com। ১২ জানুয়ারি ২০১২। সংগৃহীত ১৭ জুলাই ২০১৫ 
  9. ৯.০ ৯.১ ৯.২ ৯.৩ Bhattacharya, Roshmila (১৪ জানুয়ারি ২০১০)। "Come dance with me: Shahid Kapoor"Hindustan Times। সংগৃহীত ৪ জুলাই ২০১৫ 
  10. ১০.০ ১০.১ "All smiles and success..."The Hindu। ২৬ মে ২০০৩। সংগৃহীত ৪ জুলাই ২০১৫ 
  11. "Cloak 'n' dagger"India Today। ১২ জানুয়ারি ১৯৯৮। সংগৃহীত ৪ জুলাই ২০১৫