রসুলান বাঈ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রসুলান বাঈ
জন্ম১৯০২
কছোয়া বাজার, মির্জাপুর, উত্তরপ্রদেশ, ভারত
মৃত্যু১৫ ডিসেম্বর, ১৯৭৪
ধরনঠুমরী, হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত
পেশাগায়িকা

রসুলান বাঈ (১৯০২-১৯৭৪) বেনারস ঘরানার একজন বিখ্যাত হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীতশিল্পী ছিলেন। তিনি ঠুমরী ও টপ্পায় দক্ষ ছিলেন। হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত জগতে তার অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৫৭ সালে তাকে সংগীত নাটক আকাদেমি পুরস্কার প্রদান করেছিল সংগীত নাটক আকাদেমি।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

তিনি জন্মেছিলেন ১৯০২ সালে, উত্তর প্রদেশের মির্জাপুরের কছোয়া বাজার এর এক গরিব পরিবারে। ছোট বেলা থেকেই তার সংগীত প্রতিভার প্রকাশ পাওয়া যায়। তার মা আদালতও সংগীতে দক্ষ ছিলেন। ছোট থেকেই তিনি রাগ সংগীতে দক্ষ ছিলেন। তার প্রতিভার পরিচয় পেয়ে পাঁচ বছর বয়সেই তাকে সংগীত সাধনার জন্য ওস্তাদ শাম্মু খানের কাছে পাঠান হয়।[১] এছাড়াও তিনি ওস্তাদ নাজ্জু খান ও আশিক খানের নিকট সংগীতশাস্ত্রে তালিম নিয়েছিলেন।[২][৩]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

রসুলান বাঈ টপ্পা গানে দক্ষ ছিলেন। এছাড়াও পুরব আং, ঠুমরী, দাদরা, পুরবি গীত, হোরি, কাজরি, চৈতিসহ শাস্ত্রীয় সংগীতের বিভিন্ন শাখায় দক্ষ ছিলেন।[২] তিনি ধনঞ্জয়কোর্টে প্রথমবারের মত জনসাধারণের সম্মুখে সংগীত পরিবেশন করেন। তার সংগীত দর্শকশ্রোতাকে মুগ্ধ করে। এরপর তিনি স্থানীয় রাজাদের ডাকে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে শাস্ত্রীয় সংগীত পরিবেশন করেছিলেন। পাঁচ দশক ধরে বেনারসে ভারতীয় শাস্ত্রীয় সংগীত জগতে রাজত্ব করেছেন তিনি। ১৯৪৮ সালে তিনি মুজরা পরিবেশন বন্ধ করে দেন এবং এক বেনারসী শাড়ি বিক্রেতাকে বিবাহ করে বেনারসেই বসবাস শুরু করেন।[৪]

১৯৭২ সাল পর্যন্ত অল ইন্ডিয়া রেডিওর লখনৌএলাহাবাদ স্টেশন এবং দূরদর্শন থেকেও তার শাস্ত্রীয় সংগীত প্রচারিত হয়েছে। তিনি সর্বশেষ কাশ্মীরে জনসাধারণের সম্মুখে গেয়েছিলেন।

ভারতের অন্যতম সেরা গায়িকা হওয়া সত্ত্বেও তাকে যুদ্ধ করতে হয়েছে অতিশয় দারিদ্র‍্যের সাথে। তিনি রেডিও স্টেশনের নিকটেই একটি চায়ের দোকান চালাতেন, যে রেডিও স্টেশন থেকে তার গাওয়া শাস্ত্রীয় সংগীত প্রচারিত হত। বিখ্যাত শাস্ত্রীয় সংগীতশিল্পী নয়না দেবী তার অধীনে গানের তালিম নিয়েছেন।[৫]

১৯৬৯ সালে, তার বাড়ি, কতিপয় দুষ্কৃতিকারী সাম্প্রদায়িক দাঙ্গার সময় পুড়িয়ে দেয়।[৬] ১৯৭৪ সালের ১৫ই ডিসেম্বর, ৭২ বছর বয়সে, তিনি মৃত্যুবরণ করেন।[৭]

২০০৯ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত সাবা দেওয়ান এর প্রামান্যচিত্র ইন আদার ওয়ার্ডস এ তার গাওয়া লাগাত করেজোয়া মা চোট, ফুল গেন্দোয়া না মার গানটি ব্যবহৃত হয়েছিল যেটি ১৯৩৫ সালে তিনি গ্রামোফোনে রেকর্ড করেছিলেন।[৮][৯] চলচ্চিত্রটি ২০০৯ সালে বুসান আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে পুরস্কার জিতেছিল।[১০]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

হিন্দুস্তানি শাস্ত্রীয় সংগীত জগতে তার অসামান্য অবদানের জন্য ১৯৫৭ সালে তাকে সংগীত নাটক আকাদেমি পুরস্কার প্রদান করা হয়।[১১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Susheela Misra (১৯৯১)। Musical Heritage of Lucknow। Harman Publishing House। পৃষ্ঠা 44। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  2. Projesh Banerji (১ জানুয়ারি ১৯৮৬)। Dance In Thumri। Abhinav Publications। পৃষ্ঠা 74–। আইএসবিএন 978-81-7017-212-3। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  3. Peter Lamarche Manuel (১৯৮৯)। Ṭhumri: In Historical and Stylistic Perspectives। Motilal Banarsidass। পৃষ্ঠা 87–। আইএসবিএন 978-81-208-0673-3। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  4. "Bring On The Dancing Girls"। Tehelka Magazine, Vol 6, Issue 44। ৭ নভেম্বর ২০০৯। ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  5. "Glimpses of Naina"The Hindu। ৮ ডিসেম্বর ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  6. Saeed Naqvi (২৩ জানুয়ারি ২০০৪)। "The power of Gujarat's godmen"Indian Express। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  7. Gopa Sabharwal (১ জানুয়ারি ২০০৭)। India Since 1947: The Independent Years। Penguin Books India। পৃষ্ঠা 154–। আইএসবিএন 978-0-14-310274-8। সংগ্রহের তারিখ ১১ জুন ২০১৩ 
  8. Film screening The Hindu, 28 August 2009.
  9. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ১১ আগস্ট ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ মার্চ ২০১৯ 
  10. http://www.biff.kr/structure/eng/default.asp
  11. Sangeet Natak Akademi Award - Music:Vocal ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১২ তারিখে Sangeet Natak Akademi Award Official listings.