যোনিস্রাব

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
যোনিস্রাব
Normal cervix and vaginal discharge.jpg
মেডিকেল পরীক্ষার সময় সাধারণ যোনি ও সার্ভিক্স, যেখানে যোনি রস যোনির দেয়াল, সার্ভিক্স থেকে নিঃসৃত হচ্ছে।
শ্রেণীবিভাগ এবং বহিঃস্থ সম্পদ
বিশিষ্টতাপ্রসূতিবিজ্ঞান

যোনিস্রাব (ইংরেজি: Vaginal Discharge) হলো জল, কোষব্যাকটেরিয়ার মিশ্রন যা যোনিকে পিচ্ছিল করে ও জীবানুর আক্রমন থেকে রক্ষা করে। [১] যোনি ও কারভিক্সের কোষগুলো অনর্গল এ মিশ্রনটি তৈরী করতে থাকে এবং যোনির মুখ দিয়ে বের হয়। সার্ভিক্স ও যোনির কোষসমূহ অনর্গল এমন মিশ্রন তৈরী করতে থাকে এবং যোনির মুখ দিয়ে তা বের হতে থাকে। এ মিশ্রনের গঠন, পরিমাণ ও মান এক বয়স থেকে অন্যবয়সে এবং একজন থেকে অন্যজনে আলাদা হয়। [২] সাধারণ যোনিস্রাব পাতলা বা ঘন, পরিচ্ছন্ন বা শাদা রঙের মত হতে পারে। [১] সাধারণ যোনিস্রাব পরিমাণে বেশি হতে পারে, তবে এর বিশেষ কোন গন্ধ নেই, এবং ব্যথা বা চুলকানির সাথে কোন সম্পর্ক নেই। [২] যখন বেশিরভাগ স্রাবই শরীরের স্বাভাবিক প্রক্রিয়ার অংশ, কিছু স্রাব রোগসঞ্চার বা সংক্রমনের অংশ। [৩][৪] যোনিস্রাবের পরিমানের পরিবর্তন বিভিন্ন কারণে হতে পারে, যেমন, যোনি ঈস্ট সংক্রমন, ব্যাকটেরিয়াল ভ্যাজাইনোসিস, ও যৌনসংক্রামক রোগ। [৫] অস্বাভাবিক যোনিস্রাবের ধরন বিভিন্ন হতে পারে, স্বাভাবিক কিছু বৈশিষ্ট্য হলো, রঙের পরিবর্তন, খারাপ গন্ধ, চুলকানো, পোড়ভাব, তলপেটে ব্যথা,যৌনমিলনের সময় ব্যথা, ইত্যাদি।

স্বাভাবিক স্রাব[সম্পাদনা]

সাধারণ যোনিস্রাব সার্ভিকেল শ্লেষ্মা, যোনিরস, মৃত যোনি ও সার্ভিকেল কোষ ও ব্যাক্টেরিয়ার সমন্বয়ে তৈরী। [১]

সার্ভিক্স গ্রন্থি থেকে তৈরী শ্লেষ্মা থেকেই যোনিস্রাবের অধিকাংশ তরল অংশ আসে। [১][৩] যোনি দেয়াল থেকে ট্রান্সুডেট, স্কিন ও বার্থোলিন গ্রন্থি থেকে বাকী অংশ আসে। [৩] কঠিন উপাদানগুলো যোনি দেয়াল ও সার্ভিক্সের উঁচু নিচু এপিথেলিয়াল কোষ ও যোনিতে থাকা কিছু ব্যাকটেরিয়া থেকে আসে। [১] যোনিতে থাকা এসব ব্যাকটেরিয়া সাধারণত কোন রোগ ঘটায় না। এমনকি ক্ষেত্রবিশেষ লেকটিক এসিড ও হায়ড্রোজেন পেরোক্সাইড উৎপাদনের মাধ্যমে কোন ব্যক্তিকে তারা অন্য সংক্রামক ও আক্রমণাত্মক ব্যাকটেরিয়া থেকে রক্ষা করে। [৫]

সাধারণ যোনিস্রাব সাধারণত পরিষ্কার, শাদা বা আবছায়া শাদা হয়ে থাকে। [১] এ স্রাবের ঘনত্ব মেঘাচ্ছন্ন থেকে ঝাড়যুক্ত হতে পারে, গন্ধ একেবারে নাও থাকতে পারে বা থাকলেও খুব অল্প। [১] যোনির একেবারে গভীরতম অংশে (পোস্টেরিওর ফরনিক্স) স্রাবের অধিকাংশ অংশ তৈরী হয়[২] এবং অভিকর্ষ বলের প্রভাবে একদিনের মধ্যে তা বের হয়ে আসে। [১][৩] একজন সাধারণ প্রজনন ক্ষমতাসম্পন্ন মহিলা প্রতিদিন ১.৫ গ্রাম(আধ চামচ) যোনিস্রাব তৈরী করে। [১]

যৌন উত্তেজনা ও মিলনের সময় যোনির চারপাশের ধমনী ফুলে উঠায় তরলের পরিমাণ বেড়ে যায়। ধমনীর এমন ফুলে উঠা যোনির দেয়ালগুলোতে ট্রান্সুডেটের পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। [৩] ট্রান্সুডেটের পিএইচ নিরপেক্ষ হওয়ায়, এর পরিমাণ বেড়ে যাওয়াতে যোনির পিএইচও আরও নিরপেক্ষ হয়ে যায়। [৩] বীর্যেরও প্রাথমিক পিএইচ থাকায়, এটি ৮ ঘন্টারও বেশি সময় ধরে যোনির অম্লত্ব প্রশমিত করে রাখে। [৩]

একজন ব্যক্তি যখন যৌন ও প্রজনন উন্নয়নের ভিন্ন ভিন্ন ধাপের ভেতর দিয়ে যায় যোনিস্রাবের পরিমাণ ও ঘনত্বেরও সাথে সাথে পরিবর্তন হয়। [৩] 

নবজাতক[সম্পাদনা]

নবজাতক থাকা অবস্থায় জন্মের প্রথম কিছুদিন পর যোনিস্রাব ঘটে। এ সময়ের যোনিস্রাব সাদা বা শ্লেষ্মার মত দেখতে পরিচ্ছন্ন হতে পারে, বা রক্তিম হওয়াও স্বাভাবিক। [৬]

পেডিয়াট্রিক[সম্পাদনা]

বয়ঃসন্ধির পূর্বে মেয়েদের যোনি আরও পাতলা হয় এবং ভিন্ন ব্যাক্টেরিয়াল ফ্লোরা থাকে। [১][৩] রজোদর্শনারম্ভের পূর্বে মেয়েদের যোনিস্রাবের অম্লত্ব ৬-৮ হয়, অর্থাৎ নিরপেক্ষ থেকে ক্ষারীয়। [৭]  

বয়ঃসন্ধি[সম্পাদনা]

বয়ঃসন্ধির সময় ডিম্বাশয় সমূহ থেকে এস্ট্রোজেন হরমোন তৈরী শুরু হয়। [২] এমনকি রজঃস্রাব শুরু হওয়ার আগেও(আদ্যঋতু শুরু ১২ মাস আগে, সাধারণত স্তন কুড়ি উন্নয়নের সময়)[৩]) যোনিস্রাবের পরিমাণ বৃদ্ধি পায় এবং এর গঠন ও ঘনত্বে পরিবর্তন আসে। [৭] এস্ট্রোজেন যোনি কলাসমূহকে পরিপক্কতা দেয় এবং যোনির এপিথেলিয়াল কোষসমূহ দ্বারা গ্লাইকোজেনের বৃদ্ধির কারণও এস্ট্রোজেন। [১] এমনকি এসময় যোনির অম্লত্ব ৩.৫ থেকে ৪.৭ এর মধ্যে থাকে। [১]

রজঃস্রাব চক্র[সম্পাদনা]

রজঃস্রাব চক্র যত এগিয়ে যায়, যোনিস্রাবের পরিমাণ ও ধারাবাহিকতাও ধীরে ধীরে পরিবর্তিত হয়। [৮] ঋতুস্রাব শেষের পরের দিনই, যোনিস্রাবের পরিমাণ একেবারে কমে যায়, এবং তা সাধারণত বৈশিষ্ট্যে আঠালো ও ঘন হয়। [৯] ডিম্বস্ফোটনের সময় ইস্ট্রোজেনের পরিমাণের বৃদ্ধি সাথে সাথে যোনিস্রাবের পরিমাণেও বৃদ্ধি ঘটায়। [৯] ডিম্বস্ফোটনের সময় স্রাবের পরিমাণ রজঃস্রাবের পর পর যে স্রাব হয়, তার তুলনায় প্রায় ৩০ গুণ বেশি হয়। [৯] এ সময় রজঃস্রাবের রঙ ও ঘনত্বও পরিবর্তিত হয়, স্থিতিস্থাপক ঘনত্বের সাথে সাথে তা আরও পরিচ্ছন্ন রঙের হয়ে উঠে। [৯] ডিম্বস্ফোটনের পর শরীরের প্রোজেস্টেরনের পরিমাণ কমে যায়, সাথে সাথে যোনিস্রাবের পরিমাণও কমে আসে। [৯] স্রাবের ঘনত্ব আবার বেড়ে যায় এ সময়, রঙও কিছুটা ঘোলাটে হয়ে আসে। [৯]

গর্ভাবস্থা[সম্পাদনা]

গর্ভাবস্থায় শরীরে ইস্ট্রোজেন ও প্রোজেস্টেরনের পরিমাণ বেড়ে যাওয়ায় যোনিস্রাবও বেড়ে যায়। [১০] এ স্রাব সাধারণত শাদা বা হালকা ধুসর হয়ে থাকে এবং এর টক জাতীয় একটা গন্ধ থাকতে পারে। [১০] গর্ভাবস্থায় সাধারণে স্রাবে কোন রক্ত থাকে না।

মেনোপজ[সম্পাদনা]

মেনোপজের সাথে ইস্ট্রোজেনের পরিমাণ কমে যায়, যোনিস্রাবের পরিমাণ প্রাক-কৈশোরের অবস্থায় এসে যায়।[১১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বেকম্যান, আর.বি. (২০১৪)। Obstetrics and Gynecology (৭ম সংস্করণ)। বালতিমোর, এমডি: লিপিনকট উইলিয়ামস এন্ড উইলকিনস। পৃষ্ঠা ২৬০। আইএসবিএন 9781451144314 
  2. হ্যাকার, নেভিলে এফ. (২০১৬)। Hacker & Moore's Essentials of Obstetrics and Gynecology (6th সংস্করণ)। ফিলাডেলফিয়া, পিএ: এলসভিয়ার। পৃষ্ঠা ২৭৬। আইএসবিএন 9781455775583 
  3. লেনৎজ, গ্রেচেন এম. (২০১২)। Comprehensive Gynecology (6th সংস্করণ)। Philadelphia, PA: এলসভিয়ার। পৃষ্ঠা ৫৩২–৫৩৩। আইএসবিএন 9780323069861 
  4. LeBlond, Richard F. (২০১৫)। "১১ অধ্যায়"। DeGowin's Diagnostic Examination (১০ম সংস্করণ)। ম্যাকগ্র-হিল এডুকেশন। আইএসবিএন 9780071814478 
  5. Rice, Alexandra (২০১৬)। "Vaginal Discharge"। Obstetrics, Gynaecology & Reproductive Medicine২৬ (১১): ৩১৭–৩২৩। 
  6. Hoffman, Barbara; Schorge, John; Schaffer, Joseph; Halvorson, Lisa; Bradshaw, Karen; Cunningham, F. (২০১২-০৪-১২)। Williams Gynecology, Second Edition। McGraw Hill Professional। আইএসবিএন 9780071716727 
  7. অ্যাডামস, হিলার্ড, পলা। Practical pediatric and adolescent gynecologyওসিএলসি 841907353 
  8. "Age 25 - Entire Cycle | Beautiful Cervix Project"beautifulcervix.com। ২০০৮-১২-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-১২-১৬ 
  9. Reed, Beverly G.; Carr, Bruce R. (২০০০-০১-০১)। "The Normal Menstrual Cycle and the Control of Ovulation"। De Groot, Leslie J.; Chrousos, George; Dungan, Kathleen; Feingold, Kenneth R.; Grossman, Ashley; Hershman, Jerome M.; Koch, Christian; Korbonits, Márta; McLachlan, Robert। Endotext। South Dartmouth (MA): MDText.com, Inc.। PMID 25905282 
  10. Leonard., Lowdermilk, Deitra; E., Perry, Shannon (২০০৬-০১-০১)। Maternity nursing। Mosby Elsevier। ওসিএলসি 62759362 
  11. 1918-2006., Barber, Hugh R. K. (১৯৮৮-০১-০১)। Perimenopausal and geriatric gynecology। Macmillan। ওসিএলসি 17227383 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

শ্রেণীবিন্যাস
বহিঃস্থ তথ্যসংস্থান