মৌলভি তমিজউদ্দিন খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মৌলভি তমিজউদ্দিন খান
TamizuddinKhan.jpg
জাতীয় পরিষদের স্পিকার
কাজের মেয়াদ
১১ জুন ১৯৬২ – ১৯ আগস্ট ১৯৬৩
ডেপুটিমুহাম্মদ আফজাল চিমা
পূর্বসূরীআবদুল ওয়াহাব খান
উত্তরসূরীফজলুল কাদের চৌধুরী
কাজের মেয়াদ
১১ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮ – ১২ আগস্ট ১৯৫৫
ডেপুটিএম. এইচ. গাজদার
পূর্বসূরীমুহাম্মদ আলি জিন্নাহ
উত্তরসূরীআবদুল ওয়াহাব খান
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম১৮৮৯
ফরিদপুর (রাজবাড়ি), বেঙ্গল প্রেসিডেন্সি, ব্রিটিশ ভারত
মৃত্যু১৯ আগস্ট ১৯৬৩ (৭৩ বছর)
ঢাকা, পূর্ব পাকিস্তান, পাকিস্তান
রাজনৈতিক দলমুসলিম লীগ (১৯১৫-১৯৬৩)
ভারতীয় জাতীয় কংগ্রেস (১৯২১–১৯২৬)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীপ্রেসিডেন্সি কলেজ
সুরেন্দ্রনাথ কলেজ
কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়

মৌলভি তমিজউদ্দিন খান বা এম. টি. খান (১৮৮৯ - ১৯ আগস্ট ১৯৬৩),[১] ছিলেন ব্রিটিশ ভারতের বহুল পরিচিত একজন বাঙালি রাজনীতিবিদ। অবিভক্ত বাংলায় তিনি মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বপালন করেছেন। তিনি ১৯৪৮ থেকে ১৯৫৪ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান গণপরিষদ এবং ১৯৬২ থেকে ১৯৬৩ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের স্পিকার ছিলেন।[২] ১৯৪৯ সালে তিনি মূলনীতি কমিটির সদস্য ছিলেন।

গভর্নর জেনারেল মালিক গোলাম মুহাম্মদ ১৯৫৪ সালে গণপরিষদ বাতিল করার পর তমিজউদ্দিন খান পদক্ষেপ নেন। তিনি আদালতে এই সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে আইনজীবী মনজুরে আলমের মাধ্যমে ১৯৫৪ সালের ৭ নভেম্বর সকালে মামলা করেন।[৩] মামলায় তিনি জয়ী হলেও আপিলের পর ফেডারেল আদালত গভর্নর জেনারেলের আদেশ বহাল রাখে।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

তমিজউদ্দিন খান ১৮৮৯ সালে বেঙ্গল প্রেসিডেন্সির ফরিদপুরে (বর্তমান রাজবাড়ি) জন্মগ্রহণ করেন। ১৯১৩ সালে তিনি ইংরেজিতে এম. এ. ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯১৫ সালে আইন পাস করার পর তিনি ফরিদপুরে আইনজীবী হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন।[১]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

আইনপেশার পাশাপাশি তিনি রাজনীতিতেও অংশ নেন। তিনি প্রথমে কংগ্রেস ও পরে মুসলিম লীগে যোগ দেন। তিনি আঞ্জুমানে ইসলামিয়ার সম্পাদক ছিলেন। খিলাফত ও অসহযোগ আন্দোলনে তিনি অংশগ্রহণের কারনে তাকে কারারুদ্ধ করা হয়েছিল। ১৯২০ সাল থেকে ব্রিটিশ সরকার ভোটাধিকার সম্প্রসারণ শুরু করলে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তিত্ব হয়ে উঠেন। ১৯২৬ সালে কংগ্রেসপন্থি মুসলিম জমিদারকে পরাজিত করে তিনি বঙ্গীয় আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন।[১]

১৯৩৭ সালের নির্বাচনে তমিজউদ্দিন আহমেদ তার প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেসের হুমায়ুন কবিরকে পরাজিত করেন। এ কে ফজলুল হকের প্রজাপার্টি‌ ও মুসলিম লীগের জোট সরকার তাকে গ্রহণ না করায় তিনি স্বাধীন প্রজা সমিতি প্রতিষ্ঠা করেন এবং আইন পরিষদের কংগ্রেস নেতা শরৎ বসুর সাথে আলাপ শুরু করেন। ১৯৩৮ সালের জুনে বেঙ্গল টেনেন্সি এমেন্ডমেন্ট বিল কেন্দ্র করে কংগ্রেস হক মন্ত্রিসভাকে নিয়ে অনাস্থা প্রস্তাব দিলে তমিজউদ্দিন খান তা সমর্থন করেন। তবে প্রস্তাবটি ব্যর্থ হয়। এরপর শেরে বাংলা তাকে মন্ত্রীসভায় ঔষধ ও জনস্বাস্থ্য দপ্তরের দায়িত্ব দেন। পরে তাকে কৃষি ও শিল্প দপ্তরের দায়িত্ব দেয়া হয়।[১]

১৯৪১ সালে প্রজাপার্টি‌ ও মুসলিম লীগের মধ্যে ফাটল দেখা দেয়ার পর শামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের সাথে ফজলুল হক দ্বিতীয় জোট সরকার গঠন করেন। এসময় অন্যান্য মুসলিম লীগ সদস্যদের সাথে তমিজউদ্দিন খান আইন পরিষদে বিরোধী দলে যোগ দেন। পরবর্তীতে নাজিমউদ্দিনের নেতৃত্বে গঠিত নতুন জোট সরকারে তমিজউদ্দিন শিক্ষামন্ত্রী হন। ১৯৪৫ সালে আইন পরিষদ ভেঙে যায়।[১]

পাকিস্তানের স্পিকার[সম্পাদনা]

তমিজউদ্দিন খান পাকিস্তান আন্দোলনের সমর্থক ছিলেন। ১৯৪৫ সালে ঢাকা ময়মনসিংহ নির্বাচনী এলাকা থেকে তিনি টাঙ্গাইলের আবদুল হালিম গজনভিকে পরাজিত করে কেন্দ্রীয় আইন পরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। পাকিস্তান প্রতিষ্ঠার পর তিনি পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য হন। পরে তিনি পরিষদের ডেপুটি স্পিকার নির্বাচিত হন। এসময় স্পিকার ছিলেন মুহাম্মদ আলি জিন্নাহ। ১৯৪৮ সালে জিন্নাহর মৃত্যুর পর তিনি স্পিকার হন। সংবিধান রচনার জন্য তার অব্যাহত প্রচেষ্টা ছিল।[১]

১৯৫৪ সালে গভর্নর জেনারেল মালিক গোলাম মুহাম্মদ গণপরিষদ ভেঙে দিলে তমিজউদ্দিন খান সিন্ধু আদালতে তমিজউদ্দিন খান বনাম ফেডারেশন অব পাকিস্তান নামক মামলে করে। মামলায় তিনি জয়ী হন। তবে সরকারপক্ষ আপিল করার পর ফেডারেল আদালত রাষ্ট্রীয় প্রয়োজনে সিন্ধু আদালতের রায় বাতিল করে গভর্নর জেনারেলের আদেশ বহাল রাখে।[১]

১৯৬২ সালে তমিজউদ্দিন খান পুনরায় জাতীয় পরিষদের সদস্য ও স্পিকার হন। আমৃত্যু তিনি এই পদে বহাল ছিলেন।[১]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মৌলভি তমিজউদ্দিন খান ১৯৬৩ সালের ১৯ আগস্ট ইন্তেকাল করেন।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

রাজনৈতিক দপ্তর
পূর্বসূরী
মুহাম্মদ আলি জিন্নাহ
জাতীয় পরিষদের স্পিকার
১৯৪৮-১৯৫৫
উত্তরসূরী
আবদুল ওয়াহাব খান
পূর্বসূরী
আবদুল ওয়াহাব খান
জাতীয় পরিষদের স্পিকার
১৯৬২–১৯৬৩
উত্তরসূরী
ফজলুল কাদের চৌধুরী