মেহেরীন জব্বার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেহেরীন জব্বার
মেহেরীন জব্বার.jpg
রামচাঁদ পাকিস্তানি চলচ্চিত্র নির্মাণকালে মেহেরীন
জন্ম (1971-12-29) ২৯ ডিসেম্বর ১৯৭১ (বয়স ৪৯)
পেশাটেলিভিশন নাটক প্রযোজক-পরিচালক, চলচ্চিত্র পরিচালক[১]
কর্মজীবন১৯৯৪-বর্তমান
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ওয়েবসাইট

মেহেরীন জব্বার হচ্ছেন পাকিস্তানের একজন প্রগতিবাদী নারী যিনি পাকিস্তানে চলচ্চিত্র পরিচালনা করেন এবং টেলিভিশন নাটক বানান। সিন্ধু প্রদেশে ১৯৭১ সালে জন্মগ্রহণকারী মেহেরীন জীবনের একটা বড় অংশ যুক্তরাষ্ট্রে কাটিয়েছিয়েন। তার বাবা জাভেদ জব্বার পাকিস্তান টেলিভিশন কর্পোরেশনে কাজ করতেন।[২] হাম টিভি এবং এআরওয়াই ডিজিটাল সহ পাকিস্তানের নামকরা টেলিভিশন চ্যানেলে মেহেরীন নাটক বানান।[৩] ২০০৮ সালে রামচাঁদ পাকিস্তানি নামের চলচ্চিত্র নির্মাণের মধ্য দিয়ে মেহেরীনের চলচ্চিত্র পরিচালনা কর্মজীবন শুরু হয়, চলচ্চিত্রটি তার বাবা জাভেদ প্রযোজনা করেছিলেন; পাকিস্তানি হিন্দু মানুষদের জীবনধারাকে উপজীব্য করে বানানো চলচ্চিত্রটিকে ভারতেও মুক্তি দেওয়া হয়েছিলো।[৪]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

মেহরিন হলেন একজন পাকিস্তানি-মার্কিন পরিচালক, যিনি এই শিল্পের বিশ বছর বয়সী অভিজ্ঞ, পরিচালক / প্রযোজক হিসাবে প্রচুর ক্যারিয়ার সহ পাকিস্তানি এবং দক্ষিণ এশীয় টেলিভিশনের জন্য টিভি সিরিজ তৈরি করেছেন যা তাকে সমালোচনা ও বাণিজ্যিক সাফল্য এনে দিয়েছে। মেহরীন চলচ্চিত্র উৎসবের পাশাপাশি টিভিতে আন্তর্জাতিকভাবে প্রদর্শিত হয়েছে এমন বেশ কয়েকটি আখ্যান শর্টও তৈরি করেছেন। তার পুরস্কার প্রাপ্ত শর্ট ফিল্ম এবং টিভি নাটকগুলির মধ্যে রয়েছে "দের অব দ্য লেট কর্নেল", "বিউটি পার্লার", "দোরাহ", "দম"; ২০০৮ সালে মেহরিন তার প্রথম ফিচার ফিল্ম ‘রামচাঁদ পাকিস্তানি’ পরিচালনা করেছিলেন যার জন্য তাঁকে ‘গ্লোবাল ফিল্ম ইনিশিয়েটিভ গ্রান্ট’ দিয়ে ভূষিত করা হয়েছিল। চলচ্চিত্রটি ত্রিবেকা ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে প্রতিযোগিতায় প্রিমিয়ার করেছিল এবং সফল 'রান ফেস্টিভ্যাল' চালিয়ে যায়। পরে এটি ২০০৮-০৯ সালে পাকিস্তান, ভারত ও যুক্তরাজ্যে নাট্যমঞ্চে প্রকাশিত হয়েছিল সমালোচনা ও দর্শকদের প্রশংসার জন্য। 'রামচাঁদ পাকিস্তানি' 'ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অফ ফিল্ম সমালোচক'-দের দ্বারা ফিপরেসি পুরস্কার প্রাপ্ত হয়েছিলো, সুইজারল্যান্ডের 'ফ্রিবার্গ ফিল্ম ফেস্টিভ্যালে' শ্রোতা পুরস্কার এবং ১৩তম বার্ষিক সত্যজিৎ রায় পুরস্কার দ্বারা 'সম্মানিত উল্লেখ' হয় এটি, লন্ডন ফিল্ম ফেস্টিভালেও চলচ্চিত্রটি প্রদর্শিত হয়েছিল। ২০১০ সালে মেহরিনকে নিউ ইয়র্কের জাদুঘরের আধুনিক আর্ট জাদুঘরে তার ছবিটির স্ক্রিন করার জন্য আমন্ত্রিত করা হয়েছিল।

নিউ ইয়র্ক এবং করাচিতে শুটিং করা হয়েছিল তার দ্বিতীয় ফিচার ফিল্ম 'দোবার ফির সে'; পাকিস্তান, যুক্তরাজ্য, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে ২০১৬ সালের ডিসেম্বরে একটি সফল নাট্যমঞ্চ মুক্তি পেয়েছিল তার।

মেহরিন করাচিতে জাতীয় চলচ্চিত্র বোর্ডের বোর্ড সদস্য, পাকিস্তানের করাচিতে কারা ফিল্ম ফেস্টিভালের প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং ওয়ার এগেইন্সট রেইপ প্রতিষ্ঠানের সদস্য (ধর্ষণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ) হয়েছেন। ২০১২ সালে তাকে উগান্ডার মাইশা ফিল্ম ল্যাবে আমন্ত্রিত করা হয়েছিল - ভারতীয় পরিচালক মীরা নায়ার পরিচালিত মেন্টার হিসাবে প্রতিষ্ঠিত একটি অলাভজনক প্রশিক্ষণ ল্যাব। তিনি তার কাজের জন্য বেশ কয়েকটি পুরস্কার প্রাপ্ত এবং বহু স্থানীয় এবং আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব জুরীর সদস্য হিসাবে কাজ করেছেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hughes, Amani (১৭ মার্চ ২০১৯)। "Catching up with Beo Zafar"Home Lifestyle (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৭ অক্টোবর ২০১৯ 
  2. https://tribune.com.pk/story/483415/with-coke-kahani-mehreen-jabbar-highlights-the-lives-of-pakistanis/, Interview with Mehreen Jabbar on The Express Tribune newspaper, 23 December 2012, Retrieved 19 March 2017
  3. "New York Story, Karachi Style"। The Wall Street Journal। ২৩ জুন ২০১১। সংগ্রহের তারিখ ১৮ মার্চ ২০১৭ 
  4. Stephen Holden (২০ এপ্রিল ২০১০)। "Ramchand-Pakistani - Directed by Mehreen Jabbar"। The New York Times। ৬ জুন ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ জুন ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]