বিষয়বস্তুতে চলুন

মেইপোরুল নায়নার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মেইপোরুল নায়নার
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম
ধর্মহিন্দুধর্ম
দর্শনশৈবধর্ম, ভক্তি
সম্মাননায়ণার সন্ত

মেইপোরুল নায়নার ( মেইপ্পোরুল নয়নার, মেইপ্পোরুল ( মেপ্পোরুল ), মেইপোরুল, মেপ্পোরুলার, মাইপোরুল নয়নার মিলাদুদাইয়ার নামেও পরিচিত) হলেন একজন নয়নার সাধক যাকে হিন্দুধর্মের শৈব সম্প্রদায়ে শ্রদ্ধা করা হয়। ৬৩ জন নায়নারের তালিকায় তাঁকে পঞ্চমতম হিসেবে গণ্য করা হয়।[১]

জীবনী[সম্পাদনা]

মেইপোরুল নায়নারের জীবনী সেক্কিজহার-কৃত পেরিয়া পুরানমে (দ্বাদশ শতাব্দী) বর্ণনা করা হয়েছে। 'পেরিয়া পুরাণম্' ৬৩ জন নায়নারের জীবনীগ্রন্থ।[১][২]

মেইপোরুল নায়নার ছিলেন মিলাডু নাড়ুর রাজ্যের প্রধান সেনাপতি। মিলাডু নাড়ুর রাজধানী ছিল ভারতের তামিলনাড়ু রাজ্যের ভিলুপুরম জেলার আধুনিক দিনের তিরুকোইলুরে। তিরুক্কয়িলুর শিবকে উৎসর্গিত বীরত্তেশ্বর মন্দিরের জন্য বিখ্যাত।[৩] মেইপোরুল নায়নার ভেলির রাজবাড়ির মালয়মান রাজবংশের অন্তর্গত। তার নাম "মেইপুরুল" অর্থ "যার জন্য ঈশ্বর ছিলেন একমাত্র সত্য"।[৪] মিলাদুদাইয়ার একটি শিরোনাম তাকে মিলাদু প্রধান হিসেবে নির্দেশ করে।[৫]

দেবতা শিবের নিষ্ঠাবান ভক্ত মেইপোরুল নায়নার মন্দিরে দেবতার পাশাপাশি শিবভক্তদের ভক্তদের সেবা করতেন। তিনি শিব মন্দিরে মহিমান্বিত পূজার আয়োজন করেছিলেন। রাজ্যটি শৈবধর্ম ও শিল্পকলার সাথে সমৃদ্ধ হয়েছিল। প্রতিবেশী রাজ্যের রাজা মুথানাথন তিরুক্কয়িলুর সমৃদ্ধির জন্য ঈর্ষান্বিত হয়ে ওঠেন। তিনি বহুবার তিরুক্কয়িলুর আক্রমণ করেছিলেন, কিন্তু প্রতিবারই মেইপোরুল নায়নারের সৈন্যদের দ্বারা পরাজিত হন। এর পরে, মুথানাথন বুঝতে পারেন যে তিনি কখনই ন্যায্য উপায়ে মেইপোরুল নয়নারকে পরাজিত করতে পারবেন না এবং বিভ্রান্তিকর কৌশল অবলম্বন করেন।[৪]

মুথানাথন শৈব তপস্বী (যোগী) ছদ্মবেশে তিরুক্কয়িলুরে আগমন করেন। রক্ষীরা তাকে যেতে দেয় এবং অবশেষে সে দাথানের পাহারায় রাজার শয্যা কক্ষে পৌঁছায়। রাজা যখন বিশ্রাম নিচ্ছেন তখন দাথান তপস্বীকে প্রবেশ করতে নিরুৎসাহিত করেন, মুথানাথন জোর দেন যে তিনি রাজাকে মুক্তি লাভের জ্ঞান শেখাতে চান। দাথান তাকে যেতে দিল; তপস্বীর প্রবেশ দেখে স্ত্রী ঘুম থেকে উঠে রাজাকে জাগিয়ে তুললেন। মুথানাথন বলেন তিনি মেইপোরুলকে গোপন জ্ঞানে শিক্ষিত করতে এসেছিলেন যা তাকে শিব স্বয়ং দান করেছিলেন এবং রাজার কাছে গোপনীয়তার অনুরোধ করেছিলেন। মেইপোরুল রাজার রানী ও রক্ষীদের বিদায় করে দেন। মেইপুরুল মুথানাথনকে উচ্চ আসনে বসিয়েছিলেন, এবং তিনি সন্ন্যাসীর পায়ের কাছে বসেছিলেন। মুথানাথন লুকানো খঞ্জর সরিয়ে রাজাকে ছুরিকাঘাত করেন। দাথান প্রথম থেকেই সন্ন্যাসীর অভিপ্রায় সম্পর্কে সন্দিহা হয়েছিল, সে ঘরে লুকিয়ে ছিল এবং রাজার কক্ষে ছুটে গিয়ে তপস্বীকে আক্রমণ করে। যখন দাথান তার তলোয়ার দিয়ে তপস্বীকে আঘাত করতে যাচ্ছিল, মেইপোরুল তাকে শৈব বলে নিরুৎসাহিত করে, তপস্বী মেইপোরুলের সাথে সম্পর্কিত এবং তাকে আদেশ দিয়েছিলেন, তপস্বীকে রাজ্যের সীমানায় অক্ষত অবস্থায় নিয়ে যাওয়া যেন নিশ্চিত করা হয়। রাজার প্রজারা মিথ্যা তপস্বীকে অভিযুক্ত করার সময়, দাথান তাদের রাজার আদেশের কথা জানিয়ে মুথানাথনের ক্ষতি করতে বাধা দেন। দাথান মুথানাথনের সাথে শহরের বাইরে চলে যান এবং তাকে একটি জনমানবহীন জঙ্গলে রেখে যান, যেখানে কেউ তার ক্ষতি করতে পারবে না। দাথান রাজার কাছে ফিরে এসে সন্ন্যাসীর নিরাপত্তার খবর জানালেন। মেইপুরুল তার মন্ত্রী, স্ত্রী ও আত্মীয়দের মৃত্যুশয্যায় ডেকে তাদের শৈব ধর্ম প্রচারের পরামর্শ দেন। তিনি চোখ বন্ধ করে শিবের ধ্যান করলেন। শিব তাঁর সম্মুখে আবির্ভূত হয়ে তাঁকে আশীর্বাদ করলেন। শিব মেপরুল নায়নারকে তাঁর আবাসস্থল কৈলাসে নিয়ে গেলেন।[৪] দাথানের নামে, জেয়ামকোন্ডমের কাছে আরিয়ালুর জেলায় 'থাথানুর' নামে জায়গা রয়েছে। বিশ্বাস করা হয় যে দাথানের বংশধরগণ রাজেন্দ্র চোজান-১ সামরিক বাহিনীর অংশ ছিল এবং এই এলাকায় বসতি স্থাপন করেছিল।

মেইপোরুল নায়নারের (যাকে জীবনীতে চেদী বল্লভ বলা হয়) গল্পটি পালকুরিকি সোমানাথের ১৩ শতকের তেলেগু বাসব পুরাণে সংক্ষিপ্তভাবে এবং কিছুটা ভিন্নভাবে বর্ণনা করা হয়েছে। রাজা তার রাজ্য চেদী থেকে তার নাম প্রাপ্ত হন। তিনি ত্ৰিপুণ্ড্ৰ ( কপালে পবিত্র ছাইয়ের তিনটি অনুভূমিক রেখা) এবং শৈবদের দ্বারা পরিধান করা রুদ্রাক্ষ পুঁতির মতো বাহ্যিক শৈব প্রতীকগুলি পূজা করতেন। বল্লভের কাছে পরাজিত বিদেশী রাজারা শৈবদের ছদ্মবেশে তেরো জন যোদ্ধা পাঠান। বল্লভ ভক্তদের প্রণাম করলেন যারা তাদের তলোয়ার দিয়ে রাজাকে মারাত্মকভাবে আহত করেছিল। তাদের কু-কর্ম সত্ত্বেও, রাজা তাদের প্রণাম করলেন, তাদের গুরু হিসাবে শ্রদ্ধা করলেন। শিব তাঁর সামনে আবির্ভূত হন এবং তাঁকে "উন্নত ও শাশ্বত পদ" প্রদান করেন।[৬] কন্নড় ভাষায়, মেইপোরুল নায়নার চেদীর রাজা চেদীরাজ নামে পরিচিত। তিরুক্কয়িলুরের আশপাশে চেদী রাজ্যের অস্তিত্ব ছিল।[৭]

স্মরণ[সম্পাদনা]

তামিলনাড়ুর বহু শিব মন্দিরে নায়নারদের মূর্তি দেখা যায়।

সবচেয়ে বিশিষ্ট নায়নারদের মধ্যে একজন, সুন্দরার (৮ম শতাব্দী) তিরুথোন্ডা থোগাই -তে মেইপোরুল নয়নারকে মহিমান্বিত করেন। তিরুথোন্ডা থোগাই নায়নার সাধুদের একটি স্তোত্র। অত্র স্তোত্রে মেইপোরুলকে অপরাজেয় হিসাবে প্রশংসা করা হয়েছে।[৮]

তিরুনাগেশ্বরমের নাগনাথস্বামী (শিব) মন্দিরে প্রথম আদিত্যের (রাজত্বকাল: খ্রি. ৮৭১-৯০৭) একটি শিলালিপি - যা বর্তমানে ধ্বংসপ্রাপ্ত মন্দিরের অংশ - উত্থাপতি করে যে মন্দিরটি মেইপোরুল নায়নারকে উৎসর্গীকৃত হতে পারে। আরেকটি তত্ত্ব অনুসারে, নথিটি নায়নারের সম্মানে একটি স্কুল বা মঠের কথা বর্ণনা করে, যিনি আদিত্য প্রথমের কাছাকাছি সময়ে বসবাস করতেন। তবে, তত্ত্বগুলি বিতর্কিত।[৫]

মন্দিরের একটি পাথরের নথি থেকে জানা যায়, রাজেন্দ্র চোল প্রথমের রাজত্বের তৃতীয় বছরে (রাজত্বকাল: ১০১২-১০৪৪ খ্রি) একজন রাজকীয় পদাধিকারী অদিত্তন সূর্য বৃহদীশ্বর মন্দিরে (শিবকে উৎসর্গীকৃত) মেইপোরুল নায়নারের একটি তামার মূর্তি স্থাপন করেছিলেন যা তার পিতার দ্বারা নির্মিত। মেইপোরুল এবং অন্যান্য নায়নারদের গল্প, যাদের তাম্রমূর্তি স্থাপন করা হয়েছে, "মন্দিরে বিভিন্ন রাজকীয় কর্মকর্তাদের দ্বারা স্থাপিত তামার মূর্তিগুলিতে ইঙ্গিত করা হয়েছে"।[৫][৯]

মেইপোরুল নয়নার তামিল কার্তিকাই মাসে পূজিত হন, যখন চাঁদ উত্তরা ফাল্গুনী নক্ষত্রে প্রবেশ করে। তাকে মুকুট এবং হস্তাঞ্জলিবদ্ধ রাজার মতো চিত্রিত করা হয়েছে (দেখুন অঞ্জলি মুদ্রা )। তিনি ৬৩ জন নায়নারের সাথে সম্মিলিতভাবে পূজা গ্রহণ করেন। তাদের মূর্তি এবং তাদের কর্মের সংক্ষিপ্ত বিবরণ তামিলনাড়ুর বহু শিব মন্দিরে পাওয়া যায়। উৎসবে শোভাযাত্রায় তাদের মূর্তি উপস্থাপন করা হয়।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Roshen Dalal (২০১১)। Hinduism: An Alphabetical Guide। Penguin Books India। পৃষ্ঠা 281। আইএসবিএন 978-0-14-341421-6 
  2. "The Puranam of Mei-p-Porul Nayanar"। T N Ramachandran। সংগ্রহের তারিখ ২০ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  3. "Veeratteswarar temple"Dinamalar। সংগ্রহের তারিখ ২০ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  4. Swami Sivananda (১৯৯৯)। Sixty-three Nayanar Saints (4 সংস্করণ)। The Divine Life Society। 
  5. P. V. Jagadisa Ayyar (১৯৮২)। South Indian Shrines: Illustrated। Asian Educational Services। পৃষ্ঠা 12, 216–7। আইএসবিএন 978-81-206-0151-2 
  6. Siva's Warriors: The Basava Purana of Palkuriki Somanatha। Princeton University Press। ২০১৪। পৃষ্ঠা 168। আইএসবিএন 978-1-4008-6090-6 
  7. Te. Po Mīn̲āṭcicuntaran̲ār (১৯৭৬)। Tamil: A Bird's-eye View। Makkal Nalvaal̲vu Manr̲am। পৃষ্ঠা 89। 
  8. Poems to Śiva: The Hymns of the Tamil Saints। Motilal Banarsidass। ১৯৯১। পৃষ্ঠা 331আইএসবিএন 978-81-208-0784-6 
  9. B. N. Goswamy; Kavita Singh (২০০০)। Indian Art: Forms, Concerns and Development in Historical Perspective। Munshiram Manoharlal Publishers। পৃষ্ঠা 232আইএসবিএন 978-81-215-0904-6