মুহম্মদ সিদ্দিক খান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মুহম্মদ সিদ্দিক খান
মুহম্মদ সিদ্দিক খান.jpg
জন্ম(১৯১০-০৩-২১)২১ মার্চ ১৯১০
মৃত্যু১৩ আগস্ট ১৯৭৮(1978-08-13) (বয়স ৬৮)
শিক্ষাএম. এ. (ইতিহাস)
যেখানের শিক্ষার্থীইয়াঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাগ্রন্থাগারিক

মুহাম্মদ সিদ্দিক খান (২১ মার্চ ১৯১০ - ১৩ আগস্ট ১৯৭৮) ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের গ্রন্থাগারিক এবং বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার বিজ্ঞান বিভাগের (বর্তমানে তথ্য বিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা) প্রতিষ্ঠাতা।[১][২] ২০০৪ সালের মার্চ মাসে, বাংলাদেশ সরকার তাঁকে মরণোত্তর বাংলাদেশের সর্বোচ্চ নাগরিক সম্মাননা স্বাধীনতা পুরস্কার প্রদান করে। তাঁর অসামান্য অবদানের জন্য তাঁকে বাংলাদেশের গ্রন্থাগার ও তথ্য বিজ্ঞানের জনক বলা হয়।[৩][৪]

শৈশব ও শিক্ষা[সম্পাদনা]

তিনি ১৯১০ সালের ২১ শে মার্চ রংগুনে জন্মগ্রহণ করেন। তার পরিবারের পূর্ব পুরুষরা বাংলার মুগল আদিমন্ত্রীর বিখ্যাত সদস্য ছিলেন। তারা মুগল সম্রাট বাহাদুর শাহ জাফরের সন্তানদের শিক্ষার জন্য ইয়াংন ভ্রমণ করেছিলেন। যখন তার বাবা মারা যান তখন তিনি খুব ছোট ছিলেন। তাঁর মা, বলোনেসেস বেগম, তাঁর চাচার সাথে তার বিশাল সম্পদ ও প্রতিষ্ঠানে মালিকানাধীন অধিকার নিয়ে দীর্ঘমেয়াদী মামলা করেছিলেন।

তিনি রংগুনে শৈশব কাটান এবং সেখানে বিদ্যালয়ে গিয়েছিলেন। তিনি ১৯২৫ সালে ম্যাট্রিকুলেশন পরীক্ষায় অংশ নেন এবং চারটি বিষয়ে লেটার মার্কসসহ বার্মায় ৫ম স্থান অধিকার করে সরকারি বৃত্তি লাভ করেন। তিনি ১৯২৭ সালে আর্টস এর ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন এবং রংগুন বিশ্ববিদ্যালয়ে ইংরেজিতে ডিগ্রি লাভ করেন। ১৯২৯ সালে তিনি বিএ পাস করেন। বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে স্নাতক ডিগ্রি লাভ করেন এবং দ্বিতীয় শ্রেণীর মধ্যে প্রথম হন। ১৯৩২ সালে তিনি বি.এল. ডিগ্রী লাভ করেন। তিনি প্রথম-অংশের পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে এবং দ্বিতীয়-অংশের পরীক্ষায় দ্বিতীয় শ্রেণিতে ছিলেন। ১৯৩৬ সালে তিনি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন এবং ইয়াকুব আবদুল গনি স্বর্ণপদক লাভ করেন। এই কর্মকাণ্ডের জন্য তিনি জর্দান পুরস্কার লাভ করেন।[৫]

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

স্নাতক পড়া সম্পন্ন করে মুহাম্মদ সিদ্দিক খান ১৯৩১ সালে রেঙ্গুন বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস এবং রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগে প্রভাষক হিসেবে যোগদান করেন এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পর্যন্ত সেখানে অধ্যাপনা করেন। তার ছাত্রদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন মিয়ানমারের স্বাধীনতার স্থপতি আং সান। জাপানি সেনাবাহিনী কর্তৃক রেঙ্গুন আক্রান্ত হলে, তিনি পাহাড়ের মধ্য দিয়ে পালিয়ে যান তার গ্রামে চলে আসেন। ১৯৪৩ সালে তিনি বাংলার সরকারি প্রতিরক্ষা বিভাগের একজন কর্মকর্তা হিসেবে যোগদান করেন। পরের বছর তিনি বঙ্গীয় সরকারের শিল্প অধিদফতরের অধীনে লিয়াজোঁ অফিসার হিসাবে যোগ দেন। ১৯৪৬ সালে তিনি বঙ্গবন্ধু রেড ক্রস সোসাইটির সাধারণ সম্পাদক হন এবং ১৯৪৭ সালে ভারত বিভাগের পর ঢাকায় চাকরি করা শুরু করেন। ১৯৫০ সালে তিনি মানিকগঞ্জের দেবেন্দ্র কলেজে অধ্যক্ষ হিসেবে যোগ দেন।

১৯৫৩ সালে খান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য মোয়াজ্জেম হোসেনের সচিব হিসেবে যোগদান করেন। আট মাস পর উপাচার্য হিসেবে ডব্লিও জে জেনকিন্সের অধিষ্ঠিত হন। জিনকিনস ১৯৫৪ সালে গ্রন্থাগার বিজ্ঞানে পড়ার জন্য তাঁকে বিদেশে পাঠান।

মুহম্মদ সিদ্দিক খান ১৯৫৪ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর লন্ডনে আসেন। অধ্যাপক আরউইনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তিনি নিয়মিত কোর্সের কাজ শুরু করেন। কোর্সের কাজ শেষ হওয়ার পর, তিনি এক একাডেমিক বছর গ্রেট ব্রিটেনের নির্বাচিত বিশ্ববিদ্যালয় এবং অন্যান্য একাডেমিক গ্রন্থাগারগুলিতে নিবিড়ভাবে কাজ করে। অধ্যাপক আরউইন তার জন্য লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন গ্রন্থাগারের পাশাপাশি এডিনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয় এবং বার্মিংহাম বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারগুলির সাথে একটি প্রশিক্ষণ কর্মসূচির ব্যবস্থা করে দেন। তিনি সফলভাবে তাঁর প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করেন।

১৯৫৪-৫৫ এবং ১৯৫৫-৫৬ সালে অধ্যাপক আরউইনের তত্ত্বাবধানে, লন্ডন স্কুল অফ লাইব্রেরিয়ানশিপ অ্যান্ড আর্কাইভস-এ বিশ্ববিদ্যালয়ের গ্রন্থাগারিক তত্ত্ব ও অনুশীলনের উপর দুই বছরের কোর্স শেষ করার পর, তিনি দেশে ফিরে আসেন।

ফিরে আসার পর, তিনি ১৯৫৬ সালের জুন মাসে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারের গ্রন্থাগারিক হিসাবে যোগদান করেন, ১৯৭২ সালে অবসর গ্রহণের পূর্ব পর্যন্ত তিনি এ পদে অধিষ্ঠিত ছিলেন। তিনি গ্রন্থাগার বিজ্ঞান জন্য একটি ডিপ্লোমা কোর্স চালু এবং আহমদ হোসেনের সাথে পূর্ব পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতি (পূর্ব পাকিস্তান লাইব্রেরি এসোসিয়েশন) প্রতিষ্ঠিত করেন। ১৯৫৯ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে তথ্যবিজ্ঞান ও গ্রন্থাগার ব্যবস্থাপনা বিভাগ চালু হলে তিনি এর প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন। গ্রন্থাগারের ১৯ বছরের চাকরিতে তিনি গ্রন্থগার শ্রেণীবিভাগের দেউই ডেসিমাল সিস্টেমটি চালু করেছিলেন এবং তার বাস্তবায়ন তত্ত্বাবধান করেছিলেন। অবসর গ্রহণের সময় তিনি চাকরি-সংক্রান্ত আর্থিক সমস্যার সম্মুখীন হন।

তিনি ১৯৫৭, ১৯৫৮, এবং ১৯৬৮ সালে পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতির সহ-সভাপতি এবং পূর্ব পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতিের সভাপতির হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি ১৯৬২ থেকে ১৯৬৫ সাল পর্যন্ত পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতির সাধারণ সম্পাদক ছিলেন। ১৯৫৭ থেকে ১৯৬০ সাল পর্যন্ত তিনি এশিয়ান ফেডারেশন অব লাইব্রেরী এসোসিয়েশনের সহ-সভাপতি ছিলেন।

প্রকাশিত বই[সম্পাদনা]

বেশ অনেকগুলি বই লিখেছেন, সেইসাথে হলিডে এবং বাংলাদেশ অবজারভারের কলাম লেখেন। তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য একটি সংবাদ বুলেটিন প্রকাশ করেন এবং প্রতিষ্ঠাতা সম্পাদক হিসাবে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান সম্পাদনা করেন।

ইংরেজি[সম্পাদনা]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

  1. "Captain George Sorrel's Mission to the Court of Amarapura ১৭৯৩: An Episode in Anglo-Burmese Relations"। জার্নাল অফ দা এশিয়াটিক সোসাইটি অফ পাকিস্তান, ২য় খণ্ড ১৯৫৭, পৃষ্ঠা ১৩১–১৫৩
  2. "Badr Maqams ot the Shrines of Badr Al-Din-Auliya"। জার্নাল অফ দা এশিয়াটিক সোসাইটি অফ পাকিস্তান, ২য় খণ্ড ১৯৬২, পৃষ্ঠা ১৭–৪৬
  3. "A Chapter in the Muslim Struggle for Freedom: Establishment of Dacca University"। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধ্যয়ন।

গ্রন্থগার বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

  1. "The Oriental Manuscript Collection in Dacca University Library"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ১ম খণ্ড নং ১, ১৯৬৬, পৃষ্ঠা ৩২–৩৭
  2. "A Co-operative Acquisition Plan for Pakistan's Third Five-year Development Plan", ১৯৬৫–৭০। পাকিস্তান লাইব্রেরিয়ানশিপ, ১৯৬৩–৬৪, পৃষ্ঠা ৯৩–১০১
  3. "College Library Authority and Organization"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ৩য় খণ্ড নং ৪, ১৯৬৯, পৃষ্ঠা ৭–২১
  4. "The Challenge of McLuhan"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, খণ্ড ৫ নং ৩–৪, ১৯৭১, পৃষ্ঠা ১৮৭–১৯৭
  5. "Marketing of Books in East Pakistan: Problems, Prospects and Projects"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ২য় খণ্ড নং ১, ১৯৬৭, পৃষ্ঠা ৪৯–৬২; ২য় খণ্ড নং ২, ১৯৬৭, পৃষ্ঠা ১৭–২৩; ২য় খণ্ড নং ৩, ১৯৬৮, পৃষ্ঠা ৫১–৬১;
  6. "Book Promotion in School Libraries"। পাকিস্তান লাইব্রেরিয়ানশিপ, ১৯৬২–৬৩, পৃষ্ঠা ৯২–৯৩
  7. "A Blueprint for University Library Development"। পাকিস্তান লাইব্রেরিয়ানশিপ, ১৯৬৩–৬৪, পৃষ্ঠা ১৬০–১৭০
  8. "Libraries in Pakistan"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ২য় খণ্ড নং ১, ১৯৬৭, পৃষ্ঠা ১–১৪
  9. "Libraries in Education"। পূর্ব পাকিস্তান শিক্ষা সপ্তাহ, ১৯৬৮, পৃষ্ঠা ৩৪–৫০
  10. "University Librarianship To-day and Tomorrow"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ৩য় খণ্ড নং ১, ১৯৬৯, পৃষ্ঠা২১–২৮
  11. "The India Office Library: Who Owns It?" দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ১ম খণ্ড নং ১, ১৯৬৬, পৃষ্ঠা ১–১০
  12. "Our Libraries and Our National Antiquities"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ৩য় খণ্ড নং ২, ১৯৬৮,পৃষ্ঠা ১–৭
  13. "Comments on the Government of Pakistan's Third Five-year Development Plan—১৯৬৫–১৯৭০"। পাকিস্তান লাইব্রেরিয়ানশিপ, ১৯৬৩–১৯৬৪, পৃষ্ঠা ৫৫–৫৬

মুদ্রণ ও প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  1. "William Carey and the Serampore Books (১৮০০–১৮৩৪)"। LIBRI, খণ্ড ২ নং ৩, ১৯৬১, পৃষ্ঠা ১৯৭–২৮০

সম্পাদকীয়[সম্পাদনা]

  1. "Ahmed Hussain"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, জুন ১৯৭০
  2. "The Bleak Horizon"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, সেপ্টেম্বর ১৯৬৭
  3. "Wanted – A national Advisory Commission on Libraries"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ডিসেম্বর ১৯৬৭
  4. "Progress of Librarianship in East Pakistan: Decade of Progress"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, জুন ১৯৬৮
  5. "Who is an Expert?" (কে একজন বিশেষজ্ঞ?) দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ২য় খণ্ড নং ৩, ১৯৬৮
  6. "Import of non-book Reading Materials"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, মার্চ ১৯৬৯
  7. "Libraries and Postal Vagaries"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, জুন ১৯৭০
  8. "Any one can run a library" (যে কেউ একটি গ্রন্থগার চালাতে পারন)। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ডিসেম্বর ১৯৬৭
  9. "A New Library System for Bangladesh" (বাংলাদেশের জন্য একটি নতুন গ্রন্থাগার ব্যবস্থা)। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ষষ্ঠ খণ্ড নং ১-২ ১৯৭১
  10. "The Death of A Library" (একটি গ্রন্থাগারের মৃত্যু)। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, জুন ১৯৬৭
  11. "Those who stand and serve"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, মার্চ ১৯৬৭
  12. "Books on Bonus"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, জুন ১৯৭১
  13. "Brickbats – and no Banquets!" দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, মার্চ-জুন ১৯৭১
  14. "Pakistani Library Journals"। দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, সেপ্টেম্বর ১৯৬৬
  15. "Should Institutional Libraries Hold Import Licenses?" দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, সেপ্টেম্বর ১৯৬৬

মুখবন্ধ[সম্পাদনা]

  1. পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতির পঞ্চম বার্ষিক সম্মেলনের ভলিউমের কার্যবিবরণী, নভেম্বর ১৯৬৪
  2. পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতির ষষ্ঠ বার্ষিক সম্মেলনের ভলিউমের কার্যবিবরণী, নভেম্বর ১৯৬৫

বই পর্যালোচনা[সম্পাদনা]

  1. Technical College Libraries: A Guide to Problems and Practice (কারিগরি কলেজ গ্রন্থগার: সমস্যা এবং অনুশীলনের একটি নির্দেশিকা)। লেখক কে. ডব্লিউ. নীল। ৪১, উইচবেরি রোড, ফিঞ্চফিল্ড, ওলভারহ্যাম্পটন, যুক্তরাজ্য ১৯৬৫, পৃষ্ঠা ১৫৯। ও দা ইস্টার্ন লাইব্রেরিয়ান, ১ম খণ্ড নং ১৯৬৬, পৃষ্ঠা ৪৯–৫০
  2. দ্য পাকিস্তান ন্যাশনাল বিবলিওগ্রাফি: বার্ষিক খণ্ড ১৯৬২
  3. Oriental Dictionaries: A Selected Bibliography (প্রাচ্যের অভিধান: একটি নির্বাচিত গ্রন্থবিজ্ঞান)
  4. Southern Asia (দক্ষিণ এশিয়া)
  5. Libraries in the East: An International and Comparative Study (পূর্বের গ্রন্থাগার: একটি আন্তর্জাতিক এবং তুলনামূলক অধ্যয়ন)

বিবিধ[সম্পাদনা]

  1. Felix Carey: A Prisoner of Hope (ফেলিক্স ক্যারি: একজন আশার কয়েদী)
  2. Import of Reading Materials from Abroad (বিদেশ থেকে পড়ার উপাদান আমদানি)
  3. A Comparative Study of Copyright Laws (কপিরাইট আইনের একটি তুলনামূলক অধ্যয়ন)
  4. Annual Report: Pakistan Library Association (বার্ষিক প্রতিবেদন: পাকিস্তান গ্রন্থাগার সমিতি)

বাংলা[সম্পাদনা]

মুদ্রণ ও প্রকাশনা[সম্পাদনা]

  1. “বাংলা মুদ্রণ ও প্রকাশনার গোড়ার কথা”। বাংলা একাডেমি, ঢাকা। ১৩৭১ (বঙ্গাব্দ), পৃ. ২০৬।
  2. “বাংলা মুদ্রণ প্রকাশকে কেরী যুগ”। সাহিত্য পত্রিকা। ৫:১, ১৩৬৮ (বঙ্গাব্দ) পৃ. ১৫৩-২৬৮।
  3. “বাংলা মুদ্রণের গোড়ার যুগের ইতিহাস”। গ্রন্থাগার। ১৩৬৯। পৃ ২৪৩-২৬৮।

গ্রন্থাগার বিজ্ঞান[সম্পাদনা]

  1. “গ্রন্থাগার সম্প্রসারণ ও জনপ্রিয়তা বৃদ্ধির উপায়”। পাক সমাচার, ১৯৫৯।
  2. “শিশু গ্রন্থাগার”। বই। ২:১০, ১৯৫৯।
  3. “গ্রন্থ: গ্রন্থাগারিক ও গ্রন্থবিক্রেতা”। পরিক্রম। ২:২ অক্টোবর ১৯৬২।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

  1. “ব্রহ্মদেশের ইতিহাসে মুসলমান”। বাংলা একাডেমি পত্রিকা। ৫:১, ১৯৬১। পৃ ৩৩-৩৭।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

তিনি ১৯৭৮ সালের ১৩ আগস্ট দীর্ঘ অসুস্থতার পর মারা যান।

সম্মানা ও পুরস্কার[সম্পাদনা]

খান তার জীবদ্দশায় কোন সম্মাননা পাননি। তার পাণ্ডিত্যপূর্ণ অবদান জন্য তাঁকে রয়েল হিস্টরিকাল সোসাইটির ফেলো প্রদান করা হয়েছিল।

২০০৪ সালে বাংলাদেশ সরকার তাঁকে সর্বোচ্চ বেসামরিক পদক স্বাধীনতা পুরস্কারে (মরণোত্তর) ভূষিত করে।

২১ মার্চ ২০১০ সালে বাংলাদেশ গ্রন্থাগার সমিতি মুহম্মদ সিদ্দিক খানের ১০০তম জন্মবার্ষিকীতে ২১ মার্চকে গ্রন্থগার দিবস হিসেবে ঘোষণা করে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "http://www.balid.org/mskl.html#note01"। ১ ফেব্রুয়ারি ২০০৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৬ এপ্রিল ২০১৯  |title= এ বহিঃসংযোগ দেয়া (সাহায্য)
  2. Library Association of Bangladesh ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৭ অক্টোবর ২০০৭ তারিখে
  3. "স্বাধীনতা পুরস্কারপ্রাপ্ত ব্যক্তি/প্রতিষ্ঠানের পরিচিতি - মরহুম মুহম্মদ সিদ্দিক খান"। ২০১১-০৮-২৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-২৩ 
  4. "M S Khan:The father of Library and Information Science in Bangladesh"। ৫ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ মার্চ ২০০৮ 
  5. মনিরুজ্জামান, মোহাম্মদ (১৯৯৬)। "মুহম্মদ সিদ্দিক খানের জীবন ও কর্ম"। মুহম্মদ সিদ্দিক খানের সম্পূর্ণ কর্ম, খণ্ড ২। পৃষ্ঠা ৫৪৮–৫৪৯।