মুয়াজ্জেজ সুলতান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

মুুুুয়াজ্জেজ সুলতান (উসমানীয় তুর্কি: معزز سلطان‎) সুলতান ইব্রাহিমের দ্বিতীয় হাসেকি এবং দ্বিতীয় আহমেদের মা[১][২]

মুয়াজ্জেজ সুলতান
হাসেকি সুলতান
রাজত্ব১২ আগস্ট ১৬৪৮ এর পূর্ব পর্যন্ত
পূর্বসূরিআয়শে সুলতান
উত্তরসূরিগুলনুস সুলতান
সহ-হাসেকিতুরহান
আসুব
হুমাশাহ
আয়শে
মাহিএনভার
শিভেকার
সাকবাগলি
জন্ম১৬২৬-১৬২৯
মৃত্যু১২ সেপ্টেম্বর ১৬৮৭ [৩]
পুরাতন প্রসাদ, ইস্তাম্বুল, উসমানীয় সাম্রাজ্য
সমাধি১৪ সেপ্টেম্বর ১৬৮৭
দাম্পত্য সঙ্গীইব্রাহিম (উসমানীয় সুলতান)
বংশধরদ্বিতীয় আহমেদ
পূর্ণ নাম
তুর্কী: হেতিজে মুয়াজ্জেজ সুলতান
উসমানীয় তুর্কি: خدیجہ معزز سلطان
রাজবংশলাকেরবা রাজপরিবার সারকোশিয়া (জন্মসূত্রে),অটোমান (বৈবাহিক সূত্রে)

জীবন[সম্পাদনা]

ইব্রাহিম মুয়াজ্জেজকে বিয়ে করেছিলেন এবং তার জ্যেষ্ঠ পুত্র শাহজাদা আহমেদ (ভবিষ্যত দ্বিতীয় আহমেদ) ২৫ ফেব্রুয়ারি ১৬৪৩-এ জন্মগ্রহণ করেছিলেন[৪][৫]। ইব্রাহিমের রাজত্বকালে তিনি একদিনে এক হাজার উপাখ্যানের উপবৃত্তি পেয়েছিলেন। তার স্বামী সুলতান ইব্রাহিম তাকে খুব পছন্দ করতেন। তিনি তার অমায়িক আচরণ এবং সুন্দর চরিত্রের জন্য প্রাসাদে পরিচিত ছিলেন।

১৬৪৮ সালে সুলতান ইব্রাহিমের পদচ্যুতি ও মৃত্যুর পরে তার বড় ছেলে সুলতান চতুর্থ মুহাম্মদ সিংহাসনে আরোহণ করেন, তারপরে মুয়াজ্জেক পুরাতন প্রাসাদে বসতি স্থাপন করেন। এতে পুরাতন প্রাসাদে তার সাইত্রিশ বছরের নির্বাসিত জীবন শুরু হয়[১][৪]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৬৮৭ সালে পুরাতন প্রাসাদের নিকটে একটি বিশাল আগুন ছড়িয়ে পড়ে। পরের দিন সন্ধ্যা নাগাদ আগুন পুরানো প্রাসাদকে ঘিরে ফেলেছিল। পাঁচ ঘণ্টা ধরে আগুন জ্বলে এবং প্রাসাদটির অনেক জায়গায় পুড়ে যায়। পুরাতন প্রাসাদের বেশিরভাগ মানুষের প্রাণ বাঁচিয়েছিল প্রাসাদের কর্মচারীরা। মুয়াজ্জেজ আগুনে এতটাই পুড়ে গিয়েছিলেন যে পরের দিন তিনি মারা যান। তার মরদেহ উস্কুদারের কাছে নিয়ে যাওয়া হয় এবং তাকে আশেপাশের একটি প্রাসাদের নিকটে সমাধিস্থ করা হয়। সুতরাং, তিনি মৃত্যুর পূর্ব পর্যন্ত ভালিদে সুলতান ছিলেন না, কারণ দ্বিতীয় আহমেদ সিংহাসনে আরোহণের চার বছর আগে তাঁর মৃত্যু হয়েছিল।

মুয়াজ্জেজের ব্যবহার্য জিনিসগুলি তৎক্ষনাত রাজ কোষাগারে স্থানান্তর করা হয়েছিল। তার গহনাগুলো নতুন সুলতান দ্বিতীয় সুলায়মানের স্ত্রী বাহাদাদ কাদিন, সলান কাদিন এবং সেহসুভার কাদিনকে দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু যখন তার পুত্র ১৬৯১ সালে সিংহাসনে আরোহণ করেছিলেন, তিনি সম্প্রতি নিহত সুলতানের স্ত্রীদের থেকে গহনা রাজকোষাগারে স্থানান্তর করেছিলেন[৬][৭]

জনপ্রিয় সংস্কৃতি[সম্পাদনা]

২০১৫ সালে তুর্কি টিভি সিরিজ সুলতান সুলেমান: কোসেম এ তুর্কি অভিনেত্রী ফিরুজে গামজে আকসু মুয়াজ্জেজ সুলতানের চরিত্রে অভিনয় করেছেন[৮]

আরোও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]