মির্জা আহমেদ ইস্পাহানি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মির্জা আহমদ ইস্পাহানি
মির্জা আহমেদ ইস্পাহানি.jpeg
জন্ম১৮৯৮
মৃত্যু১৯৮৬ (বয়স ৮৭–৮৮)
পরিচিতির কারণইস্পাহানি গ্রুপের স্বত্বাধিকারী
সন্তানমির্জা মেহদী ইস্পাহানি
আত্মীয়মির্জা আবোল হাসান ইস্পাহানি (ভাই)
মির্জা মেহেদী ইস্পাহানি (পুত্র)
মির্জা আলী বেহরুজ ইস্পাহানি (নাতি)

মির্জা আহম্মদ ইস্পাহানি (১৮৯৮–১৯৮৬) ছিলেন একজন বাংলাদেশি ব্যবসায়ী এবং চট্টগ্রাম ভিত্তিক ইস্পাহানি পরিবারের প্রতিষ্ঠাতা তিনি ছিলেন ওরিয়েন্ট এয়ারওয়েজ-এর প্রতিষ্ঠাতা এবং পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পিআইএ) এর প্রথম চেয়ারম্যান। তিনি ছিলেন ইস্পাহানি গ্রুপের চেয়ারম্যান।[১] তিনি বাংলাদেশ থেকে চা প্রথম রপ্তানিকারক ছিলেন।[২]

প্রারম্ভের জীবন[সম্পাদনা]

মির্জা আহম্মদ ইস্পাহানি ছিলেন, মির্জা মোহাস্মেদ ইস্পাহানীর জৌষ্ঠ পুত্র।[৩] তিনি ইয়াঙ্গুন, বার্মায় ১৮৯৮-এ জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ভারতের মাদ্রাজের বিদ্যালয়ে পড়ালেখা করেছেন এবং ২০ বছর বয়সে ম্যাট্রিক পাশের পর তিনি তার বাবার ভারতের কলকাতার ব্যবসায় যোগ দেন।[৪]

ব্যবসা[সম্পাদনা]

ব্যবসায়ে যোগ দেওয়ার অল্প সময় পরে ইস্পাহানিকে জুনিয়র পার্টনার করা হয়। ১৯২৫ সালের মে মাসে তার বাবা মারা গেলে তিনি অন্য দুই সহযোগী, তার ভাই, মির্জা আবোল হাসান ইস্পাহানি এবং মির্জা মাহমুদ ইস্পাহানি সহ দৃঢ় অংশীদার হয়েছিলেন। ১৯৩৪-এ, এম. এম. ইস্পাহানি এবং অংশীদারত্বটি কলকাতায় সীমিত দায় কোম্পানিতে রূপান্তর হয়েছিল।[৩][৫] ওরিয়েন্ট এয়ারওয়েজ মির্জা আহমদ ইস্পাহানী এবং আদমজী হাজী দাঊদ কর্তৃক ২৩ অক্টোবর ১৯৪৬-এ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।[৬] ১৯৪৭-এ কোম্পানিটি চট্টগ্রাম, পূর্ব পাকিস্তানে সরিয়ে আনা হয়।[৩][৫] ১৯৬৫ সালে তিনি ঢাকা ইস্পাহানি ইসলামিয়া চক্ষু ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল প্রতিষ্ঠা করেন।[৭] ১১ মার্চ ১৯৫৫-এ ওরিয়েন্ট এয়ারওয়েজ পাকিস্তান সরকার প্রস্তাবিত বিমানের সাথে একত্রিত হয়েছিল এবং পাকিস্তান জাতীয় বিমান সংস্থা পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স কর্পোরেশন -এ পরিণত হয়েছিল।[৬] কোম্পানিটি পাট, চা, টেক্সটাইল, প্রকৌশল, শিপিং, ম্যাচ এবং প্লাইউডের বহু-মাত্রিক ব্যবসায়িক কার্যক্রমে বিস্তৃত হয়েছিল।[৩] তিনি বাংলাদেশ থেকে চা প্রথম রপ্তানিকারক ছিলেন।[২]

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

চট্টগ্রামের মির্জা আহমেদ ইস্পাহানি উচ্চ বিদ্যালয় তার নামে নামকরন করা হয়। কুমিল্লা সেনানিবাসে অবস্থিত ইস্পাহানি পাবলিক স্কুল এন্ড কলেজও তার নামে নামকরন করা হয়।[৮] তার এক পুত্র ছিল, সাদরি ইস্পাহানি[৯] তার নাতি ছিলেন বেহরুজ ইস্পাহানি

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "A legacy worth remembering"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  2. Rob, GMF Abdur। "Remembering MA Ispahani"archive.thedailystar.net। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  3. "Tributes to a business icon"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০১-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  4. The EFU saga the making of an institution within the context of the creation of Pakistan। M. Yunus D & Printers। ২০০১। 
  5. "Ispahani Group boss Mirza Ali Behrouze Ispahani passes away"bdnews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  6. "PIA - THE UNFORTUNATE - Daily Times"Daily Times (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০২-০১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  7. "Subscribe to read"Financial Times (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  8. "Six Ctg educational institutions shut for overcharging"The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৪-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬ 
  9. "In memoriam"archive.thedailystar.net। The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০২-২৬