মায়া আপা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মায়ালজি লিমিটেড.
ব্যক্তিগত
শিল্পডিজিটাল স্বাস্থ্যসেবা
প্রতিষ্ঠাকাল২০১১
প্রতিষ্ঠাতাআইভি হক রাসেল
সদরদপ্তরঢাকা, বাংলাদেশ
বাণিজ্য অঞ্চল
বাংলাদেশ, এশিয়া
পণ্যসমূহমোবাইল অ্যাপ, ওয়েবসাইট , ই-বাণিজ্য, প্রেসক্রিপশন
পরিষেবাসমূহঅনলাইন পরামর্শ,
বেনামী প্রশ্ন ও উত্তর
ওয়েবসাইটmaya.com.bd

মায়ালজি লিমিটেড. দ্বারা নিয়ন্ত্রিত মায়া আপা হলো একটি অনলাইন স্বাস্থ্য ও কল্যাণ সংস্থা যা ঢাকা, বাংলাদেশে অবস্থিত। এটি একটি বেসরকারী উন্নয়ন সংস্থা যা ব্র্যাকের সাথে অংশীদারত্বের উপর নির্ভর করে তথ্য প্রদান করে। মায়া প্লাটফর্ম বর্তমানে ওয়েবসাইট এবং অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপে ব্যবহার করা যায় এবং এটা বাংলা এবং ইংরেজি ভাষাতে উপলব্ধ।

আইভি হক রাসেল একজন প্রাক্তন বিনিয়োগ ব্যাংকার এবং মায়া আপা'র প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা। মায়া আপা নামটি রাসেলের মায়ের নামে নামকরণ করা হয়েছিল।যিনি ২০০৯ সালে স্তন ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করেছেন।[১] মায়া প্ল্যাটফর্মের সাম্প্রতিক পুনরাবৃত্তিগুলি লিঙ্গ অজ্ঞায়নের হয়ে শুধুমাত্র নারীদের পরিবেশন করার দিক থেকে সরে গেছে। এটি অধিক চাহিদাপূর্ন তথ্য এবং বার্তা প্ল্যাটফর্ম হয়েছে এবং প্রাথমিকভাবে এটির বিষয়বস্তু বিকশিত হয়েছে।[২]

২০১৭ সালে, মায়া আপা গুগলের লঞ্চপ্যাড এক্সিলারেটর প্রোগ্রামে যোগদানের জন্য নির্বাচিত প্রথম বাংলাদেশী স্টার্টআপ হয়েছিলেন এবং সেখানে পঞ্চম দল হিসাবে যোগ দিয়েছিলেন।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মায়া আপা এর ধারণা প্রথম আইভী হক রাসেলের মাথায় এসেছিল যখন তিনি তার মেয়ে আমেনাহের সাথে গর্ভবতী ছিলেন। তিনি গর্ভাবস্থা এবং মহিলাদের তার শরীর সম্পর্কে জানার প্রয়োজনীয়তা ও সে সম্মন্ধে প্রবেশাধিকার তথ্যের গুরুত্ব উপলব্ধি করেন। এই উপলব্ধি তাকে নারীকেন্দ্রিক সামগ্রীতে একটি ব্লগ শুরু করার জন্য পরিচালিত করেছিল যা তথ্য এবং একটি অংশীদারি সম্প্রদায়ের প্রবেশাধিকারের মাধ্যমে মহিলাদের ক্ষমতায়নে নিবেদিত।[৪] তিনি চিকিৎসা ক্ষেত্রে তাঁর বন্ধুদের কাছে গিয়েছিলেন৷ তারা মহিলাদের স্বাস্থ্য সম্পর্কিত বিষয়ে তাদের জ্ঞান এবং দক্ষতা সরবরাহ করেছেন। রীতিমতো, রাসেল ওয়েবসাইটিতে একটি মন্তব্য বাক্স রেখেছেন এবং দর্শকেরা বিশেষজ্ঞদের সাথে এর মাধ্যমে প্রশ্নগুলি আবার জিজ্ঞাসা করতে পারেন। রাসেল এবং তার দল শীঘ্রই বুঝতে পেরেছিল যে এটি একটি জনপ্রিয় বৈশিষ্ট্য এবং ২০১৪ সালের মধ্যে এটিকে একটি পূর্ণাঙ্গ পরিষেবা হিসাবে গড়ে তোলার দিকে মনোনিবেশ করা হয়েছিল। [১]

মায়া অ্যাপ[সম্পাদনা]

মায়া আপা ব্র্যাকের সাথে অংশীদার হয়ে মায়া আপা অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল অ্যাপটি বিকাশ করে, এই অ্যাপ ৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ সালে প্রকাশিত হয়।[৫] মায়া আপার টিম সেই সময়ে দুটি মহিলা প্রকৌশলী নিয়ে গঠিত হয়েছিল৷ তাদের নাম আসিয়া খালেদা ও সুব্রামি মৌটুসী। [৬] মায়া আপা তিন মাসের মধ্যে তাদের অ্যাপটি বিকাশ ও বিতরণ করে। এই অ্যাপ্লিকেশনটির প্রাথমিক বৈশিষ্ট্যটি হলো এখানে প্রশ্ন করলে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে প্রশ্নগুলোর উত্তর পাওয়া যায়।[৭] ওয়েবসাইটটির মতো অ্যাপেও ব্যবহারকারীদের নাম গোপন করে রাখে, যাতে তাদের তথ্য অনুসন্ধান এবং প্রজনন স্বাস্থ্যের মতো বিষয় নিয়ে আলোচনার সাথে সম্পর্কিত সামাজিক কলঙ্ককে কাটিয়ে উঠতে পারে। [৮] মায়া আপাকে ২০১৬ সালে বাংলাদেশ সরকার আইসিটি ইনোভেশন ফান্ডে ভূষিত করেছিল[৯] অ্যাপটির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে ব্র্যাকের জেন্ডার জাস্টিস অ্যান্ড ডাইভারসিটির পরিচালক শীপা হাফিজা বলেছিলেন, "এই অ্যাপ্লিকেশনটি শুধু যে তথ্যসেবার জগতে সারা দেশের নারীদের প্রবেশ নিশ্চিত করবে তা-ই নয়, সহযোগিতামূলক একটি সমাজ গড়তেও সাহায্য করবে।" [৬]

মায়া আপা প্লাস[সম্পাদনা]

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মায়া আপা রবির সাথে একটি প্রিমিয়াম সার্ভিস চালু করে যাকে মায়া আপা প্লাস নামে সম্মোধন করা হয় এবং এটা শুধু মাত্র রবির গ্রাহকদের জন্য উপলব্ধ ছিল। মায়া আপা প্লাস মোবাইল অ্যাপের সাবস্ক্রিপশন প্যাকেজ ও এসএমএসের মাধ্যমে উপলব্ধ করা হয়েছিল। এই প্রিমিয়াম পরিষেবা ১০ মিনিটের মধ্যে গ্রাহকদের প্রশ্নের উত্তর দেয় এবং মোবাইল অ্যাপ্লিকেশনের একটি অতিরিক্ত বৈশিষ্ট্য প্রদান করে।[৯]

একই মাসে, একটি অংশীদারত্ব স্বাক্ষর অনুষ্ঠানে ব্র্যাক ঘোষণা করেছিল- মায়া আপাতে আরও ৪০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করবে এবং সেখানে তৎকালীন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন। এই উদ্যোগের অংশ হিসাবে, মায়া আপা ব্র্যাক নগর উন্নয়ন কর্মসূচির মাধ্যমে পাইলট প্রকল্পের জন্য একটি পোশাক তৈরির কারখানায় ৫০,০০০ নারীকে এই পরিষেবা প্রদান করার কথাও ঘোষণা করে। [১০][১১] ২০১৮ সালে, আইডিএএ (উদ্ভাবন, নকশা এবং উদ্যোক্তা একাডেমী) প্রকল্পের আওতায় ইক্যুইটির একটি অংশের বিনিময়ে ৫০-১০০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগের জন্য বাংলাদেশ সরকার সংক্ষিপ্ত তালিকাভুক্ত চারটি সূচনার মধ্যে মায়া আপা অন্যতম ছিল। অন্য তিনটি সূচনা হলো সেবা.এক্সউয়াইজেড, হাংরিনাকি এবং অগমেডিক্স।[১২]

পরিষেবা[সম্পাদনা]

মায়া আপা প্রাথমিকভাবে একটি বেনামী বার্তা পরিষেবা প্রদান করে, যার ফলে ব্যবহারকারীরা তাদের স্বাস্থ্য, সামাজিক এবং আইনি প্রশ্নগুলি মায়া আপাকে করতে পারে। মায়া মেশিন লার্নিং ব্যবহার করে প্রতিটি প্রশ্ন ডাক্তার, কাউন্সেলর, আইনজীবি বা অন্য যে কোন উত্তর বিশেষজ্ঞের কাছে পাঠায় এবং সেটা স্বয়ংক্রিয়ভাবে বাছাই করা হয়। [১৩] ব্যবহারকারীরা বাংলা, ইংরেজি, বা বাংলারেজী ভাষায় তাদের প্রশ্নগুলি জিজ্ঞাসা করতে পারেন এবং একই ভাষায় বিশেষজ্ঞরা থেকে উত্তর পান। [১]

পুরস্কার[সম্পাদনা]

  • মায়া আপা ২০১৫ সালে বাংলাদেশ ব্র্যান্ড ফোরাম অনুপ্রেরণামূলক মহিলা পুরস্কার সেরা প্রারম্ভিক হিসাবে পায়। [৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Maya Apa aiming high in digital healthcare"Dhaka Courier। মার্চ ৮, ২০১৮। জুন ১৫, ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০১৮ 
  2. "Maya Apa Raises New Funding From BRAC, Aims To Become The On-demand Information Service In Bangladesh"Future Startup। ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১২, ২০১৮ 
  3. Ellis, Jack (নভেম্বর ৩০, ২০১৭)। "Google reveals latest accelerator batch, including first startups from Bangladesh and Pakistan"Tech In Asia। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০১৮ 
  4. ""Don't let anyone tell you can't do it – not even you": Q & A with Maya Founder Ivy Huq Russell"Future Startup। মে ১৯, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৮, ২০১৮ 
  5. Hossain, Anushay (মার্চ ২৫, ২০১৫)। "In Bangladesh, mobile app removes stigma of talking about women's health"The New York Times। জুলাই ৪, ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৯, ২০১৮ 
  6. "নারীদের জন্য মোবাইল অ্যাপ মায়া আপা"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৮ 
  7. Rahman, Osama (ফেব্রুয়ারি ৩, ২০১৫)। "The Maya App"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৯, ২০১৮ 
  8. Reza, Pantha R. (এপ্রিল ৬, ২০১৫)। "In Bangladesh, an app that lets women speak without fear"PRI। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০১৫ 
  9. "Robi now offers Maya Apa Plus service over SMS & Mobile App"Robi। ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১২, ২০১৭ 
  10. "Brac to invest in Maya Apa app"The Daily Star। ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১২, ২০১৮ 
  11. "Brac increases investment in Maya Apa mobile app"Dhaka Tribune। ফেব্রুয়ারি ১৫, ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১২, ২০১৮ 
  12. Islam, Muhammad Z. (ফেব্রুয়ারি ৯, ২০১৮)। "Govt investing in start-ups"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ১২, ২০১৮ 
  13. Vaitheesvaran, Bharani (ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০১৮)। "Local startups get into global shape at Google's bootcamp"The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৭, ২০১৮ 

বহিসংযোগ[সম্পাদনা]