মসজিদ আল-কুফা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
মসজিদ আল-কুফা
Kufa Mosque.jpg
২০১৪ এ কুফা মসজিদ
ধর্ম
অন্তর্ভুক্তিশিয়া ইসলাম
অবস্থান
অবস্থানকুফা, ইরাক
পৌরসভানাজাফ প্রদেশ
ভৌগোলিক স্থানাঙ্ক৩২°০১′৪৩″ উত্তর ৪৪°২৪′০৩″ পূর্ব / ৩২.০২৮৬১° উত্তর ৪৪.৪০০৮৩° পূর্ব / 32.02861; 44.40083স্থানাঙ্ক: ৩২°০১′৪৩″ উত্তর ৪৪°২৪′০৩″ পূর্ব / ৩২.০২৮৬১° উত্তর ৪৪.৪০০৮৩° পূর্ব / 32.02861; 44.40083
স্থাপত্য
সম্পূর্ণ হয়৬৭০ খ্রিস্টাব্দ
গম্বুজসমূহ1
ওয়েবসাইট
আল কুফা মসজিদ

মসজিদ আল-কুফা (আরবি: مسجد الكوفة المعظم‎‎), বা মসজিদ আল-আজম ইরাকের কুফায় অবস্থিত বিশ্বের পুরাতন মসজিদগুলো অন্যতম। ৭ম শতাব্দীতে নির্মিত এই মসজিদতে হুসাইন ইবনে আলির চাচাতো ভাই মুসলিম ইবনে আকিল, বোন হানি ইবনে উরওয়া এবং সাহসী যোদ্ধা মুখতার আল-সাকাফি এর সমাধি রয়েছে।[১]

আয়তন[সম্পাদনা]

বর্তমানে ভবনটির আয়তন প্রায় ১১,০০০ মিটার .[২]

মসজিদটিতে নয় কক্ষবিশিষ্ট। এটির চারটি মিনার এবং পাঁচটি গেইট রয়েছে।[২]

পুনসংস্কার[সম্পাদনা]

দাউদি বোহরার ৪২ তম দা’য়ি আল মুতলাক সৈয়্যেদেনা মোহাম্মদ বোরহান উদ্দিন মসজিদটির পুনসংস্কারের কাজ হাতে নেন, যা ২০১০ সালের শুরুরদিকেই সংস্কারের কাজ শেষ হয়। মসজিদটির অনেক বিশেষত্ব রয়েছে:

  • মসজিদটি সোনা এবং রৌপ্য এবং বহুমূল্যবান পাথর যেমন হীরা, রুবী দিয়ে সাজানো হয়েছে এবং মসজিদটির প্রতিটিই কোনায় যেকোন ব্যক্তি ইয়া আলি লেখা খোঁজে পাবে।
  • কিবলা, যেটির উপর আলি ইবনে আবি তালিব শহীদ হয়েছিলেন তা সোনার জারি দিয়ে তৈরী করা হয়েছে। জারিটি সোন, রৌপ্য, রুবী এবং হীরার সমন্বয়ে তৈরী করা হয়েছে।
  • মসজিদটি অভ্যন্তরীণ অংশে কোরাআনের আয়াত দ্বারা পরিবেষ্টিত করা হয়েছে যাতে সোনার অক্ষরে আরবি চারুলিপি রয়েছে।
  • কিবলার অংশে মাবেলে উপর অশ্রুর গড়নে খোদাই করা হয়েছে।
  • পুরো মসজিদে ব্যবহৃত মাবেল এবং টাইলস গ্রিস থেকে আমদানি করা হয়েছে। এই টাইলসগুলো মক্কার কাবাতুল্লাহতেও ব্যবহার করতে দেখা যায়।এই টাইলসগুলোর বিশেষত্ব হচ্ছে, টাইলসগুলো উজ্জল সূযরশ্মি এবং গ্রীষ্মের সময়েও ঠান্ডা থাকে।
  • বিশেষ ধরনের গালিচা ইরান থেকে আমদানি করা হয় যা মসজিদের ভিতরে ব্যবহৃত হয়।

মসজিদটির গুরুত্ব[সম্পাদনা]

মসজিদটি অনেক কারণেই পবিত্র স্থান হিসেবে বিবেচিত হয়ে থাকে:

  • এটি সে জায়গা যেখানে আলি মারাত্বকভাবে মাথায় আঘাতপ্রাপ্ত হন যখন তিনি সেজদারত অবস্থায় ছিলেন।
  • হুসেইন ইবনে আলীর বড় চাচাতো ভাই মুসলিম ইবনে আকেল তান সাথী হানি ইবনে উরওয়া এবং সাহসী যুদ্ধা আল-মুখতার এর পবিত্র মাজার শরীফ এখানে অবস্থিত।
  • মসজিদটিতে কিছু নিদেশিকা রয়েছে যেগুলো নিদেশ করে কোথায় মওলা আলি সভা পরিচালনা, অলৌকিক কাজ করতেন এবং কোথায় জয়নুল আবেদিন এবং জাফর আল সাদিক সালাত আদায় করতেন।
  • ইসলামিক ঐতিহ্য অনুযায়ী মসজিদটি সেই জায়গা যেখানে হযরত নূহ বাস করতেন এবং যেখানে দিনি তার কিস্তি (বড় নৌকা) বানিয়েছিলেন।[৩]
  • শিয়া বিশ্বাস অনুসারে, এটি ছিল সে জায়গা যা নূহের আমলে সমগ্র পৃথিবী ডুবতে শুরু করেছিল এবং সাথে সাথে এই জায়গা থেকেই পানি পুনারায় আত্মীভূত হতে শুরু হয়েছিল। [৪]
  • ইমাম জাফর আল সাদিক বলেছেন যে, মসজিদটির চারদিক থেকে ১২ কিলোমিটার পযন্ত এলাকা মসজিদটির পবিত্র দয়ার চাদরে থাকবে।[৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Hundreds of thousands' Friday assemblage in Masjid-e-Uzma Kufa"Jafariyanews.com। সংগ্রহের তারিখ ২০ নভেম্বর ২০০৮ 
  2. "General Facts and Numbers"। The Official Website of Secretariat of Al-Kufa Mosque and it Shrines। ২০১০-০৭-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৩-০১ 
  3. "The Establishment of the Mosque"। The Official Website of Secretariat of Al-Kufa Mosque and it Shrines। ২০১০-০৭-৩১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৩-০১ 
  4. al-Qummi, Ja'far ibn Qūlawayh (২০০৮)। Kāmil al-Ziyārāt। trans. Sayyid Mohsen al-Husaini al-Mīlāni। Shiabooks.ca Press। পৃষ্ঠা 66–67। 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]