মডার্ন টাইমস (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
মডার্ন টাইমস
Modern Times poster.jpg
পরিচালক চার্লি চ্যাপলিন
প্রযোজক চার্লি চ্যাপলিন
রচয়িতা চার্লি চ্যাপলিন
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকার চার্লি চ্যাপলিন
চিত্রগ্রাহক আইরা এইচ. মরগ্যান
রোল্যান্ড টথেরোহ
সম্পাদক উইলার্ড নিকো
পরিবেশক ইউনাইটেড আর্টিস্ট্‌স
মুক্তি ৫ ফেব্রুয়ারি, ১৯৩৬
দৈর্ঘ্য ৮৭ মিনিট
ভাষা নির্বাক
ইংরেজি (মূল আন্তঃভাষ্য)
নির্মাণব্যয় $১.৫ মিলিয়ন[১]
আয় $১.৪ মিলিয়ন (যুক্তরাষ্ট্র)[১]

মডার্ন টাইমস হল ১৯৩৬ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত নির্বাক হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র। এটি রচনা, প্রযোজনা ও পরিচালনা করেছেন চার্লি চ্যাপলিন। এই ছবিতে দেখানো হয় চ্যাপলিনের লিটল ট্রাম্প সত্তা আধুনিক শিল্পায়িত পৃথিবীতে বেঁচে থাকতে সংগ্রাম করে যাচ্ছে। ছবিতে মহামন্দা চলাকালীন বিপুল সংখ্যক মানুষের কর্মসংস্থান ও আর্থিক অবস্থার জন্য হতাশার চিত্র তুলে ধরা হয়েছে, যাকে চ্যাপলিন আধুনিক শিল্পায়নের সামর্থ্যের জন্য বলে বিবেচনা করেন। এতে অভিনয় করেন চার্লি চ্যাপলিন, পলেট গডার্ড, হেনরি বার্গম্যানচেস্টার কঙ্কলিন

মডার্ন টাইমস চলচ্চিত্রটি "সাংস্কৃতিকভাবে গুরুত্বপূর্ণ" বিবেচনায় লাইব্রেরি অব কংগ্রেস ১৯৮৯ সালে ছবিটিকে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় চলচ্চিত্র রেজিস্ট্রিতে সংরক্ষণের জন্য নির্বাচন করে। ১৪ বছর পরে, ২০০৩ সালে কান চলচ্চিত্র উৎসবে "প্রতিযোগিতার বাইরে" বিভাগে প্রদর্শিত হয়।[২]

কুশীলব[সম্পাদনা]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

পলেট গডার্ড, মডার্ন টাইমস চলচ্চিত্রের অভিনেত্রী।

সিটি লাইট্‌স চলচ্চিত্র নিয়ে ইউরোপে গেলে মহামন্দার প্রভাবে মহাদেশটির শোচনীয় অবস্থা দেখে এবং মহাত্মা গান্ধীর সাথে আধুনিক প্রযুক্তির নিয়ে আলোচনা থেকে চ্যাপলিন মডার্ন টাইমস ছবি নির্মাণের অনুপ্রেরণা লাভ করেন। চ্যাপলিন বুঝতে পারেন নি গান্ধী কেন এর বিরোধিতা করছে, যদিও তিনি তা মঞ্জুর করে নিয়েছেন যে "শুধুমাত্র মুনাফার জন্য মেশিনের ব্যবহার" অনেক মানুষকে বেকার করে দিয়েছে এবং তার জীবন বরবাদ করেছে।[৩]

চ্যাপলিন তার প্রথম সবাক চলচ্চিত্র নির্মাণের প্রয়াসে ১৯৩৪ সালে সংলাপ রচনা করেন এবং কয়েকটি সবাক দৃশ্য ধারণ করেন। পরে তিনি তার এই প্রচেষ্টা বাতিল করেন এবং সামঞ্জস্যপূর্ণ শব্দ ও বিরল রকমের সংলাপসহ নির্বাক চলচ্চিত্রে ফিরে যান। চলচ্চিত্রের দৃশ্যায়ন শুরু হয় ১১ অক্টোবর ১৯৩৪ এবং শেষ হয় ১৯৩৫ সালে ৩০ আগস্ট।[৪]

সঙ্গীত[সম্পাদনা]

দাপ্তরিক নথিপত্র অনুযায়ী চলচ্চিত্রের সুরায়োজন করেছেন চ্যাপলিন নিজে এবং তার সহকারী ছিলেন আলফ্রেড নিউম্যান। রোম্যান্স থিমটিতে পরবর্তীতে গীত প্রদান করা হয় এবং "স্মাইল" শীর্ষক গানটি পপ গানে মানদণ্ড হয়ে ওঠে। গানটি প্রথমে রেকর্ড করেন ন্যাট কিং কোল। পরে স্যামি ডেভিস জুনিয়র, হার্ব জেফ্রিস, ডিন মার্টিন, টনি বেনেট, ট্রিনি লোপেজ, এরিক ক্ল্যাপটন, বারবারা স্ট্রাইস্যান্ড, ডায়ানা রস, মাইকেল বাবল, পেটুলা ক্লার্ক, লিবারেস, জুডি গারল্যান্ড, মেডেলিন পেরোয়া, প্লাসিডো ডোমিঙ্গো ও ডিয়নে ওয়ারউইক, মাইকেল জ্যাকসন এবং রবার্ট ডাউনি জুনিয়রসহ অনেক শিল্পীরা গানটিকে কভার হিসেবে ব্যবহার করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Balio, Tino (২০০৯)। United Artists: The Company Built by the Stars (ইংরেজি ভাষায়)। ইউনিভার্সিটি অব উইসকনসিন প্রেস। পৃষ্ঠা 131। আইএসবিএন 978-0-299-23004-3 
  2. "Festival de Cannes: Modern Times"কান চলচ্চিত্র উৎসব (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২২ অক্টোবর ২০১৭ 
  3. Flom, Eric L. (১৯৯৭)। "3. Modern Times"। Chaplin in the Sound Era: An Analysis of the Seven Talkies (ইংরেজি ভাষায়)। McFarland। আইএসবিএন 9780786403257 
  4. As said in Chaplin Today: Modern Times, a 2003 French documentary.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]