ভারতীয় ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান, কালিকট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ভারতীয় ব্যবস্থাপনা সংস্থা কোঝিকোড়
ভারতীয় ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান, কালিকটের লোগো.svg
নীতিবাক্যযোগ কামাসু কুশলম (সংস্কৃতি - গীতা থেকে ২:৫০
বাংলায় নীতিবাক্য
অধ্যবসায় উত্কর্ষ বাড়ে
ধরনপাবলিক ব্যবসা স্কুল
স্থাপিত১৯৯৬
চেয়ারম্যানএ সি মুথিয়া
পরিচালককুলভূষণ বালুনী
শিক্ষার্থী৬৫০ জন এমবিএ শিক্ষার্থী
অবস্থান, ,
শিক্ষাঙ্গনশহরতলি,৯৭ একর (০.৪ কিমি)
Heraldryউপরের থেকে ঘড়ির কাঁটার দিকে: অর্জুন এর নম এবং তীর (লক্ষ্য, সংকল্প, উত্কর্ষ, অর্জন), বইয (জ্ঞান, বিদ্যা শিক্ষা) এবং সৈকতের (কেরালা, ঐতিহ্য)
অধিভুক্তিভারতীয় ব্যবস্থাপনা সংস্থা
ওয়েবসাইটIimk.ac.in

ভারতীয় ব্যবস্থাপনা সংস্থা কোঝিকোড় বা ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট কোঝিকোড় (আইআইএম কোঝিকোড় বা আইআইএমইকে) কেরালার কালিকট (কোঝিকোড়) শহরে অবস্থিত একটি সরকারী ব্যবস্থাপনা বিদ্যালয় বা বিজনেস স্কুল। কেরালার রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় ভারত সরকার কর্তৃক ১৯৯৬ সালে প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানটি ভারতে পরিচালিত ২০ টি ভারতীয় ব্যবস্থাপনা সংস্থা বা ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অব ম্যানেজমেন্ট (আইআইএম)- এর মধ্যে একটি। এটি প্রতিষ্ঠিত হয় দেশের পঞ্চম আইআইএম হিসাবে। [১]

প্রতিষ্ঠানটি গবেষণা, শিক্ষণ এবং প্রশিক্ষণ, পরামর্শ ও বুদ্ধিবৃত্তিক অবকাঠামো উন্নয়ন আচ্ছাদন ব্যবস্থাপনা শিক্ষার ক্ষেত্রে একাডেমিক কার্যক্রমের একটি সম্পূর্ণ পরিসর পরিচালনা করে। প্রতিষ্ঠানটি বিশ্লেষণাত্মক দক্ষতার উন্নয়ন এবং ব্যবসা চাহিদা ও সামাজিক উদ্বেগগুলির মধ্যে বিশ্বব্যাপী ভারসাম্য সহ আন্তঃসাংস্কৃতিক বিষয়গুলির উপর জোর দেয়। [২]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট কোঝিকোড় (আইআইএমকে) ১৯৯৬ সালে ভারত সরকারের দ্বারা পরিচালিত পঞ্চম ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট হিসাবে কেরালা রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় স্থাপিত হয়। ১৯৯৭ সালে, এমবিএর সমতুল্য স্নাতকোত্তর বা পোস্ট গ্র্যাজুয়েট প্রোগ্রাম (পি জি পি)য়ে ৪২ জন ছাত্রের প্রথম ব্যাচ দ্বারা, ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজি কালিকটয়ের অস্থায়ী ক্যাম্পাসে ইন্ডিয়ান ইনস্টিটিউট অফ ম্যানেজমেন্ট কোঝিকোড় য়ের যাত্রা শুরু হয়। ২০০০ সালে কুনমঙ্গলামের বর্তমান ক্যাম্পাসের নামটি চিহ্নিত করা হয়। পরের বছর, জোসেফ স্টিন (দিল্লির ইন্ডিয়া হ্যাবিটাট সেন্টারের স্থপতি) এবং স্টিন মনি চৌহা আর্কিটেক্টস এই প্রতিষ্ঠানের নকশা ও নির্মাণ শুরু করে। ২০০৩ সালে, আইআইএম কোঝিকোড় তার পাহাড়ের উপরে অবস্থিত ক্যাম্পাসে স্থানান্তরিত হয়। ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি এপিজে আব্দুল কালাম এবং কেরালার তৎকালীন মুখ্যমন্ত্রী জনাব এ কে এ্যান্টনি ক্যাম্পাসটির উদ্বোধন করেন।

এখানে আন্তঃক্রিয়াশীল দূর শিক্ষন (ইন্টারেক্টিভ ডিস্টেন্সি লার্নিং) কাজের নির্বাহীদের জন্য একটি অনলাইন ব্যবস্থাপনা শিক্ষা ব্যবস্থা, ২০০১-০২ সালে চালু করা হয়েছিল। আইআইএম কোজিকোড় এশিয়ার প্রথম প্রতিষ্ঠান ছিল [৩] যেটি কর্মক্ষেত্রে পরিচালকদের জন্য পরিচালিত একটি দূরবর্তী শিক্ষা ব্যবস্থা প্রদান করা হয়। পি.জি.পি. কোর্সে নারীদের সংখ্যা বৃদ্ধির লক্ষ্যে ২০১০-১২ এর ব্যাচ থেকে সক্রিয়ভাবে নারী সংখ্যা ৩০% বৃদ্ধি পায়। [৩][৪] ২০১০ সালে, আইআইএমইকে সিং-ওবামা জ্ঞান প্রবর্তকয়ের অংশ হিসেবে একাডেমিক লিডারশিপের জন্য সেন্টার অফ এক্সিলেন্স প্রতিষ্ঠা করার জন্য ইয়েল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে একটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষরিত হয়। [৫]

ক্যাম্পাস[সম্পাদনা]

আইআইএম কোজিকোড় ক্যাম্পাসের বায়বীয় দৃশ্য

মূল ক্যাম্পাস কেরালা রাজ্যের কোঝিকোড় শহরের একটি উপ-নগর এলাকা কুনারামালামে অবস্থিত (পূর্বে কালিকট নামে পরিচিত)। কোঝিকোড় কেরালায় দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর। ক্যাম্পাস দুটি পাহাড় জুড়ে ছড়িয়ে রয়েছে যা পশ্চিমাঘাট পর্বতের অংশ। শ্রেনি কক্ষের পাশাপাশি ক্যাম্পাসে ছাত্র, অনুষদ (ফ্যাকাল্টি) এবং দর্শকদের জন্য আবাসিক সুবিধা রয়েছে। প্রায় ৮০০ জন শিক্ষার্থীর ক্যাম্পাসে থাকার জন্য ১৩ টি হোস্টেল রয়েছে। ১০০ একর জমির উপর প্রতিষ্ঠিত হয়েছে প্রতিষ্ঠানটি। ক্যাম্পাসটি জলের জন্য বৃষ্টিপাতের জলপ্রবাহের উপর নির্ভর করে। [৬]

গ্রন্থাগার এবং তথ্য কেন্দ্র[সম্পাদনা]

আইআইএম কোঝিকোড় একটি সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় গ্রন্থাগার ও তথ্য কেন্দ্র (এলআইসি) পরিচালনা করে যা বিশ্বের একটি ডিজিটাল গ্রন্থাগার উন্নয়ন কেন্দ্র। [৭] প্রতিষ্ঠানটি গ্রীনস্টোন ডিজিটাল লাইব্রেরি সফটওয়্যারের জন্য দক্ষিণ এশীয় সমর্থন নেটওয়ার্ককে ইউনেস্কোর অনুরোধে সহযোগিতা করে এবং আইআইএম গ্রন্থাগার সাহচর্য আন্দোলনের (আইআইএম লাইব্রেরির কনসোর্টিয়াম মুভমেন্ট) ধারণার প্রস্তাব দেয়। [৩] গ্রন্থাগারটি একটি প্রাতিষ্ঠানিক আর্কাইভ হিসেবে সেবা প্রদান করে। [৮] এখানে হার্ড কপি, অডিও/ভিডিও, সিডি-রম, এবং অন্যান্য ইলেকট্রনিক ফরমের নথি সংগ্রহের একটি সুষম কার্যক্রম অনুসরণ করা হচ্ছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৮ মে ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০১৮ 
  2. "IIM-K will teach ethics, not greed: Debashis Chatterjee, Director, IIM Kozhikode"The Times Of India। ২০১০-১২-২১। 
  3. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি" (PDF)। ২৪ জানুয়ারি ২০১১ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০১৮ 
  4. "No quota, yet IIM-Kozhikode admits 33% women"The Times Of India। ২০১০-০৫-১৩। ২০১২-০৬-০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-০৫-৩১ 
  5. http://www.business-standard.com/india/news/iimk-yale-in-tie-up-for-leadership-programme/413308/
  6. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। ৩ মে ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ মে ২০১৮ 
  7. [১] ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৬ মে ২০০৭ তারিখে IIMK Library Portal
  8. [২] ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২৮ মে ২০১৮ তারিখে IIMK Dspace

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]