বেঙ্গল সালতানাত-জৌনপুর সালতানাত যুদ্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
বেঙ্গল সালতানাত-জৌনপুর সালতানাত যুদ্ধ
শাহী বাংলা-জৌনপুর সালতানাত যুদ্ধ
তারিখ১৪১৫-১৪২০ [১]
অবস্থান
পূর্ব ভারতীয় উপমহাদেশ (বর্তমানে বাংলাদেশ এবং ভারত পশ্চিমবঙ্গ)
ফলাফল বাংলার সালতানাতের বিজয়
বিবাদমান পক্ষ
শাহী বাংলা
কূটনৈতিক সমর্থন:
তৈমুরি
মিং রাজবংশ
জৌনপুর সালতানাত
সেনাধিপতি ও নেতৃত্ব প্রদানকারী
জালালউদ্দিন মুহাম্মদ শাহ ইব্রাহিম শাহ

বেঙ্গল সালতানাত-জৌনপুর সালতানাত যুদ্ধ ভারতীয় উপমহাদেশের শাহী বাংলা এবং জৌনপুর সালতানাত একটি দ্বন্দ্ব ছিল। এই দ্বন্দ্বটি তৈমুরি সাম্রাজ্য এবং মিং সাম্রাজ্যের কূটনৈতিক চাপের পর এই দ্বন্দ্বের সমাপ্তি ঘটে।

পটভূমি[সম্পাদনা]

জৌনপুর সালতানাত রাজা গণেশের শাসনকে চ্যালেঞ্জ করে, যিনি ইলিয়াস শাহী রাজবংশকে উৎখাত করার পর বাংলার সিংহাসন দখল করেন। এর ফলে রাজা গণেশকে পরে অপসারণ করা হয়। কিন্তু তার পুত্র পরে সিংহাসন গ্রহণ করেন এবং ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেন।

সংঘাত[সম্পাদনা]

জৌনপুরের ইব্রাহিম শাহ জালালউদ্দিন মুহাম্মদ শাহের অধীনে বাংলার সালতানাত আক্রমণ অব্যাহত রাখেন।

বৈদেশিক মধ্যস্থতা[সম্পাদনা]

শাহরুখ মির্জার আদালতে একজন কূটনীতিবিদ রেকর্ড করেন যে বাংলার সুলতানের অনুরোধে হেরাত-জৌনপুর সংঘাতের সময় হেরাতের তৈমুরি শাসক হস্তক্ষেপ করেন। এই রেকর্ডে শাহরুখ মির্জার কথা বলা হয়েছে "জৌনপুরের শাসককে বাংলার রাজাকে আক্রমণ করা থেকে বিরত থাকতে, অথবা তার নিজের উপর এর প্রভাব নিয়ে চিন্তার জন্যে। যার কাছে জৌনপুর শাসকের আনুগত্য ছিল, এবং বাংলার উপর তার আক্রমণ থেকে বিরত ছিল।[১] মিং চীন থেকে প্রাপ্ত রেকর্ডস থেকে জানা যায় যে ইয়ংকল সম্রাটও তার পেকিং কোর্টে বাঙালি রাষ্ট্রদূত এই বিরোধের অভিযোগের পরে জৌনপুর ও বাংলার মধ্যে মধ্যস্থতা করেছিলেন।[২]

পরিণতি[সম্পাদনা]

এই দ্বন্দ্বের ফলে বঙ্গ ও জৌনপুরের মধ্যে শান্তি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Richard M. Eaton (১৯৯৬)। The Rise of Islam and the Bengal Frontier, 1204-1760। University of California Press। পৃষ্ঠা 53। আইএসবিএন 978-0-520-20507-9 
  2. Chung Tan; Yinzeng Geng (২০০৫)। India and China: twenty centuries of civilization interaction and vibrations। Project of History of Indian Science, Philosophy and Culture, Centre for Studies in Civilizations। পৃষ্ঠা 361। আইএসবিএন 978-81-87586-21-0