বাহরাইনের জাতীয় প্রতীক

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
বাহরাইনের জাতীয় প্রতীক
Emblem of Bahrain.svg
আর্মিজারবাহরাইনের রাজা
গৃহীত১৯৩২
প্রতীকচিহ্নের বিবরণপ্রধান আর্জেন্ট পাঁচ ডান্সেটি গালস
অন্যান্য উপাদানম্যান্টেলিং গুলস ডবলড আর্জেন্ট

বাহরাইনের জাতীয় প্রতীকটি মূলত ১৯৩২ সালে ব্রিটিশ গভর্নর এবং বাহরাইনের তৎকালীন বাহরাইনের রাজার উপদেষ্টা চার্লস বেলগ্রাভ ডিজাইন করেছিলেন। এরপর থেকে বর্তমান পর্যন্ত এর নকশায় অনেক হেরফের হয়েছে। উদাহরণস্বরূপ ১৯৭১ সালে ম্যান্টলিং এবং ২০০২ সালে খাঁজের সংশোধন করা হয়েছিল। তবুও আধুনিক প্রতীকটিতে ১৯৩২ সালের মূল নকশার প্রভাবটি স্পষ্টভাবে দৃশ্যমান।

কোট অব আর্মটি রাজার ব্যক্তিগত প্রতীক হিসাবেও ব্যবহৃত হয়। এছাড়াও এটি সরকারী ও জাতীয় প্রতীক হিসাবেও ব্যবহৃত হয়। তবে কেবল বাদশাহই জাতীয় প্রতীক সংবলিত রাজকীয় মুকুট পরিধান করতে পারেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৮২০ সালের সাধারণ মেরিটাইম সন্ধি অনুসারে বাহরাইনের যুক্তরাজ্য কর্তৃক রক্ষাকর্তা নিযুক্ত হয়। বাহরাইনের দ্বীপপুঞ্জের উপর কর্তৃত্বকারী শাসক শেখ ও হাকিমদের পরামর্শদাতা এবং গভর্নরের অধিকাংশই ছিলেন ব্রিটিশ। ১৯৩২ সালে তৎকালীন ব্রিটিশ গভর্নর ও শেখের পরামর্শদাতা চার্লস বেলগ্রাভ শাসনকর্তা শেখ ইসা ইবনে আলী আল খলিফার জন্য কোট অব আর্মের নকশা প্রস্তুত করতে সহায়তা করেছিলেন। মূল হেরাল্ডিক নকশার কৃতিত্বটি ছিল লাল রঙের তিনটি সাদা নৃত্যশিল্পী যার সাথে হেরাল্ডিক (প্রাচীন মুকুট) এর আটটি বিন্দু দ্বারা সজ্জিত ছিল, যার পাঁচটি শীর্ষ প্রতীকে দৃশ্যমান ছিল।[১]

১৯৭১ সালে যুক্তরাজ্যবাহরাইন চুক্তি থেকে সরে আসার পরে, দ্বীপ দেশটি স্বাধীনতা লাভ করে। সদ্য অর্জিত স্বাধীন ও সার্বভৌমত্বের প্রতীক হিসাবে কোট অব আর্মে সাদালাল রঙের সংমিশ্রণ ঘটানো হয়। ঐতিহ্যবাহী অনুশীলনের সাথে একরকম অস্বাভাবিকভাবেই শিরোনাম বা টর্স ছাড়াই ঝালর চারপাশে ম্যান্টলিং প্রদর্শন করা হয়। এই জাতীয় প্রতীকটি আমিরের ব্যক্তিগত প্রতীক হিসাবেও ব্যবহৃত হয়। রাজকীয় এই প্রতীকটি বাহরাইনের রাজার রাজমুকুটে ব্যবহার করা হয়। কিন্তু মুকুটটির ফাকা জায়গাগুলোর মধ্যে ছোট ছোট বিন্দুর প্রদর্শন করতে পরিবর্তিত হয়েছিল। ম্যান্টলিং সান ক্রাউন দ্বারা প্রদর্শিত এই প্রতীক বাহরাইনের আধিপত্যের প্রতীক ও নিদর্শন হয়ে উঠেছিল। [১]

হামাদ বিন ঈসা আল খলিফা ২০০২ সালে বাহরাইনের আমির হন। রাজত্ব লাভের পর তিনি রাজ প্রতীকের পরিবর্তনের ঘোষণা দেন। পরিবর্তনের পরও প্রতীকটিতে লাল রঙ থেকেই যায়। তবে শ্বেত প্রধান ফুলেল মালার সাথে বর্তমানে মুসলিম বিশ্বাসের পাঁচটি স্তম্ভকে উপস্থাপন করার জন্য পাঁচটি খাঁজ ব্যবহার করা রয়েছে, যেখানে ১৯৩২ সাল থেকে ব্যবহৃত মূল নকশায় তিনটি খাঁজ ব্যবহার করা হতো।[১]

নকশাটি জাতীয় পতাকার নকশার প্রায় একইরকম। কেবলমাত্র তফাতটি হল পুরো নকশাটি ১৮০° উল্টে দেওয়া হয়েছে যাতে নকশাটির প্রধান পতাকা দর্পন উত্তোলন হিসাবে মনে হয়।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. De Vries, Hubert. "Bahrain." 28 September 2007. Web. 19 February 2011.