বাগানের গোলাপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
হাইব্রিড চা গোলাপ, পিয়ার গাইন্ট

বাগানের গোলাপ মূলত হাইব্রিড গোলাপ যা ব্যক্তিগত বা সরকারী উদ্যানে শোভাময় গাছ হিসাবে জন্মায়। এগুলি ফুল গাছের সর্বাধিক জনপ্রিয় এবং ব্যাপকভাবে চাষ করা এক শ্রেণির গোলাপ, বিশেষত নাতিশীতোষ্ণ জলবায়ুতে এগুলো চাষ করা হয়। বিশেষ করে গত দুই শতাব্দীতে বেশ কয়েকটি জাত উৎপাদিত হয়েছে, যদিও গোলাপ বাগানে হাজার বছর আগে থেকেই পরিচিত ছিল। বেশিরভাগ বাগানের গোলাপ তাদের ফুলের জন্য উত্থিত হয়। এছাড়াও অন্যান্য কিছু কারণে মূল্যবান হয়, যেমন— শোভাময় ফল, স্থল কভার বা হেজিং সরবরাহ করার কারণে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

বিশ্বাস করা হয় যে, কমপক্ষে ৫০০০ বছর আগে থেকে নাতিশীতোষ্ণ অক্ষাংশের প্রাথমিক সভ্যতায় গোলাপ জন্মেছিল। জানা যায় এই ফুল প্রাচীন ব্যাবিলনে প্রথম জন্মেছে। [১] খ্রিস্টপূর্ব ১৪ শতক থেকে মিশরীয় পিরামিড সমাধিতে গোলাপ অঙ্কন আবিষ্কার করা হয়েছে।[২] খ্রিস্টপূর্ব ৫০০ অব্দ (কমপক্ষে) থেকে চীনা উদ্যান এবং গ্রীক উদ্যানগুলিতে এই গোলাপ জন্মানোর রেকর্ড রয়েছে।[৩][৪] অনেক আসল গাছের পাপড়ির উপাদান গোলাপে ব্যবহার শুরু করা হয় যাতে দ্রুত ফলাফল পাওয়া যায়।

এই প্রাথমিক উদ্যানগুলিতে উত্থিত বেশিরভাগ গাছপালা সম্ভবত বন থেকে সংগ্রহ করা প্রজাতি ছিল। সেখানে প্রচুর পরিমাণে নির্বাচিত জাতগুলি প্রান্তিক কাল থেকেই জন্মাতো । উদাহরণস্বরূপ – চীনের চাষীরা প্রথম সহস্রাব্দ থেকে নির্বাচিত অসংখ্য বাংলা গোলাপ চাষ করত।[৫]

১৭ শতকে আধুনিক গোলাপের উল্লেখযোগ্য প্রজনন ধীরে ধীরে ইউরোপে শুরু হয় । ১৯ শতকে ইউরোপে এটির নতুন প্রজাতির সূচনার মাধ্যমে বিশেষত বাংলা গোলাপের সূচনার মাধ্যমে প্রণোদিত হয়েছিল। [৫] তার পর থেকে প্রচুর গোলাপের জাত হয়েছে। ১৯ শতকের গোড়ার দিকে একজন উল্লেখযোগ্য অবদানকারী ছিলেন ফ্রান্সের সম্রাজ্ঞী জোসেফাইন যিনি মালমাইসনে তার বাগানে গোলাপের প্রজনন বিকাশের জন্য পৃষ্ঠপোষকতা করেছিলেন। [৬] ১৮৪০ সালের হিসাবে বিভিন্ন ধরনের গোলাপ হাজারটিও বেশি সংগ্রহ চাষ করা হয়েছে।[৭]

আকৃতি[সম্পাদনা]

একটি অ্যাম্বার রঙের গোলাপ

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "In pictures: Kew's Rose Garden in bloom | Kew"Kew Gardens 
  2. "History Of The Rose" 
  3. Goody, Jack (১৯৯৩)। The Culture of Flowersবিনামূল্যে নিবন্ধন প্রয়োজনCambridge University Pressআইএসবিএন 978-0521424844 
  4. Thomas, Graham Stuart (২০০৪)। The Graham Stuart Thomas Rose Book। London, England: Frances Lincoln Limited। আইএসবিএন 0-7112-2397-1 
  5. Higson, Howard। "The History and Legacy of the China Rose"Quarryhill Botanical Garden 
  6. Scaniello, Stephen (৩১ মার্চ ১৯৯৬)। "Cuttings;When Malmaison Celebrated the Rose's Beauty"New York Times। সংগ্রহের তারিখ ১ জানুয়ারি ২০১৬ 
  7. "Abney Park Cemetery"London Gardens Online। ১৯ নভেম্বর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২১