ফ্রান্সের ষোড়শ লুই

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ষোড়শ লুই
Antoine-François Callet - Louis XVI, roi de France et de Navarre (1754-1793), revêtu du grand costume royal en 1779 - Google Art Project.jpg
ফ্রান্সের রাজা
রাজত্ব১০ মে ১৭৭৪– ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২
ফ্রান্স১১ জুন ১৭৭৫
রেইমস ক্যাথেড্রাল
পূর্বসূরিপঞ্চদশ লুই
উত্তরসূরিসপ্তদশ লুই
জন্ম(১৭৫৪-০৮-২৩)২৩ আগস্ট ১৭৫৪
ভার্সাইয়ের প্রাসাদ, ফ্রান্স
মৃত্যুটেমপ্লেট:মৃত্যুদিন এবং বয়স
বিপ্লবের স্থান, প্যারিস, ফ্রান্স
দাম্পত্য সঙ্গীঅষ্ট্রিয়ার মেরি অ্যান্টোয়নেট (বি. ১৭৭০)
বংশধরমেরি থেরেসে, ফ্রান্সের রানী
লুই জোসেফ, ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠপুত্র
ফ্রান্সের সপ্তদশ লুই
রাজকন্যা সোফি
পূর্ণ নাম
লুই অগাস্তে দে ফ্রান্স
রাজবংশবারবন
পিতালুই, ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠপুত্র
মাতাস্যাক্সনির মারিয়া জোসেফা
ধর্মরোমান ক্যাথলিক
স্বাক্ষরফ্রান্সের ষোড়শ লুই স্বাক্ষর

ষোড়শ লুই (ফরাসি উচ্চারণ: ​[lwi sɛːz]; ২৩ আগস্ট ১৭৫৪- ২১ জানুয়ারী ১৭৯৩), জন্মের সময় নাম লুই-অগাস্তে, ছিলেন ফরাসী বিপ্লবের সময়ে রাজতন্ত্রের পতনের আগে ফ্রান্সের শেষ রাজাগিলোটিনে মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার চার মাস আগ পর্যন্ত তাকে নাগরিক লুই ক্যাপেট নামে অভিহিত করা হত। ১৭৬৫ সালে, তার পিতা, লুই, পঞ্চদশ লুইয়ের পুত্র এবং স্পষ্টত উত্তরাধিকারী, মৃত্যুর পর, লুই-অগাস্তে ডউফিন, ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠ পুত্রে পরিণত হন। ১০ মে ১৭৭৪ সালে তার দাদার মৃত্যুর পর, তিনি "ফ্রান্স এবং নাভার"-এর রাজার পদবী ধারণ করেন, যা তিনি ১৭৯১ সালের ৪ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত ব্যবহার করেন, যখন তিনি "ফ্রান্সের রাজা" পদবী গ্রহণ করেন তখন থেকে ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২-এ রাজতন্ত্র বিলুপ্ত হওয়ার আগ পর্যন্ত।

তার রাজত্বের প্রথম অংশ এনলাইটমেন্টের ধারণা অনুযায়ী ফরাসী সরকার সংস্কারের প্রচেষ্টা দ্বারা চিহ্নিত। এসবের অন্তর্ভুক্ত ছিল ভূমিদাসত্বের অবসান, ট্যালি'র (ভূমি কর) এবং করভি (শ্রমিক কর)[১] অপসারণ, এবং অ-ক্যাথলিকদের প্রতি সহনশীলতা বৃদ্ধির সাথে সাথে দলত্যাগিদের জন্যে মৃত্যুদণ্ড অবসান।[২][৩] ফরাসী অভিজাতেরা প্রস্তাবিত সংস্কারের বিরুদ্ধে প্রতিকূল প্রতিক্রিয়া জানায়, এবং সফলতার সাথে তাদের আরোপের বিরোধিতা করে। লুই শস্য বাজার অনিয়ন্ত্রিত করেন, তার অর্থনৈতিক উদারনৈতিক মন্ত্রী টারগোটের সমর্থনে, কিন্তু তার পরিণতি হয় রুটির মুল্য বৃদ্ধিতে। খারাপ ফলনের সময়ে, খাদ্য সংকট জনগণের বিপ্লবের দিকে নিয়ে যায়। ১৭৭৬ সাল থেকে, ষোড়শ লুই প্রত্যক্ষভাবে উত্তর আমেরিকার উপনিবেশিকদের সমর্থন করেন, যারা গ্রেট ব্রিটেন থেকে তাদের স্বাধীনতা দাবি করছিল, যা ১৭৮৩ সালের প্যারিস চুক্তিতে অনুভূত হয়। আসন্ন ঋণ এবং অর্থনৈতিক সঙ্কট এন্সিয়েন রাজত্বের অজনপ্রিয়তায় অবদান রাখে। এটি ১৭৮৯ সালের এস্টেট- জেনারেলের সমাবেশের দিকে নিয়ে যায়। ফ্রান্সের মধ্য এবং নিম্ন শ্রেণিগুলোর সদস্যদের মধ্যে অসন্তোষ ফরাসী অভিজাততন্ত্র এবং চরম রাজতন্ত্রের বিরুদ্ধে বিরোধিতা জোরদার করে, যাতে লুই এবং তার স্ত্রীকে, মেরি অ্যান্টোয়নেট, প্রতিনিধি হিসেবে দেখা হয়। ক্রমবর্ধমান উত্তেজনা এবং সহিংসতা বাস্তিলে আক্রমণের মত ঘটনা দ্বারা চিহ্নিত, যেই সময়ে প্যারিসে দাঙ্গার ফলে লুইকে সন্দেহাতীতভাবে জাতীয় অ্যাসেম্বলির আইনানুগ কর্তৃত্ব হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ষোড়শ লুইকে ম্যাসনিক লজ ত্রয়ে- ফ্রেরেস এ ল'ওরিয়েন্ট দে লা কুরে অভিষিক্ত[কখন?] করা হয়।[৪] [Cite book verification needed

লুইয়ের সিদ্ধান্তহীনতা এবং রক্ষণশীলতা ফ্রান্সের জনগণের কিছু অংশকে ঠেলে দেয় তাকে এন্সিয়েন রাজত্বের উপলব্ধ স্বৈরশাসনের প্রতীক হিসেবে দেখতে, এবং তার জনপ্রিয়তায় দ্রুত ধ্বস নামে। জুন ১৯৭১-এ ভেরেনেসে তার সর্বনাশা পলায়ন, সাংবিধানিক রাজতন্ত্র ঘোষণার চার মাস আগে, রাজা তার রাজনৈতিক মুক্তির আশা-ভরসা বিদেশী হস্তক্ষেপের সাথে সন্নিবদ্ধ করেছেন এই গুঁজবকে দৃঢ় করে। রাজার বিশ্বাসযোগ্যতার গভীরভাবে পতন হয়, এবং রাজতন্ত্রের অবসান এবং গনপ্রজাতন্ত্রের প্রতিষ্ঠা এক সদা-বৃদ্ধির সম্ভাবনা হয়ে ওঠে।

১০ অগাস্ট ১৭৯২-এর বিদ্রোহের সময়ে, গৃহযুদ্ধ এবং আন্তর্জাতিক যুদ্ধের প্রসঙ্গে, ষোড়শ লুই বরখাস্ত এবং গ্রেপ্তার ছিলেন; এক মাস পরে, চরম রাজতন্ত্র বিলোপ হয়; প্রথম ফরাসী প্রজাতন্ত্র ২১ সেপ্টেম্বর ঘোষিত হয়। জাতীয় সভা (এই উপলক্ষে ট্রাইবুনাল হিসেবে স্ব- প্রতিষ্ঠিত) তার বিচার করেন, উচ্চ রাজদ্রোহে তাকে দোষী সাব্যস্ত করেন, এবং গিলোটিন দ্বারা তাকে মৃত্যুদণ্ড দেন ২১ জানুয়ারি ১৭৯৩ সালে, 'নাগরিক লুই ক্যাপেট' নামে, হিউ ক্যাপেটের সাথে মিলিয়ে, যিনি কাপেটিয় বংশের স্থপতি ছিলেন- যাকে বিপ্লবীরা লুইয়ের পদবী হিসেবে ব্যাখ্যা করেন- তাকে একজন পদমর্যাদাহীন ফরাসী নাগরিক হিসেবে। ষোড়শ লুই ফ্রান্সের একমাত্র রাজা ছিলেন যাকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়, এবং তার মৃত্যু এক হাজার বছরেরও বেশি ধারাবাহিক ফরাসী রাজতন্ত্রের সমাপ্তি নিয়ে আসে। তার দুই পুত্রই শৈশবে মারা যান, বারবন পুনঃপ্রতিষ্ঠার আগে; তার একমাত্র সন্তান যিনি সাবালক হন, মেরি থেরেসে, তাকে যুদ্ধে ফরাসী বন্দীদের বদলে অস্ট্রিয়দের কাছে দেওয়া হয়, শেষ পর্যন্ত সন্তানহীন অবস্থায় ১৮৫১ সালে মৃত্যুবরণ করে।

শৈশব[সম্পাদনা]

ছোট ভাই, কমতে দে প্রভেন্সের শিশু ডাক দে বেরি (ডানে) সাথে। ফ্রান্সোইস-হুবার্ট ড্রয়াইস, এর প্রতিকৃতি ১৭৫৭।
বাল্যকালে ডাক দে বেরি, শিল্পী অজ্ঞাত।

লুই-অগাস্তে দে ফ্রান্স, যাকে জন্মের সময়ে ডাক দে বেরি পদবী দেওয়া হয়েছিল, তিনি ভার্সাই প্রাসাদে জন্মগ্রহণ করেন। সাতজন সন্তানের একজন, তিনি লুই, ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠ পুত্রের দ্বিতীয় জীবিত পুত্র ছিলেন, এবং ফ্রান্সের চতুর্দশ লুই এবং তার সঙ্গী মারিয়া লেসজন্সকা'র প্রপৌত্র ছিলেন। তার মাতা ছিলেন স্যাক্সনির মেরি- জোসেফ, স্যাক্সনির প্রিন্স-ইলেক্টর এবং পোল্যান্ডের রাজা দ্বিতীয় ফ্রেড্রিক অগাস্টাসের কন্যা।

লুইয়ের বাবা-মা তাকে উপেক্ষা করতেন এবং তার বড় ভাই লুই, ডাক দে বরগইনের প্রতি অনুকূল ছিলেন, যাকে মেধাবী এবং সুদর্শন বলে বিবেচনা করা হত, কিন্তু যিনি ১৭৬১ সালে নয় বছর বয়সে মারা যান। লুই- অগাস্তে, একজন শক্তিশালী এবং সুস্থ ছেলে কিন্তু খুবই লাজুক, তার পড়ালেখায় অত্যন্ত ভাল করেন এবং ল্যাটিন, ইতিহাস, ভূগোল, এবং জ্যোতির্বিদ্যায় আগ্রহী ছিলেন এবং ইতালিয় আর ইংরেজি ভাষায় পারদর্শী হয়ে ওঠেন। তিনি শারীরিক ক্রিয়াকলাপ যেমন তার দাদার সাথে শিকার এবং তার ছোট ভাই লুই- স্ট্যানিস্লাস, কমতে দে প্রভেন্স, এবং চার্লস- ফিলিপে, কমতে দে'আরতয়া-এর সাথে কুস্তি উপভোগ করতেন। অল্প বয়স থেকেই, লুই- অগাস্তেকে আরেকটি আগ্রহের প্রতি উৎসাহ দেওয়া হয়, তালার মিস্ত্রির কাজ, যাকে একজন শিশুর জন্যে প্রয়োজনীয় একটি সাধনা বলে দেখা হয়।[৫]

১৭৬৫ সালের ২০ ডিসেম্বর তার বাবা যক্ষ্মায় আক্রান্ত হয়ে যখন মৃত্যুবরণ করেন, ১১ বছর বয়সী লুই- অগাস্তে নতুন জ্যেষ্ঠ পুত্র হন। তার মা তার স্বামীকে হারানোর শোক কখনই ভুলতে পারেননি এবং ১৩ মার্চ ১৭৬৭ সালে নিজেও যক্ষ্মায় মারা যান।[৬] ডাক দে লা ভগায়ন "gouverneur des Enfants de France" (ফ্রান্সের শিশুদের গভর্নর) থেকে তিনি যে কঠোর এবং রক্ষণশীল শিক্ষাপ্রাপ্ত হন, ১৭৬০ সাল থেকে ১৭৭০ সালে তার বিবাহের আগ পর্যন্ত, তাকে সিংহাসন তিনি যাতে উপবিষ্ট হবেন ১৭৭৪ সালে তার দাদা চতুর্দশ লুইয়ের মৃত্যুর পর, তার জন্য প্রস্তুত করেনি। তার পুরো শিক্ষাজীবনে, লুই- অগাস্তে বিশেষত ধর্ম, নৈতিকতা, এবং মানবিক এক মিশ্রিত শিক্ষা লাভ করেন।[৭] তিনি যেই সিদ্ধান্তহীন রাজায় পরিণত হন তাতে তার শিক্ষকদের সম্ভবত ভাল প্রভাব ছিল। অ্যাবে বারথিয়ের, তার শিক্ষক, তাকে শিক্ষা দেন যে দৃঢ় রাজাদের মধ্যে ভীরুতা একটি মান, এবং অ্যাবে সল্ডিনি, তার পুরোহিত, তাকে শিক্ষা দেন জেন মানুষ তার মন পড়তে না পারে।[৮]

পারিবারিক জীবন[সম্পাদনা]

মেরি অ্যান্টোয়নেট, ফ্রান্সের রানী, তার তিন বড় সন্তান, মেরি-থেরেসে, লুই-চার্লস এবং লুই-জোসেফের সাথে, ম্যারি লুইস এলিসাবেথ ভিগি-লেব্রুন এর আঁকা

১৭৭০ সালের ১৬ মে, ১৫ বছর বয়সে, লুই-অগাস্তে চোদ্দ বছর বয়সী হ্যাবসবারগ আর্চডাচেস মারিয়া এন্টোনিয়া (তার নামের ফরাসী রূপ, মেরি অ্যান্টোয়নেট নামে বেশি পরিচিত), তার দূর সম্পর্কের কাজিন এবং পবিত্র রোমান সম্রাট প্রথম ফ্রান্সিস এবং তার স্ত্রী, সম্রাজ্ঞী মারিয়া থেরেসার সবচেয়ে ছোট কন্যাকে বিয়ে করেন।

ফরাসী জনগণ এই বিবাহের বিরোধিতা করেন। অষ্ট্রিয়ার সাথে ফ্রান্সের মৈত্রী দেশটিকে সর্বনাশা সাত বছরের যুদ্ধের দিকে টেনে নেয়, যাতে দেশটি ব্রিটিশ এবং প্রুশিয়ান্দের কাছে ইউরোপ এবং উত্তর আমেরিকা উভয় স্থানে পরাজিত হয়। লুই-অগাস্তে এবং মেরি- অ্যান্টোয়নেটের বিবাহ হয় যখন তখন ফরাসী জনগণ সাধারণত অস্ট্রীয় জোট অপছন্দ করে, এবং মেরি-অ্যান্টোয়নেটকে একজন অনভিপ্রেত বিদেশী বলে দেখা হয়।[১০] তরুণ জুটিটির জন্য, বিবাহটি ছিল বন্ধুসুলভ কিন্তু দূরবর্তী। লুই-অগাস্তের লাজুকতা, এবং অন্যান্য বিষয়ের মধ্যে, অল্প বয়স এবং নববিবাহিতদের অনভিজ্ঞতা (যারা একে অন্যের কাছে প্রায় অপরিচিত ছিলেনঃ তাদের বিবাহের মাত্র দুইদিন আগে তাদের দেখা হয়) যার অর্থ হয় যে ১৫ বছর বয়সী বর তার ১৪ বছর বয়সী নববধূর সাথে মিলনটি সুসম্পূর্ণ করতে ব্যর্থ হন। স্ত্রী দ্বারা সাম্রাজ্যের কাজে তার ব্যবহৃত হওয়ার ভয় তাকে পরিচালিত করে জনগণের সম্মুখে স্ত্রীর সালে শীতল ব্যবহার করতে।[১১] সময়ের সাথে সাথে, জুটিটি আরও কাছে আসে, যদিও জনশ্রুতি অনুযায়ী তাদের বৈবাহিক মিলন ১৭৭৩ সালের জুলাইয়ে ঘটে, এটি আসলে ১৭৭৭ সালের আগে ঘটেনি।[১২]

কৈশোরকালে ষোড়শ লুই
ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠ পুত্র এবং ভবিষ্যতের সপ্তদশ লুই লুই- চা্লস, মেরি লুইস এলিজাবেথ ভিগি-লেব্রান অঙ্কিত।

কয়েক বছর ধরে জুটিটির কোন সন্তান জন্মদানে ব্যর্থতা তাদের বিবাহে টানাপড়েনের জন্ম দেয়,[১৩] তাদের বন্ধ্যাত্বকে বিদ্রুপ করে অশ্লীল প্রচারপত্রের (libelles) প্রকাশ তা আরও বৃদ্ধি করে। একজন প্রশ্ন করেন, "রাজা কি তা করতে পারেন? রাজা কি তা করতে পারেন না?"[১৪]

জুটিটির সন্তান ধারণের অক্ষমতার প্রাথমিক কারণ নিয়ে সেই সময়ে বিতর্ক হত, এবং সেই থেকে তাদের নিয়ে বিতর্ক চলতে থাকে। একটি ধারণা ছিল যে লুই-অগাস্তে একটি মানসিক ত্রুটিতে ভুগতেন,[১৫] বেশিরভাগ সময়েই সেতা ফিমোসিস বলে মনে করা হত, রাজকীয় ডাক্তারদের দ্বারা ১৭৭২ সালে এই ধারণা প্রথম তৈরি হয়।[১৬] এই ধারণার সাথে সংশ্লিষ্ট ঐতিহাসিকগণ মনে করতেন যে তার খৎনা করা হয়েছিল[১৭] (ফিমোসিসের সাধারণ একটি চিকিৎসা) তাদের বিবাহের সাত বছর পরে অসুস্থতাটি আবার ফিরে আসে। লুইয়ের ডাক্তারেরা অস্ত্রচিকিৎসাটির পক্ষে ছিলেন না- অস্ত্রচিকিৎসাটি সুক্ষ এবং আঘাতদায়ক ছিল, এবং প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষদের মধ্যে "ক্ষতির সমান উপকার" করতেও সক্ষম ছিল। ফিমোসিসের ব্যাপারে এবং এর ফলাফলসরূপ অস্ত্রচিকিৎসাটির বিতর্ক খুব সম্ভব স্টেফান জুয়েগের ১৯৩২ সালের মেরি অ্যান্টোয়নেটের জীবনী থেকে উৎপন্ন হয়।

অনেক আধুনিক ঐতিহাসিক সম্মত হন যে লুইয়ের কোন অস্ত্রপচার হয়নি[১৮][১৯][২০]- উদাহরণস্বরূপ, ১৭৭৭ সালের দিকে, প্রুশিয় কূটনীতিক, ব্যারন গোল্টজ, জানান যে ফ্রান্সের রাজা অস্ত্রচিকিৎসাটি করতে নিশ্চিতভাবেই অস্বীকার করেছেন।[২১] লুইকে প্রায়ই যৌন মিলনের জন্য সম্পূর্ণ যোগ্য ঘোষণা করা হয়েছিল, দ্বিতীয় জোসেফ দ্বারা নিশ্চিত করা হয়েছিল, এবং যেই সময়ে ধারণা করা হয় তার অস্ত্রচিকিৎসা হয়েছিল, তিনি প্রায় প্রতিদিন শিকারে যেতেন, তার ডায়েরি অনুযায়ী। যদি তার খৎনা হত তাহলে এটি আদৌ সম্ভব হতনা; অন্ততপক্ষে, পরবর্তী কয়েক সপ্তাহ তিনি ঘোড়ায় চড়ে শিকারে যেতে পারতেন না। জুটিটির যৌন সমস্যার কারণ হিসেবে অন্য কারণ দেখান হয়। রানীকে নিয়ে অ্যান্টোনিয়া ফ্রেজারের জীবনীতে দ্বিতীয় জোসেফ তার এক ভাইয়ের কাছে চিঠিতে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হয় ১৭৭৭ সালে তার ভার্সাই ভ্রমণের পর। চিঠিটিতে, জোসেফ বিবাহ শয্যায় লুইয়ের অপর্যাপ্ত কর্মদক্ষতা এবং বৈবাহিক কার্যাদিতে অ্যান্টোয়নেটের নির্লিপ্ততা নিয়ে বিস্ময়কর বিশদ বিবরণ দেন। জোসেফ জুটিটিকে বর্ণনা করেন "সম্পূর্ণ অপটু" হিসেবে; যাইহোক, তার পরামর্শ অনুযায়ী, লুই নিজেকে আরও কার্যকরভাবে তার বৈবাহিক দায়িত্বে নিয়োগ করেন, এবং ১৭৭৮ সালের মার্চের তৃতীয় সপ্তাহে মেরি অ্যান্টোয়নেট গর্ভবতী হন।

অবশেষে, রাজকীয় জুটিটি চার সন্তানের জন্ম দেন। মেরি অ্যান্টোয়নেটের সহচরী, ম্যাডাম ক্যাম্পেনের তথ্যানুযায়ী, রানীর দুইটি গর্ভপাত হয়। প্রথমটি, ১৭৭৯ সালে, তার প্রথম সন্তানের জন্মের কয়েক মাস পরে, তার কন্যার কাছে লেখা এক চিঠিতে উল্লেখিত আছে, জুলাই মাসে সম্রাজ্ঞী মারিয়া থেরেসার দ্বারা লেখা। ম্যাডাম ক্যাম্পেন বলেন যে লুই শয্যাপাশে পুরো সকাল ব্যয় করেন তার স্ত্রীকে সান্তনা দিতে, এবং ঘটনা সম্পর্কে জ্ঞাত সবাইকে গোপনীয়তার প্রতিজ্ঞা করান। মেরি অ্যান্টোয়নেট দ্বিতীয় গর্ভপাতের শিকার হন ২-৩ নভেম্বর ১৭৮৩ সালের রাতে।

চতুর্দশ লুই এবং মেরি অ্যান্টোয়নেট চারজন জীবিত সন্তানের জন্ম দেনঃ

  • মেরি-থেরেস-শার্লোট (১৯ ডিসেম্বর ১৭৭৮- ১৯ অক্টোবর ১৮৫১)
  • লুই-জোসেফ-জাভিয়ের-ফ্রান্সোইস, জ্যেষ্ঠ পুত্র (২২ অক্টোবর ১৭৮১- ৪ জুন ১৭৮৯)
  • লুই-চার্লস, তার বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পর জ্যেষ্ঠ পুত্র, ফ্রান্সের ভবিষ্যৎ নামমাত্র রাজা সপ্তদশ লুই (২৭ মার্চ ১৭৮৫- ৮ জুন ১৭৯৫)
  • সোফি-হ্যালেন-ব্য্যাট্রিক্স শৈশবে মারা যান (৯ জুলাই ১৭৮৬- ১৯ জুন ১৭৮৭)

তার ঔরসের সন্তানদের সাথে, ষোড়শ লুই চারজন সন্তান দত্তকও নেনঃ "আরমান্ড" ফ্রাঙ্কোয়া-মিশেল গাইন (১৭৭১-১৭৯২), ১৭৭৬ সালে দত্তক নেওয়া এক গরীব এতিম; জা এম্লিকার (১৭৮১-১৭৯৩), রানীকে শেভেলিয়ের দে বফ্লারসের উপহার হিসেবে প্রদত্ত একজন সেনেগালীয় দাস বালক, কিন্তু যাকে তিনি মুক্তি দিয়ে খৃষ্টধর্মে দীক্ষিত করেন এবং পেনশন দেন; আরনেস্টাইন ল্যাম্ব্রিকুয়েট (১৭৭৮-১৮১৩), প্রাসাদের দুজন ভৃত্যের কন্যা, যাকে তার কন্যার খেলার সাথী হিসেবে বড় করা হয় এবং ১৭৭৮ সালে তার মায়ের মৃত্যুর পর যাকে তিনি দত্তক নেন; এবং সবার শেষে "জো" জিন লুইস ভিক্টরি (জন্ম ১৭৮৭), যাকে ১৭৯০ তার দুই বড় বোনের সাথে দত্তক নেওয়া হয় যখন তার বাবা-মা, একজন নকীব এবং রাজার সেবার নিয়োজিত তার স্ত্রী, মারা যান।[২২]

এদের মধ্যে, কেবলমাত্র আরমান্ড, আরেন্সটাইন এবং জো রাজকীয় পরিবারের সাথে সত্যি বাস করেনঃ জা এম্লিকার, জো এবং আরমান্ডের বড় ভাইবোনদের সাথে যারা নিজেরাও রাজকীয় জুটিটির প্রাক্তন দত্তক সন্তান ছিলেন, রানীর কারাবাসের আগ পর্যন্ত তার খরচে চলেন, যা অন্ততপক্ষে এম্লিকারের জন্যে মারাত্মক প্রমাণিত হয়, যেহেতু যখন ফি আর দেওয়া হয়নি তখন তাকে বোর্ডিং স্কুল থেকে বের করে দেওয়া হয়, এবং জনশ্রুতি অনুযায়ী রাস্তায় ক্ষুধায় মৃত্যুবরণ করেন।[২২] আরমান্ড এবং জো'য়ের অবস্থান ছিল আরনেস্টাইনের সাথে কিছুটা সাদৃশ্যপূর্ণঃ আরমান্ড রাজা এবং রানীর সাথে দরবারে থাকতেন বিপ্লব শুরু হওয়ার আগ পর্যন্ত যখন তিনি তাদের ত্যাগ করেন প্রজাতন্ত্রের প্রতি তার সহানুভূতির জন্যে, এবং জো'কে বাছাই করা হয় ডউফিনের খেলার সাথী হিসেবে, ঠিক যেভাবে আরনেস্টাইনকে একদিন বাছাই করা হয়েছিল মেরি-থেরেসের খেলার সাথী হিসেবে, এবং ১৭৯১ সালে ভেরেন্সের যুদ্ধের আগে তার বোনদের কাছে একটি কনভেন্ট বোর্ডিং স্কুলে পাঠিয়ে দেওয়া হয়।[২২]

ফ্রান্সের পরম শাসক, ১৭৭৪–১৭৮৯[সম্পাদনা]

ষোড়শ লুই, অ্যান্টোয়া-ফ্রাঙ্কোয়া ক্যালেট অঙ্কিত, ১৭৮৬

যখন ষোড়শ লুই ১৭৭৪ সালে সিংহাসনে আরোহণ করেন, তার বয়স উনিশ বছর ছিল। তার বিশাল পরিমাণের দায়িত্ব ছিল, যেহেতু সরকার গভীরভাবে ঋণগ্রস্ত ছিল, এবং স্বেচ্ছাচারী রাজতন্ত্রের ব্যাপারে বিদ্বেষ বৃদ্ধি পাচ্ছিল। তিনি নিজেই অবস্থার উন্নয়নে নিজেকে শোচনীয়ভাবে অযোগ্য অনুভব করেছিলেন।

রাজা হিসেবে, ষোড়শ লুই প্রাথমিকভাবে ধর্মীয় স্বাধীনতা এবং কূটনীতিতে মনোনিবেশ করেন। যদিও ফ্রান্স শাসন করায় তার বুদ্ধিগত ক্ষমতা নিয়ে কেউ সন্দেহ করেনি, এটি বেশ স্পষ্ট ছিল যে, ১৭৬৫ সাল থেকে যদিও তাকে জ্যেষ্ঠ পুত্র হিসেবে লালনপালন করা হয়, তার মধ্যে দৃঢ়টা এবং সিদ্ধান্তহীনতার অভাব ছিল। জনগণের ভালবাসার পাত্র হওয়ার জন্যে তার কামনা তার অনেক অনুশাসনের মুখবন্ধে স্পষ্ট ছিল যা প্রায়ই জনগণের কল্যাণে তার ক্রিয়াকলাপের প্রকৃতি এবং শুভ উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করত, যেমন সংসদ পুনর্বহাল করা। যখন তার সিদ্ধান্তের ব্যপারে তাকে প্রশ্ন করা হয়, তিনি বলেন, "এটাকে হয়ত রাজনৈতিকভাবে অবিবেচনাপূর্ণ মনে হবে, কিন্তু আমার কাছে মনে হয়েছে এটা সাধারণের ইচ্ছা এবং আমি ভালবাসার পাত্র হতে চাই।"[২৩] তার সিদ্ধান্তহীনতা স্বত্বেও, ষোড়শ লুইওকে একজন ভাল রাজা হিসেবে বিবেচনা করা হত, এই বলে যে তাকে "সবসময় জনগণের মতামত অনুসরণ করতে হবে; যা কখনই ভুল নয়।" তিনি, তাই, একজন অভিজ্ঞ পরামর্শদাতা নিয়োগ করেন, জিন ফ্রেডেরিক ফেলিপ, কমতে দে মরেপাস, যিনি, ১৭৮১ সালে তার মৃত্যুর আগ পর্যন্ত, অনেক গুরুত্মপূর্ণ শাসনিক কাজের দায়িত্ব পালন করেন।

ষোড়শ লুইয়ের রাজত্বকালে প্রধান ঘটনাগুলোর মধ্যে ছিল ৭ নভেম্বর ১৭৮৭ সালে ভার্সাই ফরমান, সহনশীলতার ফরমান নামেও পরিচিত, সাক্ষর, যা সংসদে নিবন্ধিত হয় ২৯ জানুয়ারি ১৭৮৮ সালে। অ-রোমান ক্যাথলিকদের- হিউজুয়েনটেরা এবং লুথেরিয়ানদের, ইহুদিদেরও- ফ্রান্সে তাদের ধর্মবিশ্বাস পালনের বেসামরিক এবং আইনি পদমর্যাদা দান, এই ফরমান কার্যকরভাবে ফন্টেনব্লুয়ের ফরমানকে বাতিল করে যা ১০২ বছর ধরে আইন ছিল। ভার্সাইয়ের ফরমান আইনগতভাবে ফ্রান্সে ধর্মীয় স্বাধীনতা জারি করেনা- তা হতে আরও দুই বছর লাগে, ১৭৮৯ সালের মানুষ এবং নাগরিকদের অধিকারের ঘোষণার সাথে- যাইহোক, ধর্মীয় উত্তেজনা দূর করতে এটি একটি গুরুত্মপূর্ণ পদক্ষেপ ছিল এবং এটি সরকারীভাবে তার রাজত্বে ধর্মীয় নিপীড়ন বন্ধ করে।[২৫]

১১ জুন ১৭৭৫ ষোড়শ লুইয়ের অভিষেককে সম্মান দেখিয়ে "Le Couronnement de Louis XVI", বেঞ্জামিন দুভিভিয়ের-এর আঁকা

টারগট এবং মেলশেরবেসদের আমূল অর্থনৈতিক পুনঃসংস্কার অভিজাতদের রাগিয়ে দেয় এবং সাংসদ যারা জোর দিয়ে বলেছিলেন যে রাজার কোন আইনি ক্ষমতা নেই নতুন কোন করারোপ করার তাদের দ্বারা বাঁধাপ্রাপ্ত হয়। তাই, ১৭৭৬ সালে, টারগট বরখাস্ত হন এবং মেলশেরবেস পদত্যাগ করেন, জাক নেকার দ্বারা প্রতিস্থাপিত হয়ে। নেকার আমেরিকান বিপ্লবকে সমর্থন করতেন, এবং তিনি কর বৃদ্ধির পরিবর্তে আন্তর্জাতিক ঋণ নেওয়ার নীতি চালু করেন। ১৭৮১ সালে তিনি জনগণের আনুকূল্যে আসার চেষ্টা করেন যখন তিনি ফরাসী রাজকীয় ব্যায় এবং হিসাবের সর্বপ্রথম বিবৃতি প্রকাশ করেন, the Compte-rendu au Roi। এর সুবাদে ফ্রান্সের জনগণ রাজার হিসাবকে পরিমিত উদ্বৃত্ত হিসেবে দেখতে পায়।[২৬] যখন এই নীতি ভয়াবহভাবে ব্যর্থ হয়, লুই তাকে বরখাস্ত করেন, এবং ১৭৮৩ সালে তাকে প্রতিস্থাপিত করেন চার্লস আলেকজান্দ্রে দে ক্যালনকে দিয়ে, যিনি জনগণের ব্যয় বৃদ্ধি করেন দেশটির ঋণ থেকে বের হয়ে আসার পন্থা হিসেবে। আবার এটি ব্যর্থ হয়, তাই লুই ১৭৮৭ সালে দ্যা এসেম্বলি অফ নোটেবলসকে সমাহুত করেন ক্যালন প্রস্তাবিত একটি নতুন বিপ্লবী রাজকোষ পুনঃসংস্কার নিয়ে আলোচনা করার জন্য। যখন অভিজাতেরা ঋণের পরিমাণ সম্পর্কে জানতে পারেন, তারা পরিকল্পনাটি প্রত্যাখান করেন। এরপর, ষোড়শ লুই চেষ্টা করেন, তার নতুন কন্ট্রোলার- জেনারেল দে ফাইনান্সেস, এটিয়েন- চার্লস দে লমেনি দে ব্রিয়েন-এর সাথে, প্যারিসের সংসদকে নতুন আইন এবং রাজকোষ পুনঃসংস্কার নিবন্ধন করতে জোর করতে। সংসদের সদস্যদের অস্বীকার জ্ঞাপনে, ষোড়শ লুই তার চরম ক্ষমতা ব্যবহার করার চেষ্টা করেন সবরকম উপায়ে তাদের অধীনে আনতেঃ অনেক উপলক্ষে তার সংস্কারের নিবন্ধন আরোপ করতে (৬ আগস্ট ১৭৮৭, ১৯ নভেম্বর ১৭৮৭, এবং ৮ মে ১৭৮৮), ১৫ আগস্ট ১৭৮৭ সালে শাস্তিস্বরূপ সকল সংসদীয় ম্যাজিস্ট্রেটকে ট্রয়ে নির্বাসনে পাঠিয়ে, ১৯ নভেম্বর ছয়জন সদস্যকে সংসদীয় অধিবেশনে অংশগ্রহণে নিষিদ্ধ করে, ৬ মে ১৭৮৮ সালে সংসদের অতি গুরুত্মপূর্ণ দুই সদস্যকে গ্রেপ্তার করে, যারা তারা সংস্কারের বিরোধিতা করেছিলেন, এবং এমনকি "সংসদের" সকল ক্ষমতা বিলীন এবং বর্জিত করে, ৮ মে ১৭৮৮ সালে তা একটি ব্যতিক্রমহীন আদালত দ্বারা প্রতিস্থাপন করে। এইসব পন্থা এবং রাজকীয় ক্ষমতার প্রদর্শনের ব্যর্থতা তিনটি চূড়ান্ত উপাদানের সাথে সম্পর্কযুক্ত। প্রথমত, জনগণের বেশিরভাগ অংশ রাজার পরিবর্তে সংসদের পক্ষে ছিল, এবং এভাবে নিয়মিতভাবে তার বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করে। দ্বিতীয়ত, রাজকীয় কোষাগার ভয়াবহ অর্থনৈতিক দারিদ্রে ভোগে, যার ফলে এটি তার নিজের আরোপকৃত সংস্কারের অক্ষম ছিল। তৃতীয়ত, যদিও রাজা তার পূর্বসূরিদের মত চরম ক্ষমতা উপভোগ করতেন, তার মধ্যে স্বৈরতন্ত্র কার্যকরী হওয়ার জন্যে অতি প্রয়োজনীয় ব্যক্তিগত কর্তৃত্বের অভাব ছিল। জনগণ এবং অভিজাত উভয় শ্রেণীর কাছে অজনপ্রিয় হয়ে পড়াতে, ষোড়শ লুই, তাই, তার সিদ্ধান্ত এবং সংস্কারগুলো আরোপ করতে সমর্থ হন খুবই স্বল্প সময়ের জন্যে, ২ থেকে ৪ মাসের জন্যে, সেগুলো প্রত্যাহার করার আগে।

তার ভেতর থেকে কর্তৃত্ব সরে যাওয়ায় এবং সংস্কারের প্রয়োজনীয়তা থাকায়, সেখানে এস্টেট-জেনারেলকে সমাহুত করার জন্য ক্রমবর্ধমান জোর আহ্বান শোনা যায়, যা ১৬১৪ সাল থেকে ঘটেনি, ত্রয়োদশ লুইয়ের শাসনামল থেকে। নব্য অর্থনৈতিক সংস্কারের অনুমোদনের জন্যে সর্বশেষ প্রচেষ্টা হিসেবে ষোড়শ লুই ৮ আগস্ট ১৭৮৮ সালে এস্টেট- জেনারেলকে সমাহুত করেন, তাদের উদ্বোধনের জন্য ১ মে ১৭৮৯ তারিখ ঠিক করে। এস্টেট- জেনারেলের সমাবেশের সাথে, তার রাজত্বকালে অন্য আরও ঘটনার সাথে সাথে, ষোড়শ লুই তার খ্যাতি এবং ভাবমূর্তি এমন লোকদের হাতে তুলে দিয়েছিলেন যারা সম্ভবত ফরাসী জনগণের কামনার প্রতি তার মত সংবেদনশীল ছিলেন না। যেহেতু অনেক বছর ধরে এস্টেট- জেনারেলকে সমাহুত করা হয়নি, কোন ধরনের প্রক্রিয়া অনুসরণ করা হবে তা নিয়ে কিছু বিতর্কের সৃষ্টি হয়। অবশেষে, প্যারিসের সংসদ সম্মত হয় যে, "সকল ঐতিহ্যগত রীতি সযত্নে পালন করা উচিত যে এস্টেট- জেনারেল ঘটনার উন্নতি ঘটাতে সক্ষম এই অনুভূতি এড়ানোর জন্য।" এই সিদ্ধান্তনুযায়ী, রাজা বেশিরভাগ বিভক্তকারী রীতি যা ১৬১৪ সাল থেকে প্রথা হিসেবে বিদ্যমান সেগুলো এবং তার আগেরগুলো বজায় রাখতে রাজি হন, কিন্তু একজন তৃতীয় এস্টেটের কাছে অসহনীয় ছিল সাম্প্রতিক সমতার ঘোষণা দ্বারা বজায়কৃত। উদাহরণস্বরূপ, প্রথম এবং দ্বিতীয় এস্টেট তাদের সবচেয়ে ভাল পোশাক পড়ে সমাবেশে যোগদান করেন, যখন তৃতীয় এস্টেটকে আদেশ করা হয় সাধারণ পোশাক পড়ার জন্যে, কঠোরভাবে গাম্ভীর্যপূর্ণ কাল, বিচ্ছিন্নতার একটি প্রমাণ হিসেবে যে ষোড়শ লুই ক্ষমা করবেন না। তিনি এস্টেট- জেনারেলের প্রতিনিধিদের সম্মান প্রদর্শন করতেন নাঃ আত্ম-গুরুত্মপূর্ণ দেশপ্রেমের তরঙ্গে, এস্টেটের সদস্যরা রাজার উপস্থিতিতে মাথার হ্যাট সরাতে অস্বীকৃতি জানান, তাই লুই নিজের মাথারটি খোলেন।[২৭] এই সমাবেশটি ছিল এমন একটি ঘটনা যা দেশের সাধারণ অর্থনৈতিক এবং রাজনৈতিক অস্বাচ্ছন্দ্যকে ফরাসী বিপ্লবে রূপান্তরিত করে। ১৭৮৯ সালের জুনে, তৃতীয় এস্টেট একতরফাভাবে নিজেকে জাতীয় এসেম্বলি ঘোষণা করে। ষোড়শ লুইয়ের এটিকে নিয়ন্ত্রণ করার প্রচেষ্টার ফলাফল হয় ২০ জুনের টেনিস কোর্ট শপথে (serment du jeu de paume), ৯ জুলাইয়ের জাতীয় গণপরিষদের ঘোষণা, এবং পরিণতিতে ১৪ জুলাইয়ের বাস্তিল আক্রমণের দিকে নিয়ে যায়, যা ফরাসী বিপ্লবের সূচনা করে। তিনটি সংক্ষিপ্ত মাসের মধ্যে, রাজার নির্বাহী কর্তৃপক্ষের একটি প্রধান অংশ জাতির নির্বাচিত প্রতিনিধিদের কাছে স্থানান্তর করা হয়।

পররাষ্ট্রনীতি[সম্পাদনা]

সাত বছরের যুদ্ধে ফরাসী অন্তর্ভুক্তি ষোড়শ লুইয়ের জন্যে একটি সর্বনাশা উত্তরাধিকার রেখে যায়। ব্রিটেনের বিজয় তাদেরকে ফ্রান্সের বেশিরভাগ ঔপনিবেশিক এলাকা দখল করতে দেখায়। যদিও কিছু ফ্রান্সের কাছে ১৭৬৩ সালের প্যারিস চুক্তিতে ফেরত দেওয়া হয়, উত্তর আমেরিকার বিশাল একটি অংশ ব্রিটেনের কাছে সমর্পিত করা হয়।

এই ঘটনা ফরাসী নেতাদের মধ্যে ব্রিটেনের বিরুদ্ধে প্রতিশোধের একটি যুদ্ধের জন্যে ফরাসী সেনাবাহিনীকে পুনর্গঠন করার জন্য একটি কৌশল অবলম্বন করার দিকে নিয়ে যায়, যাতে আশা করা হয় যে হৃত উপনিবেশগুলোকে পুনরোদ্ধার করা যাবে। ওয়েস্ট ইন্ডিজে ফ্রান্সের তখনও একটি শক্তিশালী প্রভাব ছিল, এবং ভারতে পাঁচটি বাণিজ্যপোত ছিল, গ্রেট ব্রিটেনের সাথে দ্বন্দ্ব এবং ক্ষমতার খেলার সুযোগের অবকাশ রেখে।[২৮]

আমেরিকান বিপ্লব এবং ইউরোপ সম্পর্কিত[সম্পাদনা]

১৭৮১ সালে ইয়র্কটাউনের অবরোধে ফ্রান্সের (বামে) এবং আমেরিকানদের কাছে ক্রমওয়ালিসের আত্মসমর্পণ, জন ট্রামবুলের আঁকা
১৭৮৮ সালে ষোড়শ লুই টিপু সুলতানের রাষ্ট্রদূতদের অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন, এমিলে ওয়াটিয়ের পরে ভয়ের, ১৯দশ শতাব্দী

১৭৭৬-এর বসন্তে, ভারজেনেস, পররাষ্ট্র সচিব, ফ্রান্সের বহুদিনের শত্রু গ্রেট ব্রিটেনকে অপমান করার এবং সাত বছরের যুদ্ধে হৃত এলাকাগুলো ফেরত পাওয়ার একটা পন্থা খুঁজে পান, আমেরিকান বিপ্লবকে সমর্থন করে। একই বছরে, পিয়ের বমারকেইস লুইকে প্ররোচিত করেন গোপনে বিপ্লবীদের কাছে রসদ, অস্ত্র, এবং পিস্তল পাঠানোর জন্যে। ১৭৭৮এর শুরুর দিকে তিনি একটি আনুষ্ঠানিক মৈত্রীচুক্তি সাক্ষর করেন, এবং সেই বছরের শেষের দিকে ফ্রান্স ব্রিটেনের সাথে যুদ্ধে লিপ্ত হয়। যুদ্ধের পক্ষে থাকার সিদ্ধান্ত নিয়ে, ফ্রান্সের বিশাল অর্থনৈতিক সমস্যা স্বত্বেও, সেরাটোগার যুদ্ধের পর আতঙ্কের সংবাদে রাজা মূলত প্রভাবিত হন, যা থেকে জানা যায় যে ব্রিটেন তেরটি উপনিবেশের কাছে বিশাল দান করবে, তাদের সাথে মৈত্রী স্থাপন করবে, ফ্রান্স এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজে স্প্যানিশ দখলকৃত স্থানে আক্রমণ করার জন্যে।[২৯] স্পেন এবং নেদারল্যান্ড শীঘ্রই ফ্রান্সের সাথে একটি ব্রিটিশ- বিরোধী জোটে যোগ দেয়। ১৭৭৮ সালের পড়ে, গ্রেট ব্রিটেন তার মনোযোগ ওয়েস্ট ইন্ডিজের দিকে সরিয়ে নেয়, যেহেতু চিনির দ্বীপগুলোকে রক্ষা করা তেরটি উপনিবেশ পুনরোদ্ধারের চেয়ে বেশি গুরুত্মপূর্ণ বিবেচিত হয়। ফ্রান্স এবং স্পেন ১৭৭৯-এর নৌবহর দিয়ে ব্রিটিশ দ্বীপগুলোকে নিজেরাই আক্রমণ করার পরিকল্পনা করে, কিন্তু পরিকল্পনাটি কখনই বাস্তবায়িত হয়নি।

আমেরিকান বিপ্লবীদের ফ্রান্সের প্রাথমিক সামরিক সহায়তা একটি নিরাশা ছিল, রোড আইল্যান্ড এবং সাভানায় পরাজয়ের সাথে। ১৭৮০ সালে, ফ্রান্স রচ্যাম্বো এবং গ্রাসকে পাঠান আমেরিকানদের সাহায্য করতে, বিশাল ভূ এবং নৌ শক্তির সাথে। ফরাসী অভিযাত্রী শক্তি ১৭৮০এর জুলাইয়ে উত্তর আমেরিকায় পৌঁছে। ক্যারিবিয়ানে ফরাসী নৌবাহিনীর উপস্থিতি অনুসৃতি হয় টোবাগো এবং গ্রেনাডাসহ কিছু সংখ্যক চিনির দ্বীপ দখলের মাধ্যমে।[৩০] ১৭৮১এর অক্টোবরে, ফরাসী নৌ অবরোধ ক্রমওয়ালিসের অধীনে ইয়র্কটাউনের অবরোধে ব্রিটিশ সেনাবাহিনীকে জোরপূর্বক আত্মসমর্পণ করতে সহায়ক ছিল। যখন ১৭৮২ সালের মার্চে এই সংবাদ লন্ডনে পৌছায়, লর্ড নর্থের সরকারের পতন ঘটে এবং গ্রেট ব্রিটেন অবিলম্বে শান্তির জন্যে আবেদন করে; যাইহোক, ফ্রান্স যুদ্ধের সমাপ্তি ১৭৮৩ সালের সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বিলম্বিত করে ভারত এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজে আরও ব্রিটিশ উপনিবেশগুলোকে দমন করার আশায়।

গ্রেট ব্রিটেন তেরটি উপনিবেশের স্বাধীনতাকে যুক্তরাষ্ট্র হিসেবে চিনতে পারে, এবং ফরাসী যুদ্ধ মন্ত্রণালয় তার সেনাবাহিনী পুনঃগঠন করে। যাইহোক, ব্রিটিশ ১৭৮২ সালে প্রধান ফরাসী নৌবাহিনীকে পরাজিত করে এবং সফলতার সাথে জ্যামাইকা এবং জিব্রাল্টারকে রক্ষা করে। যুদ্ধের সমাপ্তি আনা প্যারিস চুক্তি থেকে ফ্রান্স অল্পই অর্জন করে, টোবাগো এবং সেনেগালের উপনিবেশগুলো ব্যতিত। ষোড়শ লুই ব্রিটেনের কাছ থেকে কানাডা, ভারত, এবং ওয়েস্ট ইন্ডিজের অন্যান্য দ্বীপগুলো উদ্ধার করার লক্ষ্যে সম্পূর্ণ হতাশ হয়েছিলেন, যেহেতু সেগুলোকে খুব ভাল করে প্রতিহত করা হয়েছিল এবং রাজকীয় নৌবাহিনী ব্রিটেনে যে কোন আক্রমণ অসম্ভব করে তোলে। যুদ্ধে ১,০৬৬ মিলিয়ন লিভর খরচ হয়, উচ্চহারের সুদের নতুন ঋণের মাধ্যমে আর্থিক সংস্থান পেয়ে (নতুন কোন কর ব্যতিত)। নেকার জনগণের কাছ থেকে সংকটটি গোপন করেন এই বলে যে সাধারণ রাজস্ব সাধারণ ব্যায়ের চেয়ে বেশি, এবং ঋণগুলোকে উল্লেখ না করে। ১৭৮১ সালে তার জোরপূর্বক অপসারণের পরে, নতুন করারোপ করা হয়।[৩২]

ইউরোপীয় বিষয়গুলোতে ফ্রান্সের নিরপেক্ষ অবস্থান ব্যতীত আমেরিকার হস্তক্ষেপ সম্ভব হত না একটি মহাদেশীয় যুদ্ধে লিপ্ত না হয়ে যা সাত বছরের যুদ্ধে ফরাসী নীতির ভুলগুলোর একটি পুনরাবৃত্তি হত। রাজা লুইয়ের সমর্থনে ভারগেনেস ১৭৭৮ সালের ব্যভারিয়ান পারম্পর্যে অষ্ট্রিয়ার সমর্থনে যুদ্ধে যেতে অস্বীকৃতি জানায়, যখন অস্ট্রীয় পবিত্র রোমান সম্রাট, জোসেফ, ব্যাভারিয়ার কিছু অংশ নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। ভারগেনেস এবং মরেপাস অস্ট্রীয় অবস্থানকে সমর্থন করতে অস্বীকৃতি জানায়, কিন্তু মেরি অ্যান্টোয়নেটের হস্তক্ষেপের কারণে ফ্রান্সকে অষ্ট্রিয়ার পক্ষে অবস্থান নিতে বাধ্য করে, যা তেস্কেনের চুক্তিতে ক্ষতিপূরণ হিসেবে ১০০,০০০ জনসংখ্যার একটি এলাকা পেতে সক্ষম হয়। যাইহোক, রানীর ভাবমূর্তির জন্যে হস্তক্ষেপটি একটি বিপর্যয় ছিল, যাকে এই ঘটনার জন্যে "l'Autrichienne" নাম দেওয়া হয় (ফরাসী অর্থ "অস্ট্রীয়" নিয়ে একটি শ্লেষ, কিন্তু "শিয়েন" প্রত্যয়টি "কুকুরী" বুঝাতে পারে)।[৩৩]

এশিয়া সম্পর্কিত[সম্পাদনা]

ষোড়শ লুই লা পেরুজকে তার নির্দেশনা দিচ্ছেন, নিকোলাস-আন্দ্রে মন্সিয়াউ কর্তৃক অঙ্কিত

ষোড়শ লুই আশা করেছিলেন আমেরিকান বিপ্লবী যুদ্ধটিকে সুযোগ হিসেবে কাজে লাগিয়ে ভারত থেকে ব্রিটিশদের বিতাড়িত করবেন।[২৮] ১৭৮২ সালে, তিনি পেশওয়ামাধু রাও নারায়ণের সাথে মৈত্রী করেন। ফলাফল হিসেবে, বাসী তার সৈন্যদের আইল দে ফ্রান্সে (বর্তমান মরিশাস) সরিয়ে নেন এবং পরবর্তীতে ১৭৮৩ সালে ভারতে ফরাসী আক্রমণে অবদান রাখেন।[২৮][৩৪] ১৭৮২-১৭৮৩ সালে ভারতে ব্রিটিশ শাসন বিরোধী দ্বিতীয় অ্যাংলো- মাইসর যুদ্ধে সাফ্রেন হায়দার আলীর মিত্রপক্ষ হন, ভারত এবং সিলনের উপকূলে ব্রিটিশ রণতরীর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে।[৩৫][৩৬]

এমজিআর পিনিয় দে বেইনের সামরিক সাহায্য প্রাপ্তির মধ্যস্ততার পর ফ্রান্স কচিঞ্চিনাতেও হস্তক্ষেপ করে। ১৭৮৭ সালের ভার্সাই চুক্তির পড়ে একটি ফরাসী- কচিঞ্চিনা মৈত্রীচুক্তি সাক্ষরিত হয়, ষোড়শ লুই এবং যুবরাজ নগুয়েন আনহের মধ্যে।[৩৭]

ষোড়শ লুই প্রধান সমুদ্রাভিযানকেও উৎসাহিত করেন। ১৭৮৫ সালে, তিনি লা পেরসকে নিয়োগ করেন পৃথিবী চারপাশে একটি জলপথে অভিযানে নেতৃত্ব দিতে। (লা পেরস এবং তার নৌবাহিনী ১৭৮৮ সালের মার্চে বোটানি বে'তে হারিয়ে যান। নথি অনুযায়ী লুইয়ের মৃত্যুদণ্ডের দিন তাকে জিজ্ঞেস করা হয়, "লা পেরসের কোন খবর আছে?")[৩৮]

বিপ্লবী সাংবিধানিক শাসনকাল, ১৭৮৯–১৭৯২[সম্পাদনা]

সাংবিধানিক শাসক হিসেবে ষোড়শ লুইয়ের সময় সম্পর্কে তথ্যের অভাব, যদিও তা তাৎপর্যপূর্ণ একটি সময় ছিল। কেন অনেক জীবনীকারেরা রাজার জীবনের এই সময়কে ব্যাপকভাবে ব্যাখ্যা করেননি তার কারণ হচ্ছে এই সময়ে তার পদক্ষেপের ব্যাপারে অনিশ্চয়তা, যেহেতু টুইলেরিসে বর্ণিত ষোড়শ লুইয়ের ঘোষণানুযায়ী তিনি সাংবিধানিক শাসনামলে তার পদক্ষেপগুলোকে অদক্ষ বলে মনে করতেন; তিনি প্রতিভাত করেন যে "তার প্রাসাদ ছিল একটি কারাগার।" এই সময়টি একটি প্রতিষ্ঠানের শেষ মুহূর্তে অনুধ্যানের প্রদর্শনের জন্যে একটি উদাহরণ।[৩৯]

তার প্রাক্তন প্রাসাদে ষোড়শ লুইয়ের সময়ের সমাপ্তি ঘটে ৫ অক্টোবর ১৭৮৯ সালে, যখন প্যারিসিয় নারী ও পুরুষ শ্রমিকদের একটি ক্রুদ্ধ দল বিপ্লবীদের দ্বারা উদ্দীপ্ত হয় এবং ভার্সাইয়ের প্রাসাদের দিকে অগ্রসর হয়, যেখানে রাজকীয় পরিবার বাস করত। ভোরে, তারা প্রাসাদে প্রবেশ করে এবং রানীকে হত্যা করার চেষ্টা করে, যিনি এমন এক চপল জীবনধারার সাথে সংযুক্ত ছিলেন যা প্রাচীন সরকারের ঘৃণ্য সবকিছুর প্রতীক ছিল। গার্ডে ন্যাশনালে'র প্রধান, লাফায়েট দ্বারা পরিস্থিতিটি নিয়ন্ত্রণে আসার পর, রাজা এবং তার পরিবারকে জনগণ প্যারিসের টুইলেরিস প্রাসাদে নিয়ে আসে, এই কারণে যে রাজা জনগণের কাছে বেশি দায়বদ্ধ থাকবেন যদি তিনি তাদের মাঝে প্যারিসে থাকেন।

একটি লুই দি'ওর, ১৭৮৮, ষোড়শ লুইয়ের চিত্র সংবলিত

বিপ্লবের মূলনীতি ছিল জনগণের সার্বভৌমত্ব, যদিও পরবর্তী যুগগুলোর জন্যে মুখ্য ছিল, সহস্র বছরের পুরনো ঐশ্বরিক অধিকার নীতি যা ফরাসী রাজতন্ত্রের প্রধান অংশ ছিল তা থেকে একটি সুনির্দিষ্ট বিচ্ছেদ ঘটায়। ফলাফল হিসেবে, ফ্রান্সের প্রচুর গ্রামের মানুষ এবং ফ্রান্সের প্রতিবেশী দেশগুলোর সকল সরকার বিপ্লবের বিরোধীতা করে। তারপরও, প্যারিস শহর এবং সেই যুগের দার্শনিকদের মধ্যে, জাদের অনেকেই জাতীয় এসেম্বলির সদস্য ছিলেন, রাজার কোন সমর্থক ছিল না। বিপ্লব আরও আমূল এবং জনগণ আরও অনিয়ন্ত্রিত হয়ে উঠলে, বিপ্লবের কয়েকজন নেতা এর উপকার সম্পর্কে সন্দেহ প্রকাশ করতে শুরু করেন। কেউ কেউ, অনার মিরাবো-এর মত, একটি নতুন সাংবিধানিক আকারে এর ক্ষমতা পুনরোদ্ধারের জন্যে রাজকীয় শক্তির সাথে গোপনে পরিকল্পনা করেন।

১৭৯১-এর শুরুর দিকে, মন্টমরিন, পররাষ্ট্র মন্ত্রী, বিপ্লবী শক্তির বিরুদ্ধে গোপনে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে শুরু করেন। এভাবে, লিস্তে সিভিল-এর তহবিল, জাতীয় এসেম্বলির দ্বারা প্রতি বছর নির্বাচিত, রাজতন্ত্র রক্ষার জন্যে গোপনে ব্যায়ের জন্যে আংশিকভাবে খরচ করা হয়। আরনল্ট ল্যাপরটে, যিনি সিভিল লিস্টের দায়িত্বে ছিলেন, মন্টমরিন এবং মিরাবো উভয়ের সাথে সহযোগিতা করেন। মিরাবো'র আকস্মিক মৃত্যুর পরে, ম্যাক্সিমিলিয়েন রেডিক্স দে সেইন্তে-ফয়ক্স, একজন বিশিষ্ট ধনবান ব্যাক্তি, তার জায়গা নেন। ফলাফল হিসেবে, তিনি ষোড়শ লুইয়ের একটি উপদেষ্টা পরিষদের নেতৃত্ব দেন, যা রাজতন্ত্র রক্ষার চেষ্টা করে; এইসব পরিকল্পনা ব্যর্থ প্রমাণিত হয়, এবং যখন আরময়ার দে ফের আবিষ্কৃত হয় তখন ধরা পড়েন। ফ্রান্সের অর্থনৈতিক সংকটের সময়ে, এসেম্বলি কমিতে দেস ফাইনান্সেস প্রতিষ্ঠিত করে, এবং যখন ষোড়শ লুই অর্থনৈতিক সংকট মোকাবেলায় তার উদ্বেগ এবং আগ্রহ প্রকাশের চেষ্টা করেন, নাটকীয় প্রচেষ্টা হিসেবে রৌপ্য মুকুট গলিয়ে ফেলার প্রস্তাব দেন, জনগণের কাছে মনে হয় যে রাজা এটি বোঝেন না যে এধরনের বক্তব্যের আর আগের মত অর্থ নেই এবং এধরনের কাজ করে রাষ্ট্রের অর্থনীতি পুনরোদ্ধার করতে পারবে না।[৪০]

৭ এপ্রিলে মিরাবো'র মৃত্যু, এবং ষোড়শ লুইয়ের সিদ্ধান্তহীনতা, উভয়ই রাজকীয় শক্তি এবং মধ্যপন্থী রাজনীতিবিদদের মধ্যে সন্ধিস্থাপন মারাত্মকভাবে দুর্বল করে দেয়। থার্ড এস্টেটের নেতাদেরও পিছু হটার অথবা সেই সময়ের রাজনীতিতে পরিবর্তন আনতে তাদের কঠোর প্রচেষ্টার পর মধ্যপন্থী থাকার আর কোন ইচ্চা ছিলনা, এবং তাই সাংবিধানিক রাজতন্ত্রের পরিকল্পনা বেশিদিন টিকেনি। অন্যদিকে, লুই তার ভাইদের মত প্রতিক্রিয়াশীল ছিলেন না, দ্যা [[কমতে দে প্রভেন্স|কমতে দে প্রভেন্স[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]]] এবং দ্যা কমতে দে'আরটোয়স, এবং তিনি বারবার তাদের কাছে বার্তা পাঠান পাল্টা অভ্যুত্থানের প্রচেষ্টা থামাতে তাদের অনুরোধ করেন। এটি প্রায়শই তার গোপনে নিযুক্ত রিজেন্ট, দ্যা কার্ডিনাল লোমেনি দে ব্রিয়েন করতেন। অন্যদিকে, শাসকের চিরাচরিত ভূমিকার প্রতি এর নেতিবাচক প্রতিক্রিয়া এবং তার ও তার পরিবারের প্রতি এর আচরণ উভয় কারণে লুই নব্য গণতান্ত্রিক সরকারের কাছ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যান। তিনি বিশেষত বিরক্ত ছিলেন মূলত টুইলেরিসে বন্দী করে রাখার জন্যে, এবং তাকে রোমান ক্যাথলিক চার্চের কাছে নয় বরং রাষ্ট্রের কাছে প্রতিশ্রুত "সাংবিধানিক পাদ্রীর" পরিবর্তে তার স্বীকারোক্তি শোনার জন্যে তার পছন্দের পুরোহিত এবং পাদ্রি দিতে নতুন সরকারের অনুমতি দিতে অস্বীকার করার জন্যে।

ভারেনেসে পলায়ন (১৭৯১)[সম্পাদনা]

ষোড়শ লুইয়ের রঙিন চিত্র, ১৭৯২। শিরোনাম টেনিস কোর্ট শপথের তারিখ নির্দেশ করে এবং পরিণতি টানে, "সেই একই ষোড়শ লুই যিনি সাহসিকতার সাথে তার নাগরিকদের গোপন যুদ্ধের পরিকল্পনা করার জন্য তাদের অগ্নিকান্ডের কাছে ফিরে আসার এবং প্রতিশোধ নেয়ার অপেক্ষায় থাকেন।"

২১ জুন ১৭৯১-এ, ষোড়শ লুই গোপনে প্যারিস থেকে ফ্রান্সের উত্তরপূর্ব সীমান্তে রাজকীয় দুর্গ শহর মন্টমেডি'তে তার পরিবারের সাথে পালানোর চেষ্টা করেন, যেখানে তিনি এমিগ্রে'দের সাথে মিলিত হবেন এবং অষ্ট্রিয়ার দ্বারা রক্ষিত হবেন। যাত্রাটি সুইডিশ অভিজাত বংশীয় এবং রানী মেরি- অ্যান্টোয়নেটের গোপন প্রেমিক হিসেবে প্রায়শ অনুমিত, অ্যাক্সেল ভন ফেরসেন দ্বারা পরিকল্পিত ছিল।[৪১][৪২]

জাতীয় এসেম্বলি যখন কষ্টসহিষ্ণুভাবে সংবিধানের জন্যে কাজ করছিল, লুই এবং মেরি- অ্যান্টোয়নেট তাদের নিজেদের পরিকল্পনায় জড়িত ছিলেন। লুই ব্রেটেউইলকে নিয়োগ করেন পূর্ণক্ষমতাপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে, একটি পাল্টা বিপ্লবের প্রচেষ্টার জন্যে রাষ্ট্রের অন্যান্য বিদেশী নেতাদের সাথে কাজ করতে। লুই নিজে বিদেশী সহায়তার উপর নির্ভরশীল থাকা থেকে বিরত থাকেন। তার পিতামাতার মত, তিনি ভাবতেন যে অস্ট্রীয়রা বিশ্বাসঘাতক এবং প্রুশিয়রা অতিরিক্ত উচ্চাকাঙ্ক্ষী।[৪৩] প্যারিসে উত্তেজনা বাড়তে থাকায় তিনি বাধ্য হন তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে এসেম্বলির পদক্ষেপগুলো গ্রহণ করতে, ষোড়শ লুই এবং তার রানী ফ্রান্স থেকে গোপনে পালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করেন। পালান ব্যতীত, তারা আশা করেছিলেন এমিগ্রে'দের, সাথে সাথে অন্যান্য যেসব রাষ্ট্রে তারা ফিরে যেতে পারেন তাদের সহায়তায় একটি "সশস্ত্র সভা" গড়ে তোলার, এবং সংক্ষেপে, ফ্রান্সকে আবার ফিরে পাওয়ার। এই মাত্রার পরিকল্পনা লুইয়ের রাজনৈতিক সংকল্প প্রকাশ করে, কিন্তু এই নিরূপিত চক্রান্তের জন্যেই শেষ পর্যন্ত তাকে উচ্চ রাষ্ট্রদোহের দোষে অভিযুক্ত করা হয়।[৪৪] তিনি (তার পালঙ্কে) একটি ১৬ পৃষ্ঠার ইশতেহার Déclaration du roi, adressée à tous les François, à sa sortie de Paris [৪৫] ফেলে যান, ঐতিহ্যগতভাবে Testament politique de Louis XVI ("ষোড়শ লুইয়ের রাজনৈতিক উইল") হিসেবে পরিচিত, সাংবিধানিক পদ্ধতিকে অবৈধ বলে তার অস্বীকৃতির ব্যাখ্যাকৃত; এটি সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়। কিন্তু, তার সিদ্ধান্তহীনতা, প্রচুর বিলম্ব করা, এবং ফ্রান্সের ভুল বোঝাবুঝি তার মুক্তির ব্যর্থতার কারণ ছিল। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে, জা- ব্যাপ্টিস্টে ড্রোয়েট ৫০ লিভরের এসিগ্ন্যাটে [৪৬] (কাগজের টাকা) রাজার ছবি দেখে চিনতে পেরে সতর্ক করার কিছুক্ষণ পরেই রাজকীয় পরিবার ভারেনেস-এন-আরগনে গ্রেপ্তার হয়। ষোড়শ লুই এবং তার পরিবারকে প্যারিসে ফেরত নেওয়া হয় যেখানে তারা ২৫ জুন পৌঁছান। দেশদ্রোহী হিসেবে সন্দেহ করে, টুইলেরিসে ফিরে আসার পর তাদেরকে কঠোরভাবে গৃহবন্দী করা হয়।[৪৭]

স্বতন্ত্র পর্যায়ে, পালিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনার ব্যর্থতার কারণ ছিল দুর্ঘটনা, বিলম্ব, ভুল ব্যাখ্যা এবং ভুল সিদ্ধান্তের একটি ক্রমধারা।[৪৮] বিশদ পরিপ্রেক্ষিতে, ব্যর্থতাটি রাজার সিদ্ধান্তহীনতার জন্যে ঘটে- তিনি বারংবার পরিকল্পনাটি বিলম্বিত করেন, ক্ষুদ্র সমস্যাগুলোকে তীব্র হয়ে উঠতে দিয়ে। অধিকন্তু, তিনি রাজনৈতিক অবস্থাকে পুরোপুরি ভুল বোঝেন। তিনি মনে করেছিলেন প্যারিসে অত্যন্ত ক্ষুদ্র সংখ্যার বিপ্লবীরা অভ্যুত্থানের প্রচার চালাচ্ছে যা সকল জনগণ প্রত্যাখ্যান করে। তিনি ভাবেন, ভুলভাবে, যে তাকে তার প্রজারা ভালোবাসে।[৪৯] সংক্ষিপ্তভাবে রাজার পালিয়ে যাওয়া ছিল ফ্রান্সের জন্যে আঘাতদায়ক, দুশ্চিন্তা থেকে হিংস্রতা থেকে আতঙ্কের ব্যাপ্তির মধ্যে অনুভূতির একটি তরঙ্গ সৃষ্টি করে। সবাই অনুভব করে যে যুদ্ধ আসন্ন। গভীর অনুভূতিটি যে রাজা আসলেই বিপ্লব অস্বীকার করেছেন, ছিল জনগণের জন্যে আরও বড় একটি ধাক্কা যারা তখন পর্যন্ত তাকে একজন ভাল রাজা যিনি ঈশ্বরের ইচ্ছানুযায়ী শাসন করতেন সেভাবে দেখতেন। তারা নিজেদের প্রতারিত মনে করেন, এবং ফলাফল হিসেবে, কফি হাউসগুলো থেকে প্রজাতন্ত্রবাদ আবির্ভূত হয় এবং দ্রুত পরিবর্তিত ফরাসী বিপ্লবের একটি প্রধান দর্শনে পরিণত হয়।[৫০]

বিদেশী রাষ্ট্রের হস্তক্ষেপ[সম্পাদনা]

২৫ জুন ১৭৯১-তে রাজকীয় পরিবারের প্যারিসে ফিরে আসা, জা-লুই প্রিয়ার অঙ্কিত চিত্রের অনুকরণে একটি তাম্রফলক

ইউরোপের অন্যান্য রাজ্য উদ্বেগের সাথে ফ্রান্সের উন্নতি দেখতে থাকে, এবং লুইয়ের সমর্থন করবে নাকি ফ্রান্সে বিশৃঙ্খলার সুযোগ নিয়ে হস্তক্ষেপ করবে কিনা তা বিবেচনা করে। প্রধান ব্যাক্তিটি ছিলেন মেরি-অ্যান্টোয়নেটের ভাই, পবিত্র রোমান সম্রাট দ্বিতীয় লিওপোন্ড। প্রাথমিকভাবে, তিনি বিপ্লবকে সমতা নিয়ে দেখেছিলেন। কিন্তু, বিপ্লবের আরও মৌলিক হওয়ার সাথে সাথে তিনি আরও উত্তেজিত হয়ে ওঠে। এরপরেও, তিনি যুদ্ধ এড়ানোর আশা করেন।

২৭ আগস্টে, লিওপল্ড এবং প্রুশিয়ার দ্বিতীয় ফ্রেডেরিক উইলিয়াম, ফরাসী অভিজাত এমিগ্রেদের পরামর্শে, পিলনিটজের ঘোষণা প্রকাশ করেন, যা লুই এবং তার পরিবারের কল্যাণের জন্য ইউরোপের রাজাদের আগ্রহ ঘোষণা দেয়, এবং যদি তাদের কিছু হয় তাহলে তার অস্পষ্ট কিন্তু ভয়াবহ পরিণতির হুমকি দেয়। যদিও লিওপল্ড ফ্রান্সের ক্রমবিকাশকে পরিবর্তন করার জন্যে কোন রকম সৈন্য বা আর্থিক সংস্থানের অঙ্গীকার না করে পিলনিটজ ঘোষণাকে উদ্বেগ প্রকাশের একটি সহজ পন্থা হিসেবে দেখেন, প্যারিসের বিপ্লবী নেতারা ফ্রান্সের সার্বভৌমত্বের ধ্বংস করার একটি বিদেশী প্রচেষ্টা হিসেবে এটিকে ভয়ের সাথে দেখেন।

ফ্রান্স এবং ইউরোপের রাজশক্তিগুলোর মধ্যে আদর্শগত পার্থক্যের সাথে, আলসাচেতে অস্ট্রীয় এলাকার অবস্থা নিয়ে, এবং প্রবাসী অভিজাত এমিগ্রেদের ব্যাপারে, বিশেষত অস্ট্রীয় নেদারল্যান্ডে এবং জার্মানির ক্ষুদ্র প্রদেশগুলোতে জাতীয় সাংবিধানিক এসেম্বলির সদস্যদের উদ্বেগ নিয়ে অব্যাহত বিবাদ ছিল।

শেষ পর্যন্ত, বিধানিক এসেম্বলি, ষোড়শ লুইয়ের সমর্থনে, প্রথমে অষ্ট্রিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করেন ("বোহেমিয়া এবং হাঙ্গারি-এর রাজা"), ২০ এপ্রিল ১৭৯২ সালে যুদ্ধের জন্যে ভোট দিয়ে, তারপর পররাষ্ট্র মন্ত্রী, চার্লস ফ্র্যাংকোয়া দুমউরিয়েজ দ্বারা প্রদত্ত একটি দীর্ঘ তালিকার অভিযোগের পরে। দুমউরিয়েজ অস্ট্রীয় নেদারল্যান্ডসে তাৎক্ষনিক একটি আক্রমণের প্রস্তুতি নেন, যেখানে তিনি আশা করেন সাধারণ মানুষ অস্ট্রীয় শাসনের বিরুদ্ধে জেগে উঠবে। কিন্তু, বিপ্লব সেনাবাহিনীকে সম্পূর্ণ বিশৃঙ্খল করে দিয়েছে, এবং যেসব শক্তির উত্থান ঘটেছে তা আক্রমনের জন্যে অপর্যাপ্ত ছিল। সৈন্যরা যুদ্ধের প্রথম লক্ষণ দেখেই পালিয়ে যায়, এবং একটি ক্ষেত্রে, ১৭৯২ সালের ২৮ এপ্রিল, তাদের জেনারেল, আইরিশ- বংশোদ্ভূত কমতে থিওবল্ড দে ডিলন'কে রাজদ্রোহের অভিযোগে হত্যা করে।[৫১]

যখন বিপ্লবী সরকার উন্মত্তের মত নতুন সেনা উত্থিত করছিল এবং তার সেনাবাহিনীকে পুনর্গঠন করছিল, ব্রান্সউইকের ডিউক চার্লস উইলিয়াম ফারদিনান্দের অধীনে প্রুশিয়- অস্ট্রীয় সেনাবাহিনী রাইনের তীরে কব্লেনজে সমাবেত হয়। জুলাইয়ে, আক্রমণ শুরু হয়, ব্রান্সউইকের সেনাবাহিনীর সহজেই লংউই এবং ভারদুনের দুর্গ দখলের মাধ্যমে। ডিউক তখন ২৫ জুলাইয়ে লুইয়ের এমিগ্রে কাজিন, প্রিন্স দে কন্দের লেখা, ব্রান্সউইক ইশতেহার নামের একটি ঘোষণা প্রকাশ করেন, রাজার পূর্ণ ক্ষমতা পুনর্বহালের জন্যে অস্ট্রীয় এবং প্রুশিয়দের উদ্দেশ্য এবং যে কোন ব্যাক্তি বা শহর তাদের বিরোধিতা করলে তাদেরকে বিদ্রোহী হিসেবে সামরিক আইন অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ড দেওয়ার ঘোষণা করে।

বিপ্লবীদের বিরুদ্ধে ষোড়শ লুইয়ের অবস্থান দৃঢ় করার অভীষ্ট উদ্দেশ্যের বিপরীতে, তার ইতোমধ্যে অতি ভঙ্গুর অবস্থান ব্যাপক ধ্বংসে ব্রান্সউইক ইশতেহার এর বিপরীত প্রভাব ছিল। অনেকে এটিকে তার নিজের দেশে রাজা এবং বিদেশী শক্তির মধ্যে সংঘর্ষের চূড়ান্ত প্রমাণ হিসেবে দেখেন। ১০ আগস্টে জনগণের ক্রোধ বিস্ফোরিত হয়- বিদ্রোহসংক্রান্ত প্যারিস প্রজাসভা বলে পরিচিত প্যারিসের পৌর সরকারের সহায়তায়- অগসর হয়ে টুইলেরিস প্রাসাদ আক্রমণ করে। রাজকীয় পরিবার বিধানিক এসেম্বলির সাথে আশ্রয় নেয়।

কারাবাস, ফাঁসি ও দাফন, ১৭৯২–১৭৯৩[সম্পাদনা]

টুর দে টেম্পলে কারাবন্দী ষোড়শ লুইয়ের, জা-ফ্রাঙ্কোয়া গারনেরে (১৭৫৫-১৮৩৭)

লুইকে আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রেফতার করা হয় ১৩ আগস্ট ১৭৯২ সালে এবং টেম্পল, প্যারিসে একটি দুর্গ যাকে কারাগার হিসেবে ব্যবহার করা হত সেখানে পাঠান হয়। ২১ সেপ্টেম্বরে, জাতীয় এসেম্বলি ফ্রান্সকে প্রজাতন্ত্র হিসেবে ঘোষণা করে এবং রাজতন্ত্র বিলুপ্ত করে। লুইকে তার সকল পদবী এবং সম্মান থেকে বিচ্যুত করা হয়, এবং আজ পর্যন্ত Citoyen Louis Capet নামে পরিচিত।

জিরোন্ডিনেরা পদচ্যুত রাজাকে গ্রেফতার করে রাখার পক্ষে ছিল, জিম্মি এবং ভবিষ্যতের জন্যে জামিন হিসেবে। প্রজাসভার সদস্যরা এবং সবচেয়ে মৌলিক সহকারীরা, যারা শীঘ্রই দ্যা মাউন্টেইন বলে পরিচিত দল গঠন করবে, লুইয়ের তাৎক্ষনিক মৃত্যুদণ্ডের জন্যে তর্ক করে। অনেক সহকারীদের আইনি পটভূমি তাদের মধ্যে অনেককেই যথাযথ আইনি পদক্ষেপ ব্যাতিত মৃত্যুদণ্ড মেনে নেওয়াটা কঠিন করে তোলে, এবং ভোটে ঠিক করা হয় যে পদচ্যুত রাজাকে জাতীয় সম্মেলনের সামনে, সেই অঙ্গ সার্বভৌম জনগণের প্রতিনিধিরা যেখানে বসেন, বিচার করা হবে। অনেক উপায়ে, প্রাক্তন রাজার বিচার বিপ্লবের দ্বারা রাজতন্ত্রের বিচারের প্রতিনিধিত্ব করে। এটাকে এভাবে দেখা হয় যে একজনের মৃত্যুর মাধ্যমে আরেকজনের জীবন আসছে। মিশেলেত বলেন যে প্রাক্তন রাজার মৃত্যু সুখের উপায় হিসেবে সহিংসতাকে গ্রহণ করার দিকে নিয়ে যাবে। তিনি বলেন, "যদি আমরা এই প্রস্তাব মেনে নেই যে একজন মানুষকে বহুর সুখের জন্যে বলি দেওয়া যায়, শীঘ্রই এটি প্রদরশিত হবে যে দুই বা তিন বা আরও অনেককে বহুর সুখের জন্যে বলি দেওয়া যাবে। অল্প অল্প করে, আমরা বহুর সুখের কারণ খুঁজে পাব, এবং আমরা একে একটি দর- কষাকষি হিসেবে ভাবব।"[৫২]

দুটি ঘটনা ষোড়শ লুইয়ের বিচারের দিকে নিয়ে যায়। প্রথমত, ১৭৯২-এর ২২ সেপ্টেম্বরের ভালমি'র যুদ্ধের পর, জেনারেল দুমউরিয়েজ ফ্রান্স ত্যাগ করা প্রুশিয়দের সাথে মধ্যস্থতা করেন। আক্রমণকারী বাহিনীর কাছে লুইকে আর জিম্মি বা মুক্তিপণ হিসেবে বিবেচনা করা যজায়নি।[৫৩] দ্বিতীয়ত, ১৭৯২-এর নভেম্বরে, টুইলেরিয়েস প্রাসাদে armoire de fer (লোহার সিন্দুক)-এর ঘটনা ঘটে, যখন রাজার শয়নকক্ষে সন্দেহজনক কাগজপত্র এবং চিঠিপত্র ভর্তি গোপন সিন্দুকের কথা ভার্সাইয়ের তালার মিস্ত্রী ফ্রাঙ্কোয়া গ্যামেইন যিনি এটি স্থাপন করেছিলেন তার খবর প্রকাশ করেন। গেমেইন ২০ নভেম্বর প্যারিসে যান এবনহ জিনে- মেরি রোল্যান্ড, ইন্টেরিয়রের জিরোন্ডিস্ট মন্ত্রীকে বলেন, যিনি তা খোলার নির্দেশ দেন।[৫৪] পরিণতিতে কলঙ্কটি রাজার সুনামহানি ঘটায়। এই দুই ঘটনার পরে জিরোন্ডিনেরা রাজাকে আর বিচার থেকে দূরে রাখতে পারেননি।[৫৩]

১১ ডিসেম্বর, জনবহুল এবং নীরব সড়ক দিয়ে, পদচ্যুত রাজাকে টেম্পল থেকে নিয়ে আসা হয় সম্মেলনের সামনে, উচ্চ রাজদ্রোহ এবং রাষ্ট্রের বিরুদ্ধে অপরাধের অভিযোগে। ২৬ ডিসেম্বর, তার উপদেষ্টা, রেমন্ড দেসেজ, ফ্রাঙ্কোয়া ট্রঞ্চেট এবং মেলশেরবেসের সহযোগিতায় অভিযোগগুলোর বিরুদ্ধে লুইয়ের প্রতিক্রিয়া প্রচার করেন। বিচার শুরু হওয়া এবং লুই কাঠগড়ায় ওঠার আগে, তিনি তার আইনজীবীদের কাছে বলেন যে তিনি জানেন যে তাকে দোষী সাব্যস্ত করা হবে এবং হত্যা করা হবে, কিন্তু এমনভাবে প্রস্তুত এবং আচরণ করা হবে যাতে তারা জিততে পারে। তিনি রায় নির্ধারিত হওয়ার আগে হাল ছেড়ে দেন এবং তার ভাগ্যকে মেনে নেন, কিন্তু তার জনগণের কাছে একজন ভাল রাজা হিসেবে স্মরণে থাকার জন্যে তিনি লড়াই করতে প্রস্তুত ছিলেন।[৫৫]

সম্মেলন তিনটি প্রশ্নে ভোট নেবেঃ প্রথমত, লুই দোষী কিনা; দ্বিতীয়ত, সিদ্ধান্ত যাই হোক না কেন, জনগণের কাছে আপীল করা হবে কিনা; এবং তৃতীয়ত, যদি লুই দোষী সাব্যস্ত হন, তার শাস্তি কি হবে? প্রতিটি প্রশ্নের ক্রমধারা জিরন্ডিন এবং মাউন্টেনদের মধ্যে জ্যাকবিন আন্দোলনের একটি সমঝোতা ছিল; তাদের কেউই সন্তুষ্ট ছিল না কিন্তু উভয়েই মেনে নেয়।[৫৬]

বিপ্লবের স্থানে ষোড়শ লুইয়ের মৃত্যুদণ্ড। তার সামনের শুন্য পাদবেদীটিতে তার দাদা, পঞ্চদশ লুইয়ের ঘোড়সওয়ার একটি মূর্তি ছিল। ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২-এ যখন রাজতন্ত্র বিলুপ্ত হয়, মূর্তিটিকে ভেঙ্গে ফেলা হয় এবং গলিয়ে ফেলার জন্যে পাঠান হয়।

১৭৯২ সালের ১৫ জানুয়ারি, ৭২১ সহকারী সম্বলিত সম্মেলন, রায় নিয়ে ভোট দেয়। আক্রমণকারীদের সাথে লুইয়ের সাজশের অভিভূতকারী প্রদত্ত প্রমাণের সাপেক্ষে, এটি আগেই জানা একটি ফলাফল ছিল- ৬৯৩ জন সহকারী দোষী ভোট দেন, মুক্তির পক্ষে একজনও ভোট দেন না, সাথে ২৩ জন ভোট দেওয়া থেকে বিরত থাকেন।[৫৭] পরেরদিন, প্রাক্তন রাজার ভাগ্য নির্ধারণের জন্যে একটি রোল-কল ভোট গ্রহণ করা হয়, এবং এমন একটি নাটকীয় সিদ্ধান্তের জন্যে ফলাফলটি অস্বাচ্ছন্দ্যকরভাবে কাছাকাছি ছিল। সহকারীদের ২৮৮ জন মৃত্যুর বিপক্ষে এবং অন্য কোন বিকল্পের জন্যে, প্রধানত কোন ধরনের কারাবাস অথবা নির্বাসনের জন্যে ভোট দেন। ৭২ জন সহকারী মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে কিন্তু বেশ কিছু সংখ্যক বিলম্বিত শর্ত এবং বর্জনের অধীনে ভোট দেন। ভোট সঙ্ঘটিত হতে মোট ৩৬ ঘণ্টা লাগে।[৫৬] ৩৬১ জন সহকারী লুইয়ের তাৎক্ষনিক মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে ভোট দেন। লুই মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত করা হয় এক ভোটের সংখ্যাগরিষ্ঠে। ফিলিপে এগ্যালিটে, অরলিয়েন্সের প্রাক্তন ডিউক এবং লুইয়ের কাজিন, লুইয়ের মৃত্যুদণ্ডের পক্ষে ভোট দেন, ফরাসী শাসকদের ভবিষ্যৎ তিক্ততার এক কারণ ছিল এটি; তিনি নিজেও একই ফাঁসির কাঠে, Place de la Révolution, গিলোটিনে মৃত্যুবরণ করবেন, সেই বছর শেষ হওয়ার আগেই, ৬ নভেম্বর ১৭৯৩ সালে।[৫৮]

পরেরদিন, ষোড়শ লুইয়ের মৃত্যুদণ্ড মওকুফ করার একটি প্রস্তাব ভোটে বাতিল হয়ঃ সহকারীদের ৩১০ জন ক্ষমার অনুরোধ করেন, কিন্তু ৩৮০ জন ভোট করেন মৃত্যুদণ্ড তাৎক্ষনিকভাবে কার্যকর করার পক্ষে। এই সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হবে। মেলশেরবেস লুইকে সংবাদটি দিতে এবগ তিক্ততার সাথে রায় নিয়ে শোক প্রকাশ করতে চান, কিন্তু লুই তাকে বলেন যে তিনি তার সাথে আরও আনন্দের এক জীবনে দেখা করবেন এবং তার মত বন্ধুকে পেছনে ফেলে যাওয়াকে আফসোস করবেন। লুই তাকে যে সর্বশেষ কথাটি বলেন তা হল যে তিনি তার অশ্রুসংবরণ করতে চান কারণ সকল চোখ তার ওপরে থাকবে।[৫৯]

সোমবার, ২১ জানুয়ারি ১৭৯৩ সালে, ষোড়শ লুই'এর, ৩৮ বছর বয়সে, বিপ্লবের স্থানে গিলোটিন দ্বারা শিরচ্ছেদ করা হয়। ষোড়শ লুই যখন ফাঁসির মঞ্চে ওঠেন, তাকে সম্মানিত এবং নিরুপায় মনে হয়। তিনি একটি ছোট ভাষণ দেন যাতে তিনি তাদের ক্ষমা করেন "... যারা আমার মৃত্যুর কারণ..."।[৬০] তারপর তিনি তার বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বিরুদ্ধে নিজেকে নির্দোষ ঘোষণা করেন, এই প্রার্থনা করে যে তার রক্ত যেন ফ্রান্সের ওপরে না পড়ে।[৬১] অনেকের বিবরণ অনুযায়ী ষোড়শ লুই আরও কিছু বলতে চেয়েছিলেন, কিন্তু অ্যান্টয়েন জোসেফ স্যান্টেরে, ন্যাশনাল গার্ডের একজন জেনারেল, ড্রাম বাজানোর নির্দেশ দিয়ে ভাষণটি থামিয়ে দেন। তারপর দ্রুত প্রাক্তন রাজার শিরচ্ছেদ করা হয়।[৬২] লুইয়ের শিরচ্ছেদের কিছু বর্ণনা ইঙ্গিত করে যে ব্লেডটি প্রথমবার তার ঘাড় পুরোপুরি কাটতে পারেনি। ব্লেড পরার পরে লুইয়ের রক্ত- জমাট করা এক চিৎকারের বর্ণনাও আছে কিন্তু যা ঘটার সম্ভাবনা কম, যেহেতু ব্লেড লুইয়ের মেরুদণ্ড ছিন্ন করে দিয়েছিল। জল্লাদ, চার্লস হেনরি স্যানসন, সাক্ষ্য দেন যে প্রাক্তন রাজা সাহসিকতার সাথে মৃত্যুকে বরণ করেন।[৬৩]

তার মৃত্যুদণ্ডের ঠিক পরপরই, ষোড়শ লুইয়ের মৃতদেহ একটি ঘোড়ার গাড়িতে করে পার্শ্ববর্তী ম্যাডেলেইন গোরস্থানে নিয়ে যাওয়া হয়, রু দে-আঞ্জু-তে অবস্থিত, যেখানে বিপ্লবের স্থানে গিলোটিনে মৃতদের গণকবর দেওয়া হত। তাকে কবর দেওয়ার আগে, ম্যাডেলেইন গির্জায় (১৭৯৯ সালে ধ্বংসপ্রাপ্ত) দুইজন পাদ্রী যারা পাদ্রীদের বেসামরিক সংবিধানের কাছে আনুগত্য স্বীকার করেছেন তাদের দ্বারা একটি সংক্ষিপ্ত ধর্মীয় অনুষ্ঠান করা হয়। এর পরে, ষোড়শ লুইকে, তার ছিন্ন মস্তক তার দুই পায়ের ফাকে রেখে, তার দেহের ওপরে কলিচুন দিয়ে, একটি চিহ্নহীন কবরে দাফন করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] ম্যাডেলেইন গোরস্থান ১৭৯৪ সালে বন্ধ করে দেওয়া হয়। ১৮১৫ সালে অষ্টাদশ লুই তার ভাই ষোড়শ লুই এবং ভাবি মেরি-অ্যান্টোয়নেটের দেহাবশিস্ট ফ্রান্সের রাজা-রানীদের রাজকীয় কবরস্থান, ব্যাসিলিকা অফ সেইন্ট ডেনিস-এ, স্থানান্তর করে কবর দেন। ১৮১৬ থেকে ১৮২৬-এর মধ্যে, একটি স্মারক, Chapelle expiatoire, সাবেক কবরস্থান এবং গির্জার স্থানে নির্মাণ করা হয়।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

যখন লুইয়ের রক্ত মাটিতে পড়ছিল, কয়েকজন দর্শক সামনে এগিয়ে আসেন তাদের রুমাল এতে ভেজানোর জন্যে।[৬৪] ষোড়শ লুইয়ের শিরচ্ছেদের রক্ত বলে অনুমিত এবং তার পূর্বপুরুষ, ফ্রান্সের চতুর্থ হেনরি-এর মমিকৃত মাথা বলে মনে করা একটি নমুনা থেকে উৎসারিত টিস্যুকলার মধ্যে ডিএনএ তুলনার পরে এই বর্ণনাটি ২০১২ সালে সত্য বলে প্রমাণিত হয়। রক্তটির নমুনা ফরাসী বিপ্লবের নায়কদের সম্মানের জন্য খোঁদাই করা একটি স্কোয়াশ লাউ থেকে নেওয়া হয়, যাতে কিংবদন্তী অনুযায়ী, লুইয়ের রক্তে ডোবান রুমালগুলোর একটি রাখা ছিল।[৬৫]

উত্তরাধিকার[সম্পাদনা]

ষোড়শ লুই এবং মেরি অ্যান্টোয়নেটের স্মৃতিস্তম্ভ, সেইন্ট-ডেনিসের ব্যাসিলিকায় এদমা গাউল এবং পিয়ের পেতিতত-এর ভাস্কর্য

উনবিংশ শতাব্দীর ঐতিহাসিক, জুলস মিশেলেট ফরাসী রাজতন্ত্রের পুনঃপ্রতিষ্ঠার জন্যে ষোড়শ লুইয়ের মৃত্যুদণ্ডের ফলে উৎপন্ন সহানুভূতিকে কারণ হিসেবে উল্লেখ করেন। বিশেষ করে, মিশেলেটের Histoire de la Révolution Française এবং আলফন্সে দে ল্যামারটিনে'র Histoire des Girondins, বিপ্লবের রাজহত্যার কারণে জাগ্রত অনুভূতি প্রদর্শন করে। দুই লেখকের একই সামাজিক- রাজনৈতিক দৃষ্টি ছিলনা, কিন্তু তারা একমত হন যে, যদিও ১৭৯২ সালে রাজতন্ত্র সঠিকভাবে সমাপ্ত হয়, রাজকীয় পরিবারের জীবন রক্ষা করা উচিৎ ছিল। সেই সময়ে সমবেদনার অভাব বিপ্লবী সহিংসতার চরমপন্থায় এবং ফরাসীদের মধ্যে বিভক্ততায় অবদান রাখে। বিংশ শতাব্দীর ঔপন্যাসিক আলবার্ট কামু'র জন্যে মৃত্যুদণ্ডটি ইতিহাসে ঈশ্বরের ভূমিকার সমাপ্তি নির্দেশ করে, যার জন্য তিনি শোক প্রকাশ করেন। বিংশ শতাব্দীর দার্শনিক জা-ফ্রাঙ্কোয়া লায়োটারড'এর জন্যে রাজহত্যাটি সকল ফরাসী মননের আদ্যস্থল ছিল, যার স্মৃতি মনে করিয়ে দেয় অপরাধের চিহ্নের মাধ্যমে ফরাসী আধুনিকতার সূচনা।[৬৬]

হেনরি এসেক্স এজওয়ারথ-এর মৃত্যুশয্যায় ডাচেস অফ আঙ্গুলেমে, ষোড়শ লুইয়ের স্বীকারোক্তি শোনা পাদ্রী, অ্যালেকজান্ডার মেঞ্জউদ কর্তৃক আঁকা, ১৮১৭

লুইয়ের কন্যা, মেরি-থেরেসে-শারলট, আঙ্গুলমের ভবিষ্যৎ ডাচেস, ফরাসী বিপ্লবে বেঁচে যান, এবং তিনি রোমে সক্রিয়ভাবে তার পিতাকে ক্যাথলিক গির্জার একজন সন্ত হিসেবে ঘোষণা দেওয়ার জন্যে আহ্বান করেন। "পাদ্রীদের বেসামরিক সংবিধানে" তার সাক্ষর দেওয়ার পরেও, ১৭৯৩ সালে ষষ্ঠ পোপ পিয়াস তাকে শহীদ বলে বর্ণনা করেন।[৬৭] কিন্তু ১৮২০ সালে, রোমে শেষকৃত্যের সম্মেলনে'র একটি স্মারকলিপি, লুইকে ধর্মীয় কারণে নয় বরং রাজনৈতিক কারণে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছে এই অসম্ভাব্যতায় সন্ত ঘোষণার আশার ইতি টানে।

চলচ্চিত্র ও সাহিত্যে[সম্পাদনা]

রাজা ষোড়শ লুইকে অসংখ্য চলচ্চিত্রে চরিত্রায়ন করা হয়েছে। ক্যাপ্টেন অফ দ্যা গার্ডে (১৯৩০), স্টুয়ারট হোমস তার চরিত্রে অভিনয় করেন। মেরি অ্যান্টোয়নেটে (১৯৩৮), রবার্ট মরলি তার চরিত্র রুপায়ন করেন। জা-ফ্রাঙ্কোয়া বাল্মার ১৯৮৯ সালে দুই-অংশের লা রেভলুশন ফ্রাঙ্কাইজে তার চরিত্রে অভিনয় করেন। সাম্প্রতিককালে, ২০০৬ সালের চলচ্চিত্র জেসন শোয়ারটজমেন মেরি অ্যান্টোয়নেটে তার চরিত্রে অভিনয় করেন।। সাচা গুইত্রি'র সি ভার্সাই ম'এতাত কন্তে'তে, লুইয়ের চরিত্র রুপায়ন করেন চলচ্চিত্রটির একজন প্রযোজক, গিলবারট বোকানওস্কি, গিলবারট বোকা ছদ্মনামে। কিছু চরিত্রায়ন একজন আনাড়ি, প্রায় বোকা রাজা চিত্রায়িত করে, যেমন ১৯৫৬ সালের জাক মোরেল-এর ফরাসী চলচ্চিত্র মেরি অ্যান্টোয়নেট রেইন দে ফ্রান্স এবং টেরেন্স বাডের লাইভ অ্যাকশন চলচ্চিত্র লেডি অস্কার-এ। স্টার্ট দ্যা রেভলুশন উইদাউট মি-তে হিউ গ্রিফিথ ষোড়শ লুইকে একজন হাস্যকর অসতীপতি হিসেবে চরিত্রায়ন করেন। মেল ব্রুকস ষোড়শ লুইয়ের হাস্যকর এক রুপে দ্যা হিস্টোরি অফ দ্যা ওয়ার্ল্ড পার্ট ১-এ অভিনয় করেন, তাকে একজন কামুক হিসেবে চিত্রায়ন করে যিনি কৃষকদের এত পরিমাণে অপছন্দ করেন যে তাদেরকে তিনি স্কিট শুটিংয়ের নিশানা হিসেবে ব্যবহার করেন। ১৯৯৬ সালের চলচ্চিত্র রিডিকুল; আরবাইন ক্যান্সেলিয়ের লুইয়ের চরিত্রে অভিনয় করেন।

ষোড়শ লুইকে উপন্যাসেও চরিত্রায়ন করা হয়েছে, ইফ ইট হ্যাড হ্যাপেন্ড আদারওয়াইজ (১৯৩১)-এ সঙ্কলিত দুটি পরিবর্তিত ইতিহাসসহঃ হিলেইর বেলক-এর "ইফ দ্রুয়েট'স কার্ট হ্যাড স্টাক" এবং আন্দ্রে মউরইস রচিত "ইফ লুই হ্যাড হ্যাড অ্যান অ্যাটম অফ ফার্মনেস," যেগুলো সম্পূর্ণ আলাদা গল্প বর্ণনা করে, কিন্তু উভয়ই লুইয়ের মৃত্যুর হাত এড়ানো এবং উনবিংশ শতাব্দীতেও রাজত্ব করছেন কল্পনা করে। রবার্ট লসান রচিত শিশুতোষ গ্রন্থ বেন এন্ড মি-এ লুই চরিত্রায়িত হন কিন্তু বইটির উপর ভিত্তি করা ১৯৫৩ সালের সংক্ষিপ্ত এনিমেটেড চলচ্চিত্রে তার চরিত্র ছিলনা।

পূর্বপুরুষ[সম্পাদনা]

পদবী, শৈলী, সম্মান এবং শস্ত্র[সম্পাদনা]

চতুর্দশ লুইয়ের রাজকীয় শৈলীটেমপ্লেট:Infobox French Royalty stylesটেমপ্লেট:Infobox French Royalty styles

পদবী এবং শৈলী[সম্পাদনা]

  • ২৩ আগস্ট ১৭৫৪- ২০ ডিসেম্বর ১৭৬৫: বেরির মাননীয় ডিউক
  • ২০ ডিসেম্বর ১৭৬৫- ১০ মে ১৭৭৪: ফ্রান্সের মাননীয় জ্যেষ্ঠ পুত্র
  • ১০ মে ১৭৭৪- ৪ সেপ্টেম্বর ১৭৯১: ফ্রান্সের সর্বাধিক মহামান্য খ্রিস্টান রাজা
  • ৪ সেপ্টেম্বর ১৭৯১- ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২: ফ্রান্সের মহামান্য রাজা
  • ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২- ২১ জানুয়ারী ১৭৯৩: নাগরিক লুই ক্যাপেট

বিপ্লবের আগে লুইয়ের আনুষ্ঠানিক শৈলী ছিল "Louis XVI, par la grâce de Dieu, roi de France et de Navarre", অথবা "চতুর্দশ লুই, ঈশ্বরের কৃপায়, ফ্রান্স এবং নাভারের রাজা।"

পদবী[সম্পাদনা]

শস্ত্র[সম্পাদনা]

লুইয়ের কুলচিহ্নটেমপ্লেট:Infobox COA wide

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Genealogie ascendante jusqu'au quatrieme degre inclusivement de tous les Rois et Princes de maisons souveraines de l'Europe actuellement vivans [Genealogy up to the fourth degree inclusive of all the Kings and Princes of sovereign houses of Europe currently living] (ফরাসি ভাষায়)। Bourdeaux: Frederic Guillaume Birnstiel। ১৭৬৮। পৃষ্ঠা 11। 

গ্রন্থপঞ্জি

  • Baecque, Antoine De. "From Royal Dignity to Republican Austerity: the Ritual for the Reception of Louis XVI in the French National Assembly (1789–1792)." Journal of Modern History 1994 66(4): 671–696. JSTOR.org
  • Burley, Peter. "A Bankrupt Regime." History Today (January 1984) 34:36–42.আইএসএসএন 0018-2753 Fulltext in EBSCO
  • Doyle, William. Origins of the French Revolution (3rd ed. 1999) online edition
  • Doyle, William. "The Execution of Louis XVI and the End of the French Monarchy." History Review. (2000) pp 21+ Questia.com, online edition
  • Doyle, William (২০০২)। The Oxford History of the French Revolution। UK: Oxford University Press। আইএসবিএন 978-0-19-925298-5  Pages 194–196 deal with the trial of Louis XVI.
  • Doyle, William, ed. Old Regime France (2001).
  • Dunn, Susan. The Deaths of Louis XVI: Regicide and the French Political Imagination. (1994). 178 pp.
  • Hardman, John. Louis XVI: The Silent King (2nd ed. 2016) 500 pages; much expanded new edition; now the standard scholarly biography
    • Hardman, John. Louis XVI: The Silent King (1994) 224 pages, an older scholarly biography
  • Hardman, John. French Politics, 1774–1789: From the Accession of Louis XVI to the Fall of the Bastille. (1995). 283 pp.
  • Jones, Colin. The Great Nation: France from Louis XV to Napoleon (2002) Amazon.com, excerpt and text search
  • Mignet, François Auguste (১৮২৪)। "History of the French Revolution from 1789 to 1814"Project Gutenberg  See Chapter VI, The National Convention, for more details on the king's trial and execution.
  • Padover, Saul K. The Life and Death of Louis XVI (1939) Questia.com, online edition
  • Price, Munro. The Road from Versailles: Louis XVI, Marie Antoinette, and the Fall of the French Monarchy (2004) 425 pp. Amazon.com, excerpt and text search; also published as The Fall of the French Monarchy: Louis XVI, Marie Antoinette and the Baron de Breteuil. (2002)
  • Schama, Simon. Citizens. A Chronicle of the French Revolution (1989), highly readable narrative by scholar Amazon.com, excerpt and text search
  • Tackett, Timothy. When the King Took Flight. (2003). 270 pp. Amazon.com, excerpt and text search

Historiography[সম্পাদনা]

  • McGill, Frank N. "Execution of Louis XVI" in McGill's History of Europe (1993) 3:161-4
  • Moncure, James A. ed. Research Guide to European Historical Biography: 1450–Present (4 vol 1992) 3:1193–1213
  • Rigney, Ann. "Toward Varennes." New Literary History 1986 18(1): 77–98 in JSTOR, on historiography

Primary sources[সম্পাদনা]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

ফ্রান্সের ষোড়শ লুই
ক্যাপেটিয়ান বংশ এর ক্যাডেট শাখা
জন্ম: ২৩ অগাস্ট ১৭৫৪ মৃত্যু: ২১ জানুয়ারি ১৭৯৩
শাসনতান্ত্রিক খেতাব|-রাজকীয় পদবী
পূর্বসূরী
পঞ্চদশ লুই
ফ্রান্সের রাজা
১০ মে ১৭৭৪– ২১ সেপ্টেম্বর ১৭৯২
১৭৯১ সাল থেকে ফ্রান্সের রাজা
শূন্য
Title next held by
সম্রাট প্রথম নেপোলিয়ন|-
রয়েল পদবী
পূর্বসূরী
লুই
ফ্রান্সের জ্যেষ্ঠ পুত্র
২০ ডিসেম্বর ১৭৬৫ – ১০ মে ১৭৭৪
উত্তরসূরী
লুই-জোসেফ