ফ্রম বাংলাদেশ (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফ্রম বাংলাদেশ
From Bangladesh
পরিচালকশাহনেওয়াজ কাকলী
চিত্রনাট্যকারশাহনেওয়াজ কাকলী
কাহিনীকারমিশু মিলন
শ্রেষ্ঠাংশে
দেশ বাংলাদেশ
ভাষাবাংলা

'ফ্রম বাংলাদেশ'(ইংরেজি: From Bangladesh) বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের প্রেক্ষাসংশ্লিষ্ট একটি নির্মাণাধীন পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র। মিশু মিলনের গল্পের ভিত্তিতে চলচ্চিত্রটির চিত্রনাট্য রচনা ও পরিচালনা করছেন শাহনেওয়াজ কাকলী। শিল্প নির্দেশনা দিয়েছেন প্রাণ রায়[১] প্রত্যক্ষভাবে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ নয় তবে মুক্তিযুদ্ধের সময় একটি হিন্দুবাড়ির পরিস্থিতি এই চলচ্চিত্রের মূল উপজীব্য। এই ছায়াচিত্রে ১৯৪৭ থেকে ১৯৭১ সাল পর্যন্ত দেখানো হয়েছে।[২] এই চলচ্চিত্রের কেন্দ্রীয় ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ফেরদৌসী মজুমদার[৩] এছাড়াও মুখ্য চরিত্রে অভিনয় করেছেন তমালিকা কর্মকার, মৌসুমী নাগ, তমা মির্জা, ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর ও গাজী আবদুন নূর প্রমুখ। এটা ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র।[৪][৫][৬][৭]

গল্পসুত্র[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রের কাহিনী বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সময় একটি হিন্দুবাড়ির পরিস্থিতি নিয়ে আবর্তিত। এই বাড়ীর মূল কর্ত্রী কাননবালা, একজন আশি বছরে বৃদ্ধা। তিনি মেজাজী- নিম্ন বর্ণের হিন্দু কিংবা অন্য ধর্মের কাউকে সহ্য করতে পারেন না এবং শুচিবায়ুগ্রস্ত। তাঁর ছেলে পরিবারের অন্যদের নিয়ে বাড়ী ছেড়ে চলে যান কিন্তু কাননবালা থেকে যান। একটা সময় একাকী কাননবালার সম্পর্ক হয় অচ্ছুত হিন্দু আর বিধর্মী মুসলিমদের সাথে। বহুবছর পর তার ছেলের স্মৃতিচারণায় ফুটে ওঠে কাননবালার একাকী জীবন।[১]

কলা কুশলী[সম্পাদনা]

'ফ্রম বাংলাদেশ' চলচ্চিত্রের কেন্দ্রীয় চরিত্র কানন বালা'র ভূমিকায় অভিনয় করেছেন ফেরদৌসী মজুমদার। এছাড়াও অভিনয় শিল্পী হিসেবে ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর[৮], তমালিকা কর্মকার, মৌসুমী নাগ, তমা মির্জা[৯], আশীষ খন্দকার[১০] গাজী আবদুন নূর ও হিল্লোলের নাম প্রকাশিত হয়েছে। চরিত্র অনুযায়ী অভিনয় শিল্পীদের নাম নিম্নরূপঃ-

  1. ফেরদৌসী মজুমদার - কাননবালা, পরিবারের প্রধান কর্ত্রী, মেজাজী ও প্রতাপশালী মহিলা।
  2. তমা মির্জা - সুফিয়া, একজন ধর্মপ্রাণ মুসলিম নারী[১১][১২]

চিত্রগ্রহণ[সম্পাদনা]

১০ অক্টোবর, ২০১৯ তারিখে মানিকগঞ্জের বেতিলায় সতুবাবুর জমিদার বাড়িতে এই চলচ্চিত্রের চিত্র গ্রহণ শুরু হয়। চিত্রনাট্যের ৯৬টি দৃশ্যের মধ্যে ৮০টি দৃশ্য বেতিলায় ধারণ করা হয়।[১] এছাড়াও গাজীপুরের পুবাইল ও মানিকগঞ্জের আরিচা ঘাট এলাকা চিত্র গ্রহণের জন্য নির্বাচন করা হয়।[১] ১০ নভেম্বর, ২০১৯ পর্যন্ত চলচ্চিত্রের চিত্র গ্রহণ করা হবে।[৬]

তথ্যসুত্র[সম্পাদনা]

  1. "মুক্তিযুদ্ধ, কাননবালা ও 'ফ্রম বাংলাদেশ'"প্রথম আলো। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  2. "'সূর্য দীঘল বাড়ি'র অফার প্রথমে আমার কাছেই এসেছিলো: ফেরদৌসী মজুমদার"The Daily Star Bangla। ২০১৯-১১-১১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-১৩ 
  3. "আবারও চলচ্চিত্রে ফেরদৌসী মজুমদার"সমকাল। ২০১৯-১০-২৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  4. "চলচ্চিত্রে অভিষেক ঊর্মিলার | banglatribune.com"Bangla Tribune। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  5. "এবার সিনেমায় ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর"www.dainikamadershomoy.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  6. "মুক্তিযুদ্ধের সিনেমায় ঊর্মিলা শ্রাবন্তী কর"banglanews24.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  7. "ছোট থেকে বড় পর্দায় ঊর্মিলা"বৈশাখী টেলিভিশন। ২০১৯-১০-২৯। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-৩১ 
  8. "'ফ্রম বাংলাদেশ'-এর একটি দৃশ্য"Kalerkantho। ২০১৯-১০-২৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-১০ 
  9. "নতুন ছবিতে তমা মির্জা"Jugantor। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  10. "তমা মির্জার 'ফ্রম বাংলাদেশ'"Protidiner Sangbad। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  11. "'আছে আলাদা এক সাসপেন্স'"মানবজমিন। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৭ 
  12. "একজন সুফিয়া 'ফ্রম বাংলাদেশ'..."BonikBarta। ২০১৯-১০-৩১। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১১-১০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

  1. 'ফ্রম বাংলাদেশ' নিয়ে পরিচালক শাহনেওয়াজ কাকলীর সাক্ষাৎকার