ফজ্জা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ফজ্জা
Fògge (নেয়াপোলিটান)
কমুনে
কমুন দি ফজ্জা
ফজ্জার ভিলা কমুনালে
ফজ্জার ভিলা কমুনালে
ফজ্জার প্রতীক
প্রতীক
ফজ্জা প্রদেশে ফজ্জার অবস্থান
ফজ্জা প্রদেশে ফজ্জার অবস্থান
দেশ ইতালি
অঞ্চল Apulia
প্রদেশফজ্জা (এফজি)
ফ্রাসিওনিআরপিনোভা, ইনকোরোনাতা, কেরভারো, তাভেরনোলা, সেগেজিয়া, দুয়ানেরা লা রোক্কা
সরকার
 • মেয়রফ্রাঙ্কো ল্যান্ডেলা (৯ জুন ২০১৪ থেকে)
আয়তন
 • মোট৫০৭ বর্গকিমি (১৯৬ বর্গমাইল)
উচ্চতা৭৬ মিটার (২৪৯ ফুট)
জনসংখ্যা (৩১/১২/২০১৩)[১]
 • মোট১,৫৩,১৪৩
 • জনঘনত্ব৩০০/বর্গকিমি (৭৮০/বর্গমাইল)
বিশেষণফজ্জীয়
সময় অঞ্চলসিইটি (ইউটিসি+১)
 • গ্রীষ্মকালীন (দিসস)সিইডিটি (ইউটিসি+২)
পোষ্ট কোড৭১১২১ - ৭১১২২ - ৭১১০০
আঞ্চলিক কোড০৮৮১
প্যাট্রন সেন্টম্যাডোনা দেই সেত্তে ভেলি
সেন্ট ডে২২ মার্চ
ওয়েবসাইটwww.comune.foggia.it

ফজ্জা (যুক্তরাজ্য: /ˈfɒdʒə/,[২] আমেরিকান: /ˈfoʊdʒə/,[৩] ইতালীয়: [ˈfɔddʒa] (এই শব্দ সম্পর্কেশুনুন); ফোগিয়ানো: Fògge [ˈfɔddʒə]) হলো দক্ষিণ ইতালির একটি শহর, অপুলিয়ার কমুন ও ফজ্জা প্রদেশের রাজধানী। ২০১৩ সালে এর জনসংখ্যা ছিল ১৫৩,১৪৩ জন। ফজ্জা ত্যাভোলিয়ের নামে একটি সমভূমির প্রধান শহর, এটি "ইতালির শস্যাগার" নামেও পরিচিত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ফজ্জায় অবস্থিত পিয়াজ্জা কাভ্যুর

"ফজ্জা" নামটি লাতিন "ফোভেয়া" থেকে এসেছে, যার অর্থ "খন্দ", এই খন্দ দ্বারা গম সংরক্ষণ করার গর্তকে বোঝায়। নামটির ব্যুৎপত্তি সম্পর্কে অবশ্য নিশ্চিত কোন তথ্য নেই, কারণ এটি "ফোকেয়া" থেকে বা সম্ভবত মধ্যযুগীয় গ্রীক শব্দ "আগুন" থেকে এসেছে, যা হচ্ছে "ফোটিয়া", কিংবদন্তী অনুসারে একাদশ শতাব্দির বসতি স্থাপনকারীরা মূলত কৃষক ছিল, মনে করা হয় যে তারা [অলৌকিকভাবে] সেখানে ম্যাডোনার চিত্র সম্বলিত একটি কপাটের খোব আবিষ্কার করেছিল, যার উপরে তিনটি অগ্নিশিখা জ্বলছিল।

নিওলিথিক কাল থেকেই এই অঞ্চলে বসতি স্থাপিত হয়েছিল এবং পরবর্তীতে আরগোস হিপ্পিয়াম নামে পরিচিত গ্রীক উপনিবেশে কাছেই বিদ্যমান ছিল (গ্রীক ভাষায়, Ἀργόριππα বা Ἀργύριπποι)।

তবে আধুনিক নগরটির অস্তিত্বের সত্যতা প্রমাণকারী প্রথম নথিটি ১০০০ খ্রিস্টাব্দে বাইজেন্টাইন সাম্রাজ্যের ক্যাতেপানাতে যুগে পাওয়া যায়। এই অঞ্চলটি জলাভূমিসদৃশ এবং অস্বাস্থ্যকর ছিল, রবার্ট গুইসকার্ড জলাভূমিটি পরিষ্কার করার নির্দেশনা দিলে এবং শহরের অর্থনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নকে উৎসাহিত করার পর এর পরিবর্তন ঘটে। একাদশ শতাব্দীর শেষ বিশ বছর এই শহরে কাউন্ট অব মন্টে স্যান্ট'আঞ্জেলো হেনরির আবাসস্থল ছিল। দ্বাদশ শতাব্দীতে সিসিলির দ্বিতীয় উইলিয়াম এখানে একটি ক্যাথেড্রাল তৈরি করেছিলেন এবং বসতি আরও বাড়িয়ে তোলেন।

১২২৩ সালে দ্বিতীয় ফ্রেডেরিক ফজ্জায় একটি প্রাসাদ নির্মান করেছিলেন, সেখানে তিনি প্রায়শই বাস করতেন। এখানে গণিতজ্ঞ এবং পন্ডিত মাইকেল স্কটের মতো উল্লেখযোগ্য ব্যক্তিত্ব সহ তাঁর আদালতের স্থান এবং একটি স্টুডিয়ামও ছিল, তবে এর অল্প কিছুই এখন অবশিষ্ট রয়েছে। ১৪৪৭ সালে আরাগোনের রাজা পঞ্চম আলফোনসো স্থানীয় ভেড়া চাষীদের কাছ থেকে রাজস্ব আদায়ের জন্য একটি শুল্ক ভবন তৈরি করেছিলেন। এর ফলে স্থানীয় অর্থনীতির অবনতি ঘটে এবং জায়গাটির ক্রমান্বয়ে ধ্বংস হয়ে যায়, এটি আবার জলাভূমিতে পরিণত হয়ে পড়ে। ১৪৫৬ সালে ফজ্জায় ভূমিকম্প আঘাত হানে, এরপর ১৫৩৪, ১৬২৭ এবং ১৭৩১ সালে পুনরায় ভূমিকম্প আঘাত হানে, সর্বশেষটির কারণে শহরের এক তৃতীয়াংশ ধ্বংস হয়ে যায়। হাউস অফ বোর্বন ক্যাপিতানাতায় খাদ্যশস্য উৎপদনকে জোরদার করে এবং বেশিরভাগ বসতি পুনর্নির্মাণের মাধ্যমে একটি নির্দিষ্ট অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধিকে উৎসাহিত করেছিল।

১৯ শতকে ফজ্জায় একটি রেলস্টেশন এবং গুরুত্বপূর্ণ সর্বজনীন স্মৃতিস্তম্ভ নির্মিত হয়। ১৮৬১ সালে ইতালি ফজ্জাকে তার অন্তর্ভুক্ত করলে ফজ্জার নাগরিকগণ দাঙ্গায় জড়িয়ে পড়ে। ১৮৬১ সালের মধ্যে, একটি কৃষি ভিত্তিক অর্থনীতির আনুকূল্যে ভেড়ার খামারের প্রথা থেকে একটি নির্দিষ্ট পরিবর্তন আসে।

১৯২৪ সালে অপুলিয়ান নালা তৈরির ফলে পানি সম্পদের ঐতিহাসিক অভাব দূর হয়েছিল, ফজ্জা ইতিমধ্যে উত্তর ও দক্ষিণ ইতালির মধ্যে একটি গুরুত্বপূর্ণ কেন্দ্র ছিল।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় মিত্রবাহিনীর বিমান বাহিনী ফজ্জার গুরুত্বপূর্ণ বিমানঘাঁটি এবং মার্শালিং চত্বরের অবস্থানের কারণে ফজ্জাতে ভারী বোমা বর্ষণ করে। ১৯৪৩ সালের ৮ সেপ্টেম্বর ক্যাসিবিলের যুদ্ধবিরতির পর অপারেশন অ্যাচ্সে দ্বারা শহরটি সংক্ষিপ্ত সময়ের জন্য জার্মান বাহিনীর দখলে ছিল। ইতালিতে মিত্র বাহিনীর আক্রমণের সময় সেখানে কিছু লড়াই হয়েছিল। পাল্টা জবাবে মিত্রবাহিনী তাদের দিকে অগ্রসর হওয়ার উপক্রম করলে ফজ্জা দখলকারী জার্মান বাহিনী ২৭ শে সেপ্টেম্বর শহর ত্যাগ করে। ১ অক্টোবরের মধ্যে ব্রিটিশ সেনারা সফলভাবে শহরটি দখল করে নেয়। ফজ্জা সমভূমির উত্তর ও পশ্চিম থেকে জার্মানদের বিদায় করার জন্য এবং বিফের্নো নদীর কাছে ভিনচিয়াতুরো-টেরমোলি রাস্তায় পৌঁছতে ব্রিটেনের জেনারেল মন্টগোমেরি তার ব্রিটিশ ১৩তম কর্পসকে ফজ্জা পেরিয়ে দুটি ডিভিশনে চালনা করেন, ৭৮ তম ডিভিশন (কখনও কখনও "ব্যাটেল এক্স ডিভিশন" নামে পরিচিত[৪]) টেরমোলির দিকে উপকূলীয় পথে চালনা করা হয় এবং ১ম কানাডীয় ডিভিশন পাহাড়ের মধ্য দিয়ে অভ্যন্তরে প্রবেশ করে। ৫ম কর্পস তাদের অনুসরণ করে পশ্চিম পার্শ্ব এবং পশ্চাদ্ভাগকে সুরক্ষা দেয়। জার্মান ১ম প্যারাশুট ডিভিশন মূলত তেরমোলির নিকটবর্তী বিফেরনো নদীর দিকে ব্যপকভাবে পশ্চাদপসারণ করে। ফজ্জা থেকে বেরিয়ে ব্রিটিশ বাহিনী অপারেশন ডেভন আরম্ভ করে এবং জার্মান নাজি বাহিনীকে টেরমোলি থেকে বিতাড়িত করতে সক্ষম হয়।[৫]

১৯৫৯ এবং ২০০৬ সালে ফজ্জা দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে ভূমিকার জন্য যথাক্রমে বেসামরিক ও সামরিক বিভাগে স্বর্ণপদক লাভ করে।

ভূগোল[সম্পাদনা]

জলবায়ু[সম্পাদনা]

ফোগগিয়ায় শুষ্ক গ্রীষ্মকাল, ভূমধ্যসাগরীয় জলবায়ু (কপেন জলবায়ু শ্রেণিবিন্যাস সিএসএ) বিদ্যমান। শীতের সময় তাপমাত্রা সাধারণত ১১-১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যে থাকে তবে তাপমাত্রা একক সংখ্যার ঘরে থাকতে পারে। গ্রীষ্মকাল খুবই উত্তপ্ত, জুলাই ও আগস্টে তাপমাত্রা প্রায়শই ৩৩-৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে (৯১-১০০ ° ফাঃ) পৌঁছে। তাপমাত্রা এক দশকে কয়েকবার ৪০° সেলসিয়াস (১০৪° ফা.) ছাড়িয়ে যায়। ১৯৮৫ সালের ৮ জানুয়ারী সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় −১০.৪° সেলসিয়াস (১৩° ফা.) এবং ২০০৭ সালের ২৭ জুন তাপমাত্রা ছিল ৪৭°সেলসিয়াস (১১৭°ফা.), এটি ছিল ইতালিতে রেকর্ড হওয়া সর্বোচ্চ তাপমাত্রা এবং ইউরোপে রেকর্ড হওয়া অন্যতম সর্বোচ্চ তাপমাত্রা।

ফজ্জা ১৯৮১-২০১০, চরমসীমা ১৯৮০--এর আবহাওয়া সংক্রান্ত তথ্য
মাস জানু ফেব্রু মার্চ এপ্রিল মে জুন জুলাই আগস্ট সেপ্টে অক্টো নভে ডিসে বছর
সর্বোচ্চ রেকর্ড °সে (°ফা) ২১.২
(৭০.২)
২২.০
(৭১.৬)
৩২.০
(৮৯.৬)
৩০.৩
(৮৬.৫)
৩৬.০
(৯৬.৮)
৪৭.০
(১১৬.৬)
৪৫.২
(১১৩.৪)
৪৩.৬
(১১০.৫)
৪৩.০
(১০৯.৪)
৩৫.৪
(৯৫.৭)
২৭.০
(৮০.৬)
২৩.৪
(৭৪.১)
৪৭.০
(১১৬.৬)
মাসিক সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ১৭.৯
(৬৪.২)
১৮.৫
(৬৫.৩)
২২.৬
(৭২.৭)
২৫.১
(৭৭.২)
৩০.৯
(৮৭.৬)
৩৬.৩
(৯৭.৩)
৩৯.১
(১০২.৪)
৩৮.৫
(১০১.৩)
৩৪.০
(৯৩.২)
২৯.৩
(৮৪.৭)
২২.৮
(৭৩.০)
১৮.৯
(৬৬.০)
৪০.৩
(১০৪.৫)
সর্বোচ্চ গড় °সে (°ফা) ১১.৮
(৫৩.২)
১২.৫
(৫৪.৫)
১৫.৭
(৬০.৩)
১৯.০
(৬৬.২)
২৪.৯
(৭৬.৮)
২৯.৪
(৮৪.৯)
৩২.৪
(৯০.৩)
৩২.৫
(৯০.৫)
২৭.৬
(৮১.৭)
২২.৭
(৭২.৯)
১৬.৬
(৬১.৯)
১২.৭
(৫৪.৯)
২১.৫
(৭০.৭)
দৈনিক গড় °সে (°ফা) ৭.৭
(৪৫.৯)
৭.৭
(৪৫.৯)
১০.৩
(৫০.৫)
১৩.১
(৫৫.৬)
১৮.৩
(৬৪.৯)
২২.৬
(৭২.৭)
২৫.৬
(৭৮.১)
২৫.৮
(৭৮.৪)
২১.৫
(৭০.৭)
১৭.৩
(৬৩.১)
১২.১
(৫৩.৮)
৮.৭
(৪৭.৭)
১৫.৯
(৬০.৬)
সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) ৩.৩
(৩৭.৯)
২.৯
(৩৭.২)
৪.৯
(৪০.৮)
৭.৩
(৪৫.১)
১১.৭
(৫৩.১)
১৫.৯
(৬০.৬)
১৮.৮
(৬৫.৮)
১৯.০
(৬৬.২)
১৫.৫
(৫৯.৯)
১২.০
(৫৩.৬)
৭.৬
(৪৫.৭)
৪.৭
(৪০.৫)
১০.৩
(৫০.৫)
মাসিক সর্বনিম্ন গড় °সে (°ফা) −৩.০
(২৬.৬)
−২.৬
(২৭.৩)
−১.১
(৩০.০)
১.১
(৩৪.০)
৫.৮
(৪২.৪)
৯.৯
(৪৯.৮)
১৩.১
(৫৫.৬)
১৪.২
(৫৭.৬)
১০.৪
(৫০.৭)
৪.৮
(৪০.৬)
০.৭
(৩৩.৩)
−১.৭
(২৮.৯)
−৪.৪
(২৪.১)
সর্বনিম্ন রেকর্ড °সে (°ফা) −১০.৪
(১৩.৩)
−৬.০
(২১.২)
−৫.০
(২৩.০)
−৪.০
(২৪.৮)
০.৩
(৩২.৫)
২.৮
(৩৭.০)
৬.০
(৪২.৮)
১০.০
(৫০.০)
৬.৪
(৪৩.৫)
০.০
(৩২.০)
−২.৮
(২৭.০)
−৫.০
(২৩.০)
−১০.৪
(১৩.৩)
বৃষ্টিপাতের গড় মিমি (ইঞ্চি) ৪৪.৬০
(১.৭৬)
৩৯.৩৭
(১.৫৫)
৪১.৭৩
(১.৬৪)
৩৯.০১
(১.৫৪)
৩১.৫২
(১.২৪)
৪২.৪৬
(১.৬৭)
২১.৬৫
(০.৮৫)
৩৯.৮২
(১.৫৭)
৪৩.১৫
(১.৭০)
৫০.৩৯
(১.৯৮)
৪৮.৯৮
(১.৯৩)
৬৯.৩৪
(২.৭৩)
৫১২.০৩
(২০.১৬)
আপেক্ষিক আদ্রতার গড় (%) ৮২.১ ৭৭.৭ ৭৫.৫ ৭৩.৪ ৬৭.৭ ৬১.৭ ৫৮.১ ৬১.১ ৬৯.৭ ৭৬.২ ৮১.৬ ৮২.৭ ৭২.৩
উৎস: Il Meteo[৬]

সরকার[সম্পাদনা]

প্রধান দর্শনীয় স্থান[সম্পাদনা]

ফজ্জা, অর্পির পথে থেকে ক্যাথেড্রাল এর ছবি
  • সান্তা মারিয়া দে ফোভেয়া ক্যাথেড্রাল, যা সরাসরি পৃষ্ঠপোষক সন্ত "ম্যাডোনা দেই সেত্তে ভেলি" (সাত পর্দার ম্যাডোনা) এর সাথে যুক্ত। এই দর্শনীয় স্থানে দুই স্তরের স্থাপত্য শৈলী রয়েছে: নীচের অংশটি রোমানেস্কের মতো, অনেক আপুলিয়ান গীর্জার মতো; উপরের অংশটি বারোকের একটি উল্লেখযোগ্য উদাহরণ। ভূমিকম্পের ফলে ঐতিহাসিক কেন্দ্রের একটি বৃহৎ অংশ ধ্বংসপ্রাপ্ত হলে উপরের অংশটি পুনর্গঠন করা হয়েছে।
  • পলাজ্জো দোগানা, ভেড়া প্রথার ঐতিহাসিক স্থান । ২০১৩ সালের জুলাই ইউনেস্কো এই প্রাসাদটিকে তার শতাব্দীর পর শতাব্দী সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের ভূমিকার জন্য "শান্তির সংস্কৃতির বার্তাবহ স্মৃতিসৌধ" হিসাবে নির্বাচিত করে।
  • চিয়েসা দেল্লে ক্রোসি ("চার্চ অফ দ্য ক্রস")।
  • আই ট্রে আরচি ("তিন তোরণ")।
  • আরকো দি ফেদেরিকো দ্বিতীয় ("ফ্রেডেরিক এর দ্বিতীয় আর্চ")।
  • পাসো দি কর্ভোর প্রত্নতাত্ত্বিক উদ্যান।

অর্থনীতি[সম্পাদনা]

ফজ্জা একটি যোগাযোগ ও শিল্প কেন্দ্র এবং দক্ষিণ ইতালির প্রধান গমের বাজার। ফজ্জা তার তরমুজ এবং টমেটো জন্য বিখ্যাত।[৭]

যদিও আগের তুলনায় কম গুরুত্বপূর্ণ তবে কৃষি খাতটি এখনো ফজ্জার অর্থনীতির মূল ভিত্তি হিসাবে রয়ে গেছে। এই অঞ্চলটির ডাকনাম হয়েছে "ইতালির শস্যাগার"। এখানে স্থাপিত কয়েকটি শিল্পকারখানার বেশিরভাগই খাদ্য প্রক্রিয়াকরণে জড়িত। কারুশিল্পকেও উৎসাহিত করা হয় এবং বিকশিত করা হয়।

পরিবহন[সম্পাদনা]

১৮৬৪ সালে অ্যাড্রিয়াটিক রেলপথের (আনকোনা–লেসে) অংশ হিসাবে ফজ্জায় রেলস্টেশন নির্মিত হয় এবং এটি নেপলস-ফজ্জা রেলপথের শেষপ্রান্ত। এটি ফজ্জা–ম্যানফ্রেডোনিয়া, লুসেরা–ফজ্জা এবং ফজ্জা–পোতেনজা রেলপথের মাধ্যমিক লাইনের সংযোগস্থল, যা ফজ্জাকে দক্ষিণ ইতালির সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে সংযোগস্থল এবং পুরো ইতালির তৃতীয় গুরুত্বপূর্ণ রেলওয়ে সংযোগস্থল। ফজ্জা গিনো লিসা বিমানবন্দর দ্বারা সেবা প্রদান করে,এটি ত্রেমিতি দ্বীপপুঞ্জ এবং ভিয়েস্তে যাওয়ার জন্য হেলিকপ্টার দিয়ে পরিচালিত সরাসরি উড্ডয়ন সেবা দেয়।

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

ফজ্জার স্টেডিয়ামটির নামকরণ করা হয়েছে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় নিহত বাস্কেটবলের স্থানীয় পথিকৃৎ পিনো জ্যাকচেরিয়ার নামে। কোচ জেদেনেক জেমানের নেতৃত্বে টোটাল ফুটবলের দৃষ্টিনন্দন উপস্তাপনার জন্য শহরের ফুটবল দল ফজ্জা ১৯৯০ এর দশকের গোড়ার দিকে খুব জনপ্রিয়তা লাভ করে। ইউ.এস. ফজ্জা বর্তমানে সেরি সি-তে (ইতালির তৃতীয় সর্বোচ্চ ফুটবল বিভাগ) খেলে।

২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিত ফজ্জা ইউরোপীয় ক্যাডেট এবং জুনিয়র ফেন্সিং চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করে।[৮]

উল্লেখযোগ্য ব্যক্তি[সম্পাদনা]

আন্তর্জাতিক সম্পর্ক[সম্পাদনা]

যমজ শহর - সংযুক্ত শহর[সম্পাদনা]

ফজ্জার যমজ হচ্ছে::[৯]

সংস্কৃতিতে জনপ্রিয়[সম্পাদনা]

টেলিভিশন সিরিজ অল ইন দ্য ফ্যামিলি-তে অভিনয়কারি আর্চি বাঙ্কার সেনাবাহিনীর বিমান কর্পসে থাকাকালীন ফজ্জায় সময় কাটিয়েছিলেন।

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সকল জনসংখ্যা বিষয়ক এবং অন্যান্য পরিসংখ্যান ইতালীয় পরিসংখ্যান ইনস্টিটিউট থেকে প্রাপ্ত (ইস্তাত).
  2. "Foggia"অক্সফোর্ড ডিকশনারি ইউকে ডিকশনারি (ইংরেজি ভাষায়)। অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস। সংগ্রহের তারিখ ১৯ মে ২০১৯ 
  3. টেমপ্লেট:Cite American Heritage Dictionary
  4. "Badge, Formation, 78th Infantry Division & 11th Infantry Brigade"Imperial War Museums। ১৯৪২-০৫-২৫। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-১২ 
  5. Blumenson, Martin (১৫ আগস্ট ২০১৪)। United States Army in WWII - the Mediterranean - Salerno to Cassino (Illus. সংস্করণ)। Lucknow Books। পৃষ্ঠা 255। আইএসবিএন 978-1-78289-410-0 
  6. "Che tempo faceva a Foggia" (ইতালীয় ভাষায়)। ilmeteo.it। সংগ্রহের তারিখ ফেব্রুয়ারি ১৯, ২০১৯ 
  7. Italy World Club: Foggia, Puglia (Apulia), Italy
  8. "European Fencing Championship Junior and Cadets, Foggia 2019"FoggiaFencing 2019। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০৮-১২ 
  9. "Non solo Göppingen, ecco tutti i gemellaggi di Foggia"foggiareporter.it (ইতালীয় ভাষায়)। Foggia Reporter। ২০১৮-১২-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-১৪ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:ফজ্জা প্রদেশ