প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি
প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি.jpg
প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি (ডানে) দাঁড়িয়ে আছেন গণযুদ্ধ প্রাদেশিক কমিটির সেক্রেটারি রামকৃষ্ণের সাথে
মৃত্যু ওয়ারঙ্গল, অন্ধ্রপ্রদেশ
জাতীয়তা ভারতীয়
অন্য নাম সূর্য, বিকাশ
শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ওসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়
পেশা পেশাদার বিপ্লবী
প্রতিষ্ঠান ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)
যে জন্য পরিচিত ভারতের মাওবাদী আন্দোলন

প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি (ইংরেজি: Patel Sudhakar Reddy) (মৃত্যু: ২৩ মে, ২০০৯) একজন ভারতীয় মাওবাদী নেতা যিনি ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)র কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন।

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

প্যাটেল সুধাকর অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্যের মহবুবনগর জেলার কুর্থিরাভুলাচেরুভু গ্রামের বাসিন্দা ছিলেন। তিনি ছিলেন জমিদার ও বিত্তবান পরিবারের একমাত্র সন্তান। বিপ্লবী বামপন্থী রাজনীতিতে যোগদান করেন ছাত্রাবস্থাতেই। গারোয়াল এলাকায় মাওবাদ ভাবাপন্ন র‍্যাডিকাল স্টুডেন্ট এসোসিয়েশন এর সদস্য হন। তিনি ওসমানিয়া বিশ্ববিদ্যালয়তে ইঞ্জিনিয়ারিং পড়তেন এবং স্বর্ণপদক প্রাপ্ত হন।[১]

রাজনীতি[সম্পাদনা]

ছাত্র রাজনীতির সাথে যুক্ত থাকতেই কোন্ডাপল্লী সীতারামাইয়া প্রতিষ্ঠিত সিপিআই (এম এল) (জনযুদ্ধ) গোষ্ঠীতে যোগ দিয়েছিলেন প্যাটেল সুধাকর। ১৯৮৩ সালে তিনি উত্তর তেলঙ্গানার এটারনগরম - মহাদেবপুর জংগল এলাকায় গেরিলা বাহিনীর প্রধান হিসেবে কাজ করেন। পার্টির সিদ্ধান্ত অনুযায়ী পরে মহারাষ্ট্রের গড়ছিরৌলি অঞ্চলে কাজ করতে যান এবং ১৯৯২ সালে ধরা পড়ার আগে পর্যন্ত সেখানেই মাওবাদী সংগঠনের কাজে ব্যপ্ত ছিলেন। ১৯৯২ সাকে ব্যাঙ্গালোরে গ্রেপ্তার হয়ে আট বছর কারাবাস করেন তিনি। ১৯৯৮ তে জেল থেকে মুক্তি পেয়ে পূনরায় দণ্ডকারণ্য ও অন্ধ্রপ্রদেশ এর বিভিন্ন এলাকায় বিপ্লবী আন্দোলনের সাথে যুক্ত ছিলেন। ২০০৫ সালে ভারতীয় মাওবাদী পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও কেন্দ্রীয় সামরিক কমিশনের সদস্যও নির্বাচিত হয়েছিলেন। তিনি দলের অভ্যন্তরে সূর্যম ও বিকাশ নামেও পরিচিত ছিলেন।[২]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

২০০৯ সালের ২৩ মে, ওয়ারঙ্গল জেলায় ভারতীয় নিরাপত্তাবাহিনীর সঙ্গে মুখোমুখি সংঘর্ষে তার নিহত হওয়ার সংবাদ প্রচারিত হয়। একই সাথে মারা যান তাঁর সহচর আরেক মাওবাদী কর্মী ভেঙ্কাটাইয়্যা। ভারতীয় কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)র বয়ান ও অভিযোগ অনুযায়ী তাকে নাশিক থেকে আগেই গ্রেপ্তার করে অত্যাচার করার পর সাজানো সংঘর্ষে খুন করা হয়। তার মরদেহ নিজ গ্রাম কুর্থিরাভুলাচেরুভু গ্রামে পিতার সমাধির পাশে সমাহিত করা হয়।[২][৩][৪]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. G.S. RADHAKRISHNA। "Naidu-attack Maoist killed in forest"telegraphindia.com। সংগৃহীত ৮ জুন, ২০১৭ 
  2. "On the murder of two CPI(M) comrades in Andhra Pradesh"। ১৯ জুলাই, ২০০৯। সংগৃহীত ৮ জুন, ২০১৭ 
  3. "Patel Sudhakar Reddy laid to rest"thehindu.com। সংগৃহীত ৮ জুন, ২০১৭ 
  4. "Two top Maoist leaders killed in ‘encounter’"। দি হিন্দু। ২৫ মে, ২০০৯। সংগৃহীত ৮ জুন, ২০১৭