ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)
Communist Party of India (Maoist)

இந்திய பொதுவுடமைக் கட்சி (மாவோ)
भारत की कम्युनिस्ट पार्टी (माओवादी)
নেতা মুপ্পালা লক্ষ্মণ রাও ওরফে "গণপতি"
প্রতিষ্ঠা ২১ সেপ্টেম্বর ২০০৪
একীভূতকরণ  • Communist Party of India (Marxist–Leninist) People's War,
 • Maoist Communist Centre of India,
 • Communist Party of India (Marxist–Leninist) Naxalbari
Paramilitary wings  • People's Liberation Guerrilla Army: 8,000 – 9,000 (September 2013)
 • People's Militia (armed with bows, arrows, and machetes): 38,000
মতাদর্শ মার্কসবাদ-লেনিনবাদ-মাওবাদ
রাজনৈতিক অবস্থান Far-left
Motives To destroy the state machinery and establish the Indian People's Democratic Federal Republic[১]
Active region(s) India
(mainly in Red Corridor)
Status  • Under the Unlawful Activities (Prevention) Act designated as terrorist organisation by the Government of India[২]
 • Designated as Unlawful Association by the Madhya Pradesh government[২]
 • Andhra Pradesh Designated as Unlawful Association by the Andhra Pradesh government[২]
 • Designated as Unlawful Association by the Chhattisgarh government[২]
ওয়েবসাইট
People's March

ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী) বা সিপিআই (মাওবাদী) হচ্ছে ভারতের একটি মাওবাদী কমিউনিস্ট পার্টি[৩] ২০০৪ খ্রিস্টাব্দের ২১ সেপ্টেম্বর ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী) জনযুদ্ধ এবং ভারতের মাওবাদী কমিউনিস্ট সেন্টার (এমসিসিআই) মিলিত হয়ে প্রতিষ্ঠিত হয় ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মাওবাদী)। একই বছর ১৪ অক্টোবর আনুষ্ঠানিক ভাবে এই সংগঠনটির প্রতিষ্ঠা ঘোষিত হয়। ঐক্যবদ্ধ হবার মাধ্যমে সাময়িক কেন্দ্রীয় কমিটি গঠিত হয়, অন্য জনযুদ্ধ অংশের নেতা মুপ্পালা লক্ষ্মণ রাও ওরফে "গণপতি" সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।[৪] ২০১৪ সালের মে দিবসে ভারতের কমিউনিস্ট পার্টি (মার্ক্সবাদী-লেনিনবাদী) নকশালবাড়ি সিপিআই মাওবাদীদের সাথে ঐক্যবদ্ধ হয়ে একটি একক পার্টি গঠন করে।[৫] সিপিআই (মাওবাদী)কে প্রায়ই পশ্চিমবঙ্গে সংঘটিত ১৯৬৭ সালের নকশালবাড়িতে বিপ্লবী মাওবাদী আন্দোলনের কারণে নকশালবাদী হিসেবে উল্লেখ করা হয়।[৬] সিপিআই (মাওবাদী)কে ভারতে সন্ত্রাসী সংগঠন হিসাবে বেআইনী কার্যকলাপ (প্রতিরোধ) আইনের অধীনে মনোনীত করা হয়।[৭][৮][৯][১০]

২০০৬ সালে প্রধানমন্ত্রী মনমোহন সিং ভারতের জন্য নকশালদেরকে "একক বৃহত্তম অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা প্রতিদ্বন্দ্বী" হিসাবে উল্লেখ করেছিলেন,[১১][১২] এবং বলেছিলেন যে "জনসংখ্যার বঞ্চিত ও বিচ্ছিন্ন অংশ" ভারতে মাওবাদী আন্দোলনের কেন্দ্রবিন্দু গঠন করে।[১৩] সরকারি কর্মকর্তারা ঘোষণা করেছেন যে, ২০১৩ সালে, দেশের ৭৬টি জেলা "বামপন্থী চরমপন্থার" দ্বারা প্রভাবিত হয়েছে, ১০৬টি মতাদর্শগত প্রভাবের মধ্যে রয়েছে।[১৪]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এটি সিপিআই (এমএল) (পিপলস ওয়ার গ্রুপ), মাওবাদী কমিউনিস্ট সেন্টার বা এম সি সি এবং সিপিআই (এমএল) পার্টি ইউনিটি হিসাবে বিভিন্ন কমিউনিস্ট গ্রুপের সম্মিলনের মাধ্যমে গঠিত হয়। ২০০৪ সালের সেপ্টেম্বর মাসে পার্টি সংযুক্তির চুক্তিতে জনযুদ্ধ দলের তরফে সাধারণ সম্পাদক মুপ্পালা লক্ষ্মণ রাও ওরফে গনপতি ও মাওয়িস্ট কমিউনিস্ট সেন্টারের তরফে প্রশান্ত বোস একীকরণ চুক্তিতে স্বাক্ষর করেছিলেন। 

মতাদর্শ[সম্পাদনা]

সিপিআই (মাওবাদী) বিশ্বাস করে যে ভারতীয় রাষ্ট্র পরিচালিত হচ্ছে "সাম্রাজ্যবাদ, মুৎসুদ্দি বুর্জোয়া ও সামন্তবাদী প্রভুদের সহযোগিতায়।"[১৫] দক্ষিণ এশিয়া সন্ত্রাসবাদ পোর্টাল অনুযায়ী, পার্টির দুটি অংশই তাদের ২০০৪ সালের সম্মেলনের পূর্বে কমিউনিজমের ভিন্ন ভিন্ন সংস্করণগুলির সাথে সামঞ্জস্য রেখেছিল, যদিও "উভয় সংগঠন 'শ্রেণি শত্রু ধ্বংসে' তাদের বিশ্বাস রেখেছিল এবং এবং চরম সহিংসতাকে সাংগঠনিক লক্ষ্য অর্জনের উপায় হিসাবে গ্রহণ করেছিল। কোন্ডাপল্লী সীতারামাইয়া প্রতিষ্ঠিত পিপলস ওয়ার গ্রুপ (পিডব্লুজি) বা জনযুদ্ধ গোষ্ঠী একটি মার্কসবাদী-লেনিনবাদী অবস্থান পালন করে, যখন মাওবাদী কমিউনিস্ট সেন্টার অফ ইন্ডিয়া (এমসিসিআই) মাওবাদী মনোভাব নিয়েছিল। একত্রিত হওয়ার পর, অন্ধ্রপ্রদেশের পিডব্লিউজি সচিব ঘোষণা করেন যে সিপিআই-মাওবাদী তার চিন্তাভাবনা পথনির্দেশক হিসাবে তার "কার্যক্রমের সমস্ত ক্ষেত্রের মধ্যে মার্কসবাদ-লেনিনবাদ-মাওবাদ মতাদর্শিক ভিত্তিকে অনুসরণ করবে।" এই মতাদর্শ অন্তর্ভুক্ত করেছে "দীর্ঘস্থায়ী সশস্ত্র সংগ্রামের" একটি প্রতিশ্রুতি যা রাষ্ট্র ক্ষমতার দখল এবং ক্ষমতা ফিরিয়ে উদ্দেশ্যে।[৪] ২০১৪ সালের মে দিবসে গণপতি ও অজিৎ (সিপিআই (এমএল) নকশালবাড়ীর সম্পাদক) এক যৌথ বিবৃতিতে এক বিবৃতিতে জোর দিয়েছিলেন যে "একীকৃত দল মার্কসবাদ-লেনিনবাদ-মাওবাদকে পথিকৃত মতাদর্শ হিসেবে গ্রহণ করবে।"[৫]

দলের মতাদর্শ একটি "পার্টি প্রোগ্রাম"-এর মধ্যে অন্তর্ভুক্ত করা হয়। একটি দলিলে, মাওবাদীরা বিশ্বায়নকে বাজার মৌলবাদীদের জনগণের বিরুদ্ধে যুদ্ধ হিসেবে নিন্দা জানিয়েছে এবং সামাজিক নিপীড়নের একটি রূপ হিসাবে বর্ণ প্রথাকে নিন্দা জানিয়েছে। ইসলামিক মৌলবাদী ও জঙ্গী সংগঠনগুলির প্রতি মাওবাদী দলের দ্বান্দিক মত আছে। ইসলামিক জঙ্গী গোষ্ঠীর আমেরিকান সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী লড়াইকে তারা সমর্থন করে পাশাপাশি তাদের ধর্মীয় গোঁড়ামি ও মৌলবাদী দৃষ্টিকে সমালোচনার চোখে দেখে মাওবাদী নেতৃত্ব।[১৬] সিপিআই (মাওবাদী) দাবি করে যে তারা "গণ যুদ্ধ", চীনের কমিউনিস্ট পার্টি নেতা মাও সেতুং কর্তৃক গেরিলা যুদ্ধকালীন সময়ের একটি কৌশলগত পদ্ধতি, পরিচালনা করছে। তাদের শেষ উদ্দেশ্য হচ্ছে ভারতে একটি নয়া গণতান্ত্রিক বিপ্লবের মাধ্যমে "জনগণের সরকার" বা "জনতানা সরকার" প্রতিষ্ঠা করা।[১৬]

অবস্থান এবং উত্থান[সম্পাদনা]

তারা দাবি করে থাকেন যে তারা মধ্য ভারতের ছত্তিশগড়, উড়িষ্যা, বিহার, ঝাড়খন্ড, মহারাষ্ট্রপশ্চিমবঙ্গ রাজ্যগুলির কাছাকাছি বনভূমির আদিবাসীদের অধিকারের জন্য লড়াই করছেন। বর্তমানে, ঝাড়খন্ড এবং অন্ধ্র প্রদেশের প্রত্যন্ত অঞ্চলের পাশাপাশি ছত্তিশগড়, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ ও উড়িষ্যা সীমান্তের বিহার ও আদিবাসী-অধ্যুষিত এলাকায় পার্টির উপস্থিতি রয়েছে। সিপিআই (মাওবাদী) এই অঞ্চলে তার শক্তি একত্রিত করার এবং একটি সংযুক্ত বিপ্লবী এলাকা স্থাপন করার উদ্দেশ্য নিয়েছে, যা থেকে ভারতের অন্যান্য অঞ্চলে চলমান জনযুদ্ধতে অগ্রগতি ঘটানো যায়।[৪] ২০০৫ সালে প্রকাশিত একটি ফ্রন্টলাইন পত্রিকায় প্রচ্ছদ গল্পে যা ভ্রমগাঁদ তালুককে বলা হয়, যেখানে মাদিয়া গোণ্ড আদিবাসীরা বাস করে, হচ্ছে মহারাষ্ট্রে নকশাল-প্রভাবিত অঞ্চলের কেন্দ্র।[১৭] সম্প্রতি, ভারত সরকার দাবি করেছে যে ২০১৩ সালে, অন্ধ্র প্রদেশ, অরুণাচল প্রদেশ, আসাম, বিহার, ছত্তিশগড়, দিল্লি, গুজরাট, হরিয়ানা, ঝাড়খন্ড, কর্ণাটক, কেরালা, মধ্যপ্রদেশ, উড়িষ্যা, পাঞ্জাব, তামিলনাড়ু, ত্রিপুরা, উত্তরাখণ্ড, উত্তরপ্রদেশ এবং পশ্চিমবঙ্গে মতাদর্শিক "প্রভাব" ছিলো যাতে আসলে শব্দটি "বামপন্থী চরমপন্থা" হিসাবে বিবেচিত; যখন দাবি করা হয় তখন অতি "বাম"দের দ্বারা সশস্ত্র কার্যকলাপ অন্ধ্রপ্রদেশ, বিহার, ছত্তিশগড়, ঝাড়খন্ড, কর্ণাটক, কেরালা, মহারাষ্ট্র, ওড়িশা এবং পশ্চিমবঙ্গে লক্ষ্য করা যায়।[১৪]

সংগঠন[সম্পাদনা]

বর্তমান সিপিআই (মাওবাদী) -এর বর্তমান সাধারণ সম্পাদক হচ্ছেন মুপ্পালা লক্ষ্মণ রাও, যিনি উপনাম "গণপতি" ব্যবহার করেন।[১৮] আঞ্চলিক ব্যুরো গঠিত হয় দলীয় স্তরায়ন অনুসারে, যেখানে দুই বা তিনটি রাজ্য প্রতিপালিত হয়। আঞ্চলিক ব্যুরো রাজ্য কমিটি, জোনাল কমিটি, জেলা কমিটি এবং "দলমস" (সশস্ত্র স্কোয়াডগুলি)কে পরিচালনা করে।[১৯] ইয়ান মিরদাল লিখেছেন যে সিপিআই (মাওবাদী) "দি লিডারশিপ ট্রেনিং প্রোগ্রাম" এর মতো ঘটনাগুলিকেও সংগঠিত করে, যা রাষ্ট্রের ভয়াবহ অপরাধ পরিমাপের একটি স্মরণ পদ্ধতি।[২০] গোপন সংগঠন ছাড়াও মাওবাদী সমর্থক, সহানুভূতিশীল বুদ্ধিজীবীদের দ্বারা প্রকাশ্য বিভিন্ন গনসংগঠন আছে যা শহরাঞ্চলে ছাত্র, শ্রমিক ও কৃষক সংগঠন পরিচালনা করে থাকে।

পলিটব্যুরো[সম্পাদনা]

কমিউনিস্ট পার্টির নীতিমালা অনুযায়ী সিপিআই (মাওবাদী) এর সর্বোচ্চ সিদ্ধান্ত গ্রহণকারী সংস্থাটি হচ্ছে পলিটব্যুরো, তেরো বা চৌদ্দ সদস্যের মধ্যে, যাদের মধ্যে ছয়জনকে ২০০৭ এবং ২০১০ সালের মধ্যে হত্যা বা গ্রেফতার করা হয়েছিল।[২১] প্রশান্ত বোস ওরফে "কিশান-দা" এবং কটকম সুদর্শন (আনন্দ),[২২] হচ্ছেন সিপিআই (মাওবাদী) এর দুই শীর্ষ বিশিষ্ট পলিটব্যুরো সদস্য। সুধাকর ওরফে "কিরণ" সিপিআই (মাওবাদী) দলের আরেকজন পলিটব্যুরো সদস্য।[২৩] সমশের সিং শেরী ওরফে করম সিং, যিনি ২০০৫ সালের ৩০ অক্টোবর সেরিব্রাল ম্যালেরিয়া-জন্ডিসের সংক্রমণে মারা যান, তিনিও দলের পলিটব্যুরো সদস্য ছিলেন।[২৪] ২০০৫ এবং ২০১১ সালের মধ্যে, ভারত রাষ্ট্রটি বেশ কয়েকটি পলিটব্যুরো সদস্যকে আটক করে, যার মধ্যে রয়েছেন - সুশীল রায়, নারায়ণ সান্যাল (মাওবাদী), প্রমোদ মিশ্র, অমিতাভ বাগচী, কোবাড গান্ধী, বাচ্চা প্রসাদ সিং এবং অখিলেশ যাদব।[২৫] আশুতোষ টুডু[২১] এবং অঞ্জু ঠাকুর[২৬] হচ্ছেন পার্টির গ্রেফতারকৃত পলিটব্যুরো'র অন্য দুই সদস্য। নিহতদের মধ্যে, প্রাক্তন মুখপাত্র চেরুকুরি রাজকুমার ওরফে "আজাদ"[২৭][২৮][২৯] এবং গেরিলা নেতা মাল্লোজুলা কোটেশ্বর রাও ওরফে "কিষেনজি" [২৯][৩০] ছিলেন সিপিআই (মাওবাদী) দলের দুই গুরুত্বপূর্ণ পলিটব্যুরো সদস্য। এদের মধ্যে দুই প্রবীণতম সদস্য সুশীল রায় ও নারায়ণ সান্যাল অসুস্থতাজনিত কারনে জেল থেকে ছাড়া পাওয়ার পরে মারা যান।

কেন্দ্রীয় কমিটি[সম্পাদনা]

সিপিআই (মাওবাদী) -এর কেন্দ্রীয় কমিটিতে ৩২ জন সদস্য রয়েছে। পলিটব্যুরোর কাছ থেকে কেন্দ্রীয় কমিটি আদেশ গ্রহণ করে এবং তার সদস্যদের কাছে তথ্য প্রেরণ করে। ২০১০ সালে একটি সাক্ষাৎকারে আনন্দ সাংবাদিকদের বলেন, সিপিআই (মাওবাদী) কেন্দ্রীয় কমিটির ৪৫ সদস্যের মধ্যে ৮ জনকে আটক করা হয়েছে এবং ২২ জন ভারতীয় সরকারের বিভিন্ন সংস্থা কর্তৃক নিহত হয়েছে।[৩১] ১২ এপ্রিল, ২০০৮ সালে অসুস্থ হয়ে মারা যান অনুরাধা গান্ধী, যিনি সিপিআই (মাওবাদী)-র কেন্দ্রীয় কমিটির একজন বিশিষ্ট সদস্য ছিলেন।[৩২] কাদরি সত্যনারান রেড্ডি ওরফে "কোসা", থিপ্পিরি তিরুপতি ওরফে "দেবজি" এবং মল্লাজুল্য ভেনুগোপাল ওরফে "ভূপতি" দলটির অন্য তিন ক্যাডার এবং কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য।[৩৩] ২২ সেপ্টেম্বর ২০১১ পর্যন্ত, কেন্দ্রীয় কমিটির ৯ জন সদস্যকে কারাগারে আটক করা হয়েছিল, যার মধ্যে রয়েছেন - মোতি লাল সোরেন, বিষ্ণু, বারাণসী সুব্রামানিয়াম, শোভা, ঝন্টু মুখোপাধ্যায় এবং বিজয় কুমার আর্য।[২৫] আরও একজন কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য রবি শর্মাও পরে ধরা পড়েন।[৩৪] চন্দ্রমৌলি,[২৯] প্যাটেল সুধাকর রেড্ডি[২৯] এবং নর্মদা আক্কা,[২৩] যারা সশস্ত্র বাহিনী কর্তৃক নিহত হয়েছিলেন, দলটির কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন। অপর এক কেন্দ্রীয় কমিটি সদস্য সব্যসাচী পণ্ডা দলবিরোধী কাজের জন্যে গ্রেপ্তার হওয়ার আগেই বহিষ্কৃত হয়েছিলেন।

প্রকাশনা বিভাগ[সম্পাদনা]

সিপিআই (মাওবাদী)-র একটি "প্রকাশনা বিভাগ" আছে। দলের পলিটব্যুরো সদস্য হিসেবে স্বেচ্ছাসেবক ছাড়াও, সুধাকর ওরফে "কিরণ" তার প্রকাশনা বিভাগে কাজ করেন।

সামরিক কমিশন[সম্পাদনা]

কেন্দ্রীয় সামরিক কমিশন (সিএমসি) হচ্ছে সিপিআই (মাওবাদী)-র প্রধান সশস্ত্র সংস্থা, এবং এটি কেন্দ্রীয় কমিটির দ্বারা নির্মিত। সিএমসি ছাড়াও দলটি রাষ্ট্রীয় সামরিক কমিশনও উত্থাপন করেছে।[৬]:105,106 সিএমসি'র নেতৃত্বে আছেন নাম্বল কেশভ রাও ওরফে বসরাজ[৩৫] আনন্দ[৩৬] এবং অরবিন্দজী[৩৭] হচ্ছেন সিএমসি সংগঠনটির অন্য দুজন সদস্য। অনুজ ঠাকুর দলটির সিএমসি'র একজন গ্রেফতার হওয়া সদস্য।[২৬] কিষেনজী[৩৮] এবং চন্দ্রমৌরালি[২৯] সিপিআই (মাওবাদী)-এর সিএমসি সদস্য ছিলেন।

অনুমিত ক্ষমতা[সম্পাদনা]

প্রতিষ্ঠাতা সংস্থার সামরিক উইং, পিপলস লিবারেশন গেরিলা আর্মি (এমসিসিআই'র সামরিক বিভাগ) এবং পিপলস গেরিলা আর্মি (পিডব্লিউজি'র সামরিক বিভাগ) একত্রিত হয়েছিল। ঐক্যবদ্ধ সামরিক সংগঠনের নাম হয় পিপলস লিবারেশন গেরিলা আর্মি (পিএলজিএ), এবং এটি তিনটি বিভাগে বিভক্ত — বেসিক, মাধ্যমিক ও প্রধান স্কোয়াড।[৪] সমস্ত পিএলজিএ সদস্য স্বেচ্ছাসেবক এবং তারা কোনও মজুরি গ্রহণ করেন না।[৩৯] গেরিলা জোনে থাকার সময়, ইয়ান মিরদাল লক্ষ করেছিলেন যে সিপিআই (মাওবাদী) এর মহিলা ক্যাডাররা তাদের পিএলজিএর প্রায় ৪০% গঠন করেছে এবং অসংখ্য "কমান্ডের অবস্থান" পালন করেছে;[৪০] কিন্তু বর্তমানে মাওবাদী ক্যাডারদের ৬০% মহিলা সদস্য রয়েছে,[৪১] এবং ২০ থেকে ২৭টি ডিভিশনে নারী কমান্ডারগণ প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন।[৪২]

পি.ভি. রমনা, দিল্লিতে অবজারভার রিসার্চ ফাউন্ডেশন, বর্তমান শক্তি অনুমান করে যে নকশালদের ৯,০০০-১০,০০০ সশস্ত্র যোদ্ধা রয়েছে, এবং সংগে প্রায় ৬,৫০০ আগ্নেয়াস্ত্র আছে।[৪৩] ২০১৩ সালের সেপ্টেম্বর মাসের বিশ্লেষণ হিসাবে, অনুমিত যে পিএলজিএ সদস্যদের আনুমানিক সংখ্যা ১০,০০০ - ১২,০০০[৪১] থেকে কমে ৮,০০০-৯,০০০ হয়েছে।[৪৪] কিন্তু, গৌতম নভালখা প্রস্তাব করেছেন যে, গত কয়েক বছর ধরে পিএলজিএ তুলনামূলকভাবে নিজেদের শক্তিশালী করেছে, এবং ২০১৩ সালে ১২টি কোম্পানি এবং ২৫টির বেশি প্লাটুন জড় করেছে, যেখানে ২০০৮ সালে ছিল ৮টি কোম্পানি এবং ১৩টি পাল্টুন।[৪২] জন মিলিটিয়া ধনুক, তীর এবং ম্যাকেটিসিসের সাথে সশস্ত্র এবং পিএলজিএ-এর আনুমানিক ৩৮,০০০ এর কাছাকাছি যোদ্ধা রয়েছে।[৪৫]

চিকিৎসা ইউনিট[সম্পাদনা]

মাওবাদীরা বস্তারের গ্রামগুলিতে "মেডিকেল ইউনিট" গঠন করেছিলেন,[৪৬] এবং সিপিআই (মাওবাদী) "ভ্রাম্যমাণ চিকিৎসা ইউনিট" পরিচালনা করেন।[৬]:101 রাহুল পণ্ডিতা লিখেছেনঃ

উপরন্তু, সিপিআই (মাওবাদী) এর চিকিৎসা সেবা স্কোয়াডগুলি গ্রাম থেকে গ্রামে চলে যায় এবং তরুণ আদিবাসী জনগোষ্ঠীকে প্রদান করে "মৌলিক চিকিৎসা প্রশিক্ষণ" যা তাঁদেরকে তাঁদের আগের আরম্ভ করা প্রশিক্ষণের মাধ্যমে বারংবার হওয়া রোগগুলোকে সনাক্ত করতে সক্ষম করে তোলে, যাতে তারা রোগীদেরকে ভ্যাকসিন বিতরণ করতে পারে।[৬]:102

ফ্রন্ট সংগঠন[সম্পাদনা]

পার্টির ফ্রন্ট সংগঠনসমূহ হচ্ছে বিপ্লবী যুব লিগ, রথু কুলি সাংঘাম, বিপ্লবী ছাত্র ইউনিয়ন, সিঙ্গারনি কর্মী সামাক্য, বিপ্লবী কর্মী সমম্য, জানকীয়া মনুষ্য্যভাস্কর্যের কেরালা, পেরটাম কেরালা, আযানকালী পাড়া কেরালা, নজাতুদ্দেলা কেরালা এবং সারা ভারত বিপ্লবী ছাত্র ফেডারেশন,[৪৭] বিপ্লবী আদিবাসী মহিলা সংগঠন,[৩৯] এবং চেতনা নাট্য মঞ্চ।[৪৮]

কৌশল[সম্পাদনা]

শাসন কৌশল[সম্পাদনা]

মাওবাদীদের "সংগঠন নীতি" চীনা বিপ্লব এবং ভিয়েতনাম যুদ্ধ থেকে অংকন করা হয়েছে। সিপিআই (মাওবাদী) দণ্ডকারণ্যকে দশটি বিভাগে সংগঠিত করেছে, প্রতিটি তিনটি এলাকা কমিটি নিয়ে গঠিত; এবং প্রতিটি এলাকা কমিটি কতিপয় জনতানা সরকার (জনগণের সরকার) দ্বারা গঠিত। দলটি বলছে যে জনতা সরকার একটি গ্রামের গ্রামগুলির সাথে জড়িত নির্বাচন পদ্ধতির দ্বারা প্রতিষ্ঠিত এবং এর ৯টি বিভাগ রয়েছে — কৃষি, বাণিজ্য ও শিল্প, অর্থনৈতিক, ন্যায়বিচার, প্রতিরক্ষা, স্বাস্থ্য, জনসংযোগ, শিক্ষা ও সংস্কৃতি, এবং জঙ্গল।[৪৯] জনতা সরকার "ক্যাম্প স্কুলে" পার্টি কর্তৃক গোণ্ডী ভাষায় প্রকাশিত পাঠ্যপুস্তকগুলি ব্যবহার করে গণিত, সামাজিক বিজ্ঞান, রাজনীতি ও হিন্দী বিষয়ের প্রাথমিক স্তরে শিক্ষা প্রদান করে। তারা বিজ্ঞান এবং ইতিহাসের প্রবাহে শিশুদেরকে শিক্ষিত করার জন্য ডিভিডি ব্যবহার করেন।[৫০]

তাদের রাজনৈতিক প্রতিপক্ষদের ভয় এবং তাদের নিয়ন্ত্রণ একত্রিত করার প্রচেষ্টায়, নকশালগণ কর স্থানীয় গ্রামবাসী, ব্যবসায়ীদের ওপর করারোপ করেন, "শ্রেণী শত্রু" যেমন সরকারি কর্মকর্তা ও পুলিশ কর্মকর্তাদের অপহরণ এবং হত্যা করেন এবং সাহায্য এবং পণ্য প্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করেন।[১১] সংস্থাটি তাদের বিরোধীদের বিরুদ্ধে "জন আদালত" ধারণ করছে, এবং সরকারি আদালতকে ক্যাংগারু আদালত হিসাবে বর্ণনা করা হয়েছে।[৫১][৫২] মাওবাদী নিয়ন্ত্রিত এলাকায় এই "জন আদালত" কার্যকরী।[৫৩] মাওবাদীরা তাদের কার্যকরী বিচারব্যবস্থার অধীনে সরকারী প্রতিষ্ঠানগুলিকে ধ্বংস করার জন্যও যত্ন নিয়েছে।[৫৪] তারা স্কুল ও রেললাইন উড়িয়ে দেওয়ার বেশ কয়েকটি ঘটনায় জড়িত বলে অভিযুক্ত ছিল এবং আদিবাসী ও উন্নয়ন, বিশেষ করে অশিক্ষিত গ্রামীণ জনগোষ্ঠীর কাছ থেকে তাদের নিয়ন্ত্রিত এলাকায় আধিপত্য বিস্তারের অভিযোগে তাদেরকে অভিযুক্ত করা হয়েছে।[১১][৫৫]

সামরিক কলা এবং কৌশল[সম্পাদনা]

সিপিআই (মাওবাদী) প্রত্যাখ্যান করেছে তাঁদের উল্লেখিত "প্রথাগত বুর্জোয়া গণতন্ত্রে" "যোগদানের" বিষয়টি এবং গেরিলা যুদ্ধের উপর ভিত্তি করে দীর্ঘায়িত সশস্ত্র সংগ্রামের মাধ্যমে রাজনৈতিক ক্ষমতায় অধিষ্ঠিত করার উপর জোর দেয়।[৫৬] এই কলাকৌশল গ্রামাঞ্চলে এবং দূরবর্তী এলাকায় ভিত্তি গড়ে তোলা এবং প্রথমে তাদের গেরিলা জোনে রূপান্তরিত করে, এবং তারপর শহরগুলি ঘিরে "মুক্ত অঞ্চল" হিসেবে রূপান্তর করে।[৪]

মাওবাদীদের ব্যবহৃত সামরিক অস্ত্রসস্ত্রসমূহ, যেসব বেশ কয়েকবার ধরা পড়েছে, সেগুলো হচ্ছে আরডিএক্স তার, গিলগাইয়েট স্টিক, ডেটোনেটর, দেশে তৈরি অস্ত্র, আইএনএসএএস রাইফেল, একে-৪৭, এসএলআর এবং ইমপ্রোভাইজড বিস্ফোরক ডিভাইস।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন] মাওবাদীদেরকে অভিযোগ করা হয় যে তারা চীন, মিয়ানমার ও বাংলাদেশের মাধ্যমে অস্ত্র পরিচালনা করছে।[৫৭] এ প্রসঙ্গে গণপতি বলেন, "আমাদের অস্ত্র প্রধানত স্বদেশে তৈরি। আমরা যে সমস্ত আধুনিক অস্ত্র ব্যবহার করি সেগুলো প্রধানত সরকারী বাহিনী থেকে দখল করা যখন আমরা তাদের আক্রমণ করি।"[৫৮]

সিপিআই (মাওবাদী) এর সাধারণ সম্পাদক বলছেন যে তারা আধা-সামরিক বাহিনী ও পুলিশ বাহিনীতে "নিচু স্তরের কর্মচারীদের" কাছে আহবান জানান যে তারা যেন তাঁদেরকে আক্রমণ না করে, বরং "জনসাধারণের সাথে হাত মিলিয়ে" এবং "সচেতনভাবে" তাঁদের অস্ত্রগুলোকে তাদের মাথার দিকে ঘুরিয়ে দিতে যাদেরকে মাওবাদীরা "প্রকৃত শত্রু" বলে মনে করে। তারা আরও দাবি করে যে, "কেবলমাত্র যখন সরকারি বাহিনীগুলো অস্ত্রসহ আমাদেরকে [মাওবাদীদেরকে] আক্রমণ করতে আসে তখন আমরা আত্মরক্ষায় আক্রমণ করতে পারি।"[৬]:48–49 ঝাড়খন্ডে, পুলিশ বিভিন্ন জায়গা থেকে পোস্টার উদ্ধার করেছে, যেগুলোতে লেখা ছিলো, "পুলিশ যেন গ্রিন হান্ট অপারেশন থেকে দূরে থাকে এবং দরিদ্রের বন্ধু হওয়ার চেষ্টা করে। পুলিশ জওয়ান, সিনিয়র কর্মকর্তাদের আদেশ মান্য করবেন না, পরিবর্তে জনগণের সেনাবাহিনীতে যোগ দিন।"[৫৯]

তহবিল[সম্পাদনা]

কিছু সূত্র দাবি করে যে মাওবাদীদের জন্য অর্থায়ন আসে অপহরণ, চাঁদাবাজি এবং গ্রামীণ এলাকায় যেখানে সরকারি সরকার অনুপস্থিত থাকে সেসব এলাকায় কর সংগ্রহ করার জন্য বেসরকারী প্রশাসন প্রতিষ্ঠার মাধ্যমে।[১১][৬০][৬১] ঝাড়খণ্ডের গুমলা জেলার ঘাগড়া এলাকায় এবং বিহারের গুমলা, কিশানগঞ্জ ও পূর্নিয়া জেলার কয়েকটি অঞ্চলে মাওবাদীদের অর্থায়নর আরেকটি প্রধান উৎস পপি চাষ। নক্সালপন্থীদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে যে তারা একটি জনপ্রিয় বিপ্লবের ছদ্মবেশে একটি চাঁদাবাজির অর্থনীতি চালু করেছে, খনি কোম্পানির স্থানীয় শাখার এবং অন্য ব্যবসাগুলির কাছ থেকে বিপুল পরিমাণ অর্থ উত্তোলন করে।[১১][৬২]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Myrdal, Jan। "Appendix–III"। Red Star Over India: As the Wretched of the Earth are Rising : Impressions, Reflections, and Preliminary Inferences। Kolkata: Archana Das and Subrata Das on behalf of Setu Prakashani। পৃ: 183–184। আইএসবিএন 978-93-80677-20-0ওসিএলসি 858528997। "The Dandakaranya Janathana Circars of today are the basis for the Indian People's Democratic Federal Republic of tomorrow.... In any social revolution, including the Indian New Democratic Revolution, the most crucial, central and main question is that of (state) power. Our party is striving to establish area wise power by mobilising people politically into the protracted people's war, building the people's army (in the form of guerrilla army) and destroying the state machinery of the enemy–ruling classes. It is a part of this revolutionary process that it is establishing Janathana Sarkars in Dandakaranya." 
  2. "CPI (Maoist) included in list of terrorist organizations to avoid any ambiguity"Press Information Bureau 
  3. Deepak Kapoor, AVSM PVSM, SM VSM Chief of Army Staff (India) (২০০৯)। South Asia Defence And Strategic Year Book। Pentagon Press। পৃ: 62–63। আইএসবিএন 8182743990 
  4. "Communist Party of India-Maoist (CPI-Maoist)"South Asia Terrorism Portal। Institute for Conflict Management। সংগৃহীত ১৯ জানুয়ারি ২০১০ 
  5. "CPI(ML) Naxalbari, CPI(Maoist) merge"The Hindu। The Hindu। মে ১, ২০১৪। সংগৃহীত মে ৩, ২০১৪ 
  6. Pandita, Rahul (২০১১)। Hello, Bastar : The Untold Story of India's Maoist Movement। Chennai: Westland (Tranquebar Press)। আইএসবিএন 978-93-80658-34-6ওসিএলসি 754482226 
  7. "Maoists fourth deadliest terror outfit after Taliban, IS, Boko Haram: Report" 
  8. ""Most terrorists in India are Hindus, the ones whom we have conveniently labelled 'Maoist' instead of 'Hindu'."" 
  9. http://scroll.in/article/718458/most-extremists-in-india-are-not-muslim-they-are-hindu
  10. http://www.outlookindia.com/website/story/are-most-terrorists-in-india-muslims/293911
  11. Robinson, Simon (২৯ মে ২০০৮)। "India's Secret War"Time 
  12. "India's Naxalite Rebellion: The red heart of India"The Economist (London)। ৫ নভেম্বর ২০০৯। সংগৃহীত ৩০ জানুয়ারি ২০১০ 
  13. Lancaster, John (১৩ মে ২০০৬)। "India's Ragtag Band of Maoists Takes Root Among Rural Poor"। Washington Post Foreign Service। সংগৃহীত ৩০ আগস্ট ২০১৩ 
  14. "India: Maoist Conflict Map 2014"। New Delhi: SATP। ২০১৪। সংগৃহীত ২৬ অক্টোবর ২০১৪ 
  15. Bhattacharya, Snigdhendu (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Several leaders in jail, Ganapathy had to address his fighting men"Hindustan Times (Kolkata)। সংগৃহীত ১৫ মার্চ ২০১৪ 
  16. Anand, Vinod (২০০৯)। "Naxalite ideology, strategy and tactics" (PDF)। Studies & Comments 9 – Security in South Asia: Conventional and Unconventional Factors of Destabilization (Munich: Hanns Seidel Foundation) 9: 19–32। সংগৃহীত ১৯ জানুয়ারি ২০১০ 
  17. Guerilla zone, Frontline, 22(21), 8–21 October 2005 DIONNE BUNSHA in Gadchiroli আর্কাইভ 21 February 2009 at the Wayback Machine.
  18. Pandita, Rahul (১৭ অক্টোবর ২০০৯)। ""We Shall Certainly Defeat the Government" — Somewhere in the impregnable jungles of Dandakaranya, the supreme commander of CPI (Maoist) spoke to Open on issues ranging from the Government's proposed anti-Naxal offensive to Islamist Jihadist movements"। Dandakaranya: OPEN। সংগৃহীত ১ জুন ২০১৩ 
  19. Mohan, Vishwa (৭ এপ্রিল ২০১০)। "A band of eight that calls the shots"The Times of Indiaআসল থেকে ২৭ জানুয়ারি ২০১৩-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ৭ এপ্রিল ২০১০ 
  20. Myrdal, Jan। "The Negative Possibility"। Red Star Over India: As the Wretched of the Earth are Rising : Impressions, Reflections, and Preliminary Inferences। Kolkata: Archana Das and Subrata Das on behalf of Setu Prakashani। পৃ: ১৩৮। আইএসবিএন 978-93-80677-20-0ওসিএলসি 858528997। "Yes, that The Iron Heel will use its murderous might in India to trample down any threat to its power as it has in so many other countries these last centuries is clear. Of-course, I hope that the Communist Party of India (Maoist) will be able to survive this onslaught. The statements of the General Secretary and what I read in texts such as, The Leadership Training Programme gave me some hope." 
  21. Das, Ashok; Bhattacharya, Snigdhendu (২১ মার্চ ২০১০)। "'Will take revenge if Azad is harmed'"Hindustan Times। সংগৃহীত ৮ এপ্রিল ২০১০ 
  22. Bhattacharya, Ravik (২৩ নভেম্বর ২০১২)। "Hardline strategist to replace Kishenji"Hindustan Times (Kolkata)। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৩ 
  23. Maitra, Pradip Kumar (২৭ ডিসেম্বর ২০১২)। "Woman naxal leader killed in Gadchiroli"Hindustan Times। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৩ 
  24. "2005-12-15 – document – CPN-M"Office of the United Nations High Commissioner for Human Rights। ১৫ ডিসেম্বর ২০০৫। সংগৃহীত ২৯ আগস্ট ২০১৩। "Comrade Shamsher Singh Sheri, alias comrade Sher Shing Sheri, alias com. K.S., a Central Committee and Polit Bureau member of Communist Party of India (Maoist), has passed away from us by dangerous diseases Cerebral Malaria-Jaundice. He attained martyrdom on Oct.30, 2005. It is not only a great loss of CPI (Maoist) but also a great loss of the whole proletarian's revolution. The untimely demise of comrade Karam Singh has caused a serious loss to the ongoing revolutionary struggles in India and the world as well." 
  25. Jain, Bharti (২২ সেপ্টেম্বর ২০১১)। "Ganapathy, Kishanji on top of government's most-wanted Maoists list"The Economic Times (New Delhi)। সংগৃহীত ১ জুন ২০১৩ 
  26. Mishra, Alok K. N. (২৯ মে ২০১৩)। "Maoist politburo member arrested, girlfriend flees"The Times of India (Ranchi: The Times Group)। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  27. Kumar, G. Arun; Paithari, Raghu (৩ জুলাই ২০১০)। "Maoist No. 3 Azad killed in Andhra"The Times of India। সংগৃহীত ২৬ অক্টোবর ২০১৩ 
  28. "Azad's killing: Some unanswered questions"Rediff। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৩ 
  29. Bernard D'Mello (৩ ডিসেম্বর ২০১১)। Indian 'Republic Killing Its Own Children' -- Kishenji Fought for a Better WorldMonthly Review Foundation। সংগৃহীত ১২ এপ্রিল ২০১৪ 
  30. "Thousands bid farewell to Kishenji"The Hindu (Peddapalli: The Hindu Group)। ২৮ নভেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ১২ জুন ২০১৩ 
  31. Radhakrishna, G. S. (৭ এপ্রিল ২০১০)। "Portrait of 'mastermind'"The Telegraph (Kolkata)। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৩ 
  32. Pandita, Rahul (২৬ সেপ্টেম্বর ২০০৯)। "The Rebel – She was born into privilege and could easily have chosen the easy life. But Anuradha Ghandy chose guns over roses to fight for the dispossessed."OPEN। সংগৃহীত ৩১ মে ২০১৩ 
  33. Reddy, K. Srinivas (৬ এপ্রিল ২০১০)। "Maoists from Andhra Pradesh may have planned Chhattisgarh ambush"The Hindu (Hyderabad)। সংগৃহীত ১ জুন ২০১৩ 
  34. Sen, Abhijit (১৮ আগস্ট ২০১৩)। "Jailed Red leader's wife gets bail"The Times of India (Hazaribag: The Times Group)। সংগৃহীত ২৮ আগস্ট ২০১৩ 
  35. Reddy, U. Sudhakar (২ জুন ২০১৩)। "Top Maoists' assets seized"Deccan Chronicle (Hyderabad: Deccan Chronicle Holdings Limited)। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  36. Janyala, Sreenivas (৯ এপ্রিল ২০১০)। "The men who run Dandakaranya"The Indian Express (Hyderabad: Indian Express Group)। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  37. "Chatra cops likely to seek Paswan's custody"The Times of India (Ranchi: The Times Group)। ২০ আগস্ট ২০১৩। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  38. "Who was Kishenji"Hindustan Times। Kolkata: HT Media Ltd। ২৪ নভেম্বর ২০১১। সংগৃহীত ২২ আগস্ট ২০১৩ 
  39. Roy, Arundhati (২৯ মার্চ ২০১০)। "Walking with the Comrades"Outlookআসল থেকে ১৫ অক্টোবর ২০১৩-এ আর্কাইভ করা। সংগৃহীত ১৫ অক্টোবর ২০১৩ 
  40. Myrdal, Jan। Red Star Over India: As the Wretched of the Earth are Rising : Impressions, Reflections, and Preliminary Inferences। Kolkata: Archana Das and Subrata Das on behalf of Setu Prakashaniআইএসবিএন 978-93-80677-20-0ওসিএলসি 858528997। "Young women represent about 40 percent of the Guerrilla Army of the People's Liberation. Many of them have command positions. Photo: Jan Myrdal" 
  41. Majumdar, Ushinor (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। Top Maoist Leader Ganapathi Admits To Leadership Crisis In Party। Tehelka। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১৩ 
  42. Navlakha, Gautam (৩০ মার্চ ২০১৪)। "Ambush amplifies a struggle"। Sanhati। সংগৃহীত ১৬ মে ২০১৪ 
  43. "A spectre haunting India", the Economist Volume 380 Number 8491 (19–25 August 2006)
  44. Krishna Das, R.; Makkar, Sahil; Basak, Probal; Satapathy, Dillip (২৭ সেপ্টেম্বর ২০১৩)। "Reds in retreat"Business Standard। সংগৃহীত ১০ অক্টোবর ২০১৩ 
  45. Kumar, Kamal (আগস্ট ২০১৩)। "Analysis: India's Maoist challenge"Al Jazeera। সংগৃহীত ৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  46. Satanāma (২০১০) [২০০৩]। "Walking through the jungle"Jangalnama : Inside the Maoist Guerrilla Zone। Translated from Punjabi by Vishav Bharti। New Delhi: Penguin Books। পৃ: ৯৯। আইএসবিএন 978-01-43414-45-2ওসিএলসি 634661617 
  47. "Andrapradesh: Ban on CPI Maoist and front organisations extended for one more year"Indian Vanguard। ১০ আগস্ট ২০০৯। সংগৃহীত ২৬ এপ্রিল ২০১২ 
  48. "In Pictures: India's Maoist heartland"Al Jazeera। সংগৃহীত ২৮ অক্টোবর ২০১৪ 
  49. Roy, Arundhati (২৭ মার্চ ২০১০)। "Gandhi, but with guns: Part Two"। The Guardian। সংগৃহীত ২ মে ২০১৪ 
  50. Dasgupta, Debarshi (১৭ মে ২০১০)। "My Book is Red : The word is Revolution"। Outlook। সংগৃহীত ১৮ মে ২০১৪ 
  51. "The Telegraph - Calcutta (Kolkata) - Jharkhand - Maoists behead youth"। সংগৃহীত ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  52. Deccan Chronicle, 27 August 2009 আর্কাইভ 7 March 2012 at the Wayback Machine.
  53. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; achr নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  54. Maoists use guns to enforce poverty Daily Pioneer – 1 November 2009
  55. "Naxals blast rail tracks, school in Jharkhand"IBNLive। সংগৃহীত ৭ ডিসেম্বর ২০১৪ 
  56. "The forgotten war"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। সংগৃহীত ২০১৭-০২-২৬ 
  57. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; hindu.3D2010111064221100 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  58. "Naxal Violence: Is the CPI (Maoist) Fading?"Institute of Peace and Conflict Studies (New Delhi)। ২২ নভেম্বর ২০১৩। সংগৃহীত ১০ এপ্রিল ২০১৪ 
  59. "Naxal Violence: Is the CPI (Maoist) Fading?"Institute of Peace and Conflict Studies (New Delhi)। ২২ নভেম্বর ২০১৩। সংগৃহীত ১০ এপ্রিল ২০১৪ 
  60. Zissis, Carin (২৭ নভেম্বর ২০০৮)। "Backgrounder: Terror Groups in India"। Council on Foreign Relations। সংগৃহীত ২৯ জানুয়ারি ২০১০ 
  61. Srivastava, Devyani (২০০৯)। "Terrorism & Armed Violence in India"IPCS Special Report (Institute of Peace and Conflict Studies) 71: 7–11। সংগৃহীত ২৬ আগস্ট ২০১০ 
  62. "5 suspected Naxals held for extortion"Deccan Herald। সংগৃহীত ৭ ডিসেম্বর ২০১৪