পুনিত নাথ দত্ত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সেকেন্ড লেফটেন্যান্ট পুনিত নাথ দত্ত, এসি (২৯ এপ্রিল ১৯৭৩ – ২০ জুলাই ১৯৯৭), ভারতীয় সেনার ১১ গোর্খা রাইফেলসের কর্মকর্তা ছিলেন।


পুনিত নাথ দত্ত

Puneet Nath Datt.jpg
জন্ম২৯ এপ্রিল ১৯৭৩
যোধপুর, রাজস্থান, ভারত
মৃত্যু২০ জুলাই ১৯৯৭ (বয়স ২৪)
নওশেরা, জম্মু ও কাশ্মীর, ভারত
আনুগত্য ভারত
সার্ভিস/শাখা ভারতীয় সেনাবাহিনী
কার্যকাল০৯ ডিসেম্বর ১৯৯৫ - ২০ জুলাই ১৯৯৭
পদমর্যাদাSecond Lieutenant of the Indian Army.svg সেকেন্ড লেফটেনেন্ট
সার্ভিস নম্বরIC- 53987
ইউনিট১/১১ গোর্খা
পুরস্কারAshoka Chakra ribbon.svg অশোক চক্র

জম্মু ও কাশ্মীরের শ্রীনগরের নওশেরা এলাকায় একটি তিনতলা ভবনে লুকিয়ে থাকা বিদেশি সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে পরিচালিত অভিযানে বীরত্বের জন্য তিনি মরণোত্তরভাবে ভারতের সর্বোচ্চ শান্তিকালীন বীরত্বের পুরস্কার, অশোক চক্রকে ভূষিত করেছিলেন। [১]

জীবনের প্রথমার্ধ[সম্পাদনা]

তিনি ১৯৭৩ সালের ২৯ এপ্রিল যোধপুরে জন্মগ্রহণ করেন, তাঁর একটি উজ্জ্বল একাডেমিক কেরিয়ার ছিল এবং খেলাধুলা এবং অতিরিক্ত পাঠ্যক্রমিক ক্রিয়াকলাপে গভীর আগ্রহী ছিলেন। তিনি দার্জিলিংয়ের সেন্ট বেথনির স্কুল, দেরাদুনের সেন্ট জোসেফের একাডেমি, জয়পুরের সেন্ট জাভিয়ার্স স্কুল থেকে শিক্ষালাভ করেন এবং তিনি জয়পুরের ঠাকুর পাবলিক স্কুল থেকে দ্বাদশ শ্রেণি শেষ করেছেন। তিনি স্কুলেও ফুটবল এবং রোয়িংয়ে পারদর্শী ছিলেন। শৈশবকাল জুড়েই তাঁর উচ্চাভিলাষ ছিল ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগদানের। ছোটবেলায় তিনি তার দাদার বা বাবার ইউনিফর্ম ব্যবহার করতেন, গোর্খা হ্যাট দিয়ে সম্পূর্ণ করতেন এবং অফিসার হওয়ার ভান করতেন। ছোটবেলায় তিনি তাঁর বাবার ইউনিটের গোর্খা জওয়ানদের সাথে খুব অবাধে মিশতেন এবং সাবলীল গোর্খালী কথা বলতে পারতেন। তিনি জওয়ান বা 'দাজুস' দ্বারা অর্থাৎ বড় ভাইয়ের প্রতি তাঁর খুব প্রিয় ছিলেন, কারণ তিনি তাদের সম্বোধন করেছিলেন এবং যাকে তিনি তাদের প্রিয় 'নানী' হিসাবে পরিচিত ছিলেন, যার অর্থ ছোট ছিল। হাই স্কুলে থাকাকালীন দত্ত তাঁর জীবনের লক্ষ্যের দিকে তাঁর সম্পূর্ণ মনোনিবেশ ঘুরিয়ে নিয়েছিলেন, অর্থাৎ নামকরা জাতীয় প্রতিরক্ষা একাডেমিতে প্রবেশের প্রস্তুতি নিয়ে ভারতীয় সেনাবাহিনীতে যোগদান করেছিলেন। তাঁর সংকল্প এবং কঠোর পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে তিনি ১৯৯১ সালের ডিসেম্বর মাসে এনডিএতে প্রবেশ করেন। এনডিএ-তে, তিনি একটি দুর্দান্ত রেকর্ড করেছিলেন এবং একাডেমিক এবং সামরিক উভয় বিষয়ে দক্ষতার পাশাপাশি অসামান্য আধিকারিকের কারণে তাঁর স্কোয়াড্রন - 'ইকো' এর জন্য তিনি 'ক্যাডেট সার্জেন্ট মেজর' পদক প্রাপ্ত হন। সিএসএম হিসাবে, তিনি তার স্কোয়াড্রনের জন্য মূল্যবান ক্রস কান্ট্রি শিল্ড জিতেছিলেন। রোয়িংয়ে তাঁকে তিনটি স্বর্ণপদকও দেওয়া হয়েছিল। তাঁর উদ্যোগ এবং নেতৃত্বের গুণাবলীর কারণে তিনি তাঁর কমরেডদের মধ্যে 'জোশ-টাইপ' হিসাবে বিখ্যাত ছিলেন। তিনি এতটাই দৃঢ় প্রত্যয়ী এবং তার সাথে তাঁর বাবার রেজিমেন্টে যোগ দিতে পেরেছিলেন। এনডিএতে থাকাকালীন তিনি অধ্যায়ের টেবিলে সর্বদা পালিশযুক্ত গোর্খা ক্রেস্টকে গর্বের সাথে প্রদর্শন করতেন। তিনি বাড়িতে ফিরে লিখতেন যে যখনই তিনি কোনও গোর্খা কর্মকর্তার সাথে সাক্ষাৎ করেন তখন তাঁর প্রফুল্লতা আরও বেড়ে যেত। কোষের রেজিমেন্টাল, তিনি কমিশন করার আগে এবং পরে, কোনও চাকুরীজীবি বা অবসরপ্রাপ্ত গোর্খা অফিসারের সাথে তাঁর যে কোনও তথ্য পেয়েছিলেন তার সাথে দেখা করার পথ ছাড়ার বিষয়টি তিনি একটি বিষয় হিসাবে ব্যবহার করতেন।

পরিবার[সম্পাদনা]

তাঁর বাবা মেজর প্রমোদ নাথ দত্তও গোর্খা রাইফেলসে দায়িত্ব পালন করেছিলেন এবং এই কারণেই পুনিত নাথ দত্ত একই রেজিমেন্টে যোগ দিতে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন। তাঁর দাদা কর্নেল এসএনসি বখশী ভারতীয় সেনাবাহিনীতেও কাজ করেছিলেন, যখন তাঁর চাচা ভি কেসি বখশী ভারতীয় নৌবাহিনীতে কমান্ডার ছিলেন। ২ জানুয়ারি ১৯৯৮ প্রজাতন্ত্র দিবসে মরণোত্তর অশোক চক্র তাঁর মা অনিতা দত্ত গ্রহণ করেছিলেন।[তথ্যসূত্র প্রয়োজন]

সামরিক ক্যারিয়ার[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালের ৯ ই ডিসেম্বর দত্ত ১/১১ গোর্খা রাইফেলসে কমিশন পেয়েছিলেন। তিনি তাঁর মাতৃভূমির সেবা করার জীবনের সর্বোচ্চ লক্ষ্য অর্জন করেছিলেন, যখন তিনি একটি এনকাউন্টারে অংশ নিয়েছিলেন যা নওশেরার একটি বিল্ডিংয়ে বিদেশী জঙ্গিদের উপস্থিতি সম্পর্কে সুনির্দিষ্ট তথ্যের ভিত্তিতে কর্ডোন হিসাবে অনুসন্ধান করেছিলেন এবং অনুসন্ধান অভিযান চালিয়েছিল। অপারেশনটি ২০ জুলাই ১৯৯৭ সালের প্রথম দিকে শুরু হয়েছিল এবং বিল্ডিংটি পুরোপুরি ০৪০০ ঘণ্টা ঘিরে ছিল। জঙ্গিরা ঘন জনবহুল এলাকায় অবস্থিত তিনতলা ভবনের মধ্যঅবস্থান করেত ছিল। দিনের বেলাতে যখন সন্ত্রাসীরা দেখতে পেল যে দেরকেরসেনারা া চারপাশঘিরে ে রয়েছে, তারা ভারতীয় সেনাবাহিনীর কাছে আত্মসমর্পণের পরিবর্তে নির্বিচার গুলি লি হয়েছিল। ভবনের আশেপাশে নিরীহ বেসামরিক জীবন ও সম্পদের কোনও ক্ষতি যাতে না ঘটে সেজন্য হামলা চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করার সময় সর্বোচ্চ সংযম প্রয়োগ করতে হয়েছিল। আশাহীন পরিস্থিতি দেখে এক জঙ্গি তল্লাশিতে গুলি চালিয়ে যায়। জঙ্গিদের ঁতার সৈন্যদের উপর গুলি চালানো দেখে তিনি ঁতার সৈন্যদের আড়াল করার নির্দেশ দেন এবনিজের ং ব্যক্তিগত সুরক্ষার প্রতি সম্পূর্ণ অবহেলা করে এবং জঙ্গিকর লড়াইয়ে গুলি করে। এদিকে জঙ্গিরা পালানোর চেষ্টা করছে বলে সেনাবাহিনী মনে ও উদ্যোগের অনুকরণীয় উপস্থিতি দেখিয়েছিলেন এবং ভবনের পিছনের প্রস্থানটি আটকাতে তাঁর অবস্থানকে চালিত করেছিলেন। অদম্য সস স প্রদর্শন করে তিনন আরেপলায়মান ক জঙ্গিকে গুলি করে হত্যা করেছিলেন।তিতোমধ্যে ভবনের অভ্যন্তরের অবশিষ্ট জঙ্গিরর সেনাদের উপর গুলি চালিয়ে যায় এবং ফলস্বরূপ তিনি গুরুতর আহত হন। কিন্তু তিনি হার মানন নি এবং বিদেশী ভাড়াটেদের বিরুদ্ধে তার অবিচ্ছিন্ন ক্রুসেড বজায় রেখে এবং উভয় হাতেই সাহস নিয়ে ভবনের অভ্যন্তরে একটি গ্রেনেড চালিয়ে বাকী জঙ্গিদের হত্যা কনরে এবং শত্রুদের অস্ত্র ও গোলাবারুদের যথেষ্ট পরিনেণে ধ্বংস করে ফেলেছিলেন। প্রায় এককভাবে শত্রুকে ধ্বংস করতে গিয়র বীর শাহাদাত বরণ করেছিলেন এবং তাঁর রেজিমেন্ট এবং ভারতীয় সেনাবাহিনীর একটি নতুন ইতিহাসে খোদাই করে নিজেকে অমর করে তুলেছিলেন। তাঁর সাহসিকতার জন্য এবং উদ্যোগের স্বীকৃতি হিসাবে এবং তার মাতৃভূমির থেকে জঙ্গিবাদ নির্মূল করার লক্ষ্যে তাঁর অভিযানের অনুসরনবীরত্ব প্রদর্শন করা হয়েছিল।

অশোক চক্র পুরস্কারপ্রাপ্ত[সম্পাদনা]

তাঁর সাহসিকতার জন্য এবং তার মাতৃভূমির মুখ থেকে জঙ্গিবাদ দূরীকরণের লক্ষ্যে তাঁর অভিযানের প্রয়াসে বীরত্ব প্রদর্শন করার সাহসের জন্য এবং দ্বিতীয় লেফটেন্যান্ট পুনিত নাথ দত্তকে দেশের সর্বোচ্চ শান্তিকালীন বীরত্ব পুরস্কার অশোক চক্র (মরণোত্তর) দ্বারা ভূষিত করা হয়েছিল ১৫ আগস্ট ১৯৯৭ সালে। </br>

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Article on 2nd Lt. Puneet Nath Datt ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১৬ নভেম্বর ২০০৭ তারিখে at Bharat Rakshak, Unofficial Website of the Indian Armed Forces