পিথোরাগড় জেলা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পিথোরাগড় জেলা
জেলা
গোরি নদী উপত্যকা
গোরি নদী উপত্যকা
ভারতের উত্তরাখণ্ডে অবস্থান
ভারতের উত্তরাখণ্ডে অবস্থান
স্থানাঙ্ক: ৩০°০০′ উত্তর ৮০°২০′ পূর্ব / ৩০.০০০° উত্তর ৮০.৩৩৩° পূর্ব / 30.000; 80.333স্থানাঙ্ক: ৩০°০০′ উত্তর ৮০°২০′ পূর্ব / ৩০.০০০° উত্তর ৮০.৩৩৩° পূর্ব / 30.000; 80.333
দেশ ভারত
রাজ্যউত্তরাখণ্ড
বিভাগকুমায়ুন
সদর দপ্তরপিথোরাগড়
আয়তন
 • মোট৭১১০ কিমি (২৭৫০ বর্গমাইল)
জনসংখ্যা (২০১১)
 • মোট৪,৮৪,৯৯৩
 • জনঘনত্ব৬৯/কিমি (১৮০/বর্গমাইল)
সময় অঞ্চলআইএসটি (ইউটিসি+০৫:৩০)
টেলিফোন কোড৯১ ৫৯৬৪
যানবাহন নিবন্ধনইউকে-০৫
ওয়েবসাইটpithoragarh.nic.in

পিথোরাগড় এটি ভারতের উত্তরাখণ্ড রাজ্যের পূর্বতম জেলা। এটি হিমালয়ের ৭,১১০ কিমি (২,৭৫০ মা) অঞ্চল জুড়ে অবস্থিত এবং এবং একটি জনসংখ্যা ৪,৮০,০০০ (২০১১ হিসাবে)। সওর উপত্যকায় অবস্থিত পিথোরাগড় শহরটি, এর সদর দপ্তর। জেলাটি উত্তরাখণ্ড রাজ্যের কুমায়ুন বিভাগের মধ্যে। এর উত্তরে তিব্বত মালভূমি এবং নেপাল এর পূর্বে অবস্থিত। কালী নদীটি কালাপানী থেকে উৎপন্ন হয়েছে এবং দক্ষিণে প্রবাহিত হয়ে নেপালের সাথে পূর্ব সীমানা তৈরি করেছে। কৈলাস পর্বত - মানস সরোবর এই দুই হিন্দু তীর্থস্থান যাবার পথ, বৃহত্তর হিমালয় অঞ্চলে, লিপুলেখ গিরিপথ দিয়ে এই জেলা হয়েই যায়। জেলাটি প্রশাসনিকভাবে ছয়টি তহশিলে বিভক্ত: মুন্সিয়ারি; ধরচুলা; দিদিহাট; বেরিনাগ; গঙ্গোলিঘাট; এবং পিথোরাগড়। নৈনী সায়নী বিমানবন্দরটি নিকটতম বিমানবন্দর, তবে এটির নিয়মিত নির্ধারিত বাণিজ্যিক যাত্রী পরিষেবা নেই। জেলায় যে খনিজ পদার্থগুলি পাওয়া যায় সেগুলি হল ম্যাগনেসিয়াম আকরিক, তামার আকরিক, চুনাপাথর এবং স্লেট

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

কেউ কেউ বলে এই জেলার নামটি এসেছে চন্দ রাজবংশ থেকে রাজা পিথোরা চন্দের নাম থেকে, অনেকের মতে এটি এসেছে চৌহান রাজপুত পৃথ্বী রাজ চৌহানের নাম থাকে, যিনি সওর উপত্যকায় পিথোড়া গড় নামে একটি দুর্গ তৈরি করেছিলেন।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

পাল রাজারা (কাত্যুরি রাজাদের একটি শাখা)[সম্পাদনা]

১৩৬৪ সালে, উকুর রাজওয়ারের (এখন নেপালে), রাজা ভরতপাল এই অঞ্চল জয় করার পর, ১৪শ শতাব্দীর বাকী সময় তিন প্রজন্মের পাল বংশধরেরা পিথোরাগড় শাসন করেছিলেন,এবং রাজত্বটি পিঠোরাগড় থেকে আসকোট পর্যন্ত বিস্তৃত ছিল।

বাম রাজবংশ[সম্পাদনা]

একটি তাম্রপত্র অনুসারে (খোদাই করা তামা বা পিতলের ফলক), ১৪২০ সালে পাল রাজবংশকে চন্দ রাজারা পরাজিত ও বিতাড়িত করে। বিজয় ব্রহ্ম (দোতির ব্রাহ্ম রাজবংশ) রাজা হিসাবে সাম্রাজ্যের দায়িত্ব নিয়েছিলেন। জ্ঞান চন্দের মৃত্যুর পরে, ক্ষেত্র পালের নেতৃত্বে, পাল রাজার আবার এই অঞ্চলে আধিপত্য বিস্তার করেন।

চন্দ রাজবংশ[সম্পাদনা]

মনে করা হয় যে, ১৪৪৫ সালে পিথোরাগড়ের তৎকালীন শাসক জ্ঞান চন্দের পূর্বপুরুষ ভারতী চন্দের সময়, চন্দ বংশকে বিতাড়িত করে বাম রাজত্বের শুরু হয়। ১৬শ শতকে, চন্দ রাজবংশ আবার পিথোরাগড় শহর দখল করে নেয় এবং, ১৭৯০ সালে, পাহাড়ের ওপর একটি নতুন দুর্গ তৈরী করে, এখন সেখানে গার্লস ইন্টার কলেজ অবস্থিত। ১৯৬২ সালে চীন ভারত আক্রমণ করার পরে এই দুর্গটি ভারত সরকার ধ্বংস করে দেয়।[কেন?]

সর্ব্বোচ্চ স্থানে থাকার সময়ে চন্দ রাজত্বকে কুমায়ুনের অন্যতম প্রধান সাম্রাজ্য হিসাবে দেখা হয়। তাদের শাসনকাল সাংস্কৃতিক পুনরুত্থানের সময়ের সাথেও মিলে যায়। প্রত্নতাত্ত্বিক জরিপ করে এই সময়কালের সংস্কৃতি এবং শিল্প আকারগুলির বিকাশ দেখা গেছে।

তারা এগুলি তৈরিতে অবদান রাখে এবং তারা অত্যন্ত দয়ালু এবং উদ্যোগী ছিল এবং মূলত তারা নেপাল থেকে এসেছিল। নেপালে তারা রাজত্ব করত। তারা এখানে অনেকগুলি সামাজিক বিকাশমূলক কাজ করেছিল।

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • History of Kumaun by B D Pandey.
  • Across Peaks and Passes of Kumaun Himalayas by Harish Kapadia.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

টেমপ্লেট:Pithoragarh district টেমপ্লেট:Kumaon টেমপ্লেট:Districts of Uttarakhand